|

শার্শায় মৌসুমের শুরুতে ধান কাটা শ্রমিক সংকটে দুশ্চিন্তায় কৃষক

প্রকাশিতঃ 9:17 pm | April 26, 2019

শার্শায় মৌসুমের শুরুতে ধান কাটা শ্রমিক সংকটে দুশ্চিন্তায় কৃষক

সোহেল রানা, শার্শা প্রতিনিধিঃ যশোরে মৌসুমের শুরুতে চাষীরা ধান কাটা শ্রমিক সংকটে দুশ্চিন্তায় রয়েছে কৃষকরা। প্রতি বছরের ন্যায় এবারও নতুন ধান ঘরে তুলার আশায় বুক বেধেছেন কৃষকরা।

তারই ধারাবাহিকতায় উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে চলতি মৌসুমে ধান কাটা ও মাড়াই কাজ শুরু হয়েছে। তবে পুরোদমে ধান কাটা মাড়াই শুরু হতে আর মাত্র কয়েক দিন সময় লাগবে। মাঠ জুড়ে কাঁচা পাঁকা ধানের হাতছানিতে ধান ঘরে তুলতে ব্যাকুল প্রতিটি কৃষক পরিবার।

কৃষকের পাশাপাশি ধান শুকানোর জন্য খোলা তৈরিতে ব্যস্ত দিনপার করছেন কৃষানীরা। সবার মুখে এখন সোনা ঝরা হাসি। তবে ধান কাটা শ্রমিক সংকটের কারণে কৃষকদের মুখের হাসি ম্লান হয়ে গেছে। মাঠে পাকা ধান থাকলেও শ্রমিক সংকটের কারণে ধান কাটার কাজে ব্যাঘাত ঘটছে। এতে চিন্তায় দিশেহারা কৃষক। ঝড়ের মৌসুম হওয়ায় ধান নিয়ে বিপাকে পড়েছেন কৃষকরা।

জানা গেছে, বিগত বছরগুলোতে ধান কাটার সময় পঞ্চগড়, রাজশাহী, নওগাঁ, রংপুর, লালমনিরহাটসহ বিভিন্ন জেলা এবং উপজেলা থেকে ধান কাটা শ্রমিকরা দক্ষিণ এলাকা থেকে আসতো কিন্তু এবার সেই এলাকার শ্রমিকরা আর আসছে না। তাই এই বছর ধান কাটা নিয়ে শ্রমিক সংকটে পড়তে হয়েছে কৃষকদের। ফলে দুশ্চিন্তার শেষ নেই তাদের।

এছারাও সম্প্রতি বয়ে যাওয়া কালবৈশাখী ঝড় ও শীলাবৃষ্টির কারণে পড়ে যাওয়া ধান নিয়ে বিপাকে পড়েছেন কৃষকরা। শ্রমিক সংকটের কারণে সময় মতো ধানগুলো ঘরে তুলতে পারবেন কী না বর্তমানে এই আশঙ্কা রয়েছে উপজেলার কৃষকদের মনে। তারপরও যে সব স্থানীয় শ্রমিক পাওয়া যাচ্ছে তাদের দ্বিগুন পারিশ্রমিক দিতে হচ্ছে। কৃষকদের ভাষ্য, শ্রমিক খরচটা আরও সহজলভ্য হলে এলাকার কৃষকরা ধান চাষ করে আরও অনেক লাভবান হতো।

কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, চলতি বছরে উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়নে ২২ হাজার ৪শত ৭হেক্টর জমিতে বোরো ধান চাষ করা হয়েছে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় কৃষি অফিসের পরামর্শে সঠিক সময়ে চারা লাগানো, নিবিড় পরিচর্যা, যথাসময়ে সেচ দেওয়া এবং সার সংকট না থাকায় উপজেলার কৃষকরা বিভিন্ন জাতের ধান চাষ করেছেন।

শার্শা উপজেলার বারোপোতা গ্রামের কৃষক সামসু রহমান ও কাদের সহ ঘীবার সাজেদুর রহমান মাষ্টার জানান, আমার জমিতে ফসল ভালো হয়েছে । আশা করলাম এবার অনেক লাভবান হব । কিন্তু ( শ্রমিক) না থাকায় সে আশা ভেঙ্গে গেল । বাইরের এলাকার শ্রমিক না আসার কারণে টাকা খরচ বেশি দিয়েও পর্যাপ্ত শ্রমিক সংকটের কারণে চিন্তায় আছি।

শার্শার লাউতাড়া গ্রামের কৃষক কুরবানী আলী ও সায়েব মড়ল বলেন, আমি এ বছর ১১ বিঘা জমিতে ধান চাষ করেছি। সময়মতো পরিচর্যা করায় আমার জমিতে ধান ভাল হয়েছে। ইতোমধ্যেই জমিতে ধান পাকা শুরু হয়েছে। কিন্তু সমস্যা একটাই ধান কাটার শ্রমিক সংকটের জন্য মাঠে পড়ে রয়েছে সোনার ধান। এলাকার শ্রমিক দিয়ে ধান কাটালে জনপ্রতি ৫০০-৬০০ টাকা দিতে হয় যা আমাদের মত সাধারণ কৃষকের পক্ষে সম্ভব নয়। মষী ডাঙ্গা

বারোপোতা গ্রামের কৃষক শফি মোড়ল বলেন, আমি(১৫) বিঘা জমি নিয়ে চাষ করেছি। অনেক কষ্ট করে সোনার ফসল ফলিয়েছি। এখন ধান কাটার অভাবে পড়ে পর্যাপ্ত শ্রমিক না পাওয়া দুশ্চিন্তায় আছি।

শার্শা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা গৌতম কুমার শীল বলেন, ধান লাগানোর শুরু থেকে কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে কৃষকদের পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। পরবর্তী সময়ে আবহাওয়া ভালো থাকলেও বাজারে ধানের ভাল দাম থাকলে কৃষকরা লাভবান হবেন। তবে শ্রমিক সংকটের কারণে কৃষকরা একটু সমস্যায় পড়েছেন।