|

শরিয়তপুরে ছেলেকে বাঁচাতে সাংবাদিক বাবার ‍আকুতি

প্রকাশিতঃ 5:04 pm | April 10, 2019

মোঃ আল আমিন, বিশেষ প্রতিনিধিঃ মরণব্যাধী ক্যান্সারে ‍আক্রান্ত তিন বংসর সাত মাস বয়সী শিশু জান্নাতুল ইসলাম। তার বাবা স্থানীয় দৈনিক হুংকার পত্রিকার সাংবাদিক। দুই বংসর ধরে সন্তানের চিকিৎসার খরচ চালিয়ে ‍আজ তিনি সর্বস্বান্ত হয়ে গেছেন।

জিহাদুল ইসলাম শরিয়তপুর পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডের স্বর্ণঘোষ গ্রামের মোঃ ইয়াকুব বেপারী ও জান্নাতুন আক্ততারের এক মাত্র ছেলে জিহাদুল।

জিহাদুলের বাবা ইয়াকুব বেপারী জানান, জিহাদুল জন্মগ্রহনের পর ইপি আই টিকাদান কার্ডের( শিশু) মাধ্যমে বিসিজি, পেন্টা (ডিপিটি,হেপ-বি,হিব,) পিসিভি,ওপিভি,‍আইপিভি এম আর (হামও রুবেলা) ওহাম( ২য় ডোজ )টিকা গুলো দিতে যান শরিয়তপুর সদর উপজেলার চিতলিয়া ইউনিয়নের চিতলিয়া গ্রামের টিকা কেন্দ্রে( ছাত্তার হাওলাদারের বাড়ী) সেখানে ২০১৬সালের ২০ডিসেম্বর হাম (২য় ডোজ)শেষ টিকাটি ওই কেন্দ্রের এক স্বাস্থ্য সহকারী জিহাদুলের ডান রানে পুশ করার পর রান ফুলে যায়।

যন্ত্রণা হতে থাকলে ফের কেন্দ্রে নিয়ে গেলে বিশেষজ্ঞ ডাক্তার চিকিৎসকের কাছে নেয়ার পরামর্শ দেন স্বাস্থ্য সহকারী পরে জিহাদুলকে শরিয়তপুর সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা.মিজানুর রহমান, ডা.শামীম অাব্দুল্লাহকে দেখান। তারা জিহাদুলকে ঢাকা শিশু হাসপাতালে দেখানোর পরামর্শ দেন।

পরে জিহাদুলের বাবা ঢাকা শিশু হাসপাতাল,বঙ্গবন্ধু শেখ মজিব মেডিকেল কলেজ এবং পরে পঙ্গু হাসপাতালের চিকিৎসকদের দেখান সেখানে জিহাদুলের রানে ক্যান্সার ধরা পরে।

সর্বশেষ তাকে ধানমন্ডি ইবনে সিনা হাসপাতালে নেয়া হলে সেখানে বায়োপসি করা হয় বায়োপসি করানোর পর চিকিৎকরা বলেন রানে অপারেশন করলে ক্যান্সার পুরো শরীরে ছড়িয়ে পরবে।বাংলাদেশের চিকিৎকের পরামর্শে গত ১৩ জানুয়ারী জিহাদুলকে ভারতের ভেলর সিএমসি হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে ক্যান্সার বিশেষজ্ঞ ডাক্তার লেনি গ্রেইস ম্যাথিউ জিহাদুলের চিকিৎসা করেন।

তিনি জানান জিহাদুলকে চিকিৎসা করাতে হলে ভারত ১৫ মাস থাকতে হবে। এতে খরচ হবে প্রায় (১০ লাখ রুপি)এতে ৬০ ভাগ ভালো হতে পারে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। এখন জিহাদুলের বাবা ইয়াকুব বেপারী বলেন জিহাদুলের চিকিংসার জন্য প্রায় ১২ লাখ টাকা লাকবে যা মূল্য ( ১০লক্ষ রুপি) দরকার কিন্তুু এত টাকা কোথায় পাবো, তাই ছেলের চিকিৎসার ব্যয় চালিয়ে যেতে পারছি না। এমতাঅবস্থায় সন্তানের চিকিৎসার জন্য সবার কাছে সাহায্য কামনা করছি।

জিহাদুলের মা জান্নাতুন আক্তার বলেন টিকা দেয়ার কারণে জিহাদুলের রানে ক্যান্সার হয়েছে। যত দিন ঘরাচ্ছে জিহাদুলের রান তত ফুলে যাচ্ছে ছেলের রানসহ সারা শরীরে প্রচন্ড ব্যাথা। ব্যাথায় ছেলেটা আমার সারাক্ষণ কান্না করে ‍আমার ছেলের জন্য সবার কাছে দোয়া চাই। জিহাদুলের বিষয়ে কথা বলতে চাইলে কথা বলতে পারেন তার বাবার সাথে বাবা ইয়াকুব বেপারী সঙ্গে। মোবাইল ০১৯১৭৩৮৭০১০