|

৯ মিনিটে ৬ সন্তানের জন্ম দিলেন এই নারী

প্রকাশিতঃ ৮:৩৫ অপরাহ্ন | মার্চ ১৭, ২০১৯

৯ মিনিটে ৬ সন্তানের জন্ম দিলেন এই নারী

বিচিত্র বার্তাঃ যমজ বা তিনটে নয়, একসঙ্গে ছয় সন্তান প্রসব করলেন এক নারী। আল্ট্রাসোনোগ্রাফি করতে গিয়েই চমকে উঠেছিলেন ডাক্তারেরা। সেখানে তারা দেখেন, গর্ভে একসঙ্গে ছয়টি সন্তান রয়েছে। ওই নারীর শারীরিক অবস্থা নিয়েও চিন্তা হয়েছিল চিকিৎসকদের।

তবে খোশ মেজাজেই ছিলেন তিনি। পরে একসঙ্গে ছয়টি সন্তান পেয়ে এখন তিনি অনেক খুশি। ছয় সন্তানের গর্বিত মায়ের ছবি নিজেদের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে পোস্টও করেছে ওম্যান’স হাসপাতাল। সেই ছবি এখন ভাইরাল নেট দুনিয়ায়।

যুক্তরাষ্ট্র টেক্সাসের বাসিন্দা এই নারীর নাম থেলমা চাইকা। শুক্রবার স্থানীয় সময় ভোর ৪.৫০মিনিট থেকে ৪.৫৯ মিনিটের মধ্যে সন্তান প্রসব করেন তিনি। মাত্র ৯ মিনিটে জন্ম দেন দুই জোড়া যমজ ছেলে ও এক জোড়া যমজ মেয়ের। সদ্যোজাতরা সবাই সুস্থ রয়েছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।



টেক্সাসের ওম্যান’স হাসপাতালে এখন বিশেষ যত্নে রাখা হয়েছে থেলমাকে। খবর পেয়েই হাসপাতালে ভিড় জমাতে শুরু করেছেন সাংবাদিকরা। কৌতুহলী মানুষের ভিড়ও কম নয়। তাই সংবাদমাধ্যমের ক্যামেরা বাঁচিয়ে সর্বক্ষণ তাকে নজরে নজরে রাখছেন ডাক্তার ও নার্সেরা। ছয় সন্তানকে নিয়ে ডাক্তারদের আনন্দও কিছু কম নয়।

হাসপাতালের চিকিৎসকরা জানান, একসঙ্গে তিন বা চার সন্তান পর্যন্ত জন্ম দেওয়ার ঘটনা ঘটে। তবে একসঙ্গে ছয় সন্তানের জন্ম দেওয়ার ঘটনা বিরল। হিসাব করে দেখলে দেখা যাবে ৪৭০ কোটিতে হয়তো একটা ঘটে। জিনগত কারণের জন্য এমনটা ঘটতে পারে বলেই মত বিশেষজ্ঞদের। এতগুলো সন্তান নিয়ে পূর্ণ গর্ভাবস্থা কাটানোটাও যথেষ্টই কঠিন। তবে থেলমা পেরেছেন। দুই মেয়ের নাম রেখেছেন জিনা এবং জুরিয়েল। ছেলেদের নাম যদিও এখনও ঠিক হয়নি। বাছাই পর্ব চলছে।

দেখা হয়েছে: 111
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ [email protected]
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।