|

চাঁদপুর ত্রিমোহনা মৃত্যুকূপে পরিণত

প্রকাশিতঃ ৯:৪৭ অপরাহ্ন | অক্টোবর ০৬, ২০১৯

চাঁদপুর ত্রিমোহনা মৃত্যুকূপে পরিণত

চাঁদপুর প্রতিনিধিঃ ত্রিমোহনা মৃত্যুকূপে পরিণত হয়েছে। পদ্মা-মেঘনা আর ডাকাতিয়া নদীর তিন দিক থেকে প্রবাহিত হয়ে এই স্থানে একত্রিত হওয়ায় এ বিশাল ঘূর্ণিগর্তের সৃষ্টি হয়। ফলে সব প্রকার নৌ-যান চলাচলে ঝুঁকিপূর্ণ করে তুলেছে।

ইতোপূর্বে সরকারিভাবেও চাঁদপুরকে সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ নৌ-পথ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। অথচ বাধ্য হয়েই এ স্থান দিয়েই প্রতিদিন চরাঞ্চলের বহু ট্রলার যাত্রী নিয়ে পদ্মা-মেঘনা পাড়ি দিচ্ছে। পদ্মা-মেঘনা উপক‚লীয় এলাকা চাঁদপুর সদর, মতলব উত্তর, মতলব দক্ষিণ ও হাইমচর উপজেলায় প্রায় ৪০টি চরাঞ্চল রয়েছে।

এসব এলাকার মানুষ দৈনন্দিন কাজে ও চিকিৎসার জন্য জেলা ও উপজেলা সদরে আসে। এসব এলাকার যোগাযোগের একমাত্র বাহন হচ্ছে ইঞ্জিন চালিত নৌকা (ট্রলার)। তাই জীবনের ঝুঁকি নিয়ে শিশু, নারী ও পুরুষ সকলেই ট্রলারে করে নিয়মিত জেলা সদরে আসে। আর এভাবে আসতে গিয়েই ট্রলারডুবিতে মৃত্যু হয় অনেকের।

দেখা যায়, চাঁদপুর শহরের বড় স্টেশন মোলহেডে অর্থ্যাৎ ত্রিমোহনায় ২৪ ঘণ্টাই প্রবল ঘূর্ণিস্রোতে বইতে থাকে। বর্ষার মৌসুম শেষ হলেও নদীর স্রোত ও ঢেউ কমেনি। আর এরই মধ্যে ঝুঁকি নিয়ে মাল ও যাত্রী বোঝাই ট্রলারগুলো তাদের গন্তব্যে ছুটছে। চাঁদপুর জেলার ব্যবসায়িক এলাকা পুরানবাজারে প্রতিদিনই মাল বোঝাই বড় বড় কার্গো কিংবা ট্রলার আসে। নদীর ঢেউ এবং স্রোত বৃদ্ধি পেলে অনেক সময় এসব নৌযানগুলো ডুবে যায়। আর ঘূর্ণিস্রোতের কারণে নৌযানগুলো উদ্ধার করা সম্ভব হয়ে উঠে না।

স্থানীয়রা জানান, পাকিস্তান শাসন আমল থেকে এখানে যাত্রীবাহী লঞ্চডুবে যাওয়া শুরু হয়েছে। যার মূল কারণ মোহনায় তীব্র স্রোত। এখানে এমভি শাহজালাল, মদিনা, দিনার ও নাসরিন-১ লঞ্চ ডুবে যায়। এসব দুর্ঘটনায় মালামালসহ শত শত যাত্রীর মৃত্যু হয়। তবে এর মধ্যে সবচেয়ে বড় দুর্ঘটনা কবলিত হয়েছে এমভি নাসরিন লঞ্চ। যার প্রায় ৯০ ভাগ যাত্রীই মারা যায়। এখানে ডুবে যাওয়া কোনো লঞ্চের সন্ধান পায়নি বিআইডবিøউটিএ।

স্থানীয় ব্যবসায়ী হাজী মো. সামছুল হক প্রধানিয়া বলেন, আমি ১৯৬৯ সাল থেকে এখানে ব্যবসা করছি। সেই সময় থেকে দেখে আসছি মোলহেড মোহনায় নদীর স্রোত। এই স্রোতের কারণে মোলহেডের প্রায় আধা কিলোমিটার নদীতে বিলীন হয়ে গেছে। এখানে মাছের আড়ৎ, পাইলট হাইজ ও দুটি স্টিমারঘাট ছিলো, যা নদীর স্রোতে বিলীন হয়েছে। দিন যত যাচ্ছে এখানে ঝুঁকিও তত বাড়ছে। তিনি বলেন, স্রোত বৃদ্ধির মূল কারণ হচ্ছে, বিপরীত পাশে চর জেগে উঠা। স্রোতের গতিপথ পরিবর্তন করতে পারলে এখানে দুর্ঘটনা কমানো যাবে।

স্থানীয় জনপ্রতিনিধি কাউন্সিলর ফরিদা ইলিয়াস বলেন, মোহনায় দুর্ঘটনা প্রতিনিয়ত বেড়ে চলছে। জেলে নৌকা, মালবোঝাই ট্রলার ও যাত্রীবাহী ট্রলার প্রায়ই দুর্ঘটনা কবলিত হচ্ছে। আমরা এসব দুর্ঘটনা এড়াতে সর্বদা কাজ করছি। তবে যতদিন ডুবোচর এবং বিপরিতপাশের চরগুলো খনন না করা হবে, ততদিন এই স্থানে স্রোত কমবে না। আর স্রোতের কারণে শহর রক্ষা বাঁধও ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে।

চাঁদপুর নৌ থানার ওসি মো. আবু তাহের বলেন, মোহনাটি সব সময়ই প্রবল ঘূর্ণিস্রোত বয়ে যেতে থাকে। যার কারণেই নৌযানগুলো দুর্ঘটনা কবলিত হয়। বিশেষ করে নৌকা-ট্রলারগুলো বেশি দুর্ঘটনা কবলিত হয়।

চাঁদপুর জেলা সনাকের (টিআইবি) সভাপতি মোশারেফ হোসেন বলেন, চাঁদপুর বড় স্টেশন মোহনাটি ঝুঁকিপূর্ণ বিধায় এখান বিকল্প লঞ্চঘাটে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। আর তিন নদীর মাঝখানে এখানে একটি ঘূর্ণিস্রোত রয়েছে। যার আছে বরাবরই থাকবে। যার কারছে ছোট নৌযানগুলো ঝুঁকিতে রয়েছে।

এছাড়া চরাঞ্চলের ট্রলারগুলো বিপদজনক ভাবেই চলছে। এজন্য যতটুকু সম্ভব এই স্থানটি এড়িয়ে চলা। স্রোতের অনেক দূর থেকে ডাকাতিয়া প্রবেশ করতে হবে। পানি যখন বাড়ে কিংবা বৃষ্টি হয়, তখন ঘূর্ণিস্রোত আরো বেড়ে যায়। তখন স্রোতের এক কিলোমিটার দূরে দিয়ে গেলেই দুর্ঘটনা এড়ানো সম্ভব। এছাড়া ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় বয়া স্থাপন করে লাল সংকেত দিয়ে রাখা উচিত। যাতে সবাই সতর্ক অবস্থান নিতে পারে।

চাঁদপুর নদীবন্দর কর্মকর্তা আব্দুর রাজ্জাক বলেন, বড় স্টেশন মোলহেডের মোহনাটি সব সময় ঝুঁকিপূর্ণ। এখানে স্থানটি যতটুকু সম্ভব এড়িয়ে চলা উচিত। আমরা বড় বড় মালবাহী জাহাজ কর্তৃপক্ষকে বলে দিয়েছি, যাতে পাইলট নিয়ে জাহাজ চালায়। এছাড়া এই মোহনার পাশ দিয়ে ফিটনেসহীন লঞ্চ ও জাহাজ চলাচল সম্পূর্ণভাবে নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

দেখা হয়েছে: 45
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন
  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ [email protected]
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।