|

ভুল চিকিৎসায় শিশুর মৃত্যুতে ডাক্তারকে বাড়ি ডেকে মারধর

প্রকাশিতঃ 6:47 pm | June 05, 2019

ভুল চিকিৎসায় শিশুর মৃত্যুতে ডাক্তারকে বাড়ি ডেকে মারধর

অনলাইন বার্তাঃ প্রায়ই ডাক্তারের ভুল চিকিৎসায় রোগীর মৃত্যুর খবর শোনা যায়। এ নিয়ে বিক্ষুব্ধ স্বজনরা অনেক কিছুই করেন। সম্প্রতি কলকাতার গার্ডেনরিচ থানা এলাকার ফতেপুর ভিলেজ রোডে ভুল চিকিৎসায় শিশুর মৃত্যুর জেরে ডাক্তারকে বাড়ি ডেকে নিয়ে আটকে রেখে বেধড়ক মারধর করার খবর পাওয়া গেছে।

গত মঙ্গলবার সকালে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার প্রায় তিন ঘণ্টা পর চিকিৎসক অমিতাভ মণ্ডলকে উদ্ধার করে থানায় পুলিশ। এর আড়ে সোমবার খেলার সময় আট বছরের শিশু শুভম তিওয়ারি বাম-পাশের কুঁচকিতে চোট পায়। সন্ধ্যায় শুভমকে স্থানীয় চিকিৎসক অমিতাভের চেম্বারে নিয়ে যান বাবা অজয় তিওয়ারি।

চিকিৎসক চারটি ওষুধ দেন শুভমকে খাওয়ানোর জন্য। বাড়িতে এসে সেই ওষুধ খাওয়ানোও হয় প্রথম শ্রেণির ঐ ছাত্রকে। পরিবারের অভিযোগ, গভীর রাতে শুভম ঘুম ভেঙে কাঁদতে শুরু করে। জানায়, শরীরের ভিতর জ্বালা করছে।

শিশুর মা সঙ্গীতা জানান, যেখানে জ্বালা করছিল, সেখানে বরফ দেওয়া হয়। তাতেও ঠিক না হলে তাকে মঙ্গলবার ভোরে নিয়ে যাওয়া হয় শরৎ বসু রোডের বেসরকারি হাসপাতালে। শুভমের ফুফু শেফালি ঘোষের দাবি, হাসপাতালে যাওয়ার পথেই গাড়িতে নেতিয়ে পড়ে শুভম। হাসপাতালের চিকিৎসকরা তাঁকে মৃত বলে জানান।

পরে ডাক্তার অমিতাভ মণ্ডলকে শুভমের ডেথ সার্টিফিকেট দিতে বাড়িতে যেতে বলেন বিক্ষুব্ধ স্বজনরা। প্রথমে রাজি না হলেও পরে চিকিৎসক শুভমদের বাড়িতে আসেন। ঐ ডেথ সার্টিফিকেটে মৃত্যুর কারণ হিসেবে সেপটিক আরথ্রাইটিস লেখেন অমিতাভ মণ্ডল। এর পরেই উত্তেজনা চরমে ওঠে। অমিতাভবাবুর অভিযোগ, তাকে আটকে রেখে নিগ্রহ করা হয়। বেধড়ক মারধরও করা হয়। তবে মারধরের কথা অস্বীকার করেছে পরিবার।

পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে শিশুটির দেহ পাঠায় এসএসকেএম হাসপাতালে। এদিনই শিশুটির ময়নাতদন্ত হয়েছে। জানা যায়, বাড়ি থেকে পুলিশের গাড়িতে তোলা পর্যন্ত উত্তেজিত জনতার হাতে বেদম মার খেতে হয় অমিতাভবাবুকে, পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে গিয়ে বেকায়দায় পড়ে যায়। পরে পুলিশ স্থানীয়দের সাথে সমঝোতা করে অমিতাভকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা।