|

আমি যেন গর্ব করে বলতে পারি বিদ্যালয় তুমিই সবার সেরা

প্রকাশিতঃ ৮:১১ অপরাহ্ন | এপ্রিল ২০, ২০১৮

আমি-যেন-গর্ব-করে-বলতে-পারি-মোঃ আবু নাঈম জুয়েল

বর্তমান সময়ে আমরা যারা শিক্ষিত ও অর্ধশিক্ষিত সবাই কিন্তু প্রথমে মায়ের শিক্ষা নিয়েই বড় হতে শিখেছি। আমাদের মধ্যে জ্ঞ্যানের আলো যোগ করতে ছুটে যেতে হয় স্কুল জীবনে। আর এই স্কুল জীবনে কাটানো কিছু সময়ের কথা তুলে ধরছেন চাঁদপুর সদর উপজেলার ছোট সুন্দর আমজাদ আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র মো. অাবু নাঈম জুয়েল…..

এরপর শুরু এখানে সব কিছুই ভুলে যাওয়া যায় ভুলে থাকাও সম্ভব সব কিছুকেই। আর মানুষ এই কাজটাই সবচেয়ে নিখুঁতভাবে করে থাকে। তবে সে যদি গভীর রাতে তার অতীত নিয়ে চিন্তা করতে চায় তখন সবার প্রথমেই যে স্মৃতি গুলো ভেসে উঠে তার চোখের সামনে তার মধ্যে অন্যতম স্কুল জীবন ।

আপনি আপনার জীবনে হয়তো অনেক হতাশা অনিশ্চয়তা নিরানন্দতায় ভুগে থাকবেন। কিন্তু আপনার সারা জীবনটাই কি এমন করে কেটেছে? এই প্রশ্নের জবাবে হয়তো আপনাকে বলতে হবে নাহ্ আমার জীবনে একটা সময় স্কুল জীবন ছিল।
আর আপনি যদি হয়ে থাকেন চাঁদপুর সদর উপজেলার ঐতিহ্যবাহী ছোট সুন্দর আমজাদ আলী উচ্চ বিদ্যালয় এর একজন ছাত্র। তা হলে সেই মূহুর্তেই চোখের সামনে ভেসে উঠবে ডাকাতিয়া নদীর পাশে গৌরবের সাথে দাঁড়িয়ে থাকা বিদ্যালয়টি।

যেখানে আাপনার কিশোর এবং উঠতি যৌবন মিলেমিশে একাকার। আপনার চোখে সামনে দাঁড়িয়ে থাকবেন ডাকাতিয়ার পাড় যার স্বচ্ছ পানিতে আপনার অতীত খেলা করছে মাছ হয়ে। এখানে সব কিছুই ছিল স্বপ্নের মত। প্রতিটা ক্লাস রুম প্রত্যেক প্রান প্রিয় শিক্ষক, বন্ধু-বান্ধব, বড় ভাই-আপু, স্নেহের ছোট ভাই-বোনসহ সব কিছুই যেন জীবনের ছোট একটা জীবন্ত উপন্যাস।

আমার স্কুল জীবনের স্মৃতিচারণ বলতে সবটাই খেলাধুলা। ক্লাসের লাস্ট ব্রেঞ্চে বসে করা দুষ্টুমি আর ক্লাস শেষে দলবল নিয়া নদীতে ঝাঁপ। বাড়ির কাছেই স্কুল ছিল বলেই সকাল সাতটা না বাজতেই চলে আসতাম ব্যাট আর বল নিয়ে। খেলা শুরু হওয়ার পর পরই আসত হারাধণ স্যারের বেত আর দৌঁড়ানি। কে কোথায় পালাতাম তা করো জানার কোন আগ্রহ ছিল না।

যখন সপ্তম শ্রেণীতে পড়তাম তখন অষ্টম শ্রেণীর আপুর গায়ে বল মারার অপরাধে কমন রুমে নিয়ে স্যারের জোড় বেতের আদর আজও শরীরে কাঁটা দেয়। বিকাশ স্যারের ক্লাসে গানের কলি খেলাটাও ছিল প্রতিদিনের রুটিন। নুশরাত আপুকে মাঝে মাঝে খুব মিস করি, যখন বলতে হয় আামার কোন বড় বোন নাই। বোনের অভাব পূরণে তার অবদান অপ্রতুল। এই বিদ্যালয় আমাকে অনেক কিছুই দিয়েছে। ভাইয়ের মতো কিছু বন্ধু। মাহফুজ তাদের মধ্যে অন্যতম। তার সাথে কাটানো প্রতি সময় আমি ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে দেখতে চাইবো জীবনের শেষ পর্যন্ত। ধন্যবাদ বিদ্যালয় তোমায় জীবনের শ্রেষ্ঠ উপহারটি দেওয়ার জন্য…

পরিশেষে আবারো ধন্যবাদ। জীবনকে এত সুন্দর ভাবে সাজিয়ে দেওয়ার জন্য। আজ যেখানেই যাই গর্বের সাথে বলতে পারি আমার স্কুল জীবন ছিল ছোট সুন্দর এ. আলী উচ্চ বিদ্যালয়। আমি একজন আমজাদীয়ান বিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র হিসেবে বলবো, ভবিষ্যৎ ছাত্র-ছাত্রীদের জীবন আরো সুন্দর ভাবে সাজিয়ে তাদেরকে নিয়ে যাবে সাফল্যের চূড়ায়।একটাই আশা আমি যেনো আরো গর্ব করে বলতে পারি বিদ্যালয় তুমিই সবার সেরা…

মোঃ আবু নাঈম জুয়েল
অনার্স দ্বিতীয় বর্ষ
চাঁদপুর সরকারি কলেজ

দেখা হয়েছে: 68
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন
  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।