|

আগামীকাল আবদুল হাই মাশরেকীর ৩০তম মৃত্যুবার্ষিকী

প্রকাশিতঃ 6:56 pm | December 03, 2018

উবায়দুল্লাহ রুমি, ঈশ্বরগঞ্জঃ
আগামীকাল ৪ডিসেম্বর কবি আবদুল হাই মাশরেকীর ৩০তম মৃত্যু বার্ষিকী। ১৯৮৮ সালের এইদিনে ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জের দত্তপাড়ায় নিজ বাড়িতে শেষনিঃশ্বাস ত্যাগ করেন দেশের অন্যতম এই লোক ও পল্লীকবি । দিনটি পালন উপলক্ষে কবি আব্দুল হাই মাশরেকী ট্রাস্টের উদ্যোগে কবির বাড়িতে সকাল ১১টায় কবর জিয়ারত ও স্মরণ সভার আয়োজন করা হয়েছে। ট্রাস্টের পক্ষ থেকে কবিপুত্র সাংবাদিক নঈম মাশরেকী কর্মসূচীতে সকলকে উপস্থিত থাকার জন্য আহবান জানিয়েছেন।

তিরিশ ও চল্লিশ দশকে সাহিত্য জগতে সাড়া জাগানো কবি ও সাহিত্যিক কবি আব্দুল হাই মাশরেকী ১৯০৯ সালের ১এপ্রিল জন্মগ্রহন করেন। শিক্ষা জীবনের প্রথম দিকে তিনি আনন্দমোহন কলেজে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি হয়েছিলেন পরবর্তীতে তিনি কলকাতা পাড়ি জমান। অষ্টম শ্রেণিতে পড়ার সময় তার প্রথম গ্রন্থ ‘চোর’ (গল্পগ্রন্থ) প্রকাশিত হয়।

কলকাতা ও ঢাকায় তিনি এইচএমভি প্রতিষ্ঠানে গীতিকার হিসেবে চুক্তিবদ্ধ হন। তিনি পরবর্তিতে দৈনিক বাংলা পত্রিকার সহ-সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৭৬ সাল থেকে অবসর গ্রহন পর্যন্ত কৃষি মন্ত্রণালয়ের মুখপত্র ‘কৃষিকথা’র সম্পাদক হিসেবে কাজ করেন।

কবি অবদুল হাই মাশরেকী ১৯৫২সালের ভাষা আন্দোলনে ঢাকা ও ময়মনসিংহ অঞ্চলে একজন সক্রিয় কর্মী হিসেবে বাংলা ভাষার দাবীতে সোচ্চার ছিলেন। তার লেখা ‘ওরে আমার ঝিলাম নদীর পানি’ ১৯৬৭-৬৮ সালে তৎকালীন পাকিস্তান সরকারে রাষ্ট্রীয় ‘তঘমাই ইমতিয়াজ’ পুরস্কার লাভ করে কিন্তু তিনি প্রত্যাখান করেন।

তার লেখা অসংখ্য পালাগান, দেশাত্ববোধক গান, কবিতা ও গণসংগীতের মধ্যে উল্লেখযোগ্য ‘আল্লাহ মেঘ দে ছায়া দে,’ ‘রাখাল বন্ধু,’ ‘ফান্দে পরিয়া বগা কান্দে,’ ‘আমার কাখের কলসী,’ ‘হে আমার দেশ,’ ‘কিছু রেখে যেতে চাই’ ‘দুঃখু মিয়ার জারি’।

তার লেখা গানে কন্ঠ দিয়েছেন আব্বাস উদ্দীন আহমেদ, আব্দুল আলীম, নীনা হামিদ, ইন্দ্রমোহন রাজবংশী ও শাহানাজ রহমতুল্লাহ। ১৯৫০ এর দশকে তার অন্যতম উল্লেখযোগ্য দু’টি লেখা ‘কুলসুম’ ও ‘বাউল মনের নকশা’ কলকাতার ননী ভৌমিক কর্তৃক রুশ ভাষায় অনুবাদ হয়।

তাঁর প্রকাশিত উল্ল্যেখযোগ্য গ্রন্থসমূহের মধ্যে রয়েছে ‘রাখাল বন্ধু,’ ‘জরিনা সুন্দরী,’ ‘কিছু রেখে যেতে চাই,’ ‘হে আমার দেশ,’ ‘কুলসুম,’ ‘বাউল মনের নকশা,’ ‘মাঠের কবিতা মাঠের গান,’ ‘দুখু মিয়ার জারি,’ ‘মানুষ ও লাশ,’ ‘নদী ভাঙ্গে,’ ‘ভাটিয়ালী,’ ‘অভিশপ্তের বাণী,’ ‘দেশে দেশে নন্দিতা,’ ‘কাল নিরবধি,’ ‘ডাল ধরিয়া নুয়াইয়া কন্যা,’ ‘হযরত আবু বকর (রাঃ),’ ‘স্বদেশের প্রতি ‘হযরত মোহাম্মদ (সাঃ),’ ‘নতুন গায়েঁর কাহিনী,’ ‘সাঁকো,’ ‘হুতুম ভুতুম রাত্রি,’ ‘আকাশ কেন নীল,’।