|

মধ্যপাড়া পাথর খনিতে পাথরের মজুত বৃদ্ধি

প্রকাশিতঃ ১০:২৮ অপরাহ্ন | অক্টোবর ০৭, ২০১৯

মধ্যপাড়া পাথর খনিতে পাথরের মজুত বৃদ্ধি

দিনাজপুর প্রতিনিধিঃ চাহিদার সঙ্গে উৎপাদন বাড়লেও বিক্রির চেয়ে অবিক্রীত পাথরের মজুদ বেড়েই চলেছে। যদিও বিক্রি না বাড়ার পেছনে পরিবহণে ওভারলোডিংকে দায়ী করছে খনি কর্তৃপক্ষ।

বর্তমানে মধ্যপাড়া পাথর খনির ইয়ার্ডে পাথরের মজুদ দাঁড়িয়েছে ৩ লাখ মেট্রিক টন। তবে খনি কর্তৃপক্ষের দাবি, পাথর বিক্রির পরিমাণ কম থাকলেও তুলনামূলক বেড়েছে বিক্রি। গত অর্থবছরে মাসে ৪০ থেকে ৫০ হাজার টন পাথর বিক্রি হয়েছে। সেখানে চলতি অর্থবছরে বিক্রি কিছুটা বেড়ে মাসে ৫০ থেকে ৬০ হাজার টন পাথর বিক্রি করা হচ্ছে।

খনি কর্তৃপক্ষ বলছে, ব্যবসায়ীরা অন্য জায়গা থেকে আমদানিকৃত পাথর ওভারলোড নিয়ে পরিবহণ করতে পারছে, এতে তাদের পরিবহণ খরচ কমে যাচ্ছে। এ কারণে তারা খনির পাথর না নিয়ে আমদানি করা পাথর কিনতে আগ্রহী হচ্ছে। কিন্তু খনির পাথর অতিরিক্ত বহন করার অনুমতি না থাকায় বিক্রি কিছুটা কমেছে বলে দাবি খনি কর্তৃপক্ষের।

জানা গেছে, ২০১৩ সালে বেলারুশভিত্তিক জার্মানিয়া ট্রাস্ট কনসোডিয়ামের (জিটিসি) সঙ্গে খনিটির উৎপাদন রক্ষাণাবেক্ষণের চুক্তি করার পর ২০১৪ সালের ফেব্রম্নয়ারি থেকে পাথর উত্তোলন শুরু করে জিটিসি। বর্তমানে প্রতিদিন খনিটি থেকে পাথর উত্তোলন হচ্ছে সাড়ে ৫ হাজার মেট্রিক টন।

খনিটির পাথর উত্তোলনের দায়িত্বে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান জিটিসি থাকলেও, পাথর বিক্রি করে পেট্রোবাংলার নিয়ন্ত্রণাধীন মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানি লি.। প্রতিদিন গড়ে ৫ হাজার টন পাথর উত্তোলন হওয়ায় খনিটি লোকসানের হাত থেকে লাভের দিকে যাওয়ার কথা, কিন্তু সময়মতো পাথর বিক্রি না হওয়ায়, সেই লাভ ঘরে উঠছে না।

মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানি লি.-এর মহা-ব্যবস্থাপক আবু তালেব ফরাজি জানান, সড়ক ও সেতু বিভাগের নিয়ম অনুযায়ী একটি টু-এক্সেল ট্রাকে ২২ টন ও একটি থ্রি-এক্সেল ট্রাকে ৩২ টন পর্যন্ত। এই নিয়ম মেনে মধ্যপাড়া খনি কর্তৃপক্ষ ট্রাকে পাথর পরিবহণের অনুমতি ও লোড দিয়ে থাকে। কিন্তু পাথর আমদানিকারকরা, একটি টু-এক্সেল ট্রাকে ৩২ টন ও একটি ত্রি-এক্সেল ট্রাকে ৫৫ টন পর্যন্ত পাথর বহন করছে। এতে পাথর ব্যবসায়ীদের পরিবহণ খরছ কমে যাচ্ছে এই জন্য তারা খনির পাথর না নিয়ে আমদানিকৃত পাথর কিনতে আগ্রহী হচ্ছে।

এই কর্মকর্তা আরও বলেন, সড়ক ও সেতু কর্তৃপক্ষ যদি ওভারলোড পরিবহণ করা রোধ করতে পারে তাহলে খনিতে পাথর বিক্রি বাড়বে। বাজারের তুলনায় মধ্যপাড়া খনির পাথর গুণেমানে ভালো ও দামও কম।

দেখা হয়েছে: 25
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ [email protected]
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।