|

আমার মা ফকিরের ঔষধ খাইয়ে আমার স্বামীকে ভূলিয়ে রেখেছিলো

প্রকাশিতঃ ৭:৩৫ অপরাহ্ন | ডিসেম্বর ২৫, ২০১৮

মোঃ মহসিন রেজা, শরীয়তপুরঃ

ছয় বছর আগে ২০১৩ বিয়ে হয়েছিলো জেলার সদর উপজেলার পশ্চিম ধানুকা গ্রামে মৃত হামিদ গাজীর ছেলে মোঃ মোবারক গাজী ও একই উপজেলার পূর্ব ধানুকা গ্রামের আঃ রসিদ বেপারীর মেয়ে মোছাঃ মিতু বেগমের সাথে।মোবারককে স্বামী হিসেবে পেয়ে আনন্দেই চলছিলো মিতুদের ছোটো সংসার ২ বছরের মধ্য মিতু-মোবারকের ঘর আলো করতে এসেছে তাদের একমাত্র সন্তান বায়েজিদ হোসেন।

তাদের সন্তান বায়েজিদ আসার দেড় বছরের মধ্যেই কি যেনো হয়ে যায় মিতুর। মিতুর মাথা ঠিক নেই এলোমেলো কথাবার্তা চলা ফেরা তাইভর্তি করা হয় শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে তাতেও ভালো হচ্ছেনা মিতু। এখন কি করা তাই শেষ ভরসা ফকিরের চিকিৎসা নিয়ে গেলো তার মা কমলা বেগম চিকিৎসার জন্য ফকিরের কাছে। কত্তো যে ফকির দেখালো তার ইয়ত্তা নেই তবুও ঠিক হয়না মিতুর শারীরিক ও মানসিক অবস্থা।

এদিকে মিতু ভূলে গেছে তার নবজাতক বায়েজিদকে স্বামীর বেচারার অবস্থা বেহাল টাকা পয়সাও যাচ্ছে স্ত্রীকেও সুস্থ্য করতে পারছেনা। তবুও স্বামী মোবারক স্ত্রীকে ভালো বেসে হাল ছাড়েনি চিকিৎসা চালিয়ে যায় সাথে সন্তানকে দেখতে হয়।

এক পর্যায়ে মিতুর স্বামী কিছু খাইয়েছে তাই মিতু এমন পাগলের মতো হয়ে গেছে এরক গুজব রটায় মিতুর মা কমলা বেগম, সাথে এখন মিতুও যেনো কেমন হয়ে গেছে ভূলে গেছে তার স্বামীকেও। এই ফাঁকে বিয়ের সাড়ে তিন বছরের মাথায় মিতুর মায়ের চাপা চাপাতি তালাক দিয়ে দেয় স্বামী মোবারককে। কিন্তু মিতুর বাবা রশিদ বেপারী ও বড় ভাই বাবুল বেপারী সবসময়ই ছিলো বিবাহ বিচ্ছেদের বিপক্ষে।

এদিকে স্ত্রী ও সন্তানকে হারিয়ে মোবারকও হয়ে যায় প্রায় পাগলের মতো এলাকার স্থানীয়দের মাধ্যমে দরবার শালিশ, কোট আদালত অনেক চেষ্টা করেছে স্ত্রী সন্তানকে ফিরে পেতে কোন চেষ্টাই কাজে লাগেনি তার। তবুও এই আড়াই বছর নতুন সংসার না সাজিয়ে সে শুধু স্ত্রী মিতু ও তার সন্তানকে ফিরে পাবার অপেক্ষায় ছিলেন, এসব কথা কান্না জড়িত কন্ঠে বললেন মোবারক গাজী।

আজ ২৫ ডিসেম্বর ২০১৮ মঙ্গলবার সকাল ৯ টার দিকে কাজী ডেকে ইসলামী মতে নতুন করে বিয়ের মাধ্যেমে স্ত্রী সন্তানকে ফিরে পেয়ে আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়েন মোবারক শহীদ এখন আবার পূরনো সংসার নতুন করে সাজানোর স্বপ্নে বিভোর মোবারক গাজী।

মিতু মোবারকের বিচ্ছেদের এই আড়াই বছরের মধ্যে মিতুকে বিয়েও দেওয়া হয়েছিলো কিন্তু মিতুর মনতো পড়ে রয়েছে সেই আগের স্বামী মোবারকের কাছে।

সেই আড়াই বছরের দূর্বিসহ বিরহের শেকল ভেঙ্গে মিতু আজ বুঝতে পেড়েছে এসব অসুস্থতা ডাক্তার, ফকির আর মোবারক মিতুকে কিছু খাইয়ে পাগল বানানোর ঘটনা এসবই ছিলো তার মায়ের সাজানো নাটক কারণ মোবারক প্রচুর ধন সম্পদের মালিক ছিলোনা বলেই এরকম ঘটনা সৃষ্টি করেছে তার আমার মা।

আজ আমরা আমার বড় ভাই ও চাচাতো দুলা ভাইয়ের সাহায্যে আমার ভূল আমি বুঝতে পেরেছি আবার নতুন ভাবে বিয়ের মাধ্যেমে স্বামী স্ত্রী হতে পেরে আমি অত্যান্ত আনন্দিত হয়েছে বলে জানালেন মোছাঃ মিতু বেগম।

এদিকে মেয়ের জীবন নষ্ট করার অভিযুক্ত মা মোছাঃ কমলা বেগম বিষয়টি অস্বীকার করে জানান এসব ঘটনার জন্য অয় (মেয়ে) নিজেই দায়ী।

দেখা হয়েছে: 37
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • ভারপ্রাপ্ত সম্পাদকঃ ফয়সাল হাওলাদার মোবাইল ০১৭৩২-৩৭৯৯৮২
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।