|

গঙ্গাচড়ায় ঘর জামাই না থাকায় স্বামীর বিরুদ্ধে স্ত্রীর মামলা

প্রকাশিতঃ ৯:১৬ অপরাহ্ন | অক্টোবর ০৬, ২০১৯

মামলা

গঙ্গাচড়া (রংপুর) প্রতিনিধিঃ রংপুরের গঙ্গাচড়ায় ঘর জামাই না থাকায় স্বামীর বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়েছে স্ত্রী। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার বড়বিল ইউনিয়নের মনিরাম গ্রামে।

জানা যায়, ওই গ্রামের মৃত আসাদুল হকের ছেলে মমিনুর রহমানের সাথে প্রায় ১৫ বছর আগে বিয়ে হয় একই গ্রামের মৃত আব্দুল গফ্ফারের মেয়ে জেসমিন আক্তার স্বপ্নার। বিয়ের পর থেকে মমিনুর তার স্ত্রীকে নিয়ে শ্বশুর বাড়িতে বসবাস করত। তাদের দাম্পত্য জীবনে ১২ বছরের একটি কন্যা সন্তান ও ৭ বছরের একটি পুত্র সন্তান রয়েছে।

প্রায় ২ বছর আগে শ্বাশুরি ও শ্যালকদের সাথে মমিনুরের মনোমালিন্য হলে সে তার স্ত্রী সন্তানসহ নিজ বাড়িতে এসে বসবাস শুরু করে। সেখানে কিছুদিন ঘর সংসার করার পর মমিনুরের স্ত্রী স্বপ্না তার মা ও ভাইদের কুপরামর্শে পুনঃরায় স্বামীকে তার বাবার বাড়িতে বসবাস করতে বলে।

এ কথায় মমিনুর কর্ণপাত না করলে ৪ মাস পূর্বে স্ত্রী জেসমিন আক্তার স্বপ্না স্বামীর অনুপস্থিতিতে ছেলেকে রেখে বড় মেয়েকে নিয়ে বাবার বাড়িতে চলে যায়। যাওয়ার সময় সে বেশকিছু টাকাপয়সা ও স্বর্ণালঙ্কার নিয়ে যায়।

পরে মমিনুর স্ত্রীকে নেওয়ার জন্য শ্বশুর বাড়িতে গেলে তার শ্বাশুরি ক্ষিপ্ত হয়ে মেয়েকে আর ফেরত দিবে না মর্মে মমিনুরকে বিভিন্ন গালিগালাজ করে। এছাড়াও তার শ্যালকরা তাকে মিথ্যা মামলার হুমকীসহ বিভিন্ন ভয়ভীতি প্রদান করেন। এ অবস্থায় মমিনুর নিরুপায় হয়ে বাড়ি ফিরত এসে বিষয়টি স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের অবগত করেন। তারা শালিসের আয়োজন করলেও জেসমিন ও তার মা-ভাইদের সাড়া না পাওয়ায় বিষয়টি সমাধান হয়নি।

জেসমিন স্বামীর বাড়িতে রেখে আসা পুত্র সন্তানকে স্বামী কর্তৃক আটকের মিথ্যা অভিযোগ থানায় দিলে পুলিশ মমিনুরের বাড়ি থেকে তার পুত্রকে নিয়ে গিয়ে জেসমিনের কাছে হস্তান্তর করে। বিগত ৪ মাস থেকে স্বপ্না পিতার বাড়িতে অবস্থান করলেও গত ১৭ সেপ্টেম্বর গঙ্গাচড়া হাসপাতালে তাকে ভর্তি দেখিয়ে তার ভাইয়েরা ২৩ সেপ্টেম্বর তারিখে জেলা রংপুরের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুন্যাল আদালাত- ২ এ স্বপ্নাকে দিয়ে তার স্বামীর বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের করে।

স্থানীয় বাসিন্দা জহুরুল (৫৫), দুলাল (৩৮), লতিফ (৬৫), সোহাগ (৪২) জানান, স্বপ্না প্রায় ৪ মাস থেকে তার বাবার বাড়িতে অবস্থান করে। মমিনুরের বাড়িতে স্বপ্নাকে নির্যাতনের কোন ঘটনা ঘটেনি। স্বপ্নার মামা সহিদুল হক গঙ্গাচড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চাকুরি করে।

সে সুবাদে স্বপ্না নির্যাতন না হলেও তার ভাইয়েরা মামা সহিদুলকে দিয়ে স্বপ্নাকে হাসপাতালে ভর্তি দেখিয়ে মমিনুরের বিরুদ্ধে নারী নির্যাতন মামলা দায়ের করেন। যা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভীত্তিহীন। তারা আরো বলেন, মমিনুর খুব ভাল ছেলে। মিথ্যা মামলার বিষয়টি তদন্ত করে অভিযোগ কারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য এলাকাবাসী উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

দেখা হয়েছে: 35
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ [email protected]
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।