|

টঙ্গীবাড়িতে আলুর বাম্পার ফলনের সম্ভাবনায় পরিচর্যায় ব্যস্ত কৃষক

প্রকাশিতঃ 7:57 pm | January 28, 2019

সামসুদ্দিন তুহিন:

টঙ্গীবাড়িতে টানা ৫বছর আলুতে লোকসানের পরে ও একটু লাভের আাশায় এবার ও আলু রোপন করেছে এ উপজেলার কৃষকরা।আগামী ফেব্রুয়ারী মাসের শেষ সপ্তাহে চলতি মৌসুমের আলু উত্তোলন শুরু করবে কৃষকরা।

দেখা যাবে এবছর তাদের ভাগ্যে কি রয়েছে। বছরের পর বছর লোকসানের কবলে পরে সর্বস্বান্ত হয়ে পড়া কৃষকরা গজিয়ে উঠা আলু গাছের পরিচর্যায় এখন ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন।

পরিচর্যার অন্যতম দিকগুলো হচ্ছে জমিতে গজিয়ে উঠা আলু গাছে ক্ষতিকারক পোকা মাকর ও বিভিন্ন প্রকার ভাইরাস থেকে ঔষদ প্রয়োগ করে ফসল কে রক্ষা করা ও যে সকল জমিতে আলু গাছ গজিয়ে উঠছে ধীর গতিতে সে সকল জমিতে দ্রুত গাছ গজিয়ে উঠার জন্য দেওয়া হচ্ছে বিভিন্ন প্রকার ভিটামিন ঔষদ ও ইঞ্জিন চালিত পাম্প মেশিন দিয়ে ছিটিয়ে দেওয়া হচ্ছে পানি।

আবার কোথাও আলু জমিতে থাকা আগাছা পরিস্কার করছে কৃষকরা। এতো কষ্টের পরও তাদের একটাই আশা ভাল ফলন ও লোকসানের কবল থেকে উঠে আসা।গত ৫বছর আলুতে বাম্পার ফলন হওয়ার পর ও বস্তা প্রতি ৬শত থেকে ৭শত টাকা লোকসান হওয়ায় এবার লাভবান হবে কিনা তা নিয়ে চিন্তিত কৃষকরা।

এব্যাপারে এক তরুন কৃষক তাহিদ শিকদার এর সাথে আলাপ করে জানাযায় তিনি বলেন বর্তমানে আলু বীজ হতে শুরু করে বিভিন্ন প্রকার সার ও পোকা মাকর ও ভাইরাস নিরোধক বিভিন্ন প্রকার ঔষদ এবং পানি সেচ দেওয়াসহ প্রচুর পরিমাণ টাকা খরচ হয়, সেই পরিমাণে হিসাব করলে আলুর বস্তা প্রতি ১হাজার থেকে ১২শত টাকা হলে আমাদের চালান উঠে আসে,নয়তো দুঃখের শেষ নাই,তার মধ্যে আবার প্রকৃতির ভিন্ন আচরণ হলে তো ভোগান্তির শেষ নেই।

টঙ্গীবাড়ি উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃজাহাঙ্গীর আলম জানান- এবার ১০হাজার ১০হেক্টর জমিতে আলু বীজ রোপন করা হয়েছে, আমরা আশা রাখী প্রায় ৩লক্ষ ত্রিশ থেকে পয়ত্রিশ মেট্রিক টন আলু উৎপাদিত হবে।