|

বিশ্ব শিক্ষক দিবস এবং প্রাসঙ্গিক ভাবনা: শরীফুল্লাহ মুক্তি

প্রকাশিতঃ ১০:০৬ অপরাহ্ন | অক্টোবর ০৬, ২০১৮

বিশ্ব শিক্ষক দিবস উদ্যাপন এবং প্রাসঙ্গিক ভাবনা শরীফুল্লাহ মুক্তি

৫ অক্টোবর। বিশ্ব শিক্ষক দিবস। প্রতি বছরের ন্যায় এ বছরও সারা বিশ্বে দিবসটি যথাযথ মর্যাদায় উদযাপিত হয়েছে। ‘স্বাধীনভাবে পাঠদান, শিক্ষক হবে ক্ষমতাবান’- ইউনেস্কো নির্ধারিত এই প্রতিপাদ্য নিয়ে বিশ্বের দেশে দেশে গত বছরও ৫ অক্টোবর পালিত হয়েছিলো ‘বিশ্ব শিক্ষক দিবস’।

পৃথিবীর সব দেশের শিক্ষক সমাজের কাছে ৫ অক্টোবর দিনটি অত্যন্ত গৌরব ও মর্যাদার। শিক্ষা ও উন্নয়নের ক্ষেত্রে শিক্ষকদের অসামান্য অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ প্রতিবছর পালন করা হয় বিশ্ব শিক্ষক দিবস। বিশ্বের ১৬৭টি দেশের ২১০টি জাতীয় সংগঠনের প্রায় তিন কোটি ২০ লাখ সদস্যের প্রতিনিধিত্বকারী আন্তর্জাতিক শিক্ষক সংগঠন ‘এডুকেশন ইন্টারন্যাশনাল’ গঠিত হয় ১৯৯৩ সালে।

জাতিসংঘের সদস্যভূক্ত দেশ কর্তৃক প্রণীত দলিলটি যথাযথ বাস্তবায়নের ব্যবস্থা করার অর্থবহ উদ্যোগ গ্রহণের জন্য ক্রমাগত অনুরোধ ও আহ্বানের পরিপ্রেক্ষিতে ১৯৯৪ সালে দিবসটি পালনের সূচনা হয়। ইউনেস্কোর ২৬তম অধিবেশনে গৃহীত সিদ্ধান্তের ভিত্তিতে ইউনেস্কোর মহাপরিচালক ড. ফ্রেডারিক এন মেয়রের যুগান্তকারী ঘোষণার মাধ্যমে ৫ অক্টোবর ‘বিশ্ব শিক্ষক দিবস’ পালনের শুভ সূচনা হয়। ১৯৯৪ সালের পর থেকে বাংলাদেশসহ পৃথিবীর অনেক দেশেই যথাযোগ্য মর্যাদায় বিশ্ব শিক্ষক দিবস পালিত হয়ে আসছে। ১৯৬৬ সালের ৫ অক্টোবর প্যারিসে বিভিন্ন রাষ্ট্রের সরকারগণের সম্মেলনে ১৪৫টি সুপারিশসহ ‘শিক্ষকের মর্যাদা সনদ’ গৃহীত হয়। পরবর্তীকালে জাতিসংঘের আরেক সংগঠন ‘আইএলও’ তা অনুমোদন করে।

১৯৬৬ সালের সুপারিশমালা ছিল মূলত নার্সারি, কিন্ডারগার্টেন, প্রাথমিক, কারিগরি, বৃত্তিমূলক, চারুকলা স্কুলে পাঠদানকারী শিক্ষকদের জন্য। মাধ্যমিক (উচ্চ) পরবর্তী স্তরসমূহের সুস্পষ্ট উল্লেখ সেখানে ছিল না। পরবর্তী সময়ে ১৯৯৭ সালে ১৫-১৮ সেপ্টেম্বর প্যারিসের ইউনেস্কোর এক বিশেষ অধিবেশনে উচ্চতর স্তরে শিক্ষাদানকারী শিক্ষকদের মর্যাদা সংক্রান্ত সুপারিশ প্রণীত হয়। সিদ্ধান্ত হয় যে, ১৯৬৬ ও ১৯৯৭ সালের উভয় সুপারিশমালা যুগ্মভাবে ‘শিক্ষকদের মর্যাদা সনদ’ হিসেবে বিবেচিত হবে এবং বিশ্বব্যাপী সর্বস্তরের শিক্ষক ঐ সনদের স্মারক হিসেবে ৫ অক্টোবর প্রতি বছর ‘বিশ্ব শিক্ষক দিবস’ পালন করবেন। এই দিবস পালনে এডুকেশন ইন্টারন্যাশনাল ও তার সহযোগী ৪০১টি সদস্য সংগঠন মূল ভূমিকা রাখে।

জাতি গঠন ও উন্নয়নের শ্রেষ্ঠ মাধ্যম হলো শিক্ষা। আর শিক্ষা সম্পর্কিত বিষয়গুলো হলো শিক্ষক, শিক্ষার্থী, শিক্ষাঙ্গন, শিক্ষাব্যবস্থাপনা, শিক্ষার পরিবেশ ইত্যাদি। তবে এ প্রসঙ্গে শিক্ষকের ভূমিকাই মুখ্য। কেননা শিক্ষকই হচ্ছেন শিক্ষাব্যবস্থার মূল চালিকাশক্তি। শিক্ষা জাতির মেরুদ-, আর শিক্ষার মেরুদ- হলো শিক্ষক। জীবনঘনিষ্ঠ, উৎপাদনমুখী আত্মকর্মসংস্থান, সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের লালনকারী, পরিবর্তনশীল আধুনিক বিশ্বের সাথে তাল মেলাতে সক্ষম, নৈতিকতার নিরিখে মানসম্মত সৃজনশীল মনন বিনির্মাণে যিনি লব্ধ অভিজ্ঞতার মাধ্যমে শিক্ষার্থীর সামনে সঞ্চিত জ্ঞান ও অভিজ্ঞতার সাহায্যে বিষয়বস্তু উপস্থাপন করে শিক্ষার্থীর শিখনে পথ দেখান তিনি হলেন শিক্ষক।

একটি দেশের জাতীয় ও আন্তর্জাতিক উন্নয়ন, অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জন, টেকসই প্রযুক্তির উন্নয়ন ও সার্বিক অগ্রগতিতে শিক্ষকের ভূমিকা অপরিসীম। শিক্ষক একজন শিল্পীর ন্যায়; তিনি মানব মনের সহজাত প্রবৃত্তি/শক্তি ও সুপ্ত সম্ভাবনার পরিস্ফুটন ঘটিয়ে সত্যিকারের মানুষ তৈরির কাজে নিয়োজিত থাকেন। একজন শিক্ষক শুধু কাক্সিক্ষত বিষয়বস্তু পাঠদানই করেন না, পাশাপাশি তিনি শিক্ষার্থীর মনে দেশপ্রেম, মানবতাবোধ, নৈতিকতাবোধ, মূল্যবোধ সৃষ্টিতেও অপরিহার্য ভূমিকা পালন করে থাকেন। অধিকন্তু কায়িক শ্রমের মর্যাদা, নেতৃত্বের গুণাবলীর বিকাশ, সৃজনশীলতা, বিজ্ঞানমনস্কতা, শিক্ষার্থীদের উন্নত জীবনের স্বপ্ন দেখানো, সামাজিক অগ্রগতির পরিকল্পনা ও বাস্তবায়ন ইত্যাদি বিষয়ে অপরিহার্য কূশলী হিসেবে শিক্ষক সম্পৃক্ত থাকেন।

শিক্ষকতা কেবল পেশা নয়, শিক্ষকতা একটি মহান ব্রত। গোটা মনুষ্য সমাজের মধ্যে নৈতিক বিচারে শিক্ষকদের চেয়ে সম্মানিত ব্যক্তি এবং শিক্ষকতার চেয়ে মর্যাদাপূর্ণ পেশা আর একটিও নেই। একজন আদর্শ শিক্ষক জানেন তার চলার পথ কণ্টকাকীর্ণ এবং ভবিষ্যৎ বিড়ম্বনাময়। তবু তিনি হৃদয়ের টানে এই সুকঠিন জীবিকার পথ বেছে নেন। এজন্য তাকে জীবনব্যাপী সংগ্রাম করতে হলেও তিনি আদর্শচ্যুত হন না। সর্বদা ন্যায়নীতির প্রশ্নে তিনি আপোসহীন। শিক্ষক ‘মানুষ গড়ার কারিগর’ নামে আখ্যায়িত। শিক্ষানিকেতন তার কর্মশালা। তিনি শিক্ষার্থীর মনন, মেধা ও আত্মশক্তির বিকাশ, পরিশীলন, উন্নয়ন ও প্রসার সাধনে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা রাখেন। সমাজ ও জাতি গঠনে, দেশের শিক্ষা-সংস্কৃতির উন্নয়নে, দেশের সাধারণ মানুষের ভাগ্য উন্নয়নে, বিশে^র দরবারে নিজ দেশের গৌরবময় অবস্থান গড়ে তুলতে একজন আদর্শ শিক্ষকের অবদান একজন রাষ্ট্রনায়ক, রাজনীতিবিদ, অর্থনীতিবিদ বা সমাজনেতার চেয়ে কোনো অংশে কম নয়। তাই বলা যায়, একজন আদর্শ শিক্ষক দেশের শ্রেষ্ঠ সন্তান ও শ্রেষ্ঠ মানুষের অন্যতম। জাতি সঙ্গত কারণেই শিক্ষকের কাছে অনেক প্রত্যাশা করে।

শিক্ষকতা পেশা মহান, পাশাপাশি জটিলও বটে। এই পেশার উন্নয়নে জ্ঞান ও দক্ষতার প্রয়োজন সর্বাগ্রে। আর প্রয়োজন ইতিবাচক মনোভাব। একজন শিক্ষককে তাঁর পেশার উন্নয়নের স্বার্থে প্রতিনিয়ত নব নব জ্ঞান ও কৌশলের সন্ধান করতে হয়। পাঠদানকে শতভাগ সফল করতে নতুন নতুন পদ্ধতি/কৌশল, প্রযুক্তি ও আধুনিক জ্ঞান-গবেষণার সন্ধানে নিরলস প্রচেষ্টায় নিজেকে সর্বদা সচেষ্ট রাখতে হয়। আর এসব পদ্ধতি ও কৌশলকে আয়ত্ত করতে হলে শিক্ষককে প্রতিনিয়ত জ্ঞান ও দক্ষতার উন্নয়ন সাধন করতে হয় এবং যথাসময়ে যথোপযুক্ত জায়গায় প্রয়োগ করার প্রতি ইতিবাচক নজর দিতে হয়। একজন শিক্ষককে পেশাগত মূল্যবোধ, আত্মপ্রত্যয় ও বোধগম্যতার সমন্বয় ঘটিয়ে শ্রেণি-পাঠদান সার্থক ও ফলপ্রসূ করতে হয়। শুধু পাঠদানই শিক্ষকের একমাত্র দায়িত্ব নয়, শিক্ষকের তার চেয়েও আর একটি গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব হলো শিক্ষার্থীর মনে স্বপ্ন বুনে দেয়া- তাকে উন্নত জীবনের স্বপ্ন দেখানো। উইলিয়াম আর্থার ওয়ার্ড-এর মতে, ‘একজন সাধারণ শিক্ষক বক্তৃতা করেন, একজন ভালো শিক্ষক বিশ্লেষণ করেন, একজন উত্তম শিক্ষক প্রদর্শন করেন, একজন শ্রেষ্ঠ শিক্ষক অনুপ্রাণিত করেন’।

সঙ্গত কারণেই প্রশ্ন আসতে পারে, এই মহান পেশার প্রতি আমাদের শিক্ষক-সমাজ কতটুকু যত্নবান? পাশাপাশি প্রশ্ন আসে, শিক্ষকের দায়িত্ব পালনে পারিপাশির্^ক অবস্থা ও পরিবেশ কতটুকু সহায়ক? আবার দেশের এই শ্রেষ্ঠ মানুষ শিক্ষকেরা তাদের ন্যায্য অধিকার ও মর্যাদা পান কতটুকু? এ প্রসঙ্গে নির্দ্বিধায় বলা যায়, বহু উদ্যোগ ও প্রচেষ্টার মাধ্যমে কয়েক দফা শিক্ষানীতি প্রণীত হলেও আজও তার কোনো পরিপূর্ণ বাস্তবায়ন হয়নি। শিক্ষাব্যবস্থাপনায় অনেক ক্ষেত্রেই নেই কোনো সুসামঞ্জস্যপূর্ণ দিক-নির্দেশনা, বরং রয়েছে প্রচুর অসঙ্গতি। মাঝে মাঝে দেখা যায় বিভিন্ন বিষয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর, শিক্ষাবোর্ড, জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড, জাতীয় বিশ^বিদ্যালয় ইত্যাদি কর্তৃপক্ষের পরস্পরবিরোধী অস্পষ্ট, জটিল ও বৈষম্যমূলক বিধি-বিধান এবং নিয়ম-নির্দেশনা। কর্তৃপক্ষের সমম্বয়ের অভাবে প্রায়শই বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হতে হচ্ছে শিক্ষক-সমাজকে।

আমাদের দেশে শিক্ষকের ন্যায্য অধিকার ও মর্যাদার বিষয়টি আজও উপেক্ষিত। ১৯৭১ সালে স¦াধীনতা অর্জিত হওয়ার প্রায় পাঁচ দশক অতিক্রান্ত হলো তবু আজও আমাদের দেশে ব্রিটিশ শাসনামলের ঔপনিবেশিক বৈষম্যমূলক শিক্ষাব্যবস্থা বিরাজমান। যদিও একটি স্বাধীন দেশে এ ধরনের বৈষম্য থাকা উচিত নয়। তাই স্বাধীনতা লাভের পর শিক্ষক-সমাজের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে বৈষম্যের অবসানকল্পে শিক্ষাব্যবস্থার সব স্তরকে জাতীয়করণের মাধ্যমে এক ও অভিন্ন শিক্ষাব্যবস্থা গড়ে তুলতে সরকার নীতিগতভাবে অঙ্গীকার করলেও আজও তা বাস্তবায়িত হয়নি।

তা ছাড়া ইউনেস্কো ও আইএলও’র সদস্যভুক্ত দেশগুলোর শিক্ষকদের জন্য ১৯৬৬ ও ১৯৯৭ সালে গৃহীত শিক্ষকদের পেশাগত অধিকার, মর্যাদা ও দায়িত্ব বিষয়ক ‘শিক্ষকদের মর্যাদা সনদ’ থেকে আমাদের শিক্ষকসমাজ বঞ্চিত। এ কথা সত্য, শিক্ষকের মানোন্নয়ন ছাড়া শিক্ষার মানোন্নয়ন সম্ভব নয়। সেজন্য প্রতিভাবান, মেধাবী ও সৃজনশীল ব্যক্তিদের শিক্ষকতা পেশায় আকৃষ্ট করতে হবে। তার জন্য প্রয়োজন শিক্ষকতা পেশাকে সামাজিক ও আর্থিকভাবে মর্যাদাপূর্ণ স্থানে রাখা। শিক্ষককে জ্ঞানসমৃদ্ধ, কুশলী ও দক্ষ করে গড়ে তোলার জন্য শিক্ষকতা জীবনের প্রথম থেকে বিভিন্ন যুগোপযোগী প্রশিক্ষণ, অভিজ্ঞতা-বিনিময় ও কর্মসহায়ক গবেষণার প্রয়োজনীয় সুযোগ সৃষ্টি করতে হবে।

সামগ্রিক অবস্থান বিশ্লেষণ করলে এ কথাই বলতে হয় যে শিক্ষকরা এক রকম হতাশার মধ্যে দিন যাপন করছেন, যার ফলে নতুন কিছু সৃষ্টি দূরের কথা, স্বাভাবিক দায়িত্ব পালন করার স্পৃহাও থাকে না। অতি দুঃখের সঙ্গে বলতে হয়, অবহেলা ও অবজ্ঞার ফলেই শিক্ষকতা পেশা মেধাবী ও যোগ্য প্রার্থীকে আকৃষ্ট করতে ব্যর্থ হচ্ছে। সরকারি ও বেসরকারি শিক্ষকের বৈষম্য দূর করে যোগ্যতা, দক্ষতা ও অভিজ্ঞতা অনুসারে শিক্ষকদের নিয়মিত বেতন-ভাতাদি প্রদান ও পদোন্নতির ব্যবস্থা করা প্রয়োজন। বেসরকারি শিক্ষকদের জন্য নেই কোনো বদলির সুযোগ, আবাসিক ব্যবস্থা, চিত্তবিনোদনের ব্যবস্থা। মূল-বেতনের পাশাপাশি নামমাত্র বাড়িভাড়া ও চিকিৎসা ভাতা দেয়া হচ্ছে; যাতে পরিবার-পরিজন নিয়ে একজন শিক্ষকের দিনাতিপাত করা কষ্টকর হয়ে গেছে। অবস্থাদৃষ্টে মনে হয়, শিক্ষকদের জীবনে কোনো সুখ-স্বাচ্ছন্দ্য বা চিত্তবিনোদনের প্রয়োজন নেই।

তাই সরকারি শিক্ষক-কর্মচারীদের ন্যায় বেসরকারি শিক্ষক কর্মচারীদের ৫% প্রবৃদ্ধি, পূর্ণাঙ্গ বাড়িভাড়া, পূর্ণাঙ্গ উৎসব ও চিকিৎসা ভাতা, বৈশাখী ভাতা প্রদানের ব্যবস্থা করা এখন সময়ের দাবি। তাছাড়া অনুপাত প্রথা বিলুপ্ত করে সরকারি স্কুল/কলেজের শিক্ষকদের ন্যায় বেসরকারি স্কুল/কলেজের শিক্ষকদের পদোন্নতি ও টাইমস্কেল প্রদান, এমপিও শর্ত পুরণকারী নন-এমপিও শিক্ষকদের এমপিওভুক্তি, ইউনেস্কোর সুপারিশ’ ২০১৬ মোতাবেক প্রতিষ্ঠানপ্রধানদের পরিচালনা পরিষদের সভাপতি করে বিধিমালা সংশোধন, কারিগরি ও সাধারণ শিক্ষার বৈষম্য দূর, শিক্ষকদের যুগোপযোগী প্রশিক্ষণ প্রদান ইত্যাদি বিষয়ের প্রতি সরকারের নজর দেয়া জরুরি। বর্তমানে যেহেতু সরকার বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষকদের বেতন-ভাতার বেশিরভাগ প্রদান করছে সেহেতু সরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের অনুরূপ বিধিমালায় বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পরিচালনা করা যেতে পারে।

শিক্ষক সনদ বাস্তবায়নের মাধ্যমেই আমাদের শিক্ষার গুণগতমান সার্বিকভাবে বিকশিত হবে- এটাই সকলের কাম্য। গুণগত ও মানসম্মত শিক্ষার জন্য শিক্ষকতা পেশার প্রতি যথাযথ গুরুত্ব প্রদান করে সামাজিক ও অর্থনৈতিক দিক থেকে শিক্ষকসমাজকে একটি উপযুক্ত মর্যাদার আসনে অধিষ্ঠিত করার কোনো বিকল্প নেই। পাশাপাশি শিক্ষককে নিজেকে তৈরি করতে হবে প্রকৃত শিক্ষক হিসেবে। শিক্ষক হবেন বিদ্যাব্রতী ও মূল্যবোধসম্পন্ন পেশাজীবী। শিক্ষাক্রমের সফল বাস্তবায়নের জন্য একজন শিক্ষক যখন তাঁর শিক্ষকতা পেশায় প্রয়োজনীয় জ্ঞান, দক্ষতা ও ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গির সমন্বয় ঘটিয়ে তাঁর দায়িত্ব পালন করতে সক্ষম হন এবং নতুন পরিস্থিতিতে প্রয়োজনীয় জ্ঞান ও দক্ষতা প্রয়োগের ক্ষমতা রাখেন তখন তিনি যোগ্য শিক্ষক হিসেবে বিবেচিত হন। শিক্ষক শব্দের ব্যবচ্ছেদ করেও একজন আদর্শ শিক্ষকের বৈশিষ্ট্য নির্ণয় করা সম্ভব। যেমন- শি>শিষ্টগুণী, ক্ষ>ক্ষমাশীল, ক>কর্তব্যনিষ্ঠ। অর্থাৎ শিক্ষক হবেন কর্তব্যনিষ্ঠ, শিষ্টগুণী ও ক্ষমাশীল।

কিন্তু মাঝে মাঝে আমরা অনেক শিক্ষককে নৈতিকতা ও মূল্যবোধ বিবর্জিত কাজে জড়িয়ে পড়তে দেখি। পত্রিকায় বিভিন্ন সময় আমরা অনেক শিক্ষক সম্পর্কে নানা নেতিবাচক খবর পেয়ে থাকি। শিশুদের শারীরিক ও মানসিক কোনো প্রকার শাস্তি না দেওয়ার সরকারি বিধি-নিষেধ থাকলেও অনেক শিক্ষক এটাকে আমলে নিচ্ছেন না। পত্রিকার পাতা খুললেই শিক্ষক কর্তৃক শিক্ষার্থী নির্যাতনের খবর অহরহ চোখে পড়ে। শিক্ষক কর্তৃক শিশু-শিক্ষার্থী ধর্ষণ যেন ক্রমেই বেড়ে চলেছে। ইদানিং পত্রিকায় বেশ কয়েকটি শিশুধর্ষণের খবর সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে। বাদ যাচ্ছে না প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাও।

তাছাড়া তথাকথিত শিক্ষক কর্তৃক ছাত্রীরা বিভিন্নভাবে যৌন-হয়রানির শিকার হওয়া-তো এখন সাধারণ ঘটনা। সারাদেশে কোচিং-বাণিজ্য বেপরোয়া আকার ধারণ করেছে। স্কুল ও কলেজের একশ্রেণির তথাকথিত শিক্ষক লাগামহীন কোচিং-বাণিজ্য চালিয়ে যাচ্ছেন। কোমলমতি শিশুদের পরীক্ষায় নম্বর কম দিয়ে, শারীরিক-মানসিক নির্যাতন করে, বিভিন্ন কলা-কৌশল অবলম্বন করে এই শ্রেণির শিক্ষকরা তাদের কাছে শিক্ষার্থীদের পড়তে বাধ্য করছেন। প্রাথমিক স্তরের কোমলমতি শিশুরাও এ থেকে রেহাই পাচ্ছে না। শিক্ষকদের কাছে জিম্মি হয়ে আছে ছাত্র-ছাত্রী এবং অভিভাবকেরা। প্রাইভেট পড়ানো এবং কোচিং পরিচালনার ক্ষেত্রে সরকারি নীতিমালা থাকা সত্ত্বেও তা কোথাও প্রতিপালিত হচ্ছে না। শিক্ষকের এরকম নৈতিকতা ও মূল্যবোধ বিবর্জিত কাজের উদাহরণ আমরা চারপাশে অহরহ-ই দেখতে পাই। জাতি শিক্ষক-সমাজের কাছে এটা প্রত্যাশা করে না। এ থেকে শিক্ষকদের বের হয়ে আসতে হবে।

সরকার দিন দিন শিক্ষকদের মর্যাদা বৃদ্ধির জন্য সচেষ্ট। তবে আমাদের মনে রাখতে হবে আমাদের দেশে ‘শিক্ষা-সংশ্লিষ্ট পরিবার’ অনেক বড় পরিবার। এত বেশি জনবল অন্য কোনো পেশায় পাওয়া যাবে না। এখানে তড়িঘড়ি কোনো সিদ্ধান্ত নেয়া যায় না। তারপরও বিভিন্ন ক্ষেত্রে শিক্ষকদের প্রতি সরকারের ইতিবাচক মনোভাব পরিলক্ষিত হচ্ছে। তাছাড়া আমাদের শিক্ষকেরা এখন আর পূর্বের মতো নেই। সকলের মধ্যেই পরিবর্তনের ছোঁয়া লেগেছে। সবাই নিজেকে যোগ্য শিক্ষক হিসেবে তৈরিতে সচেষ্ট। এখন আর কোনো স্কুলে লুঙ্গি-পরা, পান-খাওয়া শিক্ষক খুঁজে পাওয়া যাবে না। তবে এটাও মনে রাখতে হবে শিক্ষার মানের পরিবর্তন অল্প কয়েক দিনে দৃশ্যমান করা বা অল্প কয়েক দিনে নিশ্চিত করা সম্ভব নয়। শিক্ষার মান সেতু নির্মাণের মতো কোনো প্রকল্প নয় যে প্রকল্প শেষ হলেই দৃশ্যমান হয়ে যাবে। শিক্ষাব্যবস্থায় এক দশকের সিদ্ধান্তের ফল পরবর্তী দশকে পাওয়া যায়। কাজেই ভালো কিছু পাওয়ার জন্য আমাদের কাজ করে যেতে হবে, পাশাপাশি অপেক্ষাও করতে হবে।

শিক্ষককে শিক্ষার গুণগত মান নিশ্চিতকল্পে কিছু গুণাবলী সম্প্রসারণ করতে হবে। কিছু বিষয়ে শিক্ষকগণকে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হতে হবে। যেমন- নিয়মিত ও সময়মত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে উপস্থিতি নিশ্চিত করা, নির্ধারিত সময়ে শ্রেণিকক্ষে প্রবেশ ও শ্রেণি-কার্যক্রম পরিচালনা করা, শিক্ষার মান বৃদ্ধির লক্ষ্যে শিক্ষকদের পাঠদানের মানোন্নয়ন, শ্রেণিকক্ষেই ছাত্র-ছাত্রীদের যথাযথ পাঠদান নিশ্চিত করা, শিক্ষার্থীদের গাইড বই/নোট বই থেকে বিরত রাখা ও নিরুৎসাহিত করা, পাঠ পরিকল্পনা ও শিক্ষা উপকরণসহ প্রস্তুতি নিয়ে শ্রেণিকক্ষে যাওয়া, শিক্ষার্থীদের মধ্যে জানার আগ্রহ ও ঔৎসুক্য সৃষ্টি করা, শিক্ষার্থীকেন্দ্রিক শ্রেণি-কার্যক্রম পরিচালনা করা, প্রশ্ন করার জন্য শিক্ষার্থীদের উৎসাহিত করা, শিক্ষার্থীদের যে কোনো প্রকার শারীরিক ও মানসিক শাস্তি প্রদান থেকে বিরত থাকা, মোবাইল ফোন বন্ধ রেখে শ্রেণিকক্ষে পাঠদান, পিছিয়ে পড়া ও বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শিশুদের প্রতি বিশেষ নজর দেয়া, কেবল সহায়ক বা সহায়তাকারী হিসেবে কাজ করা, প্রয়োজনে অনুপস্থিত শিক্ষার্থীদের হোম ভিজিট করা, শিক্ষাক্রমের পাশাপাশি সহশিক্ষাক্রমিক কার‌্যাবলীর প্রতি মনোযোগ দেয়া, ডিজিটাল কনটেন্ট তৈরি করে শ্রেণিকার্যক্রম পরিচালনা করা, প্রাইভেট-কোচিং নীতিমালা অনুসরণ করা, নিয়মিত বিষয়ভিত্তিক পড়াশুনা করা, প্রত্যেক শিক্ষক ও শিক্ষাকর্মীর নিজস্ব ই-মেইল ঠিকানা চালু রাখা ইত্যাদি ।

শিক্ষককে হতে হবে নিজ পেশার প্রতি নিবেদিতপ্রাণ। একজন শিক্ষককে হতে হবে ধী-শক্তির অধিকারী, বুদ্ধি-প্রজ্ঞা হবে তাঁর চলার পথের পাথেয়। সেই সাথে মননে-মেধায় তাঁকে হয়ে উঠতে হবে সৃজনশীল ও উদ্ভাবনী শক্তির অধিকারী। স্কুল কলেজে পড়ার সময় এমন অনেক শিক্ষক পাওয়া যায় যাঁরা ছাত্র-ছাত্রীদের মন জয় করে তাদের কাছে আদর্শ ব্যক্তিত্ব ও প্রিয়জন হয়ে ওঠেন। তাঁদের মধ্যে কী এমন বিশেষত্ব থাকে যা দেখে শিক্ষার্থীরা এতো মুগ্ধ হয়ে যায়? এইসব শিক্ষক যেমন ছাত্র-ছাত্রীদের কাছে স্মরণীয় হয়ে থাকেন তাঁদের শিক্ষাদানের জন্য, তেমন শিক্ষার্থীদের প্রতি এঁদের সহমর্মিতা ও সহানুভূতিশীল আচরণও তাঁদেরকে ছাত্র-ছাত্রীদের কাছের মানুষ হতে সাহায্য করে। একজন উৎকৃষ্ট মানের শিক্ষকের মধ্যে এই দু’টি গুণের উপস্থিতি প্রায়শই চোখে পড়ে। শিক্ষার্থীদের নিকট শিক্ষককে নিজেকে আদর্শভাবে উপস্থাপন করতে হবে।

মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত করার স্বার্থে শিক্ষকতা পেশার প্রতি যথাযথ গুরুত্ব প্রদান করে সামাজিক ও অর্থনৈতিক দিক থেকে শিক্ষক-সমাজকে একটি উপযুক্ত মর্যাদার আসনে প্রতিষ্ঠিত করার কোনো বিকল্প নেই। শিক্ষকতা পেশার প্রতি যথাযথ গুরুত্বারোপ করতে হবে এবং শিক্ষক সনদ বাস্তবায়নের মাধ্যমেই আমাদের শিক্ষার গুণগতমান সার্বিকভাবে বিকশিত হবে এটাই সকলের কাম্য। পাশাপাশি একজন শিক্ষক মহান শিক্ষকতা পেশার প্রতি সম্মান প্রদর্শন করে, একজন আদর্শ শিক্ষকের গুণাবলী অর্জনের মধ্য দিয়ে নিজেকে যোগ্য করে গড়ে সবার সামনে তুলে ধরবেন এবং জাতি ও দেশ গঠনে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবেন- এটা সময়ের দাবি।

বিশ্ব শিক্ষক দিবসে শিক্ষকদের এই শপথ নিতে হবে, ‘রাষ্ট্র আমাদের জন্য যাই করুক না কেন, সমাজ আমাদের যেভাবেই মূল্যায়ন করুক না কেন, আমরা গড্ডালিকা স্রোতে গা ভাসিয়ে দিতে পারি না। আমরা সমাজের অভিভাবক ও পথ-প্রদর্শক। নতুন দিনের পথ আমাদেরই দেখাতে হবে আগামী দিনের প্রজন্মকে- নতুন দিনের আলো আমাদেরই নিয়ে আসতে হবে’।

লেখক:
শরীফুল্লাহ মুক্তি
ইন্সট্রাক্টর,
উপজেলা রিসোর্স সেন্টার (ইউআরসি),
বারহাট্টা, নেত্রকোনা।

দেখা হয়েছে: 11
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • ভারপ্রাপ্ত সম্পাদকঃ ফয়সাল হাওলাদার মোবাইল ০১৭৩২-৩৭৯৯৮২
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।