|

দিনাজপুর পরপর ৩ দিন ঈদের নামাজ আদায়

প্রকাশিতঃ ৬:২৮ অপরাহ্ন | জুন ০৬, ২০১৯

দিনাজপুর পরপর ৩ দিন ঈদের নামাজ আদায়

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ আজ বৃহস্পতিবারও দিনাজপুরের চিরিরবন্দরের ৫ গ্রামের মানুষ ঈদ-উল-ফিতরের নামাজ আদায় করলেন। সকাল ৯টায় ঈদের নামাজ আদায় করেন তারা।

চিরিরবন্দরের ওইসব গ্রামের কয়েক হাজার মানুষ ৩০ রোজা পূরণ করে আজ বৃহস্পতিবার ঈদুল ফিতর উদযাপন করেন। এ নিয়ে চিরিরবন্দরে পরপর তিন দিন ঈদের নামাজ আদায় করা হলো।

জানা যায়, সৌদির সঙ্গে মিল রেখে চিরিরবন্দর উপজেলার বেশ কিছু গ্রামের মানুষ গত ৪ জুন ঈদুল ফিতরের নামাজ আদায় করে। ৫ জুন সারা দেশের সঙ্গে ঈদুল ফিতর পালন করেন বেশিরভাগ মানুষ। আর আজ তৃতীয় দিন ৩০ রোজা পূরণ করে পাঁচ গ্রামের কয়েক হাজার মানুষ ঈদ-উল-ফিতরের নামাজ আদায় করলেন।

আজ ঈদ পালন করা গ্রামগুলো হলো, চিরিরবন্দরের আব্দুলপুর ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠ, শুকদেবপুর, নান্দেড়াই, সাইতারা ইউনিয়নের দক্ষিণ পলাশবাড়ী ও ইসবপুর ইউনিয়নের বিন্যাকুড়ি, দক্ষিণ নগর গ্রামের আংশিক মানুষ এই ঈদের নামাজ আদায় করেন। এই পাঁচ গ্রামের মহিলারাও বাসায় ঈদের নামাজ আদায় করেন।

শিক্ষক রফিকুল ইসলাম জানান, চাঁদ দেখা নিয়ে বিভ্রান্তির কারণে তারা তারাবির নামাজ আদায় করেন এবং সাহরি খেয়ে রোজা রাখেন। তাই তারা গত ৫ জুন ঈদুল ফিতরের নামাজ আদায় করেননি। বৃহস্পতিবার সকাল ৯টায় ঈদের নামাজ আদায় করেন।

বৃহৎ ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয় মেরাইডাঙ্গা ঈদগাহ মাঠে। এ মাঠে ইমামতি করেন ইমাম নাজমুল হক হামদানী ও চিরিরবন্দর কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠে ইমামতি করেন ইমাম আব্দুল মান্নান। চিরিরবন্দর কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠে ইমামতি করেন ইমাম আব্দুল মান্নান।

চিরিরবন্দর থানার ওসি মো. হারেসুল ইসলাম তৃতীয় দিনের মতো ঈদের নামাজ আদায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

দেখা হয়েছে: 78
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন
  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।