|

একজন অনুসরণযোগ্য কবি, কবিপ্রজন্মের পথিকৃত “কালাচাঁদ মৃত্যু”

প্রকাশিতঃ ২:২৬ অপরাহ্ন | মার্চ ২৩, ২০১৯

একজন অনুসরণযোগ্য কবি, কবিপ্রজন্মের পথিকৃত কালাচাঁদ মৃত্যু

মোঃ ফিরোজ খানঃ চলতি বছরের ২০১৯ একুশে বইমেলায় প্রকাশিত কালাচাঁদ মৃত্যু’র প্রথম কাব্যগ্রন্থ “চেতনার বাণ” সত্যিই সাহিত্য অঙ্গনে চমক দিয়েছে। হাজার হাজার পাঠকের উপছে পড়া ভিড় দেখা গিয়েছে সিদ্দিকীয়া পাবলিকেশন্স এর(৫৪৩-৫৪৪) নম্বর স্টলে।

বর্তমান সময়ে বইটি পাঠকপ্রিয়তা পেয়েছে অনেক অনেক বেশি— যা ঈর্ষণীয়। এ বছর, ২০১৯ সালের শেরে বাংলা নগর একুশে বইমেলায় তাঁর প্রথম কাব্যে তিনি সনেট কবিতার উপর চালিয়েছেন নানাবিধ পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও গবেষণা—যা বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় আলোকিত হয়েছে। এ ছাড়া বইটিতে তাঁর উদ্ভাবিত চন্দ্রৌনিশি, ত্রিপঞ্চকী, ষটষ্টাদশী, ম্রৈত্যুয়িকী, পরিবেষ্টন মিত্রাক্ষরসহ নানাবিধ নতুন ধারার কবিতা পড়ে মুগ্ধ হয়েছি।

অবাক হয়ে পাঠ করেছি “চেতনার বাণ”। একটি আশ্চর্যের বিষয়, তাঁর উদ্ভাবিত পঞ্চবৃত্তীয় বর্ণক্রম-প্রাস্বরিক ম্রৈত্যুয়িকী ছন্দের একটি কবিতায় মিতিপ্রধান ভঙ্গিতে পেয়েছি, প্রচলিত তিন ছন্দের সাথে সত্যেন্দ্রনাথ দত্তের “প্রাস্বরিক” ছন্দ ও “বর্ণক্রম-প্রাস্বরিক ম্রৈত্যুয়িকী” ছন্দ মিলে তৈরি হওয়া পাঁচটি ছন্দের একটি কবিতা।

আমি কবি নই; তবুও বর্তমান সময়ের এমন একজন কবি ও ছন্দগবেষকের রচনাশৈলীর পরিচয় পেয়ে আমি গর্বিত। আমি কখনও ভাবিনি,এমন একজন নামকরা বিশিষ্ট কবি, সাহিত্যিক,ছড়াকার ও সনেট কবিতার গবেষকের জীবনের কিছু কথামালা লেখার সৌভাগ্য আমার হবে।



এইটুকু লেখা সম্ভব হয়েছে—কালাচাঁদ মৃত্যুকে নিয়ে প্রকাশিত কিছু লেখা বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় পড়তে পেরে এছাড়াও বিশেষ করে তাঁর গবেষণার তথ্যপ্রাপ্তির অন্যতম উৎস খুঁজে পেয়েছি বর্তমান সময়ের সেরা পেইজ “ফেসবুক” (‘Kalachand Mrityu) এই পাতা থেকেই।”চেতনার বাণ” দীর্ঘদিন ধরেই আমি অনলাইনে তাঁর “ফেবুতে”ও কবি ও কবিতার আসর তাঁর প্রিয় অনলাইন পেইজে বিভিন্ন ছন্দের লেখা পড়তে পারার সুযোগ হয়েছে বলেই সামান্য কিছু লিখতে চেষ্টা আমার।

ম্রৈত্যুয়িকী ছন্দ উদ্ভাবনের জন্য তিনি “নজরুল স্মৃতি সাহিত্য পুরস্কার-২০১৯” লাভ করেন। অত্যাধুনিক যুগের যুগস্রষ্টা কবি কালাচাঁদ মৃত্যু’র “চেতনার বাণ” কাব্য, বাংলা সাহিত্যের ধারাকে নতুন পথের সন্ধান দিয়েছে।

তিনি প্রচলিত তিন ছন্দের গঠনকৌশল নিয়ে গবেষণা করে এর বিজ্ঞানভিত্তিক নামকরণ করেছেন। যা বর্তমানে কাব্যসাহিত্য চর্চায় অনুসরণযোগ্য হয়ে উঠেছে। অসাধারণ জ্ঞানের ভাণ্ডার তিনি খুলে দিয়েছেন এই দেশের সাহিত্য অঙ্গনে। স্বরবৃত্ত ছন্দকে “শ্রুত্যাক্ষরবৃত্ত”, অক্ষরবৃত্ত ছন্দকে “দৃশ্যাক্ষরবৃত্ত” ও মাত্রাবৃত্ত ছন্দকে “বর্ণবৃত্ত” নাম দিয়েছেন। ছন্দের নামকরণ সম্পর্কে তাঁর যুক্তি উল্লেখ করা হ‌ল:



★ অক্ষরবৃত্ত ছন্দে প্রতিটি অক্ষরকে মাত্রা ধরা হয় না— সেহেতু এর নাম “অক্ষরবৃত্ত” যুক্তিসংগত নয়। কিন্তু প্রতিটি দৃশ্যাক্ষরকে একমাত্রা ধরা হলে ব্যতিক্রম মনে রাখারও প্রয়োজন নেই। তাই এর নাম “অক্ষরবৃত্ত” এর পরিবর্তে “দৃশ্যাক্ষরবৃত্ত”ই বিজ্ঞানসম্মত।

★ “মাত্রাবৃত্ত” শব্দের অর্থ “মাত্রা দ্বারা আবৃত্ত”। অথচ সব ছন্দই ভিন্নরূপ এককের মাত্রা দ্বারা আবৃত্ত। “মাত্রাবৃত্ত”শব্দের অর্থবিচারে একটিমাত্র ছন্দকে না বুঝিয়ে সবছন্দকেই বোঝাতে সক্ষম। তাই একটিমাত্র ছন্দের নাম “মাত্রাবৃত্ত” হতে পারে না। এ ছন্দে উচ্চারিত প্রতিটি স্বরযুক্ত বর্ণ বা স্বরমুক্ত বর্ণ এক মাত্রা গণ্য। তাই এর বিজ্ঞানসম্মত নাম “বর্ণবৃত্ত”।

★ প্রতিটি শ্রুত্যাক্ষর অর্থাৎ প্রতিটি মুক্তাক্ষর ও বদ্ধাক্ষরকে এক মাত্রা ধরা হয় বলেই,“স্বরবৃত্ত” ছন্দের বিজ্ঞানভিত্তিক নাম “শ্রুত্যাক্ষরবৃত“।
“কবিপ্রজন্মের পথিকৃৎ” নামে খ্যাত কবি “কালাচাঁদ মৃত্যু’র কাব্যরীতি ও উদ্ভাবিত ছন্দে বাংলাদেশ-ভারতের অনেক কবি কাব্যচর্চা করে চলছেন।

ছন্দগবেষক কালাচাঁদ মৃত্যু’র সারা বিশ্বের প্রচলিত,অপ্রচলিত প্রায় সব ছন্দকেই সংগ্রহ করে সংস্থাপন করেছেন বাংলা কবিতায়। ভারত-বাংলাদেশের বহু পত্র-পত্রিকায় তাঁকে “ছন্দসম্রাট”উপাধিতে ভূষিত করে তাঁর উদ্ভাবিত ছন্দের উপর গবেষণামূলক প্রবন্ধ ছাপা হয়েছে।



এই ছন্দগবেষক কবি গোপালগঞ্জ জেলার কোটালিপাড়া উপজেলার পশ্চিমপাড় গ্রামে ১৬ই ডিসেম্বর,১৯৮২ খ্রিস্টাব্দে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতা আনোয়ার হোসেন চৌধুরী ও মাতা চৌধুরী সুমি বিবি।২০১৬ সালের ১৪ এপ্রিল,তিনি বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়ে থাকেন বিয়ের মাত্র ৬২ দিন পর ১৬ জুন তাঁর পিতা গত হন। সহধর্মিণী শিল্পী ফকির,আর একমাত্র কন্যা সন্তান শ্রান্তিকা চৌধুরী।বর্তমানে তিনি অধুনা বাংলাদেশের গোপালগঞ্জ জেলার কোটালিপাড়া উপজেলার পিত্তলপাড়া গ্রামে নতুন বাড়িতে বসবাস করছেন।

বর্তমানে কালাচাঁদ মৃত্যু, তাঁর প্রাতিষ্ঠানিক নামে কাজী মন্টু কলেজ, কোটালিপাড়ায় অনার্স শাখার বাংলা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান পদে কর্তব্য পালন করছেন।

“চেতনার বাণ” কাব্যে “মৃত্যু” শব্দের সত্যিকার অর্থ ও দর্শন আবিষ্কৃত হয়েছে— এমন উক্তি সত্যিই চিরকাল টিকে থাকবে। “মৃত্যু, জীবনের পাশাপাশি চলতে থাকা একটি গতির নাম। জীবন এক সময় মৃত্যুর কাছে আত্মসমর্পণ করে অথচ মৃত্যু অনন্ত-অক্ষয়; জগৎ ধ্বংস-কাল পর্যন্ত চির জাগ্রত সত্তা”।অসাধারণ কাব্যময় কথায় সুন্দর ও সত্য উক্তি পেশ করেছেন বর্তমান সময়ের এই গবেষক কবি।

কবিপ্রজন্মের পথিকৃত, ছন্দসম্রাট কবি কালাচাঁদ মৃত্যু, ডাক নামেই তাঁকে সবাই চেনে। এছাড়াও “কৃষ্ণাশশি” ও “কৃষ্ণেন্দু” ছদ্মনামেও তিনি লেখালেখি করেছেন। এই তিনটি ছদ্মনামেরই একই অর্থ (Black Moon) অর্থাৎ “কালো চাঁদ বা কালাচাঁদ”।

এবার প্রিয় কবি কালাচাঁদ মৃত্যু’র ছেলেবেলার কিছু কথামালা তুলে ধরবো।

তিনি ছেলেবেলায় ছিলেন প্রচণ্ড দুরন্ত স্বভাবের। স্কুল পরিবর্তনের হিসেব মিলিয়ে তার প্রমাণ পাই। প্রথমে বালিয়াডাঙ্গার মদনপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিশুশ্রেণিতে ভর্তি হন।এরপর ক্রমান্বয়ে বাগান উত্তরপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়; সিকিরবাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়; ফরিদপুরের কানাইপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ঘুরেএখানেই তিনি পঞ্চম শেণি পাশ করেন।

অবশেষে তিনি ফরিদপুরের কানাইপুর কলেজিয়েট উচ্চ বিদ্যালয়ে ষষ্ঠ শ্রেণিতে ভর্তি হন। দেড়বছর পর সপ্তম শ্রেণিতে উঠেই কোটালিপাড়ায় ফিরে এসে একে একে সিকিরবিজারের কোটালিপাড়া পাবলিক ইনস্টিটিউশন, বালিয়াভাঙ্গা উচ্চ বিদ্যালয়, কমলকুঁড়ি বিদ্যানিকেতন নামক উচ্চ বিদ্যালয়ে অধ্যয়ন করেন।



অবশেষে সিকির বাজার কোটালিপাড়া পাবলিক ইনস্টিটিউশন থেকে এসএসসি—২০০০ এবং কোটালিপাড়া শেখ লুৎফর রহমান আদর্শ সরকারি কলেজ থেকে এইচএসসি—২০০৩ পাশ করেন। বিএ-অনার্স (বাংলা) পড়েন সরকারি রাজেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ, ফরিদপুর ও ঢাকা কলেজ, ঢাকা। এমএ (বাংলা ভাষা ও সাহিত্য) ও এমএ (আইসিটি) পাশ করেন ঢাকা কলেজ, ঢাকা থেকে।

মজার কথা হলো, শৈশবে কালাচাঁদ মৃত্যু
ফরিদপুরের কানাইপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তৃতীয় শ্রেণিতে অধ্যয়নকালে তাঁর প্রিয় শিক্ষক কবি শাহ আলম এর অনুপ্রেরণায় ধীরে ধীরে কবি হয়ে ওঠেন।

তিনি বহুমুখী প্রতিভায় নিজেকে নিমগ্ন রেখেছেন। ছন্দবিজ্ঞান ও সাহিত্য, জ্যোতির্বিজ্ঞানসহ বিজ্ঞানের বিভিন্ন শাখা-প্রশাখায় গভীরভাবে আত্মনিয়োগ করে নতুন বক্তব্য উপস্থাপন করেছেন। যা ফুলের সৌরভের মতোই ছড়িয়ে আছে সাহিত্য ও বিজ্ঞান অঙ্গনে। তাঁর বিভিন্ন গবেষণার মধ্যে উল্লেখযোগ্য: বাংলা ছন্দের নামকরণ, ছন্দবোদ্ধা কবি: বিশ্বসাহিত্যে পদাঙ্কন, ধ্বনি-বর্ণের বিরোধাবাস, স্বরধ্বনির মৌলিকত্ব, গণিত গবেষণা, বস্তুবাদী দর্শন, জ্যোতির্বিজ্ঞান, পদার্থবিজ্ঞান, প্রাণি ও উদ্ভিদবিজ্ঞান প্রভৃতি। তাঁর গবেষণার তথ্যপ্রাপ্তির অন্যতম উৎস হলো বর্তমান সময়ের সেরা পেইজ “ফেসবুক” (‘Kalachand Mrityu)।

বাংলা কাব্যসাহিত্যে তাঁর উদ্ভাবিত ছন্দ ও কাব্যরীতির উল্লেখযোগ্য একটি তালিকা:
পরিবেষ্টন মিত্রাক্ষর; সমুদ্রবেষ্টন; বর্ণাদ্যক্রম; স্বরাদ্যক্রম; উল্টোরথ; সমবর্ণাদ্য; ক্রমযোগাক্ষরা; ক্রমহ্রাসাক্ষরা; বর্গাক্ষরা; ম্রৈত্যুয়িকী; ষটষ্টাদশী; ত্রিপঞ্চকী; দশপ্তকেন্দু; চন্দ্রৌনিশি; শ্রুতিবৃত্ত ছন্দ; দৃশ্যাক্ষরবৃত্ত ছন্দ; বর্ণক্রম-প্রাস্বরিক ম্রৈত্যুয়িকী ছন্দ; মুক্তক অমিত্রাক্ষর; বর্ণক্রম-প্রাস্বরিক সনেট; একান্ত্যানুপ্রাসিকী; মুক্তক সনেট; পরিবেষ্টন সনেট গবেষণা চলমান।



এই সবজান্তা কালাচাঁদ মৃত্যু’র প্রথম জীবনে তিনি নাট্যজগতের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত ছিলেন। যা ছিল তাঁর অন্যতম পেশা। ১৯৯৮ সালে ‘কোটালিপাড়া নাট্যকলা একাডেমি’ থেকে তাঁর পথযাত্রা শুরু। তারপর ২০০৩ সালে যুক্ত হন ‘ফরিদপুর থিয়েটার’এ। ঢাকার ‘নাট-নালন্দা’-এর নাট্যকর্মীও ছিলেন ২০০৪ থেকে ২০১০ পর্যন্ত। বহু গুণে গুণান্বিত ব্যক্তি কালাচাঁদ মৃত্যু।

এরপরে তিনি শিক্ষকতা পেশায় আসেন। ২০১০ সালে ছিকটিবাড়ির ‘উমাচরণ সার্বজনীন উচ্চ বিদ্যালয়’-এ সহকারি শিক্ষক হিসেবে যোগ দেন। এরপর ২০১১-১৩ সাল পর্যন্ত তিনি গোপালগঞ্জ জেলার কোটালিপাড়া উপজেলার ‘উমাচরণ পূর্ণচন্দ্র সার্বজনীন উচ্চ বিদ্যালয়, দেবগ্রাম-এ শিক্ষকতা করেন। অতপর ২০১৩ সালে নিজ এলাকার ভাংগারহাটের ‘কাজী মন্টু কলেজ’-এ প্রভাষক হিসেবে নিযুক্ত হন। বর্তমানে তিনি উক্ত কলেজের বাংলা বিভাগের উচ্চশিক্ষা (অনার্স) শাখার বিভাগীয় প্রধান পদে নিযুক্ত আছেন।

তাঁর সম্পাদিত পত্রিকাগুলো মধ্যে আছে ২০০৩-০৪ সালে ‘প্রত্যাশা’ পত্রিকা, ২০০৪-০৫ সালে ‘অলঙ্কার’ পত্রিকা,২০০৪-১৩ সাল পর্যন্ত ঢাকার ‘অগ্নিবার্তা’ পত্রিকা এবং ২০১২ সালে সম্পাদনা করেন ‘হৃদয়ে কোটালীপাড়া’ পত্রিকাটি।বর্তমানে ভারতের কলকাতা থেকে প্রকাশিত দুটি পত্রিকার সম্পাদনার সঙ্গে তিনি যুক্ত আছেন। ‘ম্রৈত্যুয়িকী’ নামক পত্রিকার প্রধান সম্পাদক এবং ‘সত্যারতি’ পত্রিকায় তিনি অতিথি সম্পাদক।

সম্পাদিত গ্রন্থের মধ্যে ২০০৮ সালে ঢাকা থেকে প্রকাশিত ‘Rules of Fill in the Blanks’ এবং Basis English Grammar অন্যতম। বাংলাদেশের বহু নামি-অনামি পত্রিকায় তাঁর লেখা প্রকাশিত হয়েছে এবং হচ্ছে। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য ইত্তেফাক, ইনকিলাব, কালের কণ্ঠ,কালের খেয়া, মাতৃমুক্তি, ভোরের রানার, ধুপছায়া, চাঁদকণ্ঠ, বেতার বাংলা, অগ্নিবার্তা, সন্ধ্যাতারা, ঝিলিক প্রভৃতি। এছাড়াও আছে কিছু অনলাইন পত্রিকা ও ফেবু গ্রুপ।



তার মধ্যে বিশেষভাবে উল্লেখ করা যায়- তাঁর নিজের ফেসবুক টাইমলাইন (Kalachand Mrityu); ছন্দের পথে রস ও অলঙ্কার, কবি ও কবিতার আসর প্রভৃতি ফেসবুক গ্রুপ এবং ছকানু, অনলাইন প্রকাশনা, ছন্দ কবিতার অনুশীলন ম্যাগ।সম্প্রতি তাঁর উদ্ভাবিত ও প্রবর্তিত “ম্রৈত্যুয়িকী ছন্দ” নিয়ে রঞ্জনকুমার সরখেলের কলমে বিভিন্ন গবেষণামূলক প্রবন্ধ বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলার লিটল ম্যাগাজিন ও জাতীয়স্তরের পত্রিকা এবং ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কলকাতা ও বিভিন্ন জেলার পত্রপত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে ও হচ্ছে। এছাড়া বহু অনলাইন ম্যাগাজিনেও ম্রৈত্যুয়িকী ছন্দের উপর প্রবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে।

আমি সত্যিই একজন ভাগ‍্যবান পুরুষ— এত গুণের অধিকারী একজন বিশিষ্ট কবির পরিচয় পেয়ে তাঁর সম্পর্কে জানার আগ্রহ বেড়ে যায়। কথোপকথনের সময় তাঁর ইতিহাস জানতে পেরে তাঁর বিষয়ে কলম না ধরে পারলাম না। ১৯৯২ সালে ৯ বছর বয়সে তিনি ছড়া লেখার মধ্য দিয়েই কবিতার জগতে আসেন— এটাই আমার কাছে সবচেয়ে বেশি আকস্মিক লেগেছে। তাঁর সফলতা কামনা করছি।

দেখা হয়েছে: 99
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।