|

শরীয়তপুরে ধর্ষক মাসুদের জামিন বাতিল করে ফের কারাগারে প্রেরণ

প্রকাশিতঃ ১০:৩৩ অপরাহ্ন | জুলাই ১১, ২০১৯

শরীয়তপুরে-ধর্ষক-মাসুদের-জামিন-বাতিল-করে-ফের-কারাগারে-প্রেরণ

শরীয়তপুর প্রতিনিধিঃ শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলায় দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্রী ধর্ষণ হয় ২৯ জুন রাতে, ধর্ষক মাসুদ বেপারী ওই রাতেই গ্রেপ্তার হয় তার বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা হয় পরেরদিন ৩০ জুন দুপুরে জাজিরা থানায়।

এদিকে আসামী পক্ষ প্রভাবশালী হওয়ায় আটদিনের মাথায় ৮ জুলাই রবিবার জামিনে বের হয়ে যায় কলেজছাত্রী ধর্ষণের আসামী মাসুদ।

ধর্ষক প্রভাবশালী হওয়ায় ভুক্তভোগী পরিবার পড়ে যায় আতংকের মধ্যে। জনমনে প্রশ্ন জাগে এই জামিন কিভাবে সম্ভব?

এই অনৈতিক জামিন নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে খবর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যেমে আলোচনা সমালোচনা ঝড় ওঠে ও শরীয়তপুর জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সামনে ১০ জুলাই বুধবার জেলার বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন মানববন্ধন করেন।

১১ জুলাই বৃহস্পতিবার ধর্ষক জাজিরা পৌর মেয়রে ইউনুস বেপারীর ছেলে মাসুদ বেপারী ধার্য তারিখে শরীয়তপুর জেলা ও দায়রা জজ আদালত হাজির হতে আসলে জামিন না মঞ্জুর করে আবার জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন জেলা জজ। এসময় ধর্ষণের শিকার কলেজছাত্রী আদালতে উপস্থিত ছিলেন, এবং তারা আদালতের কার্যক্রমে আশ্বস্ত হয়েছেন বলে জানান ভুক্তভোগী পরিবার।

উল্লেখ্য, জাজিরা থানা পুলিশ জানায়, গত ২৯ জুন রাতে ওই কলেজছাত্রী ধর্ষণের শিকার হন। জাজিরার মুলনা ইউনিয়নের একটি গ্রামে তাদের বাড়ি। তিনি পড়ালেখার পাশাপাশি স্থানীয় একটি রোগ নির্ণয় কেন্দ্রে কাজ করেন। জাজিরা পৌর এলাকার আক্কেল মাহমুদ মুন্সিকান্দি মহল্লার বাসিন্দা মাসুদ বেপারী (৩৫) তাদের দুঃসম্পর্কের আত্মীয়।

২৯ জুন বিকেলে মাসুদ তার স্ত্রীর সঙ্গে দেখা করার কথা বলে ওই ছাত্রীকে বাড়িতে আসতে বলেন। ওই ছাত্রী রোগ নির্ণয় কেন্দ্রের কাজ শেষ করে সন্ধ্যা ৭টার দিকে মাসুদের বাড়িতে যান। সেখানে মাসুদের পরিবারের কাউকে না দেখে ওই ছাত্রী ফিরে আসার চেষ্টা করেন। তখন মাসুদ তাকে ঘরে আটকে রেখে দুই দফা তাকে ধর্ষণ করে। ধর্ষণের পর শ্বাসরোধ করে ওই ছাত্রীকে হত্যার চেষ্টা করা হয়।

পরে ওই ছাত্রী সেখান থেকে পালিয়ে আসেন। মাসুদের বাড়ি থেকে বের হয়ে চিৎকার করলে ওই মহল্লার কয়েকজন নারী তাকে উদ্ধার করেন। তার পরিবারের সদস্যরা রাত ১০টার দিকে তাকে স্থানীয় একটি ক্লিনিকে চিকিৎসা দেয়া হয়। রাতেই তাকে বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়। ৩০ জুন দুপুরে জাজিরা থানায় মাসুদের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা দায়ের করেন ওই ছাত্রী।

৭ জুলাই তার জামিনের আবেদন করা হয় শরীয়তপুর জেলা আমলি আদালতে। এ সময় রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী সাতদিনের রিমান্ড চেয়ে আবেদন করলে আমলি আদালতের বিচারক মোহাম্মদ নেজাম উদ্দিন জামিন ও রিমান্ড আবেদন নামঞ্জুর করেন।

আসামিপক্ষের আইনজীবী জয়নব আক্তার ইতি পরের দিন জেলা ও দায়রা জজ আদালতে মিস আপিল করেন। তিনি ওই দিনই আরেক আবেদনে আসামির জামিন প্রার্থনা করে। জেলা ও দায়রা জজের দায়িত্বে থাকা অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ মরিয়ম মুন মঞ্জুরি জামিন মঞ্জুর করে আসামিকে কারাগার থেকে মুক্তি দেয়ার আদেশ দেন।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী (পিপি) মির্জা হযরত আলী বলেন, আমি রাষ্ট্র পক্ষের প্রসিকিউটর হিসেবে আসামিকে জামিন দেয়ার বিরোধিতা করেছি। কিন্তু আদালত তা আমলে নেয়নি। আদালতের কাছে রাষ্ট্রপক্ষ অসহায় হয়ে পড়েছে।

১১জুলাই বৃহস্পতিবার হাজির হতে আসলে আসামীর আগের অনৈতিকভাবে দেয়া জামিন না মঞ্জুর করে জেলা জজ সাহেব কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দেন। মরিয়ম মুন মঞ্জুরীর সাসপেন্ডের বিষয়ে তিনি বলেন, এখনো এবিষয়ে আমি বেশি কিছু জানিনা তবে অনেকের মূখেই বিষয়টি শুনেছি।

দেখা হয়েছে: 84
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।