|

ঝিনাইদহ এক্সপ্রেস সাব্বিরের গল্প

প্রকাশিতঃ ১:২৫ পূর্বাহ্ন | মার্চ ০৭, ২০১৮

জে আর নাইম, ঝিনাইদহ প্রতিনিধি:
ঝিনাইদহ এক্সপ্রেস সাব্বির ছোটোবেলা থেকেই সাব্বিরের স্বপ্ন দেখতেন সাইকেল নিয়ে সারাদেশ ঘুরবেন। বড় হয়ে সেই সাব্বির সাইক্লিংকে নিয়ে গেছেন অন্য এক মাত্রায়। সাব্বিরের বাড়ি ঝিনাইদহ। বর্তমানে পড়াশোনা করেছেন বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বাকৃবি) সাব্বির বাকৃবির মত্স্যবিজ্ঞান অনুষদের শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী।

সকল শিক্ষার্থীর মতো বিশ্ববিদ্যালয়কে প্রচণ্ড ভালোবাসেন তিনি। কিন্তু কোনো এক অদ্ভুত কারণে দেশের বিভিন্ন এলাকার মানুষ, জাতীয় পত্র-পত্রিকা ও টিভি চ্যানেলে প্রায়ই বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম বিকৃত করে ‘ময়মনসিংহ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়’ লেখা বা বলা হয়। নিজের বিশ্ববিদ্যালয়ের বিকৃত নাম শুনলেই সাব্বির খুব ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন। ভাবতে থাকেন কীভাবে এর প্রতিবাদ করা যায়। এই কথা ভাবার পরেই তার মাথায় একটা নতুন বুদ্ধি খেলে যায়। ভাবলেন তার সবচেয়ে প্রিয় শখকেই তিনি প্রতিবাদের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন। পণ করলেন সারা দেশে সাইকেল নিয়ে ঘুরবেন আর মানুষকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সঠিক নাম জানাবেন। এরপর চলল তার দেশ ভ্রমণ ও প্রতিবাদের প্রস্তুতি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সাইকেল প্রেমি সাজ্জাত, মুন্না, আশিক, রাজু, জাকিয়া বিভিন্নভাবে সাহায্য করেছেন সাব্বিরকে। এরপর বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম সংবলিত পোস্টার তৈরি করেন তিনি।

সাইকেল নিয়ে বিভিন্ন জেলা ঘোরার অভিজ্ঞতা সম্পর্কে সাব্বির বলেন, ‘বৃহস্পতিবার ভোর ৪টা ৩০ মিনিটের দিকে ঘুম থেকে উঠলাম। সবকিছু ঠিক করে পোস্টার বুকে নিয়েই বের হলাম, লজ্জা করছিল কিন্তু যখন মনে হলো মায়ের (বিশ্ববিদ্যালয়) অপমানের প্রতিবাদ করতে যাচ্ছি তখন আর লজ্জা লাগছিল না।

প্রথমে গেলাম টাঙ্গাইলে। সেখানে আমাকে দেখে অনেকে জিজ্ঞেস করছিল এসব কী? তখন তাদের সবাইকে বাকৃবির নামের বিষয়টা বললাম। ভ্যান চালক, মজুর, ছাত্র সবাইকে পোস্টার দিলাম। এভাবে চলতে চলতে যমুনা সেতু পর্যন্ত চলে গেলাম। যমুনা সেতুতে সাইকেল নিয়ে পার হওয়া যায় না তাই ট্রাকে করে পার হলাম। তারপর সিরাজগঞ্জে পোস্টার লাগানো শুরু করলাম। সন্ধ্যায় পৌঁছে গেলাম নাটোরে। রাতে থাকলাম বন্ধু রুকুর বাসায়। পরদিন ভোরে বেরিয়ে পড়লাম রাজশাহীর উদ্দেশে। যাওয়ার পথে বিভিন্ন প্রত্নতাত্ত্বিক স্থাপনা, রাজবাড়ি, হাওয়া খানা ও জাদুঘর দেখলাম। পাশাপাশি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ও রুয়েট ক্যাম্পাসটা ঘুরে দেখলাম।

এরপর চাঁপাইনবাবগঞ্জের দিকে রওনা হলাম। সেখানে থাকার মতো পরিচিত কেউ ছিল না। ওইসময় সেখানে ইজতেমা হচ্ছিল। ওইদিন ১৭-১৮ জন মাদ্রাসার ছেলের সঙ্গে রাতে থাকলাম। পরদিন রওনা হলাম নওগাঁর পথে। পথে চোখে পড়ল কুসুম্বা মসজিদ। নওগাঁ দিয়ে বগুড়া গেলাম। বগুড়া ছিলাম বন্ধুর কাছে। বগুড়ার মহাস্থানগড়সহ বিভিন্ন প্রত্নতাত্ত্বিক স্থান ঘুরলাম। তারপর জয়পুরহাট, দিনাজপুরের হিলি বন্দর ঘুরে দিনাজপুরে গিয়ে রাতটা থাকলাম বন্ধু সাদাতের বাসায়। এই পথে পথে ঘোরার সময় পোস্টার বিলি ও লাগানোর কথা একবারের জন্যও ভুলে যাইনি।

তারপর ঠাকুরগাঁও হয়ে তেঁতুলিয়া এবং তেঁতুলিয়া থেকে সোজা বাংলাবান্ধা। বাংলাবান্ধা জিরো পয়েন্টে অনেক মানুষ ছিল। সবাইকে বোঝালাম। সবাই বলল যে আগে ভুল করতাম এখন আর আমরা ভুল করব না। তাদের কথা শুনে মনে হলো আমার এই পথচলা কিছুটা হলেও সার্থক হয়েছে। ওইদিন রাতে আমার এক বান্ধবীর বাসায় থাকলাম।

পরদিন রংপুর যাওয়ার জন্য বের হয়ে শুনি পরের দিন আমার পরীক্ষা। তখন ক্যাম্পাসে ফিরে আসা ছাড়া কোনো উপায় ছিল না। একারণে বাসে করেই ক্যাম্পাসে ফিরলাম এখন পর্যন্ত ৬৪ জেলার মধ্যে সাতচল্লিশটা জেলায় সাইকেল নিয়ে ঘুরেছেন সাব্বির।’ খুব সম্প্রতি দেশের দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের কুয়াকাটা পর্যন্ত ঘুরে এসেছেন সাব্বির। এসময়ও হাতে ছিল পোস্টার।

এছাড়া চলার পথে বিভিন্ন জেলার দর্শনীয় স্থানের পাশাপাশি ওইসব জেলার আবর্জনার স্তূপের ছবি তুলে তার ফেসবুক ওয়ালে আপলোড করেন। জেলার সৌন্দর্য বিনষ্টকারী আবর্জনার ব্যবস্থাপনা করার বিষয়ে তিনি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি কামনা করেন।

সাব্বির পছন্দ করেন নড়াইল এক্সপ্রেস মাশরাফি বিন মর্তুজাকে। আর বাকৃবির শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা ভালোবাসেন সাব্বিরকে। সবাই ভালোবেসে তার নাম দিয়েছেন ঝিনাইদহ এক্সপ্রেস। বিশ্ববিদ্যালয়ের সবাই চায়, সাব্বির যেন সাইকেল নিয়ে সারাদেশ ঘুরতে পারে এই আসাবাদ করেন

দেখা হয়েছে: 82
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।