ইন্টারনেট ব্যবহারে জনসচেতনতা বাড়াতে হবে: জামাল মোস্তফা

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
বর্তমান তথ্যপ্রযুক্তির যুগে ইন্টার ব্যবহারের বিকল্প নেই। তবে তা ব্যবহারে আমাদের সবাইকে আরো বেশি সচেতন হতে হবে। বিশেষ করে শিক্ষার্থী এবং শিশুদের ইন্টারনেট ব্যবহারের সময় অবশ্যই সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে।

না হলে সুফলের পরিবর্তে ইন্টারনেটের কুফল আমাদের তরুণ ও ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য মানসিক রোগের কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে। শনিবার বাংলাদেশ ডিজিটাল স্কুল সোসাইটি (বিডিএসএস) আয়োজিত রাজধানীর মিরপুর ইংলিশ ভার্সন স্কুল এন্ড কলেজে “নিরাপদ ইন্টারনেট ব্যবহার ও শিশুদের মানসিক স্বাস্থ্য শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ভারপ্রাপ্ত মেয়র হাজী জামাল মোস্তফা এ কথা বলেন।

ডিএনসিসি ভারপ্রাপ্ত মেয়র জামাল মোস্তফা বলেন, বর্তমান তথ্যপ্রযুক্তির যুগে এখন আর পিছিয়ে থাকার সুযোগ নেই। ইন্টানেটের বদলে সারাবিশ্ব এখন আমাদের হাতের মুঠোয় চলে এসেছে।যা ব্যবহারের মাধ্যমেআমরা প্রত্যেকেই উপকৃত হচ্ছি। বিশেষ করে তরুণ প্রজন্ম এবং শিক্ষার্থীরা ইন্টারেনেটের বদলে তাদের জ্ঞানের পরিধি নানাভাবে বিস্তার লাভে সক্ষম হচ্ছে।

আবার অনেক সময় না বুঝে কোমলমতি শিশুরা ঘরের কম্পিউটার বা হাতের কাছে থাকা মোবাইল নিয়ে উল্টা-পাল্টা টিপাটিপি করে মূহুর্তের মধ্যেই ক্ষতিকর সাইডগুলোতে চলে যাচ্ছে। এতে শিশুরা অনেক সময় বিপথগামি হয়ে পড়ে। যা পরবর্তীতে শিশুদের মানসিক সমস্যার কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

ডিএনসিসির ভারপ্রাপ্ত মেয়র জামাল মোস্তফা বলেন, শিক্ষা, স্বাস্থ্য এবং খেলাধূলায় বাংলাদেশ বিশ্বের বুকে অনেক এগিয়ে যাচ্ছে। এই অগ্রযাত্রা ধরে রাখতে হলে আমাদেরকে সুশিক্ষিত, সুশৃঙ্খল জাতি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হতে হবে।তিনি অভিভাবকদের উদ্দেশ্যে বলেন, শুধু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ওপর নির্ভর না করে আপনারা সন্তানদের প্রতি বিশেষ যত্ন নিন। যাতে আপনাদের সন্তান কারো প্ররোচনায় জঙ্গিবাদ কিংবা মাদকাশক্ত না হয়। বর্তমান সরকার কঠোর ভাবে জঙ্গিবাদ এবং মাদকের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে।

রাজধানীর ৫০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে আগত শিক্ষক, শিক্ষার্থী এবং অভিবাবকদের সমন্বয়ে দিনব্যাপী এই সেমিনার সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ ডিজিটাল স্কুল সোসাইটির চেয়ারম্যান ও মিরপুর ইংলিশ ভার্সন স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ্য ইয়াহিয়া খান রিজন।

স্বাগত বক্তব্যে তিনি বলেন, আমাদের ভবিষ্যত প্রজন্মদের অবশ্যই ডিজিটাল শিক্ষায় গড়ে তুলতে হবে, তা না হলে তারা অনেক পিছিয়ে পড়বে। আর ডিজিটাল শিক্ষার অন্যতম মাধ্যম হচ্ছে ইন্টারনেট। যার নিরাপদ ব্যবহারের মাধ্যমে এক সময়ে তারা তথ্যপ্রক্তির চরম শিখরে পৌঁছুতে সক্ষম হবে। আর যদি শিশুদের ইন্টারনেট ব্যবহার নিরাপদ না হয়ে, তবে যে কোনো সময়ে বিপথগামীসহ মানসিক রোগের কারণ হতে পারে। তাই এ ব্যাপারে সন্তানদের প্রতি অভিবাবকদের নজরদারি বাড়াতে হবে।

দিনব্যাপী সেমিনারে স্পিকার হিসেবে জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইন্সটিটিউট হাসপাতালের অধ্যাপক ডা. হেলাল উদ্দিন আহমেদ, শিশুবিশেষজ্ঞ সাবরিনা শারমিন, ডুআর’স ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ এম তাহের, মিরপুর ইংলিশ ভার্সন স্কুল এন্ড কলেজের উপাধ্যক্ষ মফিজুর রহমান খান নান্নুসহ আরো অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *