|

বাঙালির হারিয়ে যাওয়া কিছু ঐতিহ্য: শরীফুল্লাহ মুক্তি

প্রকাশিতঃ 9:08 pm | April 23, 2019

আমাদের ইতিহাস প্রায় আড়াই হাজার বছরের ইতিহাস। আমাদের রয়েছে অনেক গৌরবময় সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য। প্রাচীনকাল থেকে চলে আসছে বাঙালির কিছু নিজস্ব সংস্কৃতি এবং ব্যবহার্য ঐতিহ্যবাহী জিনিস। আমরা যুগ যুগ ধরে ব্যবহার করে আসছি এই সকল ঐতিয্যবাহী জিনিস।

ঐতিহ্যবাহী এই সকল জিনিস বাংলার সংস্কৃতির এক একটি উপাদান হাজার বছর ধরে: বাঙালি সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের ধারক। কিন্তু কালে কালে বদলায় সমাজ সংস্কৃতি- হারায় ঐতিহ্য। আমাদের ঐতিয্যবাহী এ সকল জিনিসগুলো এখন বিলুপ্তপ্রায়।

এই আধুনিক যুগে আধুনিক সংস্কৃতি ও পণ্যের কাছে, আধুনিক কলাকৌশলের কাছে মার খেতে খেতে আস্তে আস্তে বাঙালির অতীত সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য আজ বিলুপ্তির পথে। হারিয়ে যাওয়া আমাদের বাঙালি সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের প্রতীকগুলো হলো- পালকের কলম, বাঁশের কঞ্চির কলম, কলা ও তালপাতার কাগজ, পালের নৌকা, গরুগাড়ি, খড়ম, পালকি, পাতিকূপ ও ইঁদারা, বায়োস্কোপ, শিকা, ডুলি, হুক্কা, ঢেঁকি, আলতাবড়ি, কাগজের তৈরি ডালি, পিঁড়ি, পানি সেচের জাঁত বা ডোঙ্গা, মাথাল বা মাথল, ধানের গোলা, নকশিকাঁথা, কলুর ঘানি, পাতার বিড়ি, খেজুর পাতার পাটি, উরুন-গাইন/গাইল-চিয়াতো, ডোল, মাটিরঘর, কুঁড়েঘর, ধান বা চাল রাখার কুটির, পানি সেচের জাঁত বা ডোঙ্গা, যাঁতি, লাঠিখেলা, চৈত্র সংক্রান্তির মেলা ইত্যাদি।

পালকের কলম: পাখির পালককে প্রাচীনকাল হতে কলম হিসেবে ব্যবহার করা হতো। পাখির পালককে অফিস-আদালতে ও সমাজের অভিজাত পাড়ায় কিছুটা সৌখিনতার বশে কলম হিসেবে ব্যবহার করা হতো। এটি আর এখন দেখা যায় না।

বনগাছের কলম: একসময় বনগাছের কলমও ব্যবহার করা হতো। বন এক প্রকার গাছ, অনেকটা বাঁশের কঞ্চির মতো। বনের কলমকে কালির দোয়াতে কিছুক্ষণ ডুবিয়ে রাখলে এটি কালি শুষে নিতো। এটির কা- ফাঁপা ছিল বলে সহজে কালি শুষে নিতো। এরপর চলতো তা দিয়ে লেখা। কালি শেষ হলে আবার কলমের ডগা কালিতে ডুবিয়ে নিতে হতো। এটি আজ একেবারেই বিলুপ্ত।

বাঁশের কঞ্চির কলম: খুব বেশিদিন আগের কথা নয়। আমাদের পূর্ব-পুরুষেরা (৪০-৫০ বছর পূর্বে) বাঁশের তৈরি কলম দিয়ে লেখা শেখার হাতেখড়ি নিয়েছে। বাঁশের কঞ্চিকে ৪-৫ ইঞ্চি পরিমাণ কেটে নিয়ে তার এক প্রান্ত চোখা করে তাতে কালি মিশিয়ে কলম হিসেবে ব্যবহার করা হতো। এটিও আজ বিলুপ্ত।

কলাপাতা ও তালপাতার কাগজ: একসময় কলাপাতা ও তালপাতাকে কাগজের বিকল্প হিসেবে লেখার কাজে ব্যবহার করা হতো। বিশেষ করে প্রাথমিক স্কুলের শিশুদের লেখা শেখাতে ও হাতের লেখা সুন্দর করতে কলাপাতা ও তালপাতা ব্যবহার করা হতো।

হুক্কা: কালের আবর্তে হারিয়ে গেছে গ্রামবাংলার ঐতিহ্যের অনুষঙ্গ ‘হুক্কা’। আবহমানকাল থেকেই গ্রামবাংলার মানুষের অন্যতম মাধ্যম ছিল ‘হুক্কা’। গ্রামের বিভিন্ন বৈঠকখানায় মেহমানদের জন্য আকর্ষণ ছিল হুক্কা। ধূমপানের জনপ্রিয় এই মাধ্যম গ্রামবাংলার বিনোদন, আতিথেয়তা, বন্ধুত্ব ও সম্প্রীতির প্রতীক। তামাক পাতাকে টুকরো টুকরো করে কেটে এতে চিটাগুড় মিশ্রিত করে তৈরি হতো হুক্কার প্রধান উপাদান ‘তামুক’। ‘তামুক’ মাটির তৈরি কল্কির মধ্যে দিয়ে কয়লা দ্বারা টিক্কার মাধ্যমে আগুন দিয়ে ধূমপান করা হতো। সে সময় ধনী ও গরিব প্রতিটা বাড়িতেই ছিল হুক্কার প্রচলন।

আজ থেকে দুই/তিন দশক আগেও গ্রামে-গঞ্জে ধূমপায়ীরা হুক্কার মাধ্যমে তামাকপানের নেশায় অভ্যস্ত ছিল। পুরুষদের পাশাপাশি বয়স্ক নারী ও ছেলে-মেয়েরাও হুক্কার মাধ্যমে ধূমপান করতো। এছাড়াও নাটক-সিনেমায় অভিনয়ে ধনীদের আভিজাত্যের প্রতীক হিসেবে পিতলের তৈরি ‘নলের হুক্কা’ (ফর্সি হুঁকো) ও গরিবদের জন্য নারিকেলের খোল দ্বারা তৈরি ‘ডাবা’ ব্যবহার করা হতো- যা মানুষের উঁচু-নীচু পার্থক্য নির্ণয় করতো। একসময় স্থানীয় সরকার নির্বাচনে প্রতীক হিসেবে হুক্কা খুবই জনপ্রিয় ছিল।

গরুগাড়ি: ‘আমার গরুর গাড়িতে বউ সাজিয়ে… আলতা দেবো শাড়ি দেবো, দেবো ভালোবাসা’- না, সেই গান এখন আর গ্রামবাংলায় গাড়িয়ালের গলায় শোনা যায় না। গ্রামবাংলার ঐতিহ্যবাহী গরুগাড়ি হারিয়ে যাচ্ছে। কোথাও দু’একটা গরুগাড়ি চোখে পড়লেও তা খুবই নগণ্য। কৃষিপ্রধান এই দেশে কৃষকের উৎপাদিত ফসল বহন, বিবাহ অনুষ্ঠান, মেলা ও ভ্রমণের একমাত্র বাহন ছিল গরুগাড়ি। এক সময় কৃষকের ঘরে ঘরে গরুগাড়ি ও গরুর হাল ছিল। গরু গাড়ির ছাউনি সাজিয়ে শ্বশুরবাড়ি ও বাবার বাড়ি আসা-যাওয়া করত নববধু। মেলা বারুণিতে আনন্দ উপভোগ করার জন্য বাবার সঙ্গে ছেলে-মেয়েরা গরুগাড়িতে চড়ে বেড়াতে আসতো। বিবাহ অনুষ্ঠানে অনেকগুলো সাজানো গরুগাড়ির বহর নিয়ে বরপক্ষ কনের বাড়িতে বরযাত্রাসহ বিবাহ অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করতো। কালের বিবর্তনে গরুগাড়ি ও গরুর হালচাষ আজ প্রায় হারিয়ে গেছে।

ঢেঁকি: চিরায়ত বাংলার হারিয়ে যাওয়া ইতিহাস-ঐতিহ্যের একটি অংশ হচ্ছে আমাদের অতীতের বহুল ব্যবহৃত নিত্য প্রয়োজনীয় সমাজ-সংস্কৃতির অংশ অধুনালুপ্ত ঢেঁকি। আগের দিনে প্রতিটি বাড়িতে ধান ভানার জন্য ঢেঁকি এবং গাইল-চিয়াতো থাকতো। বর্তমানে নিতান্ত অজ-পাড়াগাঁয়ে কোথাও কোথাও হঠাৎ হয়তো আজও ঢেঁকি, গাইল-চিয়াতো দেখা গেলেও এসবের ব্যবহার প্রায় বিলুপ্ত বলা চলে। ঢেঁকিছাঁটা চালের কদর এখনও কমেনি- কারণ এই চালের ভাতের মজাই আলাদা। একসময় গ্রাম-গঞ্জ সর্বত্রই ধান ভাঙ্গা, চাল তৈরি, গুড়ি কুটা, চিড়া তৈরি, মসলাপাতি ভাঙ্গানোসহ বিভিন্ন কাজের জন্য ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হতো চিরচেনা ঐতিহ্যবাহী ঢেঁকি। তখন এটা গ্রামীণ-জীবন ও সংস্কৃতির সাথে জড়িত ছিল ওতপ্রোতভাবে। অনেকে কুটিরশিল্প তথা পেশা হিসেবেও ঢেঁকিতে ধান ভানতেন। গ্রামের মহিলাদের প্রিয় গান, ‘ও বউ ধান ভানো রে, ঢেঁকিতে পাড় দিয়া, ঢেঁকি নাচে বউ নাচে হেলিয়া-দুলিয়া, ও বউ ধান ভানো রে’- এই গান এখন আর গ্রাম্য মহিলাদের কন্ঠে শোনা যায় না।

খড়ম: কাঠের তৈরি খড়ম আজ আর কাউকে ব্যবহার করতে দেখা যায় না। খড়মের স্থান দখল করে নিয়েছে প্লাস্টিক, রাবার, কাপড় এবং চামড়ার তৈরি বিভিন্ন ধরনের স্পঞ্জ, স্যান্ডেল ও জুতো। আধুনিকতার সাথে পাল্লা দিয়ে টিকতে না পেরে হারিয়ে গেছে ঐতিহ্যবাহী পাদুকা খড়ম। এককালে সাধারণ মানুষের চলার সঙ্গী ছিল খড়ম। আগেকার দিনে খড়ম ছিল আদর-আপ্যায়নের সর্বপ্রথম আয়োজন ও ভদ্রতা। কোনো বাড়িতে অতিথি উপস্থিত হলেই হাসিমুখে একজোড়া খড়ম ও বদনা দিয়ে পানি দেয়া হতো অজু করা বা হাত-মুখ ধোয়ার জন্য। এ আপ্যায়নের উপরই বিবেচ্য হতো বাড়ির লোকজনের গুণগান। দুই প্রকারের খড়ম পাওয়া যেত- বয়েল খড়ম ও দলযুক্ত খড়ম। স্থানীয় ভাষায় চটি খড়ম ও বউলা খড়ম। বর্তমানে এই খড়ম হারিয়ে গেছে- নতুন প্রজন্ম আজ খড়ম কী তা জানে না। বর্তমানে খড়ম ব্যবহারের গল্প রূপকথার মতো শোনায়।

পালকি: বাঙালির ঐতিহ্যবাহী প্রাচীন বাহন পালকি। বইয়ের পাতায় পালকির কথা আজও উল্লেখ থাকলেও বাস্তবে এর দেখা মেলে না। সভ্যতার ক্রমবিকাশ, যান্ত্রিক যুগ, বিজ্ঞানের অগ্রযাত্রায় হারিয়ে গেছে বাঙালির ঐতিহ্যের প্রতীক পালকির প্রচলন। বিখ্যাত পর্যটক ইবনে বতুতা এবং চতুর্দশ শতকের পর্র্যটক ম্যাগনোলি ভ্রমণের সময় পালকি ব্যবহার করতেন বলে জানা যায়। সম্রাট আকবরের রাজত্বকালে এবং পরবর্তী সময়ে সেনাধ্যক্ষদের যাতায়াতের অন্যতম বাহন ছিল পালকি।

আধুনিক যানবাহন আবিষ্কার হওয়ার আগে অভিজাত শ্রেণির লোকেরা পালকিতে চড়েই যাতায়াত করতেন। বাংলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে দীর্ঘদিন ধরে বিয়েতে ও অন্যান্য শুভ অনুষ্ঠানে বর-কনের জন্য পালকি ব্যবহারের প্রথা চালু ছিল। একসময় পালকিতে চড়েই নববধূ আসতো স্বামীর ঘরে। কোথাও বেড়াতে গেলে পালকিই ছিল একমাত্র বাহন। উনিশ শতকের মাঝামাঝি সময়ে যাতায়াতের মাধ্যম হিসেবে স্টীমার ও রেলগাড়ি চালু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে পালকির ব্যবহার কমতে থাকে। ক্রমশ সড়ক ব্যবস্থার উন্নতি এবং পশু-চালিত যান চালু হলে যাতায়াতের বাহন হিসেবে পালকির ব্যবহার কমে যায়। ১৯৩০-এর দশকে শহরাঞ্চলে রিকশার প্রচলন হওয়ার পর থেকে পালকির ব্যবহার উঠেই গেছে।

উরুন-গাইন/গাইল-চিয়াতো: গ্রামবাংলার ঐতিহ্যবাহী উরুন-গাইন/গাইল-চিয়াতো আজ বিলুপ্তির পথে। গ্রামবাংলার ঐতিহ্যবাহী গ্রামীণ বধূদের পছন্দেরউরুন-গাইন/গাইল-চিয়াতো-এর ধুপধাপ শব্দ আর শোনা যায় না। কালের বিবর্তনে এখন বিলুপ্তপ্রায় এ সরল যন্ত্র। আজ থেকে ২০-২৫ বছর পূর্বে গ্রামীণ জনপদে গৃহবধূরা উরুন-গাইন/গাইল-চিয়াতো ও ঢেঁকির মাধ্যমে ধান ভাঙ্গতো, চাল কুটে আটা বানিয়ে নানান ধরনের পিঠা-পুলি বানাতো। এখন ওইসব গ্রামীণ জনপদে আর দেখা মিলছে না উরুন-গাইন/গাইল-চিয়াতো ও ঢেঁকির। উরুন-গাইন ও ঢেঁকি দু’টিই সরল যন্ত্র। এই দুইয়ের কাজও এক। বর্তমানে মাঝে মাঝে ঢেঁকি দেখা গেলেও দেখা মিলছে না উরুন-গাইনের। বর্তমান প্রজন্মের ছেলে-মেয়েরা আর কিছুদিন পর উরুন-গাইন/গাইল-চিয়াতো কী জিনিস এবং এ দিয়ে কী কাজ হতো তা জানবে না।

আগের দিনে গ্রামের মানুষেরা বড় বড় গাছের মুড়া (গাছের গোড়ার অংশ) দিয়ে উরুন/গাইল এবং ভালো শক্ত সোজা ডাল দিয়ে গাইন/চিয়াতো তৈরি করতো। আজ আর এসব চোখে পড়ে না। আগের দিনে বিয়ে-সাদীতে মেয়ের বাপের বাড়ি থেকে স্বামীর বাড়িতে যাওয়ার সময় সাথে উরুন-গাইন দেয়া হতো এবং ওইগুলো দিয়ে গৃহবধূরা ধান ভাঙ্গিয়ে চাউল এবং চাউলের আটা বানিয়ে পিঠা-পুলি তৈরি করতো। আর এখন গ্রামেও বিদ্যুৎচালিত মেশিনে ধান ভাঙ্গানো, চাউলের আটা তৈরি, মসলার গুঁড়া তৈরি করা হয়। তাই উরুন-গাইনের প্রয়োজন নেই। শীত মৌসুমে এবং পূজা-পার্বণগুলোতে দিন-রাতে গ্রামীণ বধূদের উরুন-গাইনের ধুপধাপ শব্দ এখন আর নেই বললেই চলে। গ্রামবাংলার সেই ঐতিহ্যবাহী উরুন-গাইন/গাইল-চিয়াতো এখন বিলুপ্তপ্রায় উপাদানের অংশ।

পিঁড়ি: বাড়িতে মেহমান এলে বা বাড়ির বিভিন্ন কাজে কোথাও বসতে একসময় যে জিনিসটির বিকল্প ভাবা যেত না তা হলো পিঁড়ি। এখনো অনেক এলাকায় গ্রামের মহিলারা এই পিঁড়ি ব্যবহার করে থাকে। এটি আগে তৈরি করা হতো দুইভাবে। মাটি দিয়ে ও কাঠ দিয়ে। তবে এখন আর মাটির পিঁড়ি দেখা যায় না। মাঝে মাঝে গ্রামের দুই-একটি বাড়িতে কাঠের পিঁড়ি দেখা যায়। আরেক প্রকার কাঠের পিঁড়ি ব্যবহার করা হয় রুটি বেলতে বা তৈরি করতে। পিঁড়ির আদলে তৈরি প্লাস্টিকের বিভিন্ন সামগ্রী বর্তমানে মাটি ও কাঠের পিড়ির স্থান দখল করে নিয়েছে।

শিকা: শিকা গ্রামবাংলার গৃহবধূদের হস্তশিল্পের একটি শ্রেষ্ঠ নিদর্শন। শিকার ছিল বহুমুখী ব্যবহার। পল্লীবধূরা শিকায় ঝুলিয়ে রাখতো মাটির হাঁড়িপাতিল। তারা সংসারের বিভিন্ন জিনিসপত্র তার মধ্যে সংরক্ষণ করতো। অনেকে রঙিন শিকায় কাঁসা, পিতল বা সিলভারের নতুন হাঁড়িপাতিল ও অন্যান্য জিনিসপত্র সারিবদ্ধভাবে সাজিয়ে রাখতো। শহরে অনেকে শখ করে বারান্দায় রঙিন শিকায় ফুলগাছের টব ঝুলিয়ে বাড়ির সৌন্দর্য বৃদ্ধি করতো। আজ সেই শিকা সত্যি সত্যিই শিকায় উঠে গেছে।

নকশিকাঁথা: নকশিকাঁথা গ্রামবাংলার ঐতিহ্য। পাখি, ফুল, লতা, পাতা ও বিভিন্ন চিত্র এঁকে মেয়েরা এককালে একপ্রকার আকষর্ণীয় কাঁথা তৈরি করতো; এই বিশেষ কাঁথাকে বলা হয় নকশিকাঁথা। নকশিকাঁথা সেলাই করা একদিকে যেমন মেয়েদের শিল্পনৈপুণ্যের পরিচয় বহন করতো, তেমনি অবসর কাটানোর একটি মাধ্যম ছিল এই নকশিকাঁথা। সে সময় এটি ছিল শীত নিবারণে গরীবদের অনন্য বন্ধু। আজ নকশিকাঁথা ধনীদের বিলাসপণ্যে পরিণত হয়েছে। এমনকি নকশিকাঁথা বিদেশেও রপ্তানি হচ্ছে- যদিও এটি পাওয়া কঠিন।

কলুর ঘানি: কলুর বলদ বাগধারার অর্থ কী তা সকলেই জানি। আর কলুর ঘানি কথাটি হতেই কলুর বলদ কথাটির উদ্ভব। কলুর ঘানি হলো তৈলবীজ (সরিষা, তিল, তিসি, নারিকেল ইত্যাদি) হতে তেল উৎপাদন করার একটি সরল যন্ত্র। ৭-১০ ফুট লম্বা বাঁশ দিয়ে ও কাঠের গুঁড়ির সহযোগে ঘানি তৈরি করা হতো। একটি গরু বা গাধা বা ঘোড়া দিয়ে একে টানানো হতো। একপ্রকার পেশাজীবী প্রান্তিক মানুষ ঘানি ভাঙ্গিয়ে তেল উৎপাদন করে গ্রামে গ্রামে ফেরি করতো। আর এদের বলা হতো কলু।

ডুলি: বাঁশ ও পাটের দড়ি দিয়ে নির্মিত একপ্রকার ঝুলন্ত আরামদায়ক পরিবহন ছিল ডুলি। ডুলি দু’জন বেহারা কাঁধে বহন করতো। গ্রামের নববধূরা বাবারবাড়ি নাইয়র যেত বা বাবার বাড়ি হতে স্বামীর বাড়ি যেত ডুলিতে চড়ে। বিয়ের দিন কনের সহযাত্রী হয়ে কনের নানী বা দাদী ডুলিতে চড়ে বরের বাড়ি আসতো।

মাথাল: মাথাল গ্রামীণ কৃষকদের একটি অতি প্রয়োজনীয় জিনিস ছিল। মাথাল হলো বর্ষা মৌসুমে বৃষ্টির হাত থেকে এবং গ্রীষ্ম মৌসুমে রোদের হাত থেকে মাথা বাঁচিয়ে বাইরে বের হবার একপ্রকার বিশেষ ছাতা। বাঁশ ও শালপাতার সাহায্যে এটি প্রস্তুত করা হতো। জমিতে কৃষিকাজ করার সময় রোদ-বৃষ্টি হতে রক্ষা পাওয়ার জন্য গ্রামীণ কৃষকদের কাছে এটি ছিল একটি অত্যাবশ্যকীয় উপকরণ। অনেকে এটি তৈরি করে জীবিকা নির্বাহ করতো। আজকাল মাথালের প্রচলন গ্রামে-গঞ্জে খুব একটা দেখা যায় না।

খেজুরপাতার পাটি: একসময় গ্রামবাংলায় খেজুরপাতার পাটির বিকল্প হিসেবে কোনো কিছুই চিন্তা করা যেতো না। তখন গ্রামবাংলার প্রতিটি বাড়ি-ঘরে গৃহস্থালি বিভিন্ন কাজে খেজুরপাতার পাটি ব্যবহার করা হতো। কিন্তু বর্তমানে আধুনিকতার ছোঁয়ায় তা আর কোনো বাড়িতে বলতে গেলে দেখাই যায় না। গ্রামের নিম্নবিত্ত ও উচ্চবিত্ত সব পরিবারের মহিলারা তাদের ঘরে শোবার জন্য বা বারান্দায় বিছানো কিংবা শহুরে বাড়ির অনুকরণে ঘরে কার্পেটের পরিবর্তে ব্যবহার করতো সেই সময়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় খেজুরপাতার পাটি।

এছাড়াও ধান, গম, বিভিন্ন ধরনের শস্য রোদে দেবার কাজেও ব্যবহার করা হতো এই পাটি। আগেকার দিনে খেজুরপাতার পাটি দিয়ে জায়নামাজ তৈরি করা হতো এবং মসজিদে খেজুরপাতার পাটি বিছিয়ে নামাজ আদায় করা হতো। এটি ছিল গ্রামীণ ঐতিহ্যের আর একটি অংশ। গ্রামের মহিলারা শোবার জন্য বিশেষ উপায়ে খেজুরপাতা দিয়ে এক ধরনের পাটি তৈরি করতো। এই পাটিকে বলা হতো ‘শীতলপাটি’। শীতলপাটির বিকল্প হিসেবে একসময় আমাদের গ্রামীণ সমাজব্যবস্থায় মাদুর এবং হোগলাপাটিরও প্রচলন ছিল।

আলতাবড়ি: আলতাবড়ি মেয়েদের এক ধরনের প্রসাধনী। এর সাহায্যে মেয়েরা তাদের হাত, ঠোঁট, গাল ও পা লাল রঙে রাঙাতো। বিয়ের সওদাপাতির তালিকায় এই আলতাবড়ির নাম থাকতো সবার উপরে। পরবর্তী সময়ে আলতাবড়ি তরল আকারে বোতলজাত অবস্থায় কিনতে পাওয়া যেতো।

ইঁদারা ও পাতিকূয়া: গ্রামের মানুষের সুপেয় বা খাবার পানির সবচেয়ে ভালো মাধ্যম ছিল কূপ বা ইন্দ্রা বা ইঁদারা ও পাতিকূয়া। ১০-১৫ ফুট গোল গর্ত করে প্রায় ৪০-৫০ ফুট নিচ পর্যন্ত মাটি খুঁড়ে কূপ বা ইন্দ্রা বা ইঁদারা ও পাতিকূয়া তৈরি করা হতো। মাটির নিচের ঝর্ণা ছিল এই কূপের পানির প্রধান উৎস। পাতিকূপ ও ইঁদারার মধ্যে পার্থক্য হলো- ইঁদারার নিচ থেকে উপর পর্যন্ত ইট বারিং (সিমেন্ট বালি দিয়ে তৈরি গোল কাঠামো) দিয়ে বাঁধাই করা হতো আর পাতিকূপ বাঁধাই করা হতো না।

বিভিন্ন ধরনের নৌকা: নৌকা পৃথিবীর অনেক দেশে ক্রীড়া ও প্রমোদের জন্য ব্যবহার হলেও নদীমাতৃক এই দেশে এটি যাতায়াতের অন্যতম মাধ্যম ছিল। এছাড়াও পণ্য পরিবহন ও জেলেদের মাছ ধরার কাজেও নৌকার ব্যবহার হয়ে থাকলেও বর্তমানে দিনে দিনে তা একেবারেই কমে যাচ্ছে। গ্রামবাংলার ঐতিহ্য পাল তোলা নৌকা এখন আর চোখে পড়ে না। আমাদের দেশে বিভিন্ন ধরনের নৌকার ব্যবহার ছিল। যেমন- ছিপ, বজরা, ময়ুরপঙ্খী, গয়না, পানসি, কোষা, পাতাম, বাচারি, রপ্তানি, খাসি, সাম্পান, বাতনাই, বালাব, ভেলা, কলার ভেলা ইত্যাদি। বর্তমানে অল্প কিছু সংখ্যক নৌকা দেখা গেলেও অধিকাংশ নৌকাই এখন প্রায় বিলুপ্তির পথে।

মাটিরঘর: বাংলাদেশে এক সময় অনেক এলাকায় ছিল শীতের পরশ বোলানো মাটিরঘর। কালের বিবর্তনে সে সব ঘর আজ বিলুপ্তির পথে। হারিয়ে যেতে বসেছে মাটিরঘরের ঐতিহ্য। তবে এখনো সংখ্যায় খুব কম হলেও মাটিরঘরের ঐতিহ্য ধরে রেখেছে ক্ষুদ্র জাতিসত্তার কিছু সম্প্রদায়ের লোক। মাটিরঘরে বসবাস করাটা তারা নিজস্ব সংস্কৃতি হিসেবে মনে করে থাকে। শীত-গ্রীষ্ম সব ঋতুতেই মাটিরঘর ছিল আরামদায়ক বাসস্থান। এক সময় ধনী-গরিব সবার বাড়িতেই ছিল মাটিরঘর। এসব ঘরে শীতকালে যেমন গরম অনুভব হতো, গ্রীষ্মকালেও অনুভূত হতো শীতল পরশ। খুব সহজেই তৈরি করা যেত মাটির ঘর। তার জন্য প্রয়োজন হতো এঁটেল বা দোআঁশ মাটি। ঘর তৈরি করতে খরচ হতো না খুব বেশি। কিষান-কিষানী ও তাদের ছেলেমেয়েরা মিলে অল্প কয়েক দিনেই মাটিরঘর তৈরি করতে পারতেন। যে মাটি দিয়ে ঘর তৈরি করা হতো, সেই মাটি কোদাল দিয়ে ভালো করে কুপিয়ে ঝুর-ঝুরে করে পরিমাণ মতো পানি মিশিয়ে থক-থকে কাদায় পরিণত করা হতো। পরে অল্প-অল্প করে মাটি বসিয়ে ছয় থেকে সাত ফুট উচ্চতার পূর্ণাঙ্গ ঘর তৈরি করতে সময় লাগতো মাত্র মাসখানেক। ঘর তৈরি সম্পন্ন হলে তার ওপর ছাউনি হিসেবে ব্যবহার হতো ধানের খড়। খড় দিয়ে এমনভাবে ছাউনি দেওয়া হতো, তাতে ঝড়-বৃষ্টি ঘরের তেমন একটা ক্ষতি করতে পারতো না। এলাকাভেদে মাটিরঘরের ছিল আলাদা বৈচিত্র্য। ধনী ও প্রভাবশালীদের বাড়িতে ছিল মাটির তৈরি দোতলা ঘর।

গোলা: গ্রামবাংলার প্রচীন ঐতিহ্য ধানের গোলা ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কাছে ক্রমেই অপরিচিত হয়ে উঠেছে। জনসংখ্যার বৃদ্ধির কারণে বসত বাড়ির আঙিনায় জমির সংকুলানের কারণে চাষী গেরস্তদের ্ঐতিহ্যবাহী ধানের গোলা বিলুপ্তির পথে। মাঠের পর মাঠ ধানক্ষেত থাকলেও অধিকাংশ কৃষকের বাড়িতে ধান মজুদ রাখার বাঁশ, বেত ও কাদা দিয়ে তৈরি ধানের গোলা আর দেখা যায় না। অথচ একসময় সমাজের নেতৃত্ব নির্ভর করত কার বাড়িতে কয়টি ধানের গোলা আছে তার উপর। বর-কনে পাত্রস্থ করতেও ধানের গোলা খবর নিত। যা এখন শুধু কল্পকাহিনী। গ্রামাঞ্চলে বাড়িতে বাঁশ দিয়ে গোলাকৃতির তৈরি ধানের গোলা বসানো হতো উঁচুতে। কৃষকরা ধান কাঁটার মৌসুম এলেই পাটনিদের কাছে ধানের গোলা তৈরির জন্য খবর দিত। তারা বাড়িতে এসে বাঁশ দিয়ে তৈরি করতো গোলা। গেরস্ত বাড়িতে ধানের গোলা দেখা যেত অনেক দূর থেকে। বাঁশ, বাঁশের বাতা ও কঞ্চি দিয়ে প্রথমে গোলা আকৃতির কাঠামো তৈরি করা হতো। কিছু কিছু ক্ষেত্রে বর্গাকার বা আয়তাকারেও গোলা তৈরি করা হতো। এঁটেল মাটির কাদা তৈরি করে ভিতরে ও বাইরে প্রলেপ লাগিয়ে দিত। এর প্রবেশ পথ রাখা হতো বেশ ওপরে, যেন কেউ ধান চুরি করতে না পারে- সেই সঙ্গে ইঁদুরও ধানের গোলায় ঢুকে ক্ষয়ক্ষতি করতে না পারে। ধানের গোলা বসানো হতো মাটির উপরে। গোলার মাথায় থাকত বাঁশ ও খড়ের তৈরি বা টিনের তৈরি ছাউনি। গোলায় শুকানো ধানের চাল হতো শক্ত। কিন্তু সম্প্রতি রাসায়নিক সার, কীটনাশক ও আধুনিক কলের লাঙ্গল যেন উল্টে-পাল্টে দিয়েছে কৃষি অঞ্চলের চিত্র। গোলায় তোলার ধান আর তাদের থাকে না। গোলার পরিবর্তে চাষীরা ধান রাখা শুরু করেছে বস্তায়। বর্তমানে মৌসুমে উৎপাদিত ধান-চাল যেটুকু প্রয়োজন, তা কৃষকরা চটের বস্তায় বা ব্যারেলে ভর্তি করে রাখছে । নব প্রজন্মের কাছে দিন দিন গোলাঘর একটি স্মৃতিতে পরিণত হয়েছে। আধুনিক গুদামঘর ধান-চাল রাখার জায়গা দখল করছে। ফলে গোলাঘর হারিয়েছে তার অতীত ঐতিহ্য।

বর্তমানে ভিনদেশী চাকচিক্যময় সংস্কৃতি সমাজে প্রবেশ করে আমাদের পুরনো দিনের নিজস্ব ঐতিহ্যকে পশ্চাতে ফেলে ক্রমেই জায়গা দখল করে নিচ্ছে। গ্রামীণ জনপদে নানা প্রাচীন ঐতিহ্য এখন হারিয়ে যাচ্ছে। বর্তমান যুগ বিজ্ঞানের যুগ। বিজ্ঞানের এই যুগে নতুন নতুন প্রযুক্তির আবিষ্কার আমাদের বর্তমান জীবনধারাকে অনেক সহজ ও সুন্দর করে দিয়েছে- এগুলোর মধ্য থেকে ইতিবাচকগুলোকে আমাদের অবশ্যই গ্রহণ করতে হবে, পাশাপাশি আমাদের নিজস্ব ঐতিহ্য ও সংস্কৃতিসমূহ আমাদেরই ধারণ ও লালন করতে হবে। তা-না হলে এক সময় হয়তো আমাদের নতুন প্রজন্ম এই ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি থেকে একেবারেই বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়বে।

সত্যি কথা বলতে গেলে আমাদের বাঙালি সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের প্রতীকগুলোর কথা আজ যেন রূপকথার গল্পের মতো শোনাতে হয় আমাদের নতুন প্রজন্মকে। আগামী প্রজন্মের কাছে হয়তো এটা স্বপ্নের মতো মনে হবে। তখন ইতিহাসের পাতায় পড়া ছাড়া বাস্তবে খুঁজে পাওয়া দুষ্প্রাপ্য হবে এইসব হারিয়ে যাওয়া ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি। নতুবা কোনো জাদুঘরের কোণে ঠাঁই করে নেবে আমাদের অতীত ঐতিহ্য নিজের অস্তিত্বটুকু নিয়ে। এসব হারিয়ে যাওয়া ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি রক্ষায় প্রয়োজন সরকারি ও বেসরকারি উদ্যোগ।

লেখক:
শরীফুল্লাহ মুক্তি
প্রাবন্ধিক, শিক্ষা-গবেষক ও ইন্সট্রাক্টর,
উপজেলা রিসোর্স সেন্টার (ইউআরসি)।