|

ইভিএমে আগামীতে সব নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত

প্রকাশিতঃ 5:34 pm | April 09, 2019

ইভিএমে আগামীতে সব নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত

আগামীতে সব নির্বাচনে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহার করার নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। সামনে সিটি করপোরেশন, উপজেলা, পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন হবে ইভিএমে। ইভিএমের পাশাপাশি কেন্দ্র থেকে দ্রুত ফলাফল পাঠাতে থাকবে ট্যাব। সোমবার বিকালে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নূরুল হুদার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত কমিশন সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

একই সঙ্গে চলমান উপজেলা পরিষদের নির্বাচন সুষ্ঠু করায় জেলা প্রশাসক-পুলিশ সুপার, রিটার্নিং অফিসারদের উপর প্রভাবশালী মহলের চাপ প্রয়োগে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে কমিশন। নির্বাচন সংশ্লি­ষ্ট কর্মকর্তাদের হয়রানি বন্ধে জনপ্রশাসন ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে চিঠি দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। সভা শেষে রাতে ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ ইত্তেফাককে এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, সব নির্বাচন হবে ইভিএমে। ব্যবহার হবে ট্যাবের। কেন্দ্রে ট্যাব ব্যবহারের ক্ষেত্রে সফটওয়ার ডেভেলপ করার সিদ্ধান্ত হয়েছে। সামনে ময়মনসিংহ, ঢাকার দুই সিটি ও চট্টগ্রাম সিটির ভোট পুরোপুরি ইভিএমে করবো। সভায় সিদ্ধান্ত হয়েছে আগামী ২৩ এপ্রিল বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোটার তালিকা হালনাগাদ করা হবে। এবার চার বছরের তথ্য আগাম সংগ্রহ করা হবে।

বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদার সভাপতিত্বে বিকাল ৩টায় কমিশন সভা শুরু হয়ে চলে সাড়ে তিন ঘন্টার বেশি। বৈঠক শেষে সভার আলোচনার বিষয়ে ব্রিফিং করেনি কমিশন। আগামীকাল বুধবার কমিশন আবার বৈঠকে বসবে। এ সভায় তিনটি এজেন্ডা ছিল।

সেগুলো হচ্ছে-ভোটার তালিকা হালনাগাদ কর্মসূচি, জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অনুবিভাগের জন্য নতুন পদ সৃষ্টি ও যানবাহন অন্তর্ভুক্ত করা এবং আইডিইএ প্রকল্পের ঠিকাদারের পাওনা পরিশোধ সংক্রান্ত। বৈঠকে এজেন্ডার বাইরে সিইসি কিছু প্রস্তাব তুলে ধরেন। এগুলো হলো সামনের নির্বাচনগুলোতে ইভিএম ব্যবহার করা হবে। আগামী বছর ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি এবং চট্টগ্রাম সিটির ভোট একইদিন করার সিদ্ধান্ত হয়।

জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অনুবিভাগকে (এনআইডি) ইভিএম মেশিনগুলো প্রস্তুত করতে বলা হয়েছে। নিজেদের তৈরি ইভিএম ব্যবহারের জন্য গত বছরের মাঝামাঝি সময়ে ইসি দেড় লাখ ইভিএম কেনার জন্য ৩ হাজার ৮২১ কোটি টাকার প্রকল্প গ্রহণ করে।

ইসির জনসংযোগ পরিচালক (যুগ্ম সচিব) এস এম আসাদুজ্জামান জানান, ২৩ এপ্রিল থেকে ২০০১, ২০০২, ২০০৩ ও ২০০৪ সালের পহেলা জানুয়ারি জন্ম এমন নাগরিকদের তথ্য সংগ্রহ করা হবে। এর মধ্যে ২০০১ ও ২০০২ সালের জানুয়ারিতে যাদের জন্ম, তাদের নাম ২০২০ সালে প্রকাশিত ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হবে। বাকিদের শুধুমাত্র তথ্য সংগ্রহ করে রাখা হবে। পরবর্তীতে বয়স ১৮ পূর্ণ হলে, তাদের নাম ভোটার তালিকায় যুক্ত করা হবে। এ সময়ে ভোটার তালিকা থেকে নাম কর্তনের জন্য মৃত ভোটারদের তথ্য সংগ্রহ করা হবে।

এছাড়া উপজেলা নির্বাচনের শেষ চার ধাপে স্থগিত ৫৭টি ভোটকেন্দ্রের ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়েছিল। এর মধ্যে ১০টি উপজেলার অন্তত ২৫টি কেন্দ্রে পুনরায় ভোটগ্রহণের প্রয়োজন হবে। বাকি কেন্দ্রগুলোতে ভোটের প্রয়োজন হবে না। যেসব কেন্দ্রে ভোটগ্রহণের প্রয়োজন হচ্ছে সেগুলোতে আগামী ১৭ এপ্রিল ভোটগ্রহণ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।