|

গঙ্গাচড়ায় ফসলি জমিতে পুকুর খনন, কমছে বোরো চাষ

প্রকাশিতঃ 11:34 pm | March 23, 2019

আব্দুল আলীম প্রামানিক, গঙ্গাচড়া (রংপুর) প্রতিনিধিঃ রংপুরের গঙ্গাচড়ায় পুকুর খননকারীদের আগ্রাসনে ক্রমেই হারাচ্ছে আবাদি জমি। গত কয়েক বছরের ব্যবধানে গঙ্গাচড়ায় প্রায় একশত হেক্টর ফসলি জমি পুকুরে পরিণত হয়েছে। এখনও আগ্রাসন চলছে। ফলে ফসলি জমি গিলে খাচ্ছে পুকুরে। এ কারণে অস্বাভাবিক হারে কমে যাচ্ছে তিন ফসলি জমি। এতে বোরো আবাদ কমলেও মাছ চাষ বেড়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ধানের ন্যায্যমূল্য না পাওয়ার কারণে কৃষকরা পুকুর খননের জন্য বোরো জমিতে পুকুর খনন করছেন। উচ্চ আদালত ও মন্ত্রণালয়ের নির্দেশ অমান্য করে এসব আবাদি জমিতে পুকুর খনন করা হয়েছে। কৃষি জমিতে পুকুর খননের কারণে ধান চাষ হুমকির মুখে পড়েছে।

তবে কৃষি জমি রক্ষায় উপজেলা প্রশাসন পুকুর খননের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রেখেছে। তবে কমছে না পুকুরু খননের মাত্রা। উপজেলার বড়বিল ইউনিয়নসহ বিভিন্ন ইউনিয়ন ঘুরে শুধু পুকুর খননের দৃশ্য দেখা গেছে। এ কারণে কমে যাচ্ছে বোরো আবাদ। দুই বছর আগেও সেখানে বোরো আবাদ হতো এখন যেখানে দেখা মিলছে পুকুরের।

উপজেলার বড়বিল ইউনিয়নের আবাদি জমিতে সর্বোচ্চ সংখ্যক পুকুর খনন করা দেখা যায়। এই দৃশ্য অন্যান্য এলাকায়ও। ধানের বদলে চলছে মাছ চাষ আর বালু বাণিজ্য। উচ্চ আদালতের নির্দেশনা ও কৃষি মন্ত্রণালয়ের পরিপত্রে বলা হয়েছে কৃষি জমি রক্ষা করতে হবে। আর আবাদি জমিতে পুকুর খনন রোধে নিয়মিত ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করতে হবে। জনস্বার্থে জমি জমিতে পুকুর খনন রোধে গত ২০১৭ সালের এপ্রিলে রিট দায়ের করেন জালাল উদ্দিন নামের এক আইনজীবী।



স্থানীয় কৃষকরা বলেন, এলাকার প্রভাবশালী ব্যক্তিরা মাছ চাষের নামে বালু বাণিজ্য করছেন। কৃষকদের অভিযোগ প্রতি বিঘা জমিতে ধান চাষ করে যে টাকা পাওয়া যায় তা থেকে চাষাবাদের খরচ ওঠেনা। এতে পুকুর খনন করে মাছ চাষ করে ও বালু বিক্রি করে অনেক টাকা পাওয়া যায়। এভাবে কৌশল অবলম্বন করে ধানী জমি গিলছেন পুকুর মালিকরা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক পুকুর মালিক জানান, ধান চাষ কমলেও মাছ চাষ বেড়েছে বলে দাবি করেন।

অভিজ্ঞ মহল বলছেন, উপজেলা মৎস্য বিভাগের নজর দারি না থাকায় প্রভাবশালীরা মৎস্য বিভাগকে ম্যানেজ করে ধানী জমিতে পুকুর খনন করছেন।

কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, গত কয়েক বছরে একশত হেক্টর জমিতে ধানের আবাদ কমেছে। উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা জানান, পরিত্যাক্ত আবাদি জমিতে পুকুর খনন করলে কৃষি জমির রক্ষার পাশাপাশি মাছ চাষও বৃদ্ধি পেত।