|

শিক্ষকের বিদ্যাব্রতী মানসিকতা ও পাঠদান পদ্ধতি: শরীফুল্লাহ মুক্তি

প্রকাশিতঃ ৫:৪৪ অপরাহ্ন | সেপ্টেম্বর ৩০, ২০১৮

শিক্ষকের বিদ্যাব্রতী মানসিকতা ও পাঠদান পদ্ধতি শরীফুল্লাহ মুক্তি

জীবন, সমাজ, সংস্কৃতি, প্রযুক্তি, আর্থ-সামাজিক অবস্থা পরিবর্তনের সাথে সাথে শিক্ষার বিষয়বস্তু ও শিক্ষাদান পদ্ধতিরও পরিবর্তন ঘটে। তাই একজন আদর্শ শিক্ষককে সময়ের পরিবর্তনের সাথে সাথে আধুনিক/নবতর শিক্ষা-ধারণা ও শিখন-শেখানো পদ্ধতি সম্পর্কে অবহিত থাকা প্রয়োজন। বিভিন্ন পদ্ধতি ও কৌশল অবলম্বন করে শিক্ষাদান করলে শিক্ষাদান ও শিক্ষাগ্রহণ উভয়ই সহজতর ও হৃদয়গ্রাহী হয়। হৃদয়গ্রাহী শিক্ষা আনন্দদায়ক ও দীর্ঘ সময় স্মৃতিতে জমা থাকে। তাই শিক্ষাবিদরা তথা শিক্ষা-বিশেষজ্ঞগণ বিভিন্ন শিখন-শেখানো পদ্ধতি ও কৌশল উদ্ভাবন করেছেন। আধুনিক শিক্ষা-ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে শিক্ষাদান পদ্ধতি/কৌশল অনুসরণে পাঠদানের গুরুত্ব অত্যন্ত ব্যাপক।

শিক্ষার বিষয়বস্তু ও শিক্ষার্থীর মধ্যে যোগসূত্র বা বন্ধন সৃষ্টি করার নাম শিক্ষণ/শিক্ষাদান/শেখানো। আর যে প্রক্রিয়া বা কৌশল প্রয়োগ করে শিক্ষাদানের এ দুরূহ কাজটি সম্পন্ন করা হয় তাকে বলে শিক্ষণ-শিখন পদ্ধতি/শিখন-শেখানো পদ্ধতি। পদ্ধতি শিক্ষার্থীকে সহজ ও কার্যকরভাবে শিখনে পথ-নির্দেশনা প্রাপ্তিতে সহায়তা দেয়। শিখন উদ্দেশ্য অর্জন, বিষয়বস্তুকে সহজ ও গ্রহণযোগ্যভাবে উপস্থাপনের জন্য যে সমস্ত পথ বা উপায় বা পন্থার আশ্রয় নেয়া হয় সেগুলোকে পদ্ধতি বলা হয়। শিখন-শেখানো পদ্ধতি প্রয়োগের জন্য কিছু কিছু বিশেষ পথ বা পন্থা বা উপায়ের আশ্রয় নেয়া হয়, সেগুলোকে শিখন-শেখানো কৌশল বলা হয়। এক কথায় বলতে গেলে পদ্ধতি হলো কোনো পাঠে সামগ্রিকভাবে ব্যবহৃত উপায়, আর কৌশল হলো পদ্ধতির সার্থক প্রয়োগে গৃহীত বিভিন্ন কর্মকা-। আর এসব পদ্ধতি ও কৌশলের সুবিন্যস্ত প্রয়োগ শিখন-শেখানো কার্যক্রমকে ফলপ্রসূ ও সার্থক করতে সাহায্য করে। কখনও কখনও পদ্ধতি কৌশল ও কৌশল পদ্ধতি হিসেবে ব্যবহৃত হতে পারে।

পদ্ধতি-মাফিক পাঠদান করলে পাঠ গ্রহণের প্রতি শিক্ষার্থীদের আগ্রহ ও প্রবণতা বৃদ্ধি পায়। কার্যকর ও ফলপ্রসূ পদ্ধতি ব্যবহার করলে শিক্ষার্থীরা স্ব-প্রণোদিত হয়ে শিখনে অংশগ্রহণ করে। ফলে শিক্ষার্থীরা নিজে নিজেই কাজ করতে শেখে। অর্থাৎ তাদের মাঝে স্বয়ংশিক্ষার প্রবণতা বৃদ্ধি পায়। এতে খুব সহজেই শিক্ষার্থীরা শিক্ষণীয় বিষয়বস্তু আয়ত্ত করতে পারে। শিক্ষার্থীরা হাতে-কলমে কাজ করে আনন্দঘন পরিবেশে শিক্ষাগ্রহণ করায় তাদের একঘেঁয়েমি দূর হয় এবং শিক্ষার্থীর শিখন স্থায়ী হয়। উপযুক্ত পদ্ধতি ব্যবহারে শিক্ষকের কাজ/পাঠ-উপস্থাপন অনেক সহজ হয়ে যায়। ফলপ্রসূ পদ্ধতি/কৌশল ব্যবহারে শিক্ষার্থীরা সহজেই শিখনফল অর্জন করতে পারে বলে শিক্ষক-শিক্ষার্থীর মধ্যে সৌহার্দ্যপূর্ণ মনোভাব সৃষ্টি হয়। শিক্ষাদানের ক্ষেত্রে আধুনিক যুগেই যে কেবল শিক্ষাদান পদ্ধতি ও কৌশল অনুসরণ করা হচ্ছে তা নয়, সুদূর অতীতেও যখন টোল, মক্তব বা পূজাম-পে গুরু তাঁর শিষ্যকে শিক্ষা দিতেন তখনও বিভিন্ন শিক্ষাদান পদ্ধতি ও কৌশল অনুসরণ করা হতো। তবে বর্তমানে শিখন-শেখানোর ক্ষেত্রে শিক্ষাদান পদ্ধতির কৌশলগত ধ্যান-ধারণার উন্নয়ন হয়েছে মাত্র।

সচরাচর দেখা যায়, অনেক অনভিজ্ঞ শিক্ষক শ্রেণিকক্ষে কেবল বক্তৃতা পদ্ধতি ব্যবহার করেন। যদিও বক্তৃৃতা পদ্ধতির কিছু সুবিধা আছে, তবে এর অনেকগুলো অসুবিধাও রয়েছে। আর একই পদ্ধতি বারবার ব্যবহারের ফলে শ্রেণিকক্ষে একঘেঁয়েমি সৃষ্টি হয়। আবার কোনো শিক্ষাদান পদ্ধতিকে এককভাবে শ্রেষ্ঠ বলার উপায় নেই। দক্ষ শিক্ষকমাত্রই যেখানে যে পদ্ধতি/কৌশল প্রয়োগ করা প্রয়োজন তিনি তাঁর অভিজ্ঞতার আলোকে তা নির্ধারণ করে পাঠদান করেন। স্বাদে বৈচিত্র্য আনা এবং শিখন-পরিবেশকে প্রাণবন্ত ও আনন্দঘন করার জন্য শিখন-শেখানোর ক্ষেত্রে নতুন নতুন পদ্ধতি ও কৌশল প্রয়োগের কোনো বিকল্প নেই। তাছাড়া একই শ্রেণিতে সকল শিক্ষার্থীর মেধা ও মনন এক রকম নয়; পাঠগত অবস্থানও ভিন্ন ভিন্ন। মানসম্মত ও একীভূত শিক্ষা নিশ্চিত করতে হলে প্রথমে আমাদের প্রয়োজন শ্রেণিকক্ষে শিখন-শেখানোর মান উন্নততরকরণ। আর এজন্য দরকার শিখন-শেখানো পদ্ধতি ও কৌশলসমূহ সম্পর্কে অভিজ্ঞ ও যোগ্যতাসম্পন্ন শিক্ষক। একটি পাঠদান কার্যক্রমকে সফল করে তোলার জন্য শিখন-শেখানো পদ্ধতি নির্বাচন করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। তাছাড়া সব বিষয় পাঠদানের ক্ষেত্রে সব শিখন-শেখানো পদ্ধতি ও কৌশল সমান কার্যকর ও ফলপ্রসূ নয়। তাই বিভিন্ন শিখন-শেখানো পদ্ধতি ও কৌশল সম্পর্কে একজন শিক্ষকের পরিপূর্ণ জ্ঞান ও দক্ষতা থাকা আবশ্যক।

শিক্ষণের মূল দায়িত্বটি বর্তায় শিক্ষকের উপর। এখন প্রশ্ন হলো শিক্ষক কী পদ্ধতি ও কৌশল অনুসরণ করে শিক্ষার্থীকে শেখাবেন। শিক্ষকের কাজ হলো পাঠের বিষয়বস্তু বোধগম্য ও আকর্ষণীয় করে শিক্ষার্থীর সামনে উপস্থাপন করা। কিন্তু এ কাজটি বড় জটিল। কেননা শিশু নিজে থেকেই শেখে, তাকে কেউ শেখাতে পারে না। শিশুর এ শেখার কাজে শিক্ষকের ভূমিকা হলো শিশুর শেখার জন্য উপযুক্ত পরিবেশ সৃষ্টি করা এবং শেখার জন্য প্রয়োজনীয় সহযোগিতা প্রদান করা। এ কাজে শিক্ষক হবেন শিশুর উত্তম বন্ধু ও কুশলী পরিচালক।

শিক্ষককে জানতে হবে শিশুরা কীভাবে শেখে। আমরা জানি, সব শিশু একভাবে শেখে না, আবার সব শিশুর বুদ্ধিমত্তাও একরকম নয়। শিশুরা নানা কৌশল অবলম্বন করে শেখে, শিশুভেদে শিখনের ধরন ও প্রকৃতিও ভিন্ন। শিশুরা কীভাবে শেখে ও কতটুকু মনে রাখতে পারে তার ওপর গবেষণার মাধ্যমে দেখা গেছে শিশুরা স্বাদের মাধ্যমে শেখে ১%, স্পর্শের মাধ্যমে শেখে ১.৫%, গন্ধের মাধ্যমে শেখে ৩.৫%, শোনার মাধ্যমে শেখে ১১%, দেখার মাধ্যমে শেখে ৮৩%।

শিখন-শেখানো কার্যাবলী কার্যকর ও ফলপ্রসূভাবে সম্পাদনের লক্ষ্যে শিক্ষকগণ বিভিন্ন ধরনের পদ্ধতি ও কৌশল ব্যবহার করে থাকেন। শিক্ষার্থীর দক্ষতা ও যোগ্যতা অর্জন করানোর লক্ষ্যে লাগসই পদ্ধতি ও কৌশল প্রয়োগ শিক্ষকের জন্য অপরিহার্য। কার্যকর পদ্ধতি ও কৌশল অনুসরণ শিখন-শেখানো কার্যক্রমকে সহজ, সাবলীল ও প্রাণবন্ত করে তোলে। শিখন-শেখানো প্রক্রিয়ার মুখ্য উদ্দেশ্য হলো শিক্ষার্থীর সার্বিক বিকাশে সহায়তা করা। শিক্ষার্থীর বয়স, মেধা, যোগ্যতা, সামর্থ্য, চাহিদা, মনোবল, আবেগ, কৌতুহল ইত্যাদির ওপর বিশেষ গুরুত্ব দিয়েই শিক্ষণীয় বিষয়বস্তু নির্বাচন এবং যথাযথ শিক্ষাদানের ব্যবস্থা করতে হয়। এ-জন্যই শিক্ষককে কতগুলো স্তর অতিক্রম করে যেতে হয়। যেমনÑ শিখন-শেখানোর জন্য পূর্বপ্রস্তুতি গ্রহণ, পাঠের বিষয়বস্তু যথাযথভাবে শ্রেণিতে উপস্থাপন, পাঠ চলাকালীন ও পাঠ শেষে মূল্যায়নের ব্যবস্থা করা ইত্যাদি।

শিক্ষা মনোবিজ্ঞানীদের দৃষ্টিভঙ্গি ও তত্ত্বের আলোকে শিশুর শিখন-প্রক্রিয়ায় শিখন-শেখানো বিভিন্ন পদ্ধতির ভিত্তি গড়ে উঠেছে। শিশু-শিখনে এই শিখন-শেখানো পদ্ধতিগুলো খুবই গুরুত্ব বহন করে। শিক্ষা মনোবিজ্ঞানীদের তত্ত্ব ও তথ্যের আলোকে কোন্ শিখন পরিবেশে কোন্ শিখন পদ্ধতি অধিক উপযোগী ও কার্যকর তারও একটি নির্দেশনা পাওয়া যায়। শিক্ষার্থীদের জ্ঞানের জগতের সাথে যোগাযোগ ঘটাতে হলে শিক্ষককে পরিকল্পিতভাবে বিভিন্ন ধরনের শিখন-শেখানো পদ্ধতি ও কৌশল ব্যবহার করতে হয়। শিখন-শেখানো পদ্ধতির ব্যবহারিক দিক বিবেচনায় পাঠ উপস্থাপন পদ্ধতিকে প্রধানত দুই ভাগে ভাগ করা যায়; যথা- শিশু/শিক্ষার্থীকেন্দ্রিক পদ্ধতি (Child/Learner Centered Method) ও শিক্ষককেন্দ্রিক পদ্ধতি (Teacher Centered Method)

আধুনিক শিক্ষাব্যবস্থায় শিশুকেন্দ্রিক বা শিক্ষার্থীকেন্দ্রিক পদ্ধতিকেই অধিক গ্রহণযোগ্য মনে করা হয়। এ পদ্ধতিতে শিখনের ক্ষেত্রে শিশুরাই প্রাধান্য পেয়ে থাকে। শিশুর জীবনকে কেন্দ্র করেই শিক্ষার আদর্শ গড়ে উঠেছে। এ পদ্ধতিতে শিশুর গ্রহণ-ক্ষমতা, চাহিদা, প্রবণতা ইত্যাদিকে বিশেষ গুরুত্ব দেয়া হয়। শিশুর স্বাভাবিক আগ্রহ বা ক্রমবিকাশের পথে কোনো বাধা সৃষ্টি করা হয় না। এখানে শৃঙ্খলা ও শিশুর স্বাধীনতার সমন্বয় ঘটে। অর্থাৎ শিশুর অন্তর থেকে স্বতঃস্ফূর্তভাবে স্বাধীনতার উন্মোচনই শিশুকেন্দ্রিক পদ্ধতির উদ্দেশ্য। কঠোর শাসনের মাধ্যমে এখানে শিশুর ওপর শৃঙ্খলা আরোপ হয় না। শিশুকেন্দ্রিক পদ্ধতিতে শিক্ষা হবে শিশুর অভিজ্ঞতাকেন্দ্রিক। শিশু যে পরিবেশে শিক্ষা লাভ করবে সে পরিবেশও শিশুর শিক্ষার উপাদান।

মূলত বাস্তব জগৎ ও সমাজ জীবনের বিশেষ বিশেষ অভিজ্ঞতার সাথে শিশু পরিচিত হবে এবং এভাবে ব্যক্তিত্ব বিকাশের সঙ্গে সঙ্গে শিশু সমাজধর্মী হয়ে উঠবে। শিশুকেন্দ্রিক শিক্ষা হলো কর্মভিত্তিক। এ পদ্ধতিতে শিশু কাজের মধ্য দিয়ে অভিজ্ঞতা লাভ করে যা তার পরবর্তী কর্মজীবনে প্রয়োগ করতে সক্ষম হয়। শিশুকেন্দ্রিক শিক্ষা সব সময় শিশুর চাহিদা-কেন্দ্রিক; শিক্ষার্থীকে নিজ নিজ চাহিদা, আগ্রহ, প্রবণতা ও ক্ষমতা অনুযায়ী শিক্ষা দেয়া হয়। এ পদ্ধতির শিক্ষা জীবনায়নভিত্তিক এবং শিশুর জীবনের সামগ্রিক বিকাশের ওপর গুরুত্ব আরোপ করে। শিশুর দৈহিক, মানসিক, পরিবেশগত এবং বংশগত প্রভাবকে বিবেচনা করে শিশুর ব্যক্তিত্বের সমগ্রসত্তার বিকাশ সাধন শিশুকেন্দ্রিক শিক্ষার উদ্দেশ্য।

শিশুকেন্দ্রিক শিক্ষায় শিক্ষক আজ আর জ্ঞানদাতা বলে স্বীকৃত নন। শিক্ষক এখন শিশুর সহায়ক, বন্ধু এবং পথপ্রদর্শক মাত্র। শিক্ষার্থী শিক্ষকের নীরব শ্রোতা নয়। শিক্ষকের সামনে সে উপস্থিত হয় তার জিজ্ঞাসু মন ও সমস্যা নিয়ে। শিশুকেন্দ্রিক শিক্ষায় শিক্ষক ও শিক্ষার্থীর সম্পর্ক খুবই মধুর। এ পদ্ধতিতে শিশুর সৃজনমূলক প্রচেষ্টা গুরুত্ব পায়; সৃজনশীল বিভিন্ন কাজের মাধ্যমে শিশুর সৃজনশীল প্রতিভার বিকাশ ঘটানো হয়। শিশুকেন্দ্রিক শিক্ষায় শিশু-শিক্ষার উপযোগী পরিবেশ তৈরি এবং পরিকল্পনা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে শিক্ষক, অভিভাবক ও জনসাধারণকে শিক্ষার সঙ্গে সম্পৃক্ত করা হয়। সকলের সঙ্গে যোগাযোগ ও পারস্পরিক সহযোগিতার মাধ্যমে শিশু-শিক্ষার উপযোগী পরিবেশ নিশ্চিত ও শিক্ষা পরিকল্পনার সফল বাস্তবায়ন এ পদ্ধতির মাধ্যমে সহজতর হয়।

আদর্শ শিখন-শেখানো প্রক্রিয়ায় শিশুকেন্দ্রিক যে সকল পদ্ধতিগুলো সাধারণত অনুসরণ করা যায় সেগুলো হলো: পরীক্ষামূলক/পরীক্ষণ পদ্ধতি (Experimental Method), প্রকল্প/প্রজেক্ট পদ্ধতি  (Project Method), প্রশ্নোত্তর পদ্ধতি (Question and Answer Method), পর্যবেক্ষণ পদ্ধতি (Observation Method), আবিস্ক্রিয়া পদ্ধতি (Heuristic Method),  বহুমুখী শিখন-শেখানো পদ্ধতি (Multiple Ways of Teaching and Learning – MWTL), আলোচনা পদ্ধতি (Discussion Method), ভূমিকা-অভিনয় পদ্ধতি (Role Play), ব্রেইন স্টর্মিং পদ্ধতি (Brain Storming), দলগত শিখন পদ্ধতি (Group Learning/Small Group Discussion), হামদল পদ্ধতি (Hum Group), খেলার মাধ্যমে শিখন  (Play with Game), পাঠচক্র, চর্চা ইত্যাদি।

ইংরেজিতে প্রবাদ আছে, No system of education is better than it’s teachers.’ অথবা Teacher’s method is the best method’

অর্থাৎ কোনো শিক্ষাদান পদ্ধতি স্বয়ং শিক্ষক অপেক্ষা শ্রেষ্ঠ হতে পারে না। কথাগুলো শতভাগ সত্য বলেই অনুমিত হয়। কারণ শিক্ষক যদি শিখন-শেখানো কার্যক্রমের জন্য উপযুক্ত পদ্ধতি ও কৌশল নির্বাচনে ব্যর্থ হন, অথবা উপযুক্ত পদ্ধতি নির্বাচন করেও যথাযথভাবে প্রয়োগে ব্যর্থ হন, তাহলে শিখন-শেখানো কার্যক্রম সার্থক ও কার্যকরভাবে করা সম্ভব হবে না। কাজেই শিক্ষক যদি পাঠদানের সকল পদ্ধতি/কৌশল জানেন এবং এগুলোর প্রয়োগকৌশল ভালোভাবে জেনে উপযুক্ত পদ্ধতি ও কৌশল নির্বাচন করে তা যথাযথভাবে প্রয়োগ করতে পারেন, তবেই শিখন-শেখানো কার্যক্রমের উদ্দেশ্য অর্জন সম্ভব হবে। তার পূর্বে শিক্ষকের অবশ্যই প্রয়োজনীয় সবগুলো শিখন-শেখানো পদ্ধতি ও কৌশল সম্পর্কে পরিপূর্ণ ধারণা থাকতে হবে। শ্রেণিকক্ষে উপযুক্ত পদ্ধতি ও কৌশল ব্যবহার করে শিখন-শেখানো কার্যক্রম পরিচালনা নিশ্চিতকল্পে কিছু বিশেষ দিকের প্রতি নজর দেয়া যেতে পারে।

শ্রেণিকক্ষে উপযুক্ত পদ্ধতি ও কৌশল ব্যবহার করে শিখন-শেখানো কার্যক্রম পরিচালনা নির্ভর করে শিক্ষকদের সচেতনতা ও আন্তরিকতার ওপর। শিক্ষকদের ইতিবাচক মনোভাব, আন্তরিকতা ও পেশাদারিত্বের দৃষ্টিভঙ্গি ছাড়া শ্রেণিকক্ষে যথাযথ পদ্ধতি ও কৌশল ব্যবহার নিশ্চিত করা সম্ভব নয়। বিগত কয়েক বছরে উপজেলা রিসোর্স সেন্টারে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের প্রচুর পরিমাণে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে। স্বল্পমেয়াদী প্রশিক্ষণের মাধ্যমে প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে বিষয়ভিত্তিক শিক্ষক তৈরি করা হয়েছে। এসব প্রশিক্ষণে শিখন-শেখানোর বিভিন্ন পদ্ধতি ও কৌশল নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয় এবং বিভিন্ন ধরনের প্রদর্শনী পাঠের আয়োজন করা হয়। বর্তমানে এ বিষয়ে শিক্ষকগণ বেশ অভিজ্ঞ ও সমৃদ্ধ বটে। কিন্তু দুঃখের বিষয় হলো, বিভিন্ন প্রশিক্ষণে বা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ কর্তৃক বিদ্যালয়ে শিখন-শেখানো কার্যাবলী পর্যবেক্ষণের সময় শিক্ষকগণ অনেক চমৎকারভাবে উপযুক্ত শিখন-শেখানো পদ্ধতি ও কৌশল ব্যবহার করে শ্রেণি-কার্যক্রম পরিচালনা করলেও ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুপস্থিতিতে কর্মক্ষেত্রে খুব অল্প সংখ্যকই তা করেন। বেশিরভাগ শিক্ষকই শ্রেণিকক্ষে উপযুক্ত পদ্ধতি ও কৌশল ব্যবহার করেন না। প্রশিক্ষণলব্ধ জ্ঞান ও দক্ষতা শ্রেণিকক্ষে বাস্তবায়নের জন্য শিক্ষকদের উদ্বুদ্ধকরণের বিষয়টি বিশেষ জরুরি।

শ্রেণিকক্ষে পাঠ-পরিকল্পনাসহ ফলপ্রসূ পাঠদান নিশ্চিতকরণে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি হলেন প্রধান শিক্ষক। তাঁর আন্তরিকতা ও প্রচেষ্টা ছাড়া শ্রেণিকক্ষে উপযুক্ত শিখন-শেখানো পদ্ধতি ও কৌশল ব্যবহার নিশ্চিত করা সম্ভব নয়। প্রধান শিক্ষককে বিষয়টি সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে দেখতে হবে। তিনি নিজে উপযুক্ত শিখন-শেখানো পদ্ধতি ও কৌশল ব্যবহার করে প্রতিদিন অন্তত দুই/তিনটি ক্লাস নেবেন এবং সকল সহকারী শিক্ষককে এ ব্যাপারে উদ্বুদ্ধ করবেন। অনেক সহকারী শিক্ষক উপযুক্ত শিখন-শেখানো পদ্ধতি ও কৌশল নির্বাচন করে পূর্ব-প্রস্তুতি নিয়ে শ্রেণি-কার্যক্রম পরিচালনায় আন্তরিক নন। তাঁরা এটাকে অতিরিক্ত ঝামেলা মনে করেন। এক্ষেত্রে প্রধান শিক্ষক প্রথম প্রথম সহকারী শিক্ষকগণকে অন্তত দুই/তিনটি ক্লাস আদর্শভাবে নেয়ার জন্য উদ্বুদ্ধ করবেন এবং পরবর্তী সময়ে তা নিশ্চিত করবেন। যখন সহকারী শিক্ষকগণ উপযুক্ত শিখন-শেখানো পদ্ধতি ও কৌশল ব্যবহারের সুফল উপলব্ধি করতে পারবেন তখন তাঁরা স্বপ্রণোদিত হয়ে পাঠ-পরিকল্পনা ও উপযুক্ত পদ্ধতি/কৌশল ব্যবহার করে শিখন-শেখানো কার্যক্রম পরিচালনা করবেন।

প্রধান শিক্ষক নিয়মিত সহকারী শিক্ষকদের একাডেমিক সুপারভিশন করবেন। একাডেমিক সুপারভিশন-পরবর্তী ফিডব্যাক প্রদানের সময় উপযুক্ত শিখন-শেখানো পদ্ধতি/কৌশলসমূহ এবং এগুলো ব্যবহারের গুরুত্ব নিয়ে আলোচনা করবেন। নিয়মিত শিক্ষকদের পেশাগত উন্নয়ন সভা/পাক্ষিক সভার আয়োজন করবেন এবং সভায় কার্যকর ও ফলপ্রসূ শিখন-শেখানো পদ্ধতি/কৌশলসমূহ নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করবেন। তাছাড়া শিক্ষকগণের পেশাগত দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য প্রধান শিক্ষক বিদ্যালয়ে সব সময় মেন্টরিং ও পাঠ-সমীক্ষা (Lesson Study) কার্যক্রম চালু রাখবেন।

উপজেলা পর্যায়ে উপজেলা রিসোর্স সেন্টারে (ইউআরসি) শিখন-শেখানো পদ্ধতি/কৌশল এবং পদ্ধতি বিষয়ক বিজ্ঞান বা বিদ্যার উপর প্রশিক্ষণের (Training on teaching-learning methods and methodologoies) আয়োজন করা এবং প্রশিক্ষণ পরবর্তী প্রশিক্ষণলব্ধ জ্ঞান ব্যবহারের জন্য উদ্বুদ্ধকরণের ব্যবস্থা রাখা। প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকগণের মাসিক সমন্বয় সভায় উপজেলা/থানা শিক্ষা কর্মকর্তা ও সহকারী উপজেলা/থানা শিক্ষা কর্মকর্তাগণ প্রধান শিক্ষকদের একাডেমিক সুপারভিশনের জন্য জোর তাগিদ দেবেন। ইউআরসি ইন্সট্রাক্টরের নেতৃত্বে প্রতি দুই মাস অন্তর অন্তর ক্লাস্টার পর্যায়ে এ বিষয়ে আলোচনার জন্য বসা যেতে পারে। সহকারী উপজেলা/থানা শিক্ষা কর্মকর্তাগণ নিয়মিত নিজ নিজ ক্লাস্টারের বিদ্যালয়গুলোতে ধারাবাহিকভাবে একাডেমিক সুপারভিশন করবেন। তাছাড়া প্রতি তিন মাস অন্তর অন্তর ক্লাস্টার পর্যায়ে ভালো শিক্ষকদের পুরস্কৃত করা যেতে পারে।

বিভিন্ন পর্যায়ের পরিদর্শনকারী কর্মকর্তাগণ বিদ্যালয় পরিদর্শনকালে উপযুক্ত শিখন-শেখানো পদ্ধতি ও কৌশল ব্যবহারের বিষয়টি মনিটরিং করবেন এবং তা ব্যবহার নিশ্চিত করার জন্য জোর তাগিদ দেবেন। তাছাড়া সাব-ক্লাস্টার/ক্লাস্টার/উপজেলা পর্যায়ে বিভিন্ন পর্যায়ের পরিদর্শনকারী কর্মকর্তাগণের সমন্বয়ে দলীয়-পরিদর্শন/টীম-ভিজিট করা যেতে পারে। এ ধরনের পরিদর্শন খুবই ফলপ্রসূ এবং মাঠ পর্যায়ে ব্যাপক প্রভাব ফেলে।

প্রত্যেক ব্যক্তিই তাঁর কর্মের যথাযথ মূল্যায়নে আত্মতৃপ্তি লাভ করে। কর্মজীবনে ভালো কাজের স্বীকৃতি বা পুরস্কার কাজের পরিমাণগত ও গুণগত মানকে বহুগুণে বাড়িয়ে দেয়। কাজেই বছর শেষে মূল্যায়ন করে শ্রেষ্ঠ শিক্ষক-শিক্ষিকাকে বিশেষ সম্মাননা বা আর্থিক প্রণোদনা দেয়া যেতে পারে। যেমনÑ উচ্চতর প্রশিক্ষণ গ্রহণের সুযোগ, বিদেশ ভ্রমণের সুযোগ, একটি অতিরিক্ত বেতন বৃদ্ধি, বিশেষ বর্ধিত বেতন ইত্যাদি।

শিক্ষকতা চাকরি নয়- এটি একটি পেশা। আবার এই পেশা অন্য অনেক পেশার থেকে আলাদা। টাকার অংকে এই পেশাকে হিসেব করা যাবে না। এই পেশায় জীবিকা নির্বাহ ছাড়াও মানবসেবার সুযোগ রয়েছে, ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য কাজ করার সুযোগ রয়েছে। শিক্ষকতা একটি মহান ব্রত- এই পেশায় দেশ ও জাতি গঠনের কাজে নিজেকে উৎসর্গ করা যায়। অনেক পেশায় এ ধরনের মহৎ কাজের সুযোগ থাকে না। শিক্ষক একজন বিদ্যাব্রতী ও মূল্যবোধসম্পন্ন পেশাজীবী। শিক্ষকদের মনে রাখা প্রয়োজন, উপযুক্ত পদ্ধতি ও কৌশলসহ পাঠদান করা একজন শিক্ষকের নৈতিক দায়িত্ব। প্রাথমিক স্তরের যোগ্যতাভিত্তিক শিক্ষাক্রমের সফল বাস্তবায়নের জন্য একজন শিক্ষক যখন তাঁর পেশায় প্রয়োজনীয় জ্ঞান, দক্ষতা ও ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গির সমন্বয় ঘটিয়ে তাঁর দায়িত্ব পালন করতে সক্ষম হবেন এবং উপযুক্ত ও কার্যকর পদ্ধতি/কৌশল প্রয়োগের ক্ষমতা রেখে শিক্ষাদান করতে পারবেন, কেবলমাত্র তখনই তিনি যোগ্য শিক্ষক হিসেবে বিবেচিত হবেন। শিক্ষক যদি উপযুক্ত পদ্ধতি ও কৌশল ব্যবহার করতে না পারেন তবে শিক্ষার্থীরাই একসময় তাঁর প্রতি আকর্ষণ হারাবে এতে কোনো সন্দেহ নেই। সে সন্দেহ থেকে নিজেকে মুক্ত রাখার জন্য প্রত্যেক শিক্ষকেরই তাই আদর্শ বিদ্যাব্রতী শিক্ষক হিসেবে গড়ে উঠতে হবে।

 

লেখক:
শরীফুল্লাহ মুক্তি, ইন্সট্রাক্টর,

উপজেলা রিসোর্স সেন্টার (ইউআরসি),

বারহাট্টা, নেত্রকোণা।

দেখা হয়েছে: 399
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।