|

গঙ্গাচড়ায় তিস্তায় পানিবৃদ্ধি, ৫’শ পরিবার পানিবন্দি

প্রকাশিতঃ ৫:০৮ অপরাহ্ন | জুলাই ১১, ২০১৯

গঙ্গাচড়ায়-তিস্তায়-পানিবৃদ্ধি,-৫’শ-পরিবার-পানিবন্দি

গঙ্গাচড়া (রংপুর) প্রতিনিধিঃ রংপুরের গঙ্গাচড়ায় কয়েকদিনের ভারী বর্ষন ও উজানী ঢলে তিস্তার পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। পানি বৃদ্ধির কারনে চরাঞ্চলে প্রায় ৫ শ পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।

জানা যায়, ভারী বর্ষন ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢলে গত দু’দিন ধরে তিস্তার পানি বাড়তে থাকে। পানি বৃদ্ধির কারণে উপজেলার ৭ ইউনিয়নের উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া তিস্তার প্রায় ১৫টি চরে বসবাসকারি প্রায় ৫শ পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। কোলকোন্দ ইউনিয়নে চিলাখাল বেড়ি বাঁধে ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা যায়, গতকাল বুধবার বিকেলে ডালিয়া পয়েন্টে তিস্তার পানি বিপদসীমার (৫২.৪০ সে.মি.) ২০ সে.মি. নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল।

গতকাল বুধবার সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, লক্ষীটারী ইউনিয়নের শংকরদহ, চরইচলী, কোলকোন্দ ইউনিয়নের চিলাখাল, চর মটুকপুর, নোহালী ইউনিয়নের বাগডোহরা, চর নোহালী, কচুয়া এলাকা প্রায় ৫শত পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।

পানি বৃদ্ধির কথা স্বীকার করে কোলকোন্দ ইউপি চেয়ারম্যান সোহরাব হোসেন রাজু বলেন, বিনবিনা এলাকায় ৭০ পরিবার পানিবন্দি। তাছাড়া চর চিলাখাল এলাকায় একটি রাস্তা ভাঙ্গনে হুমকির মুখে। তিনি আরও বলেন রাস্তাটি ভেঙ্গে গেলে চর চিলাখাল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি হুমকির মুখে। সেইসাথে সাত/আট’শ পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়বে বলে তিনি জানান। লক্ষ্মীটারী ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল হাদী বলেন, ইউনিয়নের শংকরদহ, ইচলি ও বাগেরহাট এলাকায় ৪০০ পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।

রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-সহকারি প্রকৌশলী আমিনুর রহমান (হাইড্রোলিক) পানি বৃদ্ধির কথা স্বীকার করে বলেন, এখন ডালিয়া পয়েন্টে তিস্তার পানি বিপদ সীমার ২০সে.মি.নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল।

দেখা হয়েছে: 158
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ [email protected]
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।