|

গঙ্গাচড়া আম বাগান গুলো মুকুলে ভরে গেছে

প্রকাশিতঃ 3:31 pm | March 09, 2019

গঙ্গাচড়া আম বাগান গুলো মুকুলে ভরে গেছে

আব্দুল আলীম প্রমাণিক গঙ্গাচড়া (রংপুর) প্রতিনিধিঃ রংপুরের গঙ্গাচড়ায় পথ ঘাট, মাঠ প্রান্তর, বাসাবাড়ি, অফিস আদালত, স্কুল কলেজ, মসজিদ মন্দির যেখানেই চোখ পড়বে দৃষ্টি সরানো যাবে না থোকা থোকা আমের মুকুলে মন করা সৌন্দর্য থাকে। মন মাথাল করা আমের মুকুলে মৌ মৌ ঘ্রাণে বিমোহিত মুদ্ধ হবেই মন। আম মুকুলের ঘ্রাণে সুরভিত গঙ্গাচড়া উপজেলা আম বাগান গুলো। মন যেন এখনেই মধু মাস জ্যৈষ্ঠর অপেক্ষায় পাগল পারা।

জানা যায়, উপজেলায় প্রতিটি সর্বত্র এলাকা জুড়ে এখন গাছে গাছে শুধু আমের মুকুল আর মুকুল। মুকুলের ভাড়ে যেন নুয়ে পড়ে যে প্রতিটি আম গাছ। আর মৌমাছিরা আসতে শুরু করেছে মধু আহরণে। রঙ্গিন ফুলে সমরহে যেমন সেজেছে প্রাকৃতি তেমনি বর্ণিল নতুন সাজে সেজেছে গঙ্গাচড়া উপজেলার আম বাগান গুলো। ভরপুর আমের মুকুল আর মৌ মৌ ঘ্রাণে মনে জানান দিচ্ছে মধু মাস জ্যৈষ্ঠ।

কৃষিবিদ ও আম চাষিরা আশা করছেন বড় ধরনের কোন প্রাকৃতিক দূযোর্গ না হলে এবং সেই সাথে আবহাওয়া অনুকুল থাকলে এরুপ আমের ফলন বেশ ভালো হবে। আম চাষী ও বাগান মালিকরা ব্যস্ত সময় পাড় করছেন বাগান পরিচর্যায়। অবশ্য মুকুল আসার আগে থেকেই গাছ পরিচর্যা করছেন তারা। গাছে গাছে বালাইনাশক স্প্রে করাার দৃশ্য ও চোখে পড়েছে।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, উপজেলায় বাণিজ্যিক ভিত্তিতে আম চাষ না হলেও ব্যক্তি উদ্দ্যেগে বাসাবাড়ি, বাগানসহ এ বছর উপজেলায় প্রায় ২২০ হেক্টর জমিতে আম বাগান গড়ে তোলা হয়েছে বাগান গুলোতে আম্রপালি, ফজলি, খিড়সা, মোহনা, ন্যাংড়া, রাজভোগ, হাড়িভাঙ্গা, গোপালভোগ সহ বিভিন্ন জাতের আর চাষ করা হচ্ছে।



এছাড়া প্রতিটি বাসা-বাড়ি, অফিস-আদালত, স্কুল-কলেজ, আঙ্গিনায় অনেক অগণিত আমগাছ মুকুলে মুকুলে ছেঁয়ে গেছে। এ বছর উৎপাদিত আম উপজেলার প্রয়োজনীয় চাহিদা পুরোনের পাশাপাশি দেশের বিভিন্ন এলাকায় সরবারহ করা হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

গঙ্গাচড়া সদর ইউনিয়নের আম চাষি তহির উদ্দিন ও আব্দুল মালেক জানান দুইবিঘা জমিতে তারা আ¤্রপালি, ফজলি, হাড়িভাঙ্গাসহ বিভিন্ন জাতের আম চাষ করে গত বছর দুই লক্ষ টাকা আয় করেন। উপজেলার বিভিন্ন এলাকার আম বাগান মালিকরা জানান, প্রতিটি গাছেই মুকুলে ভরে গেছে। বড় ধরনের ও প্রাকৃতিক দূযোর্গ না হলে সেই সাথে আবহাওয়া অনুকুলে থাকলে এ বার আমের ফলন ভালো হবে।

উপজেলা কৃষি কর্মকতা শরিফুল ইসলাম বলেন, আম চাষিদের বিভিন্ন প্রশিক্ষণ ও নিরাপদ বিষ মুক্ত আম চাষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। ইতোমধ্যে আম চাষিদের আম গাছে মুকুল আসার আগে ও গুটি হবার পর নিয়মিত ছত্রানাশক ম্প্রে করা পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া জৈব সার, বালাইনাশক, কীটনাশক ও ফেরোমন ফাঁদ ব্যবহার করে আম সহ অন্যান্য ফসল চাষে উদ্ভুদ্ধ করা হয়েছে।