|

সানজারি অপরাধী, নওশীন আমার যুদ্ধের কারণ নয়: মিলা

প্রকাশিতঃ ৯:৩৬ অপরাহ্ন | এপ্রিল ২৬, ২০১৯

সানজারি অপরাধী, নওশীন আমার যুদ্ধের কারণ নয়: মিলা

বিনোদন বার্তাঃ সংবাদমাধ্যম গুলোকে আমি অনুরোধ করব, আমার মূল ইস্যুটা ফোকাস করার জন্য। অপরাধী সানজারি। নওশীন আমার যুদ্ধের কারণ নয়। হ্যাঁ, এখন আমার মনে হচ্ছে, নওশীনের কথাটা আমি না বললেও পারতাম, কারণ তিনি একজন সেলিব্রেটি। তাই তাঁর নাম বলার কারণে সংবাদমাধ্যমগুলো আমার প্রধান সমস্যা থেকে সরে এসে নওশীনের কথা বলছে। তাঁকে নিয়েই হেডলাইন হচ্ছে।’ কথাগুলো এনটিভি অনলাইনকে বলেছেন সংগীতশিল্পী মিলা ইসলাম।

গত বুধবার বিকেলে ঢাকার বেইলি রোডের একটি রেস্তোরাঁয় সংবাদকর্মীদের কাছে সাবেক স্বামী পারভেজ সানজারি ও তাঁর পরিবারের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ তুলে ধরেন পপ গায়িকা মিলা। ওই সময় সাবেক স্বামীর সঙ্গে অভিনেত্রী নওশীনের সম্পর্কের কথা জানান তিনি।

মিলা জানান, পারভেজ সানজারির সঙ্গে অভিনেত্রী নওশীনের ‘ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক’ ছিল। এর যথেষ্ট প্রমাণও তাঁর কাছে আছে।

তবে মিলার এই অভিযোগ নাকচ করে দিয়েছেন নওশীন। এই অভিনেত্রী বলেন, ‘এই অভিযোগ ভিত্তিহীন। আমাকে ভুল বুঝেছে মিলা। মিলার সংসার ভাঙতে হলে তো আগে আমার সংসার ভাঙতে হবে। আমি ও হিল্লোল সুখে আছি। মিলার নামে সাইবার ক্রাইমেও আমি কোনো কিছু করিনি। আমি মিলার ভালো চাই। মিলার ব্যক্তিগত বিষয়ে আমাকে না জড়ানোর অনুরোধ করছি।’

নওশীনের এই মন্তব্যকে ঘিরে এনটিভি অনলাইনের সঙ্গে কথা হয় মিলার। এ বিষয়ে বিস্তারিত জানতে চাইলে মিলা বলেন, “দেখুন, আমার কাছে সমস্ত প্রমাণ আছে। আমি নওশীন সম্পর্কে মিথ্যা বলিনি। আর আমি তো শুধু নওশীনের কথা বলিনি।

তাসনুভা জাবিন, জেনিফার ও মালিহা সম্পর্কেও বলেছি। এখন যদি নওশীনের বিষয় নিয়ে আমি বেশি কথা বলতে শুরু করি, তাহলে আমাকে মূল জায়গা থেকে সরে আসতে হবে। সেটা আমি চাই না। এ জন্য আপাতত নওশীন সম্পর্কে আমি আর কিছু বলতে চাই না। আমি চাই আমার সাবেক স্বামীর বিচার। কারণ সে অসামাজিক কাজের সঙ্গে লিপ্ত। বিভিন্ন মেয়ের সঙ্গে তাঁর অনৈতিক সম্পর্ক। এত দিন সানজারির কোনো সহকর্মী তাঁর এসব ব্যাপারে মুখ খোলেননি।

প্রথমবারের মতো তাঁর সহকর্মী ব্লু-বার্ড এভিয়েশেনের পাইলট মির্জা মোশতাক আমার একটি পোস্টে লিখেছেন ‘সানজারি নারী আসক্ত’। যদিও তিনি এখন মন্তব্যটি ডিলেট করে দিয়েছেন। তারপরও আমার ভালো লেগেছে অবশেষে সানজারির সহকর্মীদের মধ্যে কেউ মুখ খুলেছেন। যাহোক আসল অপরাধী সানজারি। অন্য কাউকে এখানে জড়িয়ে আমি আমার মূল ইস্যু থেকে সরে আসতে চাই না।”

সংবাদ সম্মেলন করার পর থেকে বাসা থেকে বের হতে ভয় পাচ্ছেন বলে জানান মিলা। তিনি বলেন, ‘আমি এত দিন বাসা থেকে বের হতে ভয় পেতাম না। তবে এখন পাচ্ছি। জীবন অনিরাপত্তার মধ্যে রয়েছে, তবু আমি আমার যুদ্ধ চালিয়ে যাব। সানজারির উপযুক্ত বিচার আমি চাই।’

এদিকে, বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ২টা ২৩ মিনিটে মিলা তাঁর ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে ভিডিও লাইভে এসে নওশীন সম্পর্কে আরো খোলামেলা কথা বলেন।

মিলা বলেন, “মিথ্যা আমি পছন্দ করি না। নওশীন বলেছে, ‘মিলা কেন এমন বলছে আমি জানি না।’ আমি এ ধরনের কথা নওশীনকে বলতে না করব। নওশীনের সঙ্গে সানজারির যে কথা হয়েছিল, সেই প্রমাণ যদি মিডিয়া চায় তাহলে আমি দেব। নওশীনকে নিয়ে আমি সংবাদ সম্মেলন করিনি। নওশীন এখানে যা তা অন্য ১০টা মেয়েও তা।

আমি সংবাদমাধ্যম গুলোকে অনুরোধ করব, নওশীন প্রসঙ্গে হেডলাইন না করতে। সানজারি যখন জেল থেকে বের হয়েছে, তখন নওশীনের সঙ্গে তাঁর কথা হয়। আমি শুধু নওশীনকে বলব, তুমি যাই করছ, এটার জন্য লজ্জিত হও। নওশীন তুমি যদি চ্যালেঞ্জ করো, তাহলে আমি সব প্রমাণ দেব। তুমি আমাকে ছোট বোন বলছ, এটার কোনো গুরুত্ব আমার কাছে এখন নেই। নওশীন তুমি আমার সহকর্মী। আমার যুদ্ধ অন্য জায়গায়। এখন তুমি যদি চাও তাহলে সব প্রমাণ আমি বের করে দেব।

এই জায়গায় আমাকে নিয়ে যেও না, যাতে তোমার মানসম্মান নষ্ট হবে। আমার যুদ্ধ সানজারিকে নিয়ে। সে অনৈতিক কাজ করছে তাঁকে সমাজ থেকে বের করে দেওয়া উচিত। মিডিয়ার কাছে অনুরোধ, নওশীনকে জড়িয়ে আর কথা নয়। সানজারির জন্য অনেক অশান্তি হচ্ছে। তার জন্যই আমার এক সংবাদকর্মীকে নিয়ে কথা বলতে হচ্ছে। যদি নওশীন এটা নিয়ে আরো কথা বলে, তাহলে আমি শুধু নওশীনকে নিয়ে একটা সংবাদ সম্মেলন করব। সেখানে নওশীনকেও আমন্ত্রণ জানাব।’

এর আগে, গত ১৬ এপ্রিল সংসারের তিক্ত অভিজ্ঞতা নিয়ে নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে একটি পোস্ট দেন মিলা। সেখানে তিনি আগুন-সন্ত্রাসের শিকার নুসরাত জাহান রাফির সঙ্গে নিজের তুলনা করে বলেন, “কত কত জীবিত নুসরাত। আইনের কাছে দাঁড়ান দিনের পর দিন, কিন্তু না মেরে ফেলা পর্যন্ত তাদের জন্য কোনো আওয়াজ উঠবে না। দুই বছর হয়ে যাচ্ছে, কোর্টে উল্টা জঘন্যভাবে চিৎকার দিয়ে অপবাদ দেওয়া হয় আমাকে। বিচার তো দূর। দাখিল করা ‘খ’ ধারার চার্জশিট আমাকে না বুঝতে দিয়ে ‘গ’ ধারায় মামলার চার্জ গঠন করা হয়।”

ফেসবুক স্ট্যাটাসে মিলা আরো বলেন, ‘আমার মাথায় আকাশ ভেঙে পড়ে, আমার জানা ছিল, নারী ও শিশু নির্যাতন মামলায় কোনো রকমের হস্তক্ষেপে নেত্রীর কঠোর নিষেধ রয়েছে। তিনবার আদালতের আদেশ টানা অমান্য করলে জামিন বাতিল হওয়ার কথা। পাঁচবার আমাকে কোর্ট নানান বুঝ দিয়ে পার্মানেন্ট জামিন দেয়।

আমি এখন বলতেও পারি নাই শেষের দিন আমার শাশুড়ি, আমার স্বামীর কথায় আমাকে কীভাবে বাথরুম থেকে দরজা ভেঙে বিনা কাপড় পরিহিত অবস্থায় জঘন্যভাবে টেনে বের করে আমার দেবর তার স্ত্রী এবং তার স্ত্রীর বাবা-মায়ের সামনে এক ঘণ্টা গালিগালাজ করতে থাকে। আমার বাবা ভাইবারে ভিডিও কলের মাধ্যমে পুরা ঘটনা দেখে। একপর্যায়ে আমি হাত জোড় করে ভিক্ষা চাই এই বলে, আম্মু আমাকে মেয়ে বলে নিয়ে আসছিলেন, আমার গায়ে কাপড় নাই… দয়া করে আমাকে ঘরের দরজা বন্ধ করে যা বলার বলেন…কিন্তু এই অপমান করেন না। ভিডিওটা এখনো আমার কাছে।’

ক্ষোভ প্রকাশ করে মিলা আরো বলেন, ‘এর চাইতে কাপড় পরা অবস্থায় আমার গায়ে আগুন দিয়ে দিত… আমি যাই বললাম তাতে পুরা মিডিয়া, শিল্পীরা, আমার ভক্তরা রাস্তায় নেমে প্রতিবাদ করার কথা… কাপড় ছাড়া ওই ছেলেকে রাস্তায় নামিয়ে জুতার বাড়ি দিয়ে মারার কথা… তাই না? আমার এই পোস্টটাই তো সবার শেয়ার করার কথা তাই না? কেও করবে নাহ্‌… কেও নাহ.. কারণ আমি বেঁচে আছি…এই মিলা কেন এখনো প্রতিদিন চিৎকার করে কাঁদে উত্তর পাও তোমরা? আমি দেশের জাতীয় পর্যায়ের শিল্পী?”

১০ বছর প্রেমের পর ২০১৭ সালের মে মাসে পাইলট পারভেজ সানজারিকে বিয়ে করেন মিলা। অথচ বিয়ের মাত্র ১৩ দিন পরেই তাঁদের মধ্যে দাম্পত্য কলহ শুরু হয়। এরপর বিচ্ছেদ হয়ে যায় তাঁদের।

দেখা হয়েছে: 29
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • ভারপ্রাপ্ত সম্পাদকঃ ফয়সাল হাওলাদার মোবাইল ০১৭৩২-৩৭৯৯৮২
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।