|

নবাবগঞ্জে ভুল চিকিৎসায় গৃহবধূর মৃত্যু

প্রকাশিতঃ 9:19 pm | June 07, 2019

নবাবগঞ্জে ভুল চিকিৎসায় গৃহবধূর মৃত্যু

অনলাইন বার্তাঃ ঢাকার নবাবগঞ্জে প্যারাগন হাসপাতাল অ্যান্ড ট্রমা সেন্টার নামে একটি বেসরকারি ক্লিনিকে ভুল চিকিৎসায় নুরজাহান আক্তার (৩৪) নামে এক গৃহবধুর মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

গত সোমবার স্বামীর ছুরিকাঘাতে আহত নুরজাহান আক্তারকে (৩৪) নবাবগঞ্জের প্যারাগন হাসপাতাল অ্যান্ড ট্রমা সেন্টার নামে একটি বেসরকারি ক্লিনিকে নিয়ে যান স্বজনরা। মৃতের বোন সুমী আক্তারের দাবি, ভুল চিকিৎসাতেই তার বোনের মৃত্যু হয়েছে।

মৃতের স্বজনরা জানায়, সোমবার উপজেলার কলাকোপা ইউনিয়নে বিবির চর এলাকায় স্বামী আরফান আলী নিজ বাড়িতে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে স্ত্রী নুরজাহানের পেটে ছুড়িকাঘাত করেন। নুরজাহানের বাবার বাড়ির লোকজন সংবাদ পেয়ে তাকে শ্বশুরবাড়ি থেকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে ঢাকায় নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন।

পরে তাকে উপজেলার বাগমারায় অবস্থিত প্যারাগন হাসপাতাল অ্যান্ড ট্রমা সেন্টারের ম্যানেজার নাঈমের সাথে ১৮ হাজার টাকা চুক্তিতে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয় নুরজাহানকে। ওই হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. কামরুজ্জামান কাঞ্চন নুরজাহানের অপারেশন করেন।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, কামরুজ্জামান কাঞ্চন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের একজন মেডিকেল অফিসার। তার সার্জারি করার অনুমোদন না থাকলেও তিনি প্রতিনিয়ত প্যারাগন হাসপাতালে সার্জারি করে থাকেন।

নুরজাহানের অবস্থার অবনতি হলে বুধবার হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাকে ঢাকা নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন। স্বজনরা মুমূর্ষু অবস্থায় তাকে ঢাকায় নিয়ে গেলে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসকরা জানান, রোগীর অপারেশন সঠিক হয়নি। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬টা ৩০ মিনিটে নুরজাহানের মৃত্যু হয়।

মৃতের বোন সুমী আক্তার বলেন, প্যারাগন হাসপাতালে আমার বোনের সঠিকভাবে চিকিৎসা না হওয়ায় কারণে তার নাড়িতে পচন ধরেছিলো। তাতেই তার মৃত্যু হয়েছে। থানায় মামলা করেছি। হাসপাতালের বিষয়টি প্রশাসন দেখবে।

প্যারাগন হাসপাতাল অ্যান্ড ট্রমা সেন্টারের উপ-মহাব্যাবস্থাপক সাখায়াত হোসেন বাপ্পি বলেন, নুরজাহানের অপারেশন আমাদের হাসপাতালে হয়েছে। রোগী পরে বাড়িতে চলে যায়। আমি আর কিছু জানি না।

নবাবগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক মুন্সী আশিকুর রহমান নুরজাহানের মৃত্যুর তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, এ ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। জড়িতদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মকর্তা ডা. মো. শহিদুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি শুনেছি। কারো অবহেলায় মানুষের মৃত্য কাম্য নয়। ভুল চিকিৎসা তদন্তে প্রমাণিত হলে প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।