|

একজন অস্বিকৃতীপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধার আত্মকাহিনী

প্রকাশিতঃ ১১:৪৬ অপরাহ্ন | মার্চ ১১, ২০১৯

একজন অস্বিকৃতীপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধার আত্মকাহিনী

একজন অস্বিকৃতীপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধার আত্মকাহিনী। ১৫ ফেব্রুয়ারী ১৯৭১ ভাওয়ালপুর সিএমএইচ, পাকিস্তান হইতে ছুটিতে নিজ মাতৃভুমিতে আসার উদ্দেশ্যে রওনা হলাম। আমার আপন ছোট ভাই আজহারুল ইসলাম গিলগিট ইঞ্জিঃ কন্সট্রাকশন ব্যটালিয়ান, পাকিস্তান সেনাবাহিনীতে কর্মরত ছিল। আমরা দুই সহোদর ভাই একসাথেই ছুটিতে তদানিন্তন পূর্ব পাকিস্তানে রওনা হলাম। দেশ ও পরিবারের সাথে মিলনের এক মহা আনন্দ আমাদের ভিতর খেলা করছিল।

আমাদের বাড়ী ঢাকা বাড্ডা এলাকায় অবস্থিত। মা-বাবা, ভাই-বোন ও পরিবারের অন্য সকল সদস্যদের সাথে অত্যন্ত আনন্দে ছুটির দিনগুলো কাটাচ্ছিলাম। ৭ মার্চ ১৯৭১ বিশাল সমাবেস ঢাকার রেসকোর্স ময়দানে। বাড্ডা থেকে ৩ বন্ধু মিলে চলে আসলাম রেসকোর্স ময়দানে। এ যেন মানুষের এক মহাসমুদ্র এবং সবাই অধির আগ্রহে অপেক্ষমান মুক্তি সংগ্রামের অগ্রাধিনায়ক জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বলিষ্ঠ কন্ঠের নির্দেশনার। কখনো ভাবিনি যে আজ আমাদের এইক্ষুদ্র উপস্থিতি মহাকালের এক স্বাক্ষী হয়ে থাকবে।

৭ মার্চ এর ভাষন এর পর থেকে দেশের পরিস্থিতি ক্রমশ উত্তপ্ত হতে থাকে। পশ্চিম পাকিস্তানি সেনা সদস্যদের আক্রমনাত্মক এবং ধংসাত্মক অগ্রাসনের কারনে মা-বাবা, স্ত্রী, ভাই-বোন (১১ জন) নিয়ে আমাদের ঢাকা বাড্ডা বাড়ীতে থাকা অত্যন্ত কঠিন হয়ে উঠে। তার উপর আমার মা বাড্ডা আওয়ামিলীগের একজন সক্রিয় সদস্য ছিলেন।

যেহেতু আমরা দুই সহোদর ভাই সেনা সদস্য ছিলাম এবং আমার বাবা বিমান বাহিনীর একজন অবঃ সার্জেন্ট, তাই আমাদের বাড়ীটি বাড্ডায় আর্মি বাড়ী হিসেবে পরিচিত ছিল। মায়ের আওয়ামী রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত থাকার সুবাদে দলীয় লোকজনের আনাগোনা প্রয়সই থাকতো আমাদের বাড়ীতে। পরিস্থিতি যখন ক্রমশ জটিল হয়ে উঠল, আমরা পরিবারের সবার নিরাপত্তা নিশ্চিত করনে ঢাকার বাড়ী ত্যাগ করে ময়মনসিংহের কিশোরগঞ্জ আমার শশুর বাড়ীর উদ্দেশ্যে সবাইকে নিয়ে যাত্রা করলাম। বাড্ডা বাড়ীটির আসবাপত্র সবকিছু তালাবন্ধ করে এবং সবকিছু পিছনে ফেলে ছুটলাম কিশোরগঞ্জের উদ্দেশ্যে।



আমাদের বাড়ীর টিনের চালের উপর বড় একটি নৌকার প্রতিকৃতি এবং বরান্দায় জাতির পিতার একটি ছবি ঝুলানো ছিলো যা আর নামিয়ে রাখা হয় নাই। আমরা চলে যাওয়ার কয়েকদিন পরেই পাকিস্তান সেনাবাহিনী বাড্ডা এলাকায় অভিজান চালায় এবং আমাদের পরিত্যক্ত বাড়ীতে যখন তারা আসে এবং জাতির জনক ও নৌকা প্রতিকৃতি দেখে তখন প্রচন্ড ক্রোধিত হয় এবং সম্পুর্ন বাড়ীটি পুড়িয়ে ফেলে। উল্লেখ্য যে, পাক সেনারা বাড্ডা এলাকায় শুধুমাত্র আমাদের বাড়ীটিই পুড়িয়ে ফেলে। ঘটনাটি ঘটেছিল এপ্রিল ১৯৭১ সালে।

আমরা সবাই এখন আমার শশুর বাড়ীতে। আমার শশুরের পরিবার বাশঁহাটি, তালজাঙ্গা, কিশোরগঞ্জের অত্্যন্ত প্রশিদ্ধ একটি পরিবার। পরিবারের বড়ছেলে হিসেবে এটা আমার অন্যতম দায়িত্ব বাবার কাধে কাধ মিলিয়ে পরিবারের সবার নিরাপত্তা নিশ্চিত করা এবং সকল সমস্যার সমাধান করা। এদিকে আমার প্রিয় জন্মভূমী একটি রনক্ষেত্রে পরিনত হয়েছে। আমাদের দুই ভাইয়ের ছুটিও প্রায় শেষ। কিন্তু চাকুরিতে আমরা যোগদান করব না বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

এমতাবস্থায় আমাদের পরিচয় হয় লতিফ কমান্ডার, নীলগঞ্জ, কিশোরগঞ্জ এর একজন স্থানীয় আওয়ামী সদস্যের সাথে। সত্যি বলতে পরিবার ছেড়ে আমাদের দুই ভাইয়ের যুদ্ধে যাওয়ার কোন পরিকল্পনাই ছিল না। কিন্তু এটা ছিল আমার বাবার জোর অভিপ্রায়, যে তার দুই সন্তান যুদ্ধে যোগদান এবং মাতৃভুমির জন্য লড়াই করবে। বাবা আমাদের বুঝালেন এবং বিভিন্নভাবে আশ্বস্থ করলেন যে তিনি পরিবারের সকল সদস্যের নিরাপত্তা নিশ্চিত করনে সক্ষম। এদিকে আমরা দুই ভাই বিয়ে করেছি মাত্র কয়েক মাস পূর্বে। তাই সব মিলিয়ে প্রচন্ড মানসিক চাপে পরলাম। কিন্তু পরিশেষে পরিবারের প্রতি সকল দায় দায়িত্ব, ভালবাসা, স্হনেহ-মমতা ত্যগ করে দেশের প্রতি মহান দায়িত্বকে সর্বাধিক প্রাধান্য দিয়ে মুক্তির সংগ্রামে যোগদানের সিদ্ধান্ত নিলাম এবং লতিফ কমান্ডারের স্বরনাপন্ন হলাম।

অক্টোবর ১৯৭১, এক নতুন যাত্রার সূত্রপাত। স্থলপথ অত্যন্ত ঝুকিপূর্ন, তাই নৌকাযোগে রওনা হলাম। হালকা শুকনা চিড়া মুড়ি ও গুর সাথে নিলাম। আমরা দুই ভাই একে অপরের হাত ধরে অগ্রসর হতে লাগলাম। নৌকা যোগে বা কখনো পায়ে হেটে আমরা মহেন্দ্রগঞ্জ পৌছালাম এবং একরাত মহেন্দ্রগঞ্জের মুক্তিক্যাম্পে কাটাই। পরের দিন আমরা ঢালু এলাকায় যাই এবং ১১ নং সেক্টরের সাব সেক্টর কমান্ডার লেঃ (বর্তমান মেজর) তাহের উদ্দিন (অবঃ), বীর প্রতিক এর নিকট যোগদান করি। এ হল আরেকটি নতুন অধ্যায়ের সূত্রপাত। মুক্তিযুদ্ধ শব্দটি বলা, লেখা বা শুনা অতি সহজ ও সাধারন কিন্তু এটির বাস্তবচিত্র যে কত নিষ্ঠুর ও ভয়ংকর তা একমাত্র স্বদৃষ্টিতে যারা দেখেছে তারাই অনুধাবন করতে পারে।

আমরা ১১ নং সেক্টরের সেক্টর কমান্ডার মেজর তাহের আহম্মদ, বীর উত্তম এর অধীনে হালুয়াঘাট, নালীতাবড়ী, ধানাই কামালপুর, বকশীগঞ্জ ও জামালপুর এলাকায় সরাসরি যুদ্ধে অংশ গ্রহন করি। আমাদের কোম্পানী কমান্ডার ছিলেন লেঃ তাহের সাহেব। আমরা আমাদের সেক্টর কমান্ডার ও কোম্পানী কমান্ডারের নেতৃতে¦ বিভিন্ন অপারেশনে অংশ নেই। শত্রু বাহিনীর বিভিন্ন ক্যাম্পসহ তাদের গাড়ীর কনভয়ের উপর আক্রমণ করে ধ্বংশ করি। সেনাবাহিনীর সদস্য হওয়ার সুবাদে বিভিন্ন অপারেশনে আমাদের দুই ভাইয়ের অগ্রনী ভুমিকা পালন করতে হতো। অনিশ্চিত, লোমহর্ষক ও ভয়ঙ্কর সেই দিনগুলোর কথা আজও মনে পরে দুঃস্বপ্নের ন্যায়। রণক্ষেত্রের ভয়ঙ্কর কয়েকটি যুদ্ধের মুহুর্তগুলো এখনো লোম হর্ষখভাবে চোখে ভাসে।



অপারেশনে যাওয়ার পূর্বে আমাদের ক্যাম্পে একটি জিন্দা জানাজার আয়োজন করা হয়েছিল মুসলমান মুক্তিযুদ্ধাদের জন্য। রনক্ষেত্রে যারা মৃত্যু বরন করবে তাদের জানাজার নামাজ বা দাফনের ব্যবস্থা করা সবসময় সম্ভব নাও হতে পারে। তাই এই ব্যতিক্রমি ধর্মীয় আয়োজন করা হয়েছিল। আমরা অনেকেই অত্যন্ত ভয় পেয়েছিলাম কিন্তু সেই সাথে এটি একটি মানসিক দৃঢ় প্রেষনা হিসেবেও কাজ করেছিল। এই আয়োজন আমাদের দৈহিক ও মানসিকভাবে দেশের জন্য জীবন ত্যাগের জন্য প্রস্তুত এবং উৎসাহিত করেছিল প্রচন্ডভাবে।

যাই হোক, ক্যাম্পে আমাদের সময়গুলো কাটছিল প্রশিক্ষন, পরিকল্পনা আর একে অপরের মনোবল বৃদ্ধি করনে। আমরা এখন প্রস্তুত শত্রু বাহীনির সাথে মোকাবেলার জন্য।

উল্লেখযোগ্য মুহুর্তগুলো না বল্লেই নয়, অপারেশন কামালপুর ক্যাম্প।

১ ডিসেম্বর ১৯৭১, আমাদের তাহের কোম্পানী ভারতীয় সেনাবাহিনীর ১ম মারাঠা ব্যাটালিয়ান এল আই ৯৫মাউন্টেন বিগ্রেডের সাথে সংযুক্ত হয়। এই ব্রিগ্রেডের অধিনায়ক ছিলেন বিগ্রেডিয়ার জেনারেল হরদেব সিং। আর ভারতীয় সেনাবাহীনির মেজর ডাফলে ছিলেন আমাদের যৌথ বাহিনীর কোম্পানী কমান্ডার। এই বিগ্রেডে ৩,৫০০-৪,০০০ ভারতীয় সেনা সদস্য এবং আমরা ৩৫০-৪০০ জন মুক্তিযোদ্ধা ছিলাম। আমাদের খাবার ও পানিয় ভারতীয় সেনাবাহিনীই সরবরাহ করত।

২ ডিসেম্বর ১৯৭১, রাত আনুমানিক সাড়ে বারটার দিকে ময়মনসিংহ এর ধানাই কামালপুর সীমান্ত দিয়ে আমরা যৌথ বাহিনী ভারত হইতে বাংলাদেশে প্রবেশ করি এবং ধানাই কামালপুর পাক বাহিনীর ক্যাম্প চারপাশ দিয়ে ঘিরে ফেলি। সেখানে পাকিস্তানী সেনা বাহিনীর সাথে আমাদের প্রচন্ড যুদ্ধ হয়। দুই পক্ষ থেকেই প্রচন্ড মর্টার শেল নিক্ষেপ করা হয়। কিন্তু পাকবাহিনী ক্রমশই দূর্বল হতে থাকে এবং এক পর্যায়ে তারা আমাদের নিকট পরাজয় বরন করতে বাধ্য হয়। এই যুদ্ধে আমার কাছে একটি এলএমজি রাইফেল ছিল। আর আমার ছোট ভাই তখন আরেকটি গ্রুপের সাথে অন্য প্রান্তে ছিল।

ঝিনাইগাতি ব্রিজ অপারেশন। ধানাই কামালপুর ক্যাম্প দথলের পর আমরা বকশীগঞ্জের দিকেঅগ্রসর হতে থাকি । কিন্তু আমাদের মিত্র বাহিনীর বিশালতা এবং ধানাই কামালপুর যুদ্ধের পরাজয় মারাত্মক প্রভাব ফেলে বকশীগঞ্জ পাকসেনা ক্যাম্পের উপর। তাই তারা ক্যাম্প ছেড়ে পলায়ন করে জামালপুর পাক বাহিনীর ক্যাম্পে চলে যায়। ফলে, বকশীগঞ্জ সহজেই শত্রুমুক্ত হয় এবং আমাদের দখলে চলে আশে। বকশীগঞ্জে মিত্রবাহিনীর ক্যাম্পে জামালপুর নিয়ে আমরা পরিকল্পনা করছি । জামালপুরে পাক সেনাবাহিনী অত্যন্ত শক্তিশালী ঘাটি ছিল। এবং আমরা অনুমান করতে পেরেছিলাম যে, ভয়াবহ একটি যুদ্ধ আমাদের জন্য অপেক্ষমান।



জামালপুর মূলযুদ্ধ শুরু হওয়ার ১ দিন পূর্বে ঝিনাইগাতি ব্রিজ ধ¦ংস করার আমরা পরিকল্পনা করি । অপারেশন পরিকল্পনা অনুযায়ী প্রায় ২০০ ভারতীয় সেনা এবং ২৫০ জন মুক্তিযুদ্ধা প্রস্তুত হই। এখানে উল্লেখ্য যে, শুধুমাত্র এই অপারেশটিতেই আমরা দুই সহোদর ভাই একসাথে যেতে পারি নাই। ভারতীয় সেনাসদস্য এই অপারেশনের জন্য একে একে মুক্তিযুদ্ধাদের নাম ধরে ডাকছিল এবং হটাৎ আমার নাম ডাকল কিন্তু আমার ছোটভাইয়ের নাম আর ডাকে নাই। ছোটভাই তখন কান্না শুরূকরে দিল। ভাইজান তুমি আমাকে ছেড়ে যেও না। যদিও আমার মন একদমি চাইছিলনা ভাইকে ছেড়ে যেতে। কিন্তু আমি ছিলাম নিরুপায়। যাই হোক, আমরা ভারতীয় সেনাবাহিনীর নেতৃত্বে ঝিনাইগাতি ব্রিজের দিকে অগ্রসর হই এবং সেখানে আমরা অবস্থান নেই।

একটি পাকসেনা কনভয়ের জন্য আমরা অপেক্ষায় আছি যা উক্ত সময়ে এই ব্রীজটি দিয়ে অতিক্রম করবে। আমার কাছে এলএমজি রাইফেলের অনেকগুলো মেগাজিন ছিল এবং আমার সহযোদ্ধা রায়হান (সম্ভবত) এর নিকট এলএমজি ছিল। হটাৎ রায়হান আমাকে বল্ল ইসলাম ভাই আমার শরীরটা ভাল লাগছেনা আর আপনি সেনাবাহিনীর লোক তাই এলএমজি ফায়ারিংটা আপনিই করেন আর মেগাজিনগুলো আমাকে দেন।

ইতোমধ্যে পাকসেনা কনভয় ব্রীজে চলে এসেছে এবং আমরা তাদের লক্ষ্য করে ফায়ারিং শুরু করি। ভারতীয় সেনাবাহিনী একটি রকেট লাঞ্চার ছুড়ে ব্রীজের দিকে এবং ব্রীজটি ভেঙ্গে ফেলে। আর এদিকে আমরা পাক কনভয়ের দিকে অবিরাম গুলি ছুড়ছি । তাদেরও একটি জীপ গাড়ি উল্টা ঘোরানোর চেষ্ঠা করছিল কনভয়ের মাঝ থেকে। আর তখনি আমি সেটাকে লক্ষ্য করে এলএমজি দিয়ে ব্রাশ ফায়ার শুরু করি।

ক্রমাগত ফায়ারিং এ এক পর্যায়ে গাড়ীটিতে আগুন ধরে যায়। এবং রাস্তা থেকে জীপটি নিচে পরে যায়। এবং গাড়ীতে থাকা পাক সেনারা সম্ভবত সবাই মারা যায়। এজন্য ভারতীয় সেনাবাহিনী আমাকে বিশেষভাবে সাধুবাদ জানায়। এভাবেই অত্যন্ত সফলতার সহিত আমরা অপারেশনটি সম্পন্ন করি।

অপারেশন জামালপুর।

৭ ডিসেম্বর ১৯৭১, আনুমানিক রাত ৩ টার দিকে আমরা জামালপুর পাক সেনাক্যাম্পকে করডন বা ঘেরাও করি। আমাদের পরিকল্পনা অনুযায়ী জামালপুর পাকবাহিনী ক্যাম্পের দক্ষিন দিকে টাঙ্গাইল যাওয়ার রাস্তাটি আমরা ব্লক বা বন্ধ করে দেই। ভারতীয় সেনাবাহিনীর অধিনায়ক একজন প্রতিনিধি পাঠাবেন পাকবাহিনীর ক্যাম্পে পাকসেনাদের আত্মসমর্পনের বার্তা নিয়ে। আমাদের মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝ থেকে স্বেচ্ছায় আগ্রহীদের এগিয়ে আসতে বল্লেন তিনি এবং সর্বপ্রথম জহিরুল হক মুন্সী, বীর প্রতীক (বার) সাহসীকতার সাথে এগিয়ে এসেছিলেন।

সে ভারতীয় সেনাবাহিনীর একটি লিখিত পত্রে পাকবাহিনীর প্রতি আত্মসমর্পনের বার্তা নিয়ে পাকসেনা ক্যাম্পে গিয়েছিলের এবং তাদের অমানুষিক শারিরীক নির্যাতনের স্বীকার হয়েছিলেন। প্রতিত্তরে পাকসেনারা একটি বুলেট এব্ং একটি পত্র লিখে তার হাতে দিয়ে আমাদের ক্যাম্পে ফেরত পাঠাল। যার মর্মার্থ এই ছিল যে, শেষ একটি বুলেট তাদের নিকট থাকা পর্যন্ত তারা আত্মসমর্পন করবে না। সুতরাং যুদ্ধ অনিবার্য। আমরা মিত্রবাহিনী সম্পূর্নভাবে যুদ্ধের জন্যপ্রস্তুত হলাম। এবং শুরূ হল প্রচন্ড যুদ্ধ। ভারতীয় সেনাবাহিনীর রনকৌশল এবং মুক্তিযোদ্ধাদের নির্ভীক অক্রমনে ১ দিন ও ১ রাত ক্রমাগত যুদ্ধের শেষে পরাজয় ও আত্মসমর্পনে বাধ্য হয় পাকবাহিনী। এখানে উল্লেখ্য যে, পাকবাহিনীর উপর প্রতিটি জয় আমাদের মনোবলকে করে তুলেছিল দৃঢ় এবং আরো আত্মপ্রত্যয়ী। আলহামদুলিল্লাহ্ আমরা দুই সহোদর ভাই সম্পুর্ণ যুদ্ধে একই সঙ্গে পাশাপাশি থেকে নির্ভয়ে এবং উচ্চ মনোবল নিয়ে যুদ্ধ করেছি।

অপারেশন টাঙ্গাইল। জামালপুর আমাদের দখলে এবং শত্রুমুক্ত। আমরা মিত্রবাহিনী এখন অগ্রসর হচ্ছি টাঙ্গাইলের দিকে শত্রুমুক্ত করার লক্ষ্যে। আমাদের গোয়েন্দা তথ্য অনুযায়ী টাঙ্গাইল পাকসেনা অত্যন্ত শক্তিশালী এবং যুদ্ধের জন্যও তারা প্রস্তুত সম্পূর্ণভাবে। টাঙ্গাইল থেকে ৪ মাইল উত্তরে থাকতেই আমরা পাকবাহিনীর নিকট হইতে প্রচন্ড বাধার সম্মুখিন হই এবং কোনভাবেই সামনে অগ্রসর হতে পারছিলাম না। আমাদের অপারগতায় বিকেল ৪ টার দিকে আমাদের সহায়তায় এগিয়ে আসে ভারতীয় সামরিক বিমান বহর। ভারতীয় কমান্ডো বাহিনী যোগদান করে এ যুদ্ধে। বিমান থেকে প্যারাসুটের মাধ্যমে ভারী কামান ও অস্ত্র নামায় ভারতীয় সেনাবাহিনী। তাদের সামরিক শক্তির এই প্রদর্শনটি ছিল সত্যই অসাধারন।



এ বিরল দৃশটি দেখে আমাদের মুক্তিবাহিনীর মধ্যে সাহসের সঞ্চারন হয়েছিল এবং মনোবল বৃদ্ধি পেল দারুনভাবে। যার জন্য ভারতীয় সেনাবাহিনীর প্রতি সর্বদাই আমরা কৃতজ্ঞ। যাইহোক, ফিওে আসি মূল কথায়, মিত্রবাহিনীর এই সামরিক শক্তির চিত্র দেখে প্রচন্ড ভয় পায় পাকবাহিনী এবং যুদ্ধের শেষ পরিনিতি যে কি হবে তা বুঝতে আর দ্বিধা রইলনা তাদের। এক পর্যায়ে পাকবাহিনী পলায়ন করে টাঙ্গাইল হইতে ঢাকার উদ্দেশ্যে। মিত্রবাহিনী ও কমান্ডো ফোর্স এবং আমরা মুক্তিযোদ্ধারা একসাথে প্রায় সন্ধা সাড়ে সাতটার দিকে প্রবেশ করি টাঙ্গাইলে।আমরা টাঙ্গাইল শত্রুমুক্ত করি এবং আমাদের দখলে আসে টাঙ্গাইল।

অপারেশন ঢাকা। পরদিন আনুমানিক ৭ টার দিকে আমরা মিত্রবাহীনি রওনা হই ঢাকার উদ্দেশ্যে। বাংলাদেশের সবপ্রান্ত থেকে মিত্রবাহিনী অগ্রসর হতে থাকে ঢাকার দিকে। আমরা অনুমান করতে পেরেছিলাম যে, ঢাকায় যুদ্ধ হওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম কারন পাকবাহিনী একের পর এক পরাজয়ের কারনে তাদের সাহস ও মনোবল অত্যন্ত দুর্বল ও নীচু হয়ে পরেছে। মিত্রবাহিনী চারপাশ দিয়ে ঢাকা ঘিরে ফেলেছে। পাকবহিনীর পলায়নের আর কোনই রাস্তা নেই।

ফলে ১৬ ই ডিসেম্বর মিত্রবাহিনীর কমান্ডার লেঃ জেঃ অররার নিকট জেঃ নিয়াজীর বরবর পাকবাহিনী আত্মসমর্পন করে। আত্মসমর্পনের সেই ঐতিহাসিক অনুষ্ঠানে আমরা দুই সহোদর ভাই উপস্থিত হয়ে স্বশরীরে প্রত্যক্ষ করেছি যা কিনা কালের এক স্বাক্ষি হয়ে থাকবে। এখনো এ সম্মৃতি মানষপটে একাকী বহণ করছি। আমরা মুক্তিযুদ্ধাদের চোখে স্বাধীনতার স্বপ্ন যেন সত্যে প্রতিফলিত হয়েছে। চারপশে বিজয়ের ধ্বনি । জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধুতে আকাশ বাতাস মুখরিত। শুরু হল এক নতুন অধ্যায়, জন্ম হল এক নতুন দেশের। আমাদের বাংলাদেশ। আমাদের স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ- আমি সত্যিই তোমাকে ভালবাসি।

এই অবিস্বাস্য এবং মহা আনন্দের মাঝেও একটি অজানা ভয় বারবার উকি দিচ্ছে, আর তা হল আমাদের মা-বাবা, স্ত্রী, ভাই-বোন কেমন আছে! ইনশা আল্লাহ্ বেচে আছে, ভাল আছে বলে নিজের মনকে বারবার সান্তনা দিচ্ছি। আত্মসমর্পন অনুষ্ঠানের পরপরই আমরা দুইভাই ছুটলাম কিশোরগঞ্জের উদ্দেশ্যে। ঢাকা থেকে কিশোরগঞ্জ যোগাযোগ ব্যবস্থা বলে তখন কিছুই নেই। পায়ে হেটে, কখনো বা রিক্সা বা ভেনে আমরা দুই সহোদর ভাই এগুতে লাগলাম। পথ তো শেষ হতে চায় না।



এদিকে আমাদের পকেটে কোন টাকা-পয়সা নেই। তবে মুক্তিযুদ্ধা বলে দেশের মানুষ প্রতিটি পদক্ষেপে আমাদের বিভিন্ন ভাবে সহযোগিতা করেছে। আমাদের দুই ভাইয়ে গায়ে জামকালো ভারতীয় সেনাবাহিনীর জ্যাকেট, মুখভর্তি দাড়ী আর লম্বা চুল। দেখলেই মনে হচ্ছে সদ্য ফেরত যোদ্ধা। যদিও দেশ স্বাধীন, তারপরেও ঐ মুহুর্তে রাজাকার ও আলবদরদের একটি ভয় ছিল। আমাদের কোম্পানী কমান্ডার এই ব্যাপারে আমাদের সকল বাড়ী ফিরতি মুক্তিযোদ্ধাদের সাবধান করেছিলেন। যাইহোক, অবশেষে দীর্ঘ এই যাত্রা শেষ করে আমরা দুইভাই পৌছালাম বাড়ীতে। আলহামদুলীল্লাহ্, আল্লাহ তায়লার অশেষ রহমতে মা-বাবা, স্ত্রী, ভাই-বোন সবাইকে ভাল অবস্থায় দেখেছি। স্বাধীন বাংলাদেশের পরিপূর্ণ স্বাদ আমি পেলাম। পরিবারের স্নেহ, ভালবাসা আর আনন্দে সিক্ত হলাম।

মুক্তিযোদ্ধা স্বীকৃতি। আমি একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। যুদ্ধ করেছি দেশের জন্য, দেশের স্বাধীনতার জন্য। কিন্তু ২৬ শে মার্চ বা ১৬ ই ডিসেম্বর কোন বিজয়ী উৎসবে একজন মুক্তি যোদ্ধা হিসাবে আমার অংশ গ্রহনের সুযোগ নেই। কারন আমার কাগজপত্রে মুক্তি যোদ্ধার কোন স্বীকৃতি নেই, মুক্তিযোদ্ধা সনদ নেই। স্বাধীনতার দীর্ঘ ৪৮ বছর পরও আমি একজন অস্বীকৃতিপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা।

কেন আমার সনদপত্র নেই?

১। যুদ্ধশেষে ১৬ ডিসেম্বর ১৯৭১ আত্মসমর্পন অনুষ্ঠানের পর নিজেকে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে পরিচয় দেবার জন্য কোন এক সময় সনদের প্রয়োজন পরবে তা ভাবতে পারি নাই। তবে ঢাকা থেকে কিশোরগঞ্জ যাওয়ার পথে যেন কোন সমস্যা না হয় তার জন্য আমাদের মিত্রবাহিনীর কোম্পানী কমান্ডার মেজর ডাফল আমাকে একটি লিখিত প্রত্যয়ন দিয়েছিলেন। কিন্তু বাড়ীতে পৌছানোর পর এর প্রয়োজনীয়তা শেষ হয়েছে ভেবেছিলাম এবং গুরুত্ব দিয়ে এ পত্রটি সংরক্ষন করি নাই।

২। যুদ্ধপরবর্তি বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে যোগদানের জন্য ১৯৭২ সালের মার্চ মাসে সকল সেনা সদস্যদের তলব করা হয়। আমি সেনাবাহিনী মেডিকেল কোর এর সৈনিক ছিলাম। তাই রিপোর্ট করলাম ঢাকা সিএমএইচ। আর আমার ছোট ভাই ইঞ্জিনীয়ার ইউনিট, স্টাফরোড, ঢাকা সেনানিবাসে যোগদান করেছিল। যোগদানের সময় ইঞ্জিনীয়ারিং ইউনিটে আমর ছোট ভাইকে একটি ফরম পুরন করতে দিয়েছিল। তাতে যারা মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহন করেছিল তাদের মুক্তিযোদ্ধা শব্দটি উল্লেখ করতে বলা হয়েছিল এবং সে তা উল্লেখ করেছিল।

কিন্তু সিএমএইচে ফরম পুরনের সময় এই রকম কোন নির্দেশনা ছিল না বিধায় আমি মুক্তিযোদ্ধা শব্দটি উল্লেখ করি নাই। পরবর্তিতে সামরিক বাহিনী থেকেই আমার ভাইয়ের সরকারী গেজেট হয় যা অবসরের প্রায় ১৫ বছর পর যখন আমরা মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে তালিকাভুক্তির জন্য পুনঃ আবেদন করে তখন জানতে পারি। যার কারনে আমার ছোট ভাই একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা হিসাবে স্বীকৃতি পেলেও আমি মুক্তিযোদ্ধা হিসাবে স্বীকৃতি পাই নাই। উল্লেখ্য যে, মুক্তিযোদ্ধা হিসাবে স্বীকৃতি পাওয়ার ২ বছর পর ২০১৬ সালে আমার ছোট ভাই ইন্তেকাল করেন।

৩। আমি পরপর দুই দুইবার মুক্তি যোদ্ধা হিসাবে যাচাইবাচাই প্রক্রিয়া এবং মুক্তিযোদ্ধা হিসাবে তালিকাভুক্তির জন্য বর্তামান সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যে সুযোগ দেন তাতে আবেদন করি। কিন্তু প্রথমবারও কোন অগ্রগতী হয় নাই আর দ্বিতীয়বার কার্যক্রমের সময় গাজীপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে জামুকা থেকে যে যাচাই বাছাই কার্যক্রম পরিচালনা করা হয় তাতে অংশগ্রহন করি এবং কমিটির নিকট সাক্ষাৎকারে উপস্তিত হই। কিন্তু আফসোস, আইনি জটিলতার কারনে সেটিও অনিশ্চিত। প্রাক্তন সেনা সদস্য হিসেবে আমি সেনাবাহিনীর রেকর্ড অফিসেও যোগাযোগ করি তবে আশানুরোপ কোন সুযোগ সেখানেও অবশিষ্ঠ নেই।



বর্তমানে আমি একজন অস্বীকৃতিপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা এবং অবঃ সার্জেন্ট বাংলাদেশ সেনাবাহিনী। আমার বর্তমান বয়স ৭৪, হৃদরোগে আক্রান্ত, অত্যন্ত ক্লান্ত ও পরিশ্রন্ত ও হতাশাগ্রস্থ। কারন ৯ মাসের যুদ্ধে দেশ স্বাধীন হয়েছে। কিন্তু বিগত ৪৮ বছরের বাংলাদেশে এখনো আমি একজন স্বীকৃতি বিহীন একজন মুক্তিযোদ্ধা।

আমি তালিকাভুক্তির জন্য আমার ১১নং সেক্টরের সাব-সেক্টর কমান্ডার মেজর তাহের, বীর প্রতীক (তৎকালীন লেঃ তাহের) স্যারকে অনেক খোজে বের করি। তাঁর নিজ বাসভবন উত্তরা, ঢাকায় যেয়ে দেখা করি। তিনি আমার পরিচয় পাওয়ামাত্রই আমাদের ২ সহোদর ভাইকে চিনে ফেলেন এবং আনন্দ অশ্রুতে বুকে জড়িয়ে নেন। তিনি আমার মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে স্বীকৃতি না পাওয়ার ঘটনা শুনে অত্যন্ত ব্যতিত ও মর্মাহত হন এবং দুঃখ প্রকাশ করেন। তিনি আমাকে একটি লিখিত প্রত্যয়নপত্র প্রদান করেন এবং আমাকে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়ার জন্য জোর সুপারিশ করেন।

পত্রিকা মারফত আমি আমার সহযোদ্ধা জহিরুল হক মুন্সী, বীর প্রতিক (বার) এর ঠিকানা পাই। এবং ছুটে যাই তার নিকট। তিনিও আমার ঘটনা শুনে দুঃখ প্রকাশ করেন এবং একটি প্রত্যয়নপত্রের মাধ্যমে তিনি আমাকে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে তালিকাভুক্তির জন্য লিখিতভােিব সুপারিশ জানান। এভাবেই আমি ছুটে যাই লতিফ কমান্ডারের কাছে কিশোরগঞ্জে, মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রানালয়ে, জামুকাসহ বিভিন্ন অফিসে।



অনেক দিন আমি আর আমার ছোট ছেলে গুলশানস্থ ক্যাপ্টেন তাজুল ইসলাম, তৎকালীন মন্ত্রী, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রনালয় এর বাসার সামনে দিনভর ও মাসের পর মাস অপেক্ষা করেছি । আমাদের বর্তমান মন্ত্রী মহোদয়ের অফিসেও অনেকবার গিয়েছি এবং আশ্বস্থ হয়েছি অনেক আশা বাক্যে। তবে সত্যই আমি এখন ক্লান্ত এবং প্রচন্ডভাবে ক্লান্ত। পাকবাহিনীর নিকট পরাজয় বরন করিনি তবে করেছি ভাগ্যের নির্মমতার হাতে, আত্মসমর্পন করতে বাধ্য হচ্ছি নিজের অপারগতার কাছে।

তবে আমি আনন্দিত এবং অত্যন্ত কৃতজ্ঞ আমাদের জননেত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি, কারন এখনো তিনি বাদ পরে যাওয়া মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকাভুক্তির যে প্রক্রিয়া বা সুযোগ দিয়েছেন তাতে করে আমার মতন অনেক প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধারা নতুন করে তালিকা ভুক্তির সুযোগ পেয়েছেন আলহামদুলিল্লাহ । মহান মুক্তিযোদ্ধের এই ইতিহাস আজও আমি শুনাই আমার ছেলে আর নাতীদের এবং তারা অত্যন্ত গর্বীত তাদের মুক্তিযোদ্ধা বাবা/দাদাকে নিয়ে। হতে পারি আমি দেশ ও জাতির সামনে অস্বীকৃত কিন্তু পরিবার পরিজন, সন্তান এবং নাতীদের নিকট একজন স্বীকৃত বীর মুক্তিযোদ্ধা। আর এটাই আমার সান্তনা।

আবু খায়ের মোঃ নূরুল ইসলাম
(অস্বীকৃতিপ্রাপ্ত একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা)
ওয়ার্ড নং-৪৬, পশু হাসপাতাল সংলগ্ন
চেরাগ আলী মার্কেট
টংগী, গাজীপুর।

দেখা হয়েছে: 83
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • ভারপ্রাপ্ত সম্পাদকঃ ফয়সাল হাওলাদার মোবাইল ০১৭৩২-৩৭৯৯৮২
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।