|

সিরাজদিখান থানায় পাঁচ সাংবাদিকের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজীর অভিযোগ

প্রকাশিতঃ 9:15 pm | April 10, 2019

সিরাজদিখান থানায় পাঁচ সাংবাদিকের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজীর অভিযোগ

সিরাজদিখান (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানে বিভিন্ন পত্রিকায় কর্মরত পাঁচ সাংবাদিকের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজীর অভিযোগে থানায় অভিযোগ হয়েছে। গত ৪ এপ্রিল তাদের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজীর অভিযোগ এনে সিরাজদিখান থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন উপজেলার বয়রাগাদী গ্রামের আফজাল শেখের পুত্র মেহেদী হাসান (২০)।

তিনি তার অভিযোগে উল্লেখ করেন, বিভিন্ন পত্রিকায় কর্মরত সাংবাদিক জাবেদুর রহমান যোবায়ের, মোঃ নাছির উদ্দিন, আব্দুল্লাহ আল মাসুদ, হামিদুল ইসলাম লিংকন, জাহাঙ্গীল আলম চমক গত ০২/০৪/২০১৯ ইং তারিখ বেলা অনুমান ১২টার দিকে মেহেদী হাসানের দোকানে গিয়া সাংবাদিক পরিচয় দিয়া বলে তোমার নামে খারাপ অভিযোগ আছে তোমাদের বাড়ীতে চলো।

মেহেদী হাসান তাদের পাঁচজনকে তার বাড়ীতে নিয়া গেলে মেহেদী হাসানের মা বাবা চাচা ও চাচীকে ডাকতে বলে। মেহেদী হাসানের ডাকে বাড়ীর সকলে একত্রিত হলে মেহেদী হাসান ওই পাঁচ সাংবাদিককে তার বিরুদ্ধে অভিযোগের বিষয়ে জিজ্ঞাসা করিলে, সাংবাদিকরা তার চাচী মিনারা আক্তার (২৫) এর সাথে মেহেদী হাসানের অবৈধ সম্পর্কের কথা জানায়।

মেহেদী হাসান সাংবাদিকদের মিথ্যা অভিযোগের প্রতিবাদ করলে মেহেদী হাসানের বিরুদ্ধে বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ করবে বলে মেহেদী হাসানকে হুমকি প্রদান করে। সাংবাদিকদের মিথ্যা অভিযোগের কথা মেহেদী হাসানের চাচী শুনিয়া লজ্জায় একাধীকবার বিষপান করিয়া আত্মহত্যা চেষ্টা করে। এক পর্যায়ে নাছির বেপারী সাংবাদিক পরিচয় দিয়া বলে তারা সাংবাদিক।

এবিষয়ে থানা পুলিশ করে কোন লাভ হবে না। তাদেরকে ২০/২৫ হাজার টাকা দিলে তারা মেহেদী হাসানের নামে অভিযোগ প্রত্যাহার করে নেবে এবং কোন পত্রপত্রিকায় নিউজ প্রকাশ করা হবে না।

উক্ত সাংবাদিক এহেন ঘটনা সৃষ্টি করে মেহেদী হাসানের পরিবারসহ চাচা চাচীর সামাজিক ভাবে হেয় প্রতিপন্ন ও সম্মান হানী হয় এবং মেহেদী হাসানের চাচী বাড়ী ছেড়ে চলে যেতে বাধ্য হয়। উক্ত ঘটনা যে পর্যন্ত সুষ্ঠ সমাধান না হয় সে পর্যন্ত মেহেদী হাসানের চাচী বাড়ীতে ফিরবে না এবং মেহেদী হাসানের চাচী যে কোন সময় আত্মহত্যা করিতে পারে।

ঘটনার বিষয় স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, চেয়ারম্যান মেম্বারদের সাথে আলোচনা করিয়া থানায় আসিয়া অভিযোগ দায়ের করেন। ওই পাঁচ সাংবাদিকের বিরুদ্ধে থানায় চাঁদাবাজীর অভিযোগ দায়ের হওয়ার পর সাংবাদিক নেতাদের থানায় গিয়ে বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করতেও দেখা গেছে। জনসাধারণ ধারণা করছেন সাংবাদিক নেতাদের তদ্বিরের কারণে অভিযুক্ত সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়নি পুলিশ।

সিরাজদিখান থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ ফরিদ উদ্দিন জানান, অভিযোগ পেয়েছি তদন্ত স্বাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।