|

যৌতুকের জন্য কিশোরী ফারজানাকে গলা টিপে হত্যা

প্রকাশিতঃ ১১:০০ অপরাহ্ন | মে ১৩, ২০১৯

যৌতুকের জন্য কিশোরী ফারজানাকে গলা টিপে হত্যা

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ- বগুড়ায় যৌতুক না পেয়ে বাল্য বিয়ের শিকার এক কিশোরীকে নির্যাতনের পর গলা টিপে হত্যা করার অভিযোগ উঠেছে স্বামীর বিরুদ্ধে। নিহত ফারজানা খাতুন (১৫) একমাস আগে বিয়ে হয়। সোমবার সকালে স্বামীর বাড়ির পার্শ্বে বাঁশ ঝাড়ে তার মরদেহ পাওয়া যায়।

স্থানীয়রা জানায়, উপজেলার থালতা মাঝগ্রাম ইউনিয়নের আগাপুর গ্রামের আবুল কালামের কিশোরী মেয়ে ফারজানার দেড়মাস আগে বিয়ে হয় পার্শ্ববর্তী পারশুন গ্রামের মঞ্জুরুল ইসলামের ছেলে রকি হোসেনের সঙ্গে। বিয়ের সময় ২৫ হাজার টাকা যৌতুক দেয়ার কথা থাকলেও ফারজানার বাবা পরিশোধ করতে পারেনি।

এক বছর পর যৌতুকের টাকা দিবে মর্মে ১৫ দিন আগে মেয়েকে স্বামীর বাড়িতে রেখে যায়। সোমবার ভোরে স্বামীর বাড়ির পার্শ্বে বাঁশঝাড়ে ড্রেনের মধ্যে ফারজানার মরদেহ দেখে পুলিশে খবর দেয় প্রতিবেশীরা। পুলিশ ঘটনাস্থলে আসার আগেই স্বামী রকি হোসেন পালিয়ে যায়।

নিহত ফারজানার পিতা আবুল কালাম বলেন, রকি তার প্রথম স্ত্রীকে তালাক দেয়ার পর ফারজানাকে বিয়ে করে। বিয়ের সময় কথা হয় যৌতুকের ২৫ হাজার টাকা এক বছর পর দেয়ার। তিনি বলেন, যৌতুকের টাকা না পেয়েই ফারজানাকে নির্যাতন করে হত্যা করা হয়েছে।

তবে প্রতিবেশীরা বলেছেন, ফারজানা স্বামীর বাড়িতে আসার পর থেকেই পরকীয়া নিয়ে স্বামীর সঙ্গে কলহ দেখা দেয়। কুমিড়া পন্ডিত পুকুর পুলিশ ফাঁড়ির এসআই নূর মোহাম্মদ বলেন, নিহতের গলায় ও গালে আঘাতের চিহ্ন দেখা গেছে। ধারণা করা হচ্ছে গলা টিপে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হতে পারে। তিনি বলেন, মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে।

দেখা হয়েছে: 28
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন
  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • ভারপ্রাপ্ত সম্পাদকঃ ফয়সাল হাওলাদার মোবাইল ০১৭৩২-৩৭৯৯৮২
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।