|

অটিস্টিকরাও ছুঁতে পারে খ্যাতির শীর্ষ

প্রকাশিতঃ ৯:৫৩ অপরাহ্ন | মার্চ ১৭, ২০১৯

অটিস্টিকরাও ছুঁতে পারে খ্যাতির শীর্ষ

একটি শিশুর আগমন সংবাদ সংসারে নিয়ে আসে সীমাহীন আনন্দ। কিন্তু সেই শিশুর মাঝে যদি সামান্য সমস্যাও দেখা দেয় তাহলে তা সংসারে হরিষে বিষাদ নিয়ে আসে। এর সাথে যদি শিশুর মাঝে এমন সমস্যা দেখা যায় যার ফলে সে আর দশটি শিশু থেকে একেবারে আলাদা হয়ে যায়, তাহলে সেই পরিবারে নেমে আসে সীমাহীন কষ্ট।

আমাদের সমাজে বিশেষ এই শিশুদের সক্ষমতা সম্পর্কে সঠিক ধারণা নেই বলেই আমরা এই কষ্টকে আরও বহুগুণ বাড়িয়ে তুলি। প্রথমেই আমরা শিশুকে সমাজ থেকে আড়াল করার মাধ্যমে শুরু করি তার সাথে নেতিবাচক আচরণ। অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায় প্রতিবেশীরাও জানে না তাদের পাশের বাড়িতে একটি অটিস্টিক শিশু রয়েছে। তাকে এইভাবে আড়াল করার ফলে আমরা শিশুর ক্ষতিকে অনেকাংশে বাড়িয়ে তুলি। এর ফলে শিশুর সামাজিক বিকাশে বিঘ্ন ঘটে। তাকে সময় মতো বিদ্যালয়ে পাঠানো হয় না বলে শিক্ষার আলো থেকে সে বঞ্চিত হয়। অবহেলা, নেতিবাচক আচরণ এবং বিশেষ করে তাদের সাথে কী ধরনের আচরণ করতে হবে তা না জানার ফলে আমরা তাদের সাথে যে ভুল আচরণ করি তার ফলে তাদের সমস্যাটি আরও বেড়ে যায়।

শিশুরা তাদের শারীরিক ও মানসিক বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে সামাজিক জীব হয়ে ওঠে এবং তার লক্ষণ প্রকাশ পায় জীবনের শুরুর দিকেই। সে হাসে, কান্না করে, খেলা করে, ছোটাছোটি করে. শব্দ করলে তাকায়, হাত দিয়ে জিনিসপত্র ধরতে চেষ্টা করে, দৌড়-ঝাঁপ করে। কিন্তু অটিস্টিক শিশু সাধারণ শিশুদের মতো নয়, এরা সামাজিকতাকে পাশ কাটিয়ে চলে। এ ধরনের শিশুরা অন্যান্য সাধারণ শিশুদের চাইতে একটু আলাদা হয়। সে যে কাজটি ইচ্ছাকৃতভাবে করে তা নয়, আসলে তার ব্রেন এ ক্ষেত্রে সঠিকভাবে কাজ করে না। কেউ তাকে আদর করতে চাইলে সে বাধা দেয়ার চেষ্টা করে বা বিরক্ত হয়। মা-বাবা স্বাভাবিক বকা দিলে বা আদর করলেও সে তা বুঝতে পারে না। হঠাৎ রেগে গেলে রাগকে সামলে উঠতে পারে না। রেগে গিয়ে জিনিসপত্র ভাঙে, অন্যকে আঘাত করে, মারধর করে, চুল টেনে ধরে, কামড় দেয়।

অটিজম  (Autism) শব্দটি গ্রিক শব্দ ÔAutosÕ থেকে এসেছে যার অর্থ আত্ম, নিজ বা ÔLocked Within’, অর্থাৎ নিজের মধ্যে আবদ্ধ থাকা। অটিজম একটি ছোট শব্দ কিন্ত এর গভীরতা ব্যাপক। এ শব্দটির সঙ্গে বর্তমানে আমরা কম-বেশি পরিচিত। কিন্তু এ শব্দের সঙ্গে পরিচিত হলেও আমরা অনেকই এখনও এ সম্পর্কে ভুল ধারণা পোষণ করি। গ্রামে এখনও বলা হয়ে থাকে যে এ ধরনের শিশুরা জিনে বা ভূতের আছরের শিকার। অথবা এদের পাগল ভাবা হয়। শহরেও অনেকে একই ধারণা পোষণ করেন। আসলে অটিজম কোনো রোগ নয় এটি একটি স্নায়ূগত বা মানসিক সমস্যা।



এ সমস্যাকে ইংরেজিতে ‘নিউরো ডেভেলপমেন্টাল ডিজঅর্ডার’ বলে। অটিজম মূলত মস্তিস্কের বিকাশগত সমস্যা। এ ধরনের শিশু যে পরিবারে রয়েছে তাদের পারিবারিক জীবন ও সামাজিক জীবন হয় একটু আলাদা ধরনের। এ ধরনের শিশু লালন-পালনের ক্ষেত্রে প্রয়োজন অনেক ধৈর্য এবং মমতা। অনেকেই আমরা অটিজমে আক্রান্ত শিশুকে প্রতিবন্ধী বলে থাকি। কিন্তু এতে তাদের সক্ষমতাকে খাটো করা হয়; তাদের প্রতি অবিচার করা হয়। তাই অটিজমে আক্রান্ত শিশুদের আমরা বলবো ‘স্পেশাল চাইল্ড’। এদের জন্য প্রয়োজন বিশেষ যত্ন ও সহযোগিতা।

অটিজমকে সাধারণভাবে শিশুর মনোবিকাশগত জটিলতা হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। এর লক্ষণগুলো শিশুর ১৮ মাস থেকে ৩ বছরের মধ্যে পরিলক্ষিত হয়। অটিজম এমন একটি বিকাশজনিত সমস্যা, আক্রান্ত ব্যক্তির অন্য মানুষ বা বিষয়ের প্রতি কোনো আকর্ষণ থাকে না বললেই চলে। যার কারণে শিশুর  স্নায়ু -সংক্রান্ত ক্রিয়া ও ধী-শক্তির সুষ্ঠু বিকাশ ব্যাহত হয়। এ সমস্যার জন্য সামাজিক বিকাশ ও সামাজিক যোগাযোগ, যেমন- কথা বলা, বাইরে গিয়ে সহজে মিশতে পারা, ভাব বিনিময় করার ক্ষমতা বৃদ্ধিতে বাধাপ্রাপ্ত হয়।

অটিজমে আক্রান্তরা সামাজিক যোগাযোগের ক্ষেত্রে কম সক্ষম হয়। তাদের মধ্যে একই আচরণ বা কাজ বারবার করার প্রবণতা দেখা যায়। এ সমস্যায় আক্রান্ত শিশুরা সমবয়সী হোক কিংবা অন্য কোনো বয়সী হোক-না কেন কারো সঙ্গেই সে সামাজিক সম্পর্ক গড়ে তুলতে পারে না। এ সমস্যায় আক্রান্ত শিশুরা অস্বাভাবিকভাবে নিজেদের গুটিয়ে রাখে নিজের মধ্যে। এ ধরনের শিশু অন্য কারো সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপন করতে আগ্রহী হয় না। অন্যের ব্যাপারে এদের কোনো আগ্রহ থাকে না। কথা বলার সময় সামনের ব্যক্তির দিকে সরাসরি তাকায় না। তাই বলে অটিস্টিক শিশু মানে বোকা বা অ-মেধাবী নয়। অটিস্টিক শিশুরা স্কুল, কলেজ এমনকি বিশ^বিদ্যালয়েও পড়াশোনা করে সফলতা অর্জনের  যোগ্যতা রাখে।



শিশু শুধু দৈহিকভাবে বেড়ে উঠছে কিনা তা লক্ষ না রেখে সামাজিক ও আচরণগত ভাবে সে ঠিক আছে কিনা অভিভাবকদের সেদিকেও লক্ষ রাখতে হবে। যখনই মা-বাবার মনে সন্দেহ দানা বেঁধে উঠবে, দেরি না করে অবশ্যই শিশু বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিতে হবে। যখনই শিশুটি ঠিকমতো বাড়ছে না বলে মনে হচ্ছে অথবা অস্বাভাবিক আচরণ করছে বলে মনে হচ্ছে, তখনই একটি নোটবুকে তা টুকে রাখতে হবে। পাশাপাশি শিশুর অন্যান্য লক্ষণ ও প্রবণতার দিকেও নজর রাখতে হবে। অভিজ্ঞ চিকিৎসকের সাথে যোগাযোগ করে পরীক্ষা-নিরীক্ষার মাধ্যমে নিশ্চিত হতে হবে, এটি অটিজমজনিত প্রবণতা না অন্য কোনো রোগ।

সারা বিশ্বে অটিজম দিনদিন একটা উদ্বেগের বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিশ্বে প্রায় প্রতি ১১০ জনে ১ জন শিশু এ সমস্যায় ভুগছে। বাংলাদেশের শিশুদের মধ্যে অটিজমের হার প্রতি হাজারে প্রায় ৮ জন। এক জরিপে দেখা যায়, বাংলাদেশে অটিজমে আক্রান্ত শিশুর সংখ্যা প্রায় ১৭ হাজার। তবে প্রকৃত হিসাব আরও বেশি হতে পারে। অথচ অটিজম চিহ্নিত/শনাক্ত করার ক্ষেত্রে আমরা এখনও অনেক পিছিয়ে আছি।

শিশুদের অটিজম শনাক্তকরণ ও প্রয়োজনীয় চিকিৎসা, প্রশিক্ষণ ও শিক্ষার ব্যবস্থা আমরা এখনও সহজলভ্য করতে পারিনি। যদিও অটিজমের যথাযথ চিকিৎসা এখন পর্যন্ত আবিষ্কৃত হয়নি তবে  ÔCenters for Diseases Control and PreventionÕ- এ অটিজমের চিকিৎসায় কিছু পদ্ধতির কথা উল্লেখ করা হয়েছে। যেমন: Behavior and Communication Approaches, Dietary Approaches, Medication Ges, Complementary and Alterative  Medicine ইত্যাদি।

Behavior  and  Communication  Approaches আক্রান্ত শিশুদের যোগাযোগ বা আচরণগত সমস্যা সমাধানে অনেকটা সাহায্য করে। অন্যদিকে Approaches  Behavioral Analysis (ABA)

অটিজম আক্রান্ত শিশুদের জন্য একটি উল্লেখযোগ্য চিকিৎসা পদ্ধতি। এটি বিশ^ব্যাপী অত্যন্ত জনপ্রিয় একটি পদ্ধতি। আক্রান্ত শিশুদের ভালো কাজে উৎসাহী ও নেতিবাচক কাজে নিরুৎসাহী করা এবং তাদের স্বতন্ত্র দক্ষতা বিকাশে বিভিন্ন স্কুল, পেশাজীবী স্বাস্থ্যকেন্দ্র ও বিভিন্ন প্রকার ক্লিনিকে এ পদ্ধতি ব্যবহৃত হয়ে আসছে। বেশ কয়েকজন থেরাপিস্ট এ বিষয়ে কাজ করে যাচ্ছেন। কিন্তু এর অনেক চিকিৎসাই বৈজ্ঞানিক সমর্থন পায়নি। আবার একটি চিকিৎসা একটি শিশুর জন্য উপযোগী হলেও হয়ত অন্যদের বেলায় তা কাজ নাও করতে পারে। অনেক চিকিৎসক খাদ্য পরিবর্তনের ক্ষেত্রে পরামর্শ দেন।



এক্ষেত্রে আক্রান্ত শিশুর খাবারের ওপর চিকিৎসা নির্ভর করে। কিছু বাবা-মা মনে করেন খাবারের পরিবর্তন তাদের শিশুদের কার্যকলাপের ভিন্নতা আনে। তবে শিশুর খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তনের ক্ষেত্রে অবশ্যই চিকিৎসকের অথবা পুষ্টিবিদের পরামর্শ নিতে হবে। মূলত অটিজমের পরিপূর্ণ কোনো চিকিৎসা ব্যবস্থা এখনও আবিষ্কৃত হয়নি। কিন্তু কিছু ওষুধ ব্যবহারের ফলে শিশুর এনার্জির মাত্রা বাড়ানো, কোনো কিছুর প্রতি মনোযোগী করা, হতাশা রোধ করা অনেকখানি সম্ভব হয়। তবে চিকিৎসা পদ্ধতিগুলো নিয়ে অনেক আলোচনা-সমালোচনা রয়েছে। তাই যে কোনো চিকিৎসা গ্রহণের পূর্বে অবশ্যই অভিজ্ঞ এবং দক্ষ চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। নতুবা বিপদের সম্ভাবনা  রয়েছে ।

অটিস্টিক শিশুদের ব্যবহারিক সমস্যা কমানোর ক্ষেত্রে নিচের বিষয়গুলোর প্রতি লক্ষ রাখা যেতে পারে। যেমন- যোগাযোগের সঠিক কৌশল শেখানো, পছন্দ করতে দেয়া/পছন্দের প্রাধান্য দেয়া, ব্যবহারিক সমস্যার তালিকা তৈরি করা, শিশুর উপযোগী শিক্ষণীয় পরিবেশ তৈরি করা, শিশুর ভালো কাজের প্রশংসা করা/পুরস্কার দেয়া, বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই শিশুকে অর্থপূর্ণ যোগাযোগমূলক কাজে ব্যস্ত রাখা, আত্ম-নিয়ন্ত্রণ করার কৌশল বাড়ানো।

আমাদের চারপাশে অটিস্টিক শিশুর সংখ্যা নেহাতই কম নয়। অতি সম্প্রতি একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পৃথিবীর অন্যতম ৩টি সমস্যার একটি হলো অটিজম। অটিজমের কোনো প্রতিকার নেই। সুতরাং এ সমস্যার একমাত্র সমাধান হলো সাহায্যের হাত বাড়ানো। সরকারের পাশাপাশি বিভিন্ন সংস্থাও অটিস্টিক শিশুদের স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে আনতে কাজ করে যাচ্ছে। আমাদের উচিত তাদের প্রতি সহযোগিতার হাত বাড়ানো। আমরা যদি একটু সচেতন হই; ব্যস্ততার ফাঁকে যদি এই বিশেষ শিশুদের জন্য একটু সময় দিই, জয়ের পথ ওরা নিজেরাই বেছে নেবে।



অনেক অটিস্টিক শিশুর মধ্যে এমনসব প্রতিভা বা বিশেষ গুণ লুকিয়ে আছে যা ভাবা বা কল্পনা করা যায় না। যোগাযোগ অক্ষমতার আড়ালে তাদের মধ্যে অসাধারণ প্রতিভা রয়েছে। তবে এসব প্রতিভা কাজে লাগানোর জন্য মানুষকে অনেক পথ পাড়ি দিতে হবে। অটিস্টিক শিশুদের নিবিড় পরিচর্যা করলে তারা সুস্থ ও স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে পারে, একই সঙ্গে তাদের সুপ্ত গুণাবলীও প্রকাশ পায়। অটিজম মনোজাগতিক রোগ হলেও এ রোগীরা প্রায়শই বিশেষ কোনো ক্ষেত্রে বিশেষ পারদর্শী হয়ে থাকে। অন্তত অতীতের দিকে তাকালেই তা প্রমাণিত হয়।

সবচেয়ে অবাক করা ব্যাপার হলো, বিশ্বব্যাপী এমন অনেক খ্যাতিমান ব্যক্তির পরিচয় আমরা জানি যারা এই রোগে আক্রান্ত ছিলেন। বিখ্যাত সংগীতশিল্পী লেডি হাক এবং ডারিল হান্না, কার্টুন ছবির আবিস্কারক সাতসি তাহেরিসহ বহু বিখ্যাত ব্যক্তি অটিস্টিক ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত ছিলেন। আমরা বলতে পারি উল্লেখযোগ্য রসায়নবিদ জর্জ উইলসনের কথা- যিনি কিনা অটিজমে আক্রান্ত হয়েও প্রতিভার স্বাক্ষর রেখে গেছেন তাঁর লেখা বইয়ে। এ রকম আরো আছেন দর্শনবিদ ও বিজ্ঞানী হিন রিক্যাভেন্ডিস। বিজ্ঞানীদের ক্ষেত্রেই এটি বেশি দেখা যায়। তাদের সফলতায় অটিজম কোনো বাধা হতে পারেনি।

বিখ্যাত সুরস্রষ্টা অ্যামাডিউস মোজার্টকে কে-না চেনে! যার সুর প্রত্যেককে এক জায়গাতেই আটকে রাখতে বাধ্য করবে ঘণ্টার পর ঘণ্টা। প্রত্যেকটি অনুভুতি নিয়ে খেলা করার অন্যরকম শক্তি ছিল তার। মজার ব্যাপার হলো, এই মোজার্ট ছিলেন অটিজম আক্রান্ত। বিরক্ত হয়ে গেলেই হুট করে টেবিলের ওপর উঠে বিড়ালের মতো মিউমিউ করতেন। মুখভঙ্গি আর হাত-পায়ের চলন; সবকিছুতেই সমস্যা ছিল তার।

চিকিৎসকেরা গবেষণা করে বের করেছেন, কোনো কোনো অটিজম রোগী বিশেষ ক্ষেত্রে পারদর্শী হয়ে থাকেন। মোজার্ট তারই চমৎকার একটি উদাহরণ। বিজ্ঞানী আইজ্যাক নিউটন প্রচন্ড ভুলোমনা ছিলেন। ৫০ বছর বয়সে স্নায়ুবৈকল্যে ভুগেছেন। তার মধ্যে অটিজমের অনেক প্রমাণই দেখেছেন বিশেষজ্ঞরা। কখনো কখনো একনাগাড়ে তিন-চারদিন কাজ করেছেন গবেষণাগারে; টেরই পাননি! খাওয়া-দাওয়ার কথাও ভুলে যেতেন। শুধু তাই নয়, সামনে কেউ না থাকলেও একা একাই আপন মনে কথা বলে যেতেন। কখনো কখনো উপদেশ দিতেন। ছোটবেলা থেকেই অন্যরকম ছিলেন তিনি। অন্যান্য অটিস্টিক রোগীদের মতো তিনিও কারো সঙ্গে মিশতে খুব একটা পছন্দ করতেন না।

কিংবদন্তি পদার্থবিজ্ঞানী আলবার্ট আইনস্টাইন যে অটিজমের রোগী ছিলেন তা কারো অজানা নেই। তবে তিনি খুব বেশি মাত্রায় আক্রান্ত হননি। এখনো অনেক বিশেষজ্ঞ মনে করেন আপেক্ষিক তত্ত্বের এই জনক ‘এস্পারজারস সিনড্রোম’ তথা এক ধরনের অটিস্টিক ডিসঅর্ডারে ভুগতেন। তার কারণ হলো, ছোটবেলায় প্রচ-রকম একাকিত্বের মধ্যে বেড়ে উঠেছেন তিনি। কোথাও যেতে চাইতেন না, কারো সঙ্গে মিশতেনও না। অটিজমের সবচেয়ে বড় যে উপসর্গ তার মধ্যে ছিল সেটি হলো, আইনস্টাইন সাত বছর বয়স পর্যন্ত একই কথা বারবার বলতেন। বিবর্তনবাদের প্রবর্তক, প্রকৃতিবিদ, লেখক, বিজ্ঞানী চার্লস ডারউইনকে ছোটবেলায় সবাই এড়িয়ে চলতো। সামাজিকতায় খুব একটা আগ্রহী ছিলেন না এই মানুষটি। একা থাকতে পছন্দ করতেন। কথা বলার চেয়ে লিখতে পছন্দ করতেন। সবকিছু মিলিয়েই বিখ্যাত মনোবিজ্ঞানী মাইকেল ফিজগারল্ড সিদ্ধান্তে আসতে পেরেছিলেন যে, ডারউইনের অটিজমের উপসর্গ ছিল। ছেলেবেলার নিজের আচরণ নিয়েও অনেক কথা বলে যান ডারউইন।



সেখানেও উল্লেখ করেছেন বেশ কিছু ব্যাপার যা কিনা অটিজমের প্রমাণ দেয়। এটুকু না বললেই নয়, ডারউইনকে ছোটবেলায় এড়িয়ে চললেও; পরবর্র্তীকালে সবাই চিঠি লিখে তাঁর সঙ্গে কথা বলতে চাইতেন। কারণ, কথা নয়- লিখতে ও চোখের সামনে দেখতে পছন্দ করতেন এই বিজ্ঞানী। কিংবদন্তি ডাচ চিত্রকর ভিনসেন্ট ভ্যান গগ আত্মহত্যা করেছিলেন। মাত্র ৩৭ বছর বয়সে তার মৃত্যুর কারণ হিসেবে সন্দেহ করা হয় অটিজমকে। ছোটবেলা থেকেই আইনস্টাইনের মতো ‘এস্পারজারস সিনড্রোম’ ছিল তার। অন্যদের সঙ্গে অর্থাৎ সামাজিক মেলামেশাকে কঠিন মনে করতেন তিনি। আচরণগত সমস্যার কারণে স্কুলজীবনে নিজেকে মানাতে পারেননি ভ্যান গগ। এই কারণেই পড়াশোনা ছেড়ে দেন। একটা সময়ে গিয়ে নিজের একাকী কাজে ডুব দেন, কারো সঙ্গে সেভাবে মিশতেন না।

স্পেশাল চাইল্ডরা কখনও কখনও একটি নির্দিষ্ট বিষয়ে বিশেষ পারদর্শী হতে পারে- এর এরকম অসংখ্য উদাহরণ আমাদের চোখের সামনেই আছে। সেটা হতে পারে গণিতে পারদর্শিতা, হতে পারে বিজ্ঞানে অসাধারণ। কেউ খুব ভালো ছবি আঁকে, কারো সংগীতের প্রতি আকর্ষণ বেশি, কেউ-বা হতে পারে খুব ভালো একজন ক্রীড়াবিদ। এ ক্ষেত্রে তাদের ভেতরের এই সুপ্ত প্রতিভাকে খুঁজে বের করে তার যথাযথ পরিচর্যার ব্যবস্থা করতে হবে এবং উপযুক্ত পরিবেশে উপস্থাপন করতে হবে। তবে তারাও হয়ে উঠতে পারে উদাহরণযোগ্য ব্যক্তিত্ব।

আমাদের চারপাশের স্পেশাল চাইল্ডদের মাঝেও লুকিয়ে থাকতে পারে নিউটন, আইনস্টাইন, মোজার্টের মতো প্রতিভা। মানুষের মধ্যে অটিজম সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে জাতিসংঘ ২ এপ্রিলকে ‘বিশ^ অটিজম দিবস’ হিসেবে ঘোষণা করেছে। আমাদের দেশে এখন এই বিশেষ শিশুদের জন্য বিশেষ স্কুল বা কেয়ার সেন্টার প্রতিষ্ঠায় সরকারি উদ্যোগের পাশাপাশি এগিয়ে আসছে বিভিন্ন বেসরকারি প্রতিষ্ঠান বা এনজিও। এর ফলে আত্মনির্ভরশীল হয়ে উঠছে অনেক অটিস্টিক শিশু। কিন্তু এই প্রতিষ্ঠানগুলোর সংখ্যা নেহায়েৎ হাতেগোনা- প্রয়োজনের তুলনায় খুবই কম।

অটিজমে আক্রান্ত শিশুরা প্রতিবন্ধী নয়। এটি একটি স্নায়ুগত সমস্যা। অনেক অটিজম আক্রান্ত শিশুই চিকিৎসা, প্রশিক্ষণ ও শিক্ষার মাধ্যমে নিজেদের অবস্থার উত্তরণ ঘটিয়েছে। আমরা অনেকেই জানি না অটিজম আক্রান্ত শিশুরা পৃথিবীকে আমাদের চেয়ে আলাদাভাবে দেখে। তারা তাদের আশেপাশের সব কিছুই পর্যবেক্ষণ করে। এমনকি তাদের প্রতি অন্যদের আচরণকেও তারা পর্যবেক্ষণ করে।



অটিজম আক্রান্ত শিশুরা আমাদেরই সন্তান; তাদেরকে অবহেলা বা তাচ্ছিল্য করা কোনোভাবেই কাম্য নয়। ভালোবাসা ও সহমর্মিতার মাধ্যমে তাদেরকে অনেকখানি নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব। মনে রাখতে হবে অটিজম আক্রান্ত শিশুকে অবহেলা না করে তাদেরকে সেবা-যত্ন-ভালোবাসা দিয়ে সক্ষম ও কর্মক্ষম করে গড়ে তোলা সমাজের প্রতিটি মানুষের নৈতিক ও মানবিক দায়িত্ব। এজন্য সকল পর্যায়ে যথেষ্ট সচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে। সচেতনতা সৃষ্টির পাশাপাশি তাদের যথাযথ চিকিৎসা, প্রশিক্ষণ ও শিক্ষার ব্যবস্থা করতে হবে। তবেই সুন্দরের পথে সমান অধিকার নিয়ে এই বিশেষ শিশুরা মাথা উঁচু করে বাঁচতে পারবে। অনিশ্চিত হবে না তার ভবিষ্যৎ, বরং কর্মময় সুন্দর একটি আগামী তার জন্যও অপেক্ষা করে আছে।

যারা অবহেলায় দূরে যাবে, তাদের সবাইকে জানিয়ে দেবে আমিও পারি সুন্দর কিছু গড়তে; পৃথিবীকে জয় করতে।

অভিভাবকদের জন্য বলতে চাই, সামাজিক মর্যাদা ক্ষুণœ হওয়ার ভয় পাবেন না, দেখবেন এই বিশেষ শিশুরাই সমাজের জন্য আশীর্বাদ হয়ে একদিন আপনাকে পরাবে জয়ের মুকুট। শুধু প্রয়োজন এই প্রতিভাকে বিকশিত করার জন্য উপযুক্ত পরিবেশ নিশ্চিত করা। পাশাপাশি প্রয়োজন আশপাশের মানুষগুলোর সহযোগিতামূলক মনোভাব। স্পেশাল চাইল্ডরা আর সমাজের বোঝা নয়, বরং মূল্যবান সম্পদ হয়ে উঠুক- এটাই আমাদের প্রত্যাশা।

লেখক:    
শরীফুল্লাহ মুক্তি
প্রাবন্ধিক, শিক্ষা-গবেষক ও  ইন্সট্রাক্টর, উপজেলা রিসোর্স সেন্টার (ইউআরসি)।  
ই-মেইল- ahmsharifullah@yahoo.com

দেখা হয়েছে: 93
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।