|

গাইবান্ধায় প্রথম আলো বন্ধুসভার সুবিধা বঞ্চিত জামা বিতরণ

প্রকাশিতঃ 1:06 am | June 02, 2019

গাইবান্ধায় প্রথম আলো বন্ধুসভার সুবিধা বঞ্চিত জামা বিতরণ

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল,গাইবান্ধা প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধা সদর উপজেলার গিদারি ইউনিয়ন কমিউনিটি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে শনিবার পথকলি ও দরিদ্র শিশুদের মধ্যে রঙ্গিন জামা বিতরণ করে প্রথম আলো বন্ধুসভা। সকাল সাড়ে ১০টায় গাইবান্ধা সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) উত্তম কুমার রায় বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন।

বিতরণ কার্যক্রমের সময় উপস্থিত ছিলেন গাইবান্ধা সদর উপজেলার সহকারি কমিশনার (ভুমি) মো. আরিফ হোসেন, উপজেলার গিদারি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হারুন-অর-রশিদ, কামারজানি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবদুস সালাম, স্থানীয় সমাজকর্মী সাফি খন্দকার, প্রথম আলোর প্রতিনিধি শাহাবুল শাহীন তোতা প্রমুখ।

আনুষ্ঠানিকতা ছাড়াও বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ, রেলস্টেশন, বাসটার্মিনাল ও পৌরপার্ক ঘুরে ঘুরে রঙ্গিন জামা বিতরণ কার্যক্রম চলে। এভাবে শনিবার দিনভর ২২৮ জন অসহায় সুবিধা বঞ্চিত পথশিশুর মধ্যে ঈদের নতুন রঙ্গিন জামা, শার্ট-প্যান্ট বিতরণ করা হয়।
এরআগে শনিবার সকাল নয়টায় বন্ধুসভার সদস্যরা গাইবান্ধা শহরের ডিবি রোডের বন্ধুসভার অস্থায়ী কার্যালয়ে সমবেত হয়। সেখান থেকে সাড়ে ১০টায় যাত্রা। কারও হাতে কন্যাশিশুদের জামা, কারও হাতে ছেলে শিশুদের শার্ট-প্যান্ডের ব্যাগ। তারপর মোটরসাইকেল যোগে বিতরণস্থল।

বিতরণে সহযোগিতা করেন গাইবান্ধা বন্ধুসভার উপদেষ্টা মো. শাহজাহান মিয়া, সভাপতি আবদুর রব বাবু, সহ-সভাপতি হারেজ উদ্দিন জিলাদার, সাধারণ সম্পাদক আলমগীর কবির, সাংগঠনিক সম্পাদক মিল্লাত হোসাইন, অর্থ সম্পাদক ওবায়দুল ইসলাম, প্রচার সম্পাদক মেহেদী হাসান, পরিবেশ সম্পাদক আতিকুর রহমান, প্রশিক্ষণ সম্পাদক ফারিহা আক্তার তন্নি, সদস্য এরশাদ মিয়া, নাসিব, সিনিগ্ধা, তুষার প্রমুখ।

ঈদে নতুন জামা পেয়ে কি করবে জানতে চাইলে গাইবান্ধা সদর উপজেলার ধুতিচোরা গ্রামের রেহেনা আক্তার (৮) জানায়, ঈদের আনন্দ কি করবো। এখনো আমাদের পরিবারে শোক চলছে। কারণ গত ৭ মে আমার বোন মেরেনা আক্তার নৌকা ডুবিতে নিখোঁজ হয়। তার খোঁজ পাইনাই। পাশ্ববর্তী নয়াগাও গ্রামের আরিফ মিয়া (৯) জানায়, জামা পেয়ে খুব ভালো লাগছে। ঈদেরদিন নতুন জামা পড়ে ঘুরবো। সদর উপজেলার ধুতিচোরা গ্রামের জাহিদ মিয়া (৮) জানায়, জামা পেলাম। ভাল লাগছে।

গাইবান্ধা সদর ইউএনও উত্তম কুমার রায় বলেন, আমি নিজেও ২০০৩ সাল থেকে বন্ধুসভার সঙ্গে জড়িত আছি। বন্ধুসভার এই রঙ্গিন জামা বিতরণ কার্যক্রম একটি ভালো উদ্যোগ। বিশেষ করে রঙ্গিন জামা পেয়ে কচিকাচা শিশুদের মুখে যে আনন্দের হাসি দেখলাম, তা দেখে খুব ভালো লাগলো। এই অনুষ্ঠানে এসে বন্ধুসভার কার্যক্রমে থাকতে পেয়ে নিজেকে ধন্য মনে করছি। বন্ধুসভাকে ধন্যবাদ।