|

গঙ্গাচড়ায় চরাঞ্চল যেন খাদ্য ভান্ডার

প্রকাশিতঃ 3:38 pm | February 27, 2019

আব্দুল আলীম প্রামানিক, গঙ্গাচড়া (রংপুর) প্রতিনিধিঃ রংপুরের গঙ্গাচড়ায় গত কয়েক দশকে নদী ভাঙ্গনে ও অন্যান্য কারনে সম্বলহারা মানুষের অবস্থান নিয়েছে চরাঞ্চল। শুধুমাত্র বেঁচে থাকার জন্যই নির্জন ধু-ধু বালু চরে দলে দলে গড়ে তলেছেন মাথা গুজার ঠাই।

সেখানে অনেক প্রতিকূল পরিবেশের ম্যধ দিয়ে লড়াই করে বেঁচে থাকতে হয় তাদের। নেই রাস্তা ঘাট, নেই বিশুদ্ধ পানি ও সেচের পর্যাপ্ত সুবিধা। পরিবার পরিজন নযে টিকে থাকার সংগ্রামে বসবাসে সুযোগ পেলেও সেখানে তাদের জীবন যেন দুর্বিসহ সংগ্রামের।

এ সময় চরের কৃষকরা মনে করলেন, চরে কাঁশফুল জন্মে তাহলে শস্য ও ফলানে যাবে শুরু। শুরু হলো সবজি ও ফসল ফলানোর সংগ্রহ। সংগ্রাম সফল প্রমানিকত হওয়ার পর প্রথম চরে বোনা হলো সরিষা, আলু, ভুট্টা, মরিচসহ শাক সবজি।

এভাবে কৃষকেদর প্রচেষ্ঠায় গঙ্গাচড়ার তিস্তা নদীর বিভিন্ন কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। ক্ষুদ্র ঋণ, কৃষিঋণ, বীজ ও সার সহায়তা পাচ্ছেন চরের কৃষকরা। এভাবেই কয়েক বছরে যেন চরাঞ্চলের কৃষকরা নিজেদের প্রয়োজনে চরের দৃশ্যপট এখন অনেকটাই পাল্টে দিয়েছেন। অথচ এক দশক আগেও চরের মানুষ বলতে অতি দরিদ্রদের মতো। তখন তারা ছিল সরকারি ত্রাণের আশায় এখন পরিস্থিতি পাল্টে গেছে। চরাঞ্চলের জমিতে চাষাবাদ হচ্ছে বিভিন্ন জাতের ফসল।

জেগে ওঠা পলিমাটি, বালুচর বা চরের অনাবাদি জমি এখন সৃষ্টভাবে ব্যবহৃত হচ্ছে কৃষির অবারিত ক্ষেত্র হিসেবে। সারা বছরই কোন না কোন ফসল ও সবজি আবাদ হচ্ছে। এখন চরের মানুষদের জীবন ধারায় এসেছে পরিবর্তনের ছোঁয়া। জমি তৈরি, বীজ বপন, পরিচয়া কিংবা ফসল তোলার ব্যতি ব্যস্ততা চরাঞ্চলের নৈমিত্তিক চিত্র। এর ফলে বেশি ভাগ চরেই দেখা দিয়েছে কর্মচাঞ্চল্য।

চরাঞ্চলের বিভিন্ন গ্রামে শাক সবজির চাষ করে বহু পরিবার স্বচ্ছলতা এসেছে। শুধুমাত্র ধান চাষের উপর নির্ভরশীল কৃষিতে শাক সবজি চাষ এনে দিয়েছে নতুন গতি। কৃষকদের জীবন জীবিকার গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখতে কৃষির এই সফল বিবর্তন।

উপজেলার লক্ষ্মীটারী ইউনিয়নের চর শংকরদহ গ্রামের কৃষক আব্দুল আজিজ বলেন, তিস্তা নদীর ভাঙ্গনে চার বার বাড়ী ভেঙ্গে অন্য স্থানে বসবাস করছি। এখন এই চরে সোনালী ফসল উৎপান হচ্ছে তবে রাস্তা ঘাট ভাঙ্গ। যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো নেই।
লক্ষ্মীটারী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল হাদী বলেন, চরাঞ্চলের কৃষকরা উৎপাদিত ফসল বিক্রি করে লাভবান হচ্ছেন।

মোছাঃ মারুফা বেগম, marufa begomমোছাঃ মারুফা বেগম, marufa begom