|

শত বছর বয়সে দোকান করে সংসার চালান বাগমারার হামিরকুৎসার কাসেম

প্রকাশিতঃ ১১:২৬ পূর্বাহ্ন | সেপ্টেম্বর ০৯, ২০১৯

নাজিম হাসান,রাজশাহী থেকে :
বয়সের কাছে হার মানেননি আবুল কাসেম নামের এক ব্যাক্তি। তিনি জীবন যুদ্ধে অপরাজিত সৈনিক। রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার হামিরকুৎসা ইউনিয়নের আলোকনগর গ্রামের শত বছর বয়সী এই বৃদ্ধ এখনও বাড়ি সংলগ্ন হামিরকুৎসা বাজারে একটি ডোপে পান বিড়ি সিগারেটের দোকান করে সংসার চালান তিনি। স্থানীয় বাজারের অন্যান্য ব্যবসায়ী ও আবুল কাসেমের প্রবীন প্রতিবেশিরা জানান, আবুল কাসেমের বয়স একশ’র কাছাকাছি হবে। স্থানীয়রা জানান, সংসারে এক স্ত্রী বলতে আবুল কাসেমের আর কেউ নেই। চার মেয়েকে অনেক আগেই বিয়ে দিয়েছেন। মেয়ের ঘরের তার অনেক নাতি নাতনীরও বিয়ে হয়েছে। তবে তাদের আর দেখভাল করতে হয়না আবুল কাসেমকে। স্থানীয় বাজারের আরেক ব্যবসায়ী মঞ্জুর রহমান জানান, খুব সকালে এসে দোকান খুলেন আবুল কাসেম। তার দোকান সংলগ্ন হামিরকুৎসা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় হওয়ায় ওই বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীরাই তার দোকানে বেশি কেনাকাটা করে থাকেন। বিস্কুট, চকোলেট ,কেক, পাপর, চানাচুর, বাদাম ও আচার সহ নানাবিধ মুখরোচক খাবার রয়েছে আবুল কাসেমের দোকানে। সকাল পেরিয়ে দুপুর হয়ে যায় দোকানের বেচাকেনা নিয়েই ব্যস্ত থাকেন আবুল কাসেম। বাড়িতে স্ত্রী অসুস্থ থাকায় দুপুরে কিছু সময়ের জন্য দোকান বন্ধ করে তাকে খাবারের জন্য বাড়িতে যেতে হয়। স্থানীয় বাজারের আরেক ব্যবসায়ী আইনাল হক জানান, খুব ব্যক্তিত্ব সম্পন্ন মানুষ আবুল কাসেম। কাহারো কাছে হাত পাতা বা সাহায্য নেওয়া তিনি পছন্দ করেন না। তিনি নিজেই আয় রোজগার করে এখন পর্যন্ত বহাল তবিয়তে আছেন। তিনি আরো জানান, আবুল কাসেমের ব্যবসার পুজি অনেক কম। তার উপর অনেকে বাকি নিয়ে তা আর পরিশোধ না করায় তিনি মনে মনে খুব কষ্ট পান। তার মতে কেউ যদি তার ব্যবসায় কিছু পুজি দিয়ে সাহায্য করে তবে তিনি(আবুল কাসেম) আরো ভালো ভাবে জীবন যাপন করতে পারবেন। আবুল কাসেমের এক প্রতিবেশি আনিছার রহমান জানান, আবুল কাসেম ও তার স্ত্রী দুজনেই অসুস্থ । বেঁচে থাকার জন্য তাদের প্রতিদিন অনেক টাকার ওষধ লাগে। সামান্য ওই দোকানের আয় থেকে সংসার ও ওষধ খরচ মেটাতে আবুল কাসেমকে খুবই কষ্ট করতে হয়। তার জমিজমা বলতে কিছু নেই। বসত ভিটার দুটো ঘর ছাড়া। তাও আবার খুব জীর্ণশীর্ণ । এখানেই কোন রকমে জীবন কাটে আবুল দম্পতির। আবুল কাসেম জানান, অন্যের কাছে হাত পাততে লজ্জা করে। দীর্ঘদিন এই দোকানের আয় থেকেই কোন রকমে জীবন চলে যাচ্ছে। এখন আর চোখে দেখে টাকা চিনতে পারিনা। এ কারণে অনেকে আমাকে মাঝে মধ্যে ঠকায়। ব্যবসার অবস্থা এখন আর ভাল না। দোকানে ঠিকমত মালামাল তুলতে পারিনা। তাই বেচাকেনাও কম। এসব কথা বলার ফাঁকে তিনি এই প্রতিনিধি ও উপস্থিত লোকজনের কাছে বলেন, আমার জন্য দোয়া করবেন। আল্লাহ যে আমাকে ইমানের সাথে পরপারে নিয়ে যান। আলোক নগর গার্লস স্কুল এন্ড কলেজের উপাধ্যক্ষ রাশেদুল হক বলেন, আবুল কাসেমকে দেখে পথচারী সহ অনেকেই অভিভুত হয়ে পড়েন। বাজারের অন্যান্য ব্যবসায়ী ও স্থানীয় লোকজন আবুল কাসেমের চলাফেরা দেখে অনুপ্রানিত হন। সময় পেলে তারা আবুল কাসেমের কাছে বসে দ্বিতীয় বিশ্ব যুদ্ধ ও ৭১’ এর মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে মজার মজার গল্প শুনে যান।

দেখা হয়েছে: 34
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।