|

সাফল্যের শীর্ষে জেনিফার লরেন্স

প্রকাশিতঃ 11:27 pm | March 28, 2019

সাফল্যের শীর্ষে জেনিফার লরেন্স

জেনিফার লরেন্স। হলিউডে খুব অল্প সময়েই যারা খ্যাতির শীর্ষে উঠে এসেছেন, তাদের মধ্যে তিনিও একজন। মাত্র ২৪ বছর বয়সে হলিউডে যাত্রা শুরু হয় তার। এরই মধ্যে নাম, যশ, খ্যাতি, অসংখ্য পুরস্কার- সবকিছুই ক্যারিয়ারের ঝুলিতে ভরে নিয়েছেন এই অভিনেত্রী।

শুধু তাই নয়, সবচেয়ে সফল অভিনেত্রী হিসেবে গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডেও নিজের নাম লেখিয়েছেন আমেরিকান অভিনেত্রী জেনিফার লরেন্স। বিশেষ করে সায়েন্স ফিকশন ফিল্ম সিরিজ ‘দ্য হাঙ্গার গেমসে’ ক্যাটনিস এভারডিন চরিত্রে অভিনয় করে তিনি যে সফলতা অর্জন করেছেন তার ওপর ভিত্তি করেই তিনি এই রেকর্ড গড়েছেন।

জেনিফার লরেন্স অভিনীত ‘দ্য হাঙ্গার গেমস’ ও তার সিক্যুয়েল ফিল্ম ‘ক্যাচিং ফায়ার’ বিশ্বজুড়ে ৯০০ মিলিয়ন পাউন্ডেরও বেশি উপার্জন করেছে। আর তাতেই সফল অভিনেত্রীর স্বীকৃতি পেলেন জেনিফার।

‘দ্য হাঙ্গার গেমস’-এর পর ২০১০ সালে সিনেমায় প্রধান চরিত্রে অভিনয় করতে শুরু করেন। তিনি ‘এক্সমেন : ফার্স্ট ক্লাস’ ও তার সিক্যুয়েল এক্সমেন : ডেস অব ফিউচার পাস্ট অ্যান্ড আমেরিকান হাসল’সহ অনেকগুলো সফল সিনেমায় অভিনয় করেছেন। এই সিরিজের সবশেষ কিস্তি ‘এক্সমেন : অ্যাপোক্যালপস’ মুক্তি পায় ২০১৬ সালে। এবার আসছে ‘মারভেল কমিকসের ডার্ক ফোনিক্স’।



আর এই ছবির জন্য দুই বছরের বেশি সময় ধরে প্রতীক্ষায় ছিলেন ভক্তরা। অবশেষে মিলেছে সুখবর। সম্প্রতি তুমুল জনপ্রিয় ‘এক্সমেন’ সিরিজের ১২তম কিস্তি ডার্ক ফোনিক্স সিনেমার তৃৃতীয় ট্রেইলার মুক্তি দিয়েছে ছবিটির প্রযোজনা ও পরিবেশক সংস্থা টুয়েন্টিথ সেঞ্চুরি ফক্স ফিল্ম। যদিও গত বছর সিনেমাটি মুক্তি পাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু একটু দেরিতে হলেও অবশেষে মুক্তি পাচ্ছে সিনেমাটি।

আসছে ৭ জুন মুক্তি পাবে ‘ডার্ক ফোনিক্স’। সিনেমাটি পরিচালনা করেছেন সিমন কিনবার্গ। ছবিতে দেখা যাবে, এক্সমেন লড়ছেন ভয়ানক এবং শক্তিশালী শত্রুদের সঙ্গে। একটি মিশনে অংশ নিয়ে যুদ্ধ করে গুরুতর আহত হওয়া জিন গ্রে নিজের শক্তির ওপর নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলেন। এরপরই নিজের লোকদের সঙ্গেই বাজে আচরণ শুরু করেন তিনি।

জিন গ্রে চরিত্রটিকে এবার আরো শক্তিশালী করে পর্দায় হাজির করেছেন পরিচালক। গ্যালাক্সিতে নিজেদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে আর জিনের আত্মাকে রক্ষা করতে আবারো একসঙ্গে লড়তে দেখা যাবে এক্সমেন পরিবারকে। সদ্য মুক্তি পাওয়া ছবির ট্রেইলারে তারই ইঙ্গিত মিলেছে।

২২ বছর বয়সে লরেন্স টিফ্যানি ম্যাক্সওয়েলের নির্দেশনায় একটি রোমান্টিক কমেডি চলচ্চিত্র সিলভার লিনিংস প্লেবুকে অভিনয় করেন। এই অভিনয়ের জন্য তিনি দর্শকজনপ্রিয়তা এবং কয়েকটি পুরস্কার লাভ করেন।

পুরস্কারের মধ্যে উল্লেখযোগ্য ছিল গোল্ডেন গ্লোব অ্যাওয়ার্ড ফর বেস্ট অ্যাক্ট্রেস। এই পুরস্কার জয়ের মাধ্যমে তিনি অস্কারে দ্বিতীয় সর্বকনিষ্ঠ সেরা অভিনেত্রীর খেতাব লাভ করেন। ২০১৩ সালে কমেডি ‘ড্রামা আমেরিকান হাসেল’-এ অভিনয়ের জন্য লরেন্স গোল্ডেন গ্লোব পুরস্কার, বাফটা অ্যাওয়ার্ড এবং তৃতীয়বারের মতো একাডেমি পুরস্কার জয় করেন।

ফোর্বস ম্যাগাজিনের তৈরি তালিকা অনুযায়ী জেনিফার লরেন্স ২০১৫ সালের সবচেয়ে বেশি পারিশ্রমিকপ্রাপ্ত অভিনেত্রী। সংবাদমাধ্যমগুলোর শিরোনামে উঠে এসেছিলেন ‘রেড স্প্যারো’খ্যাত এ তারকা।