|

ঈশ্বরগঞ্জের বিস্ময়কর সাঁতারো সন্ধান

প্রকাশিতঃ ৬:৩৪ অপরাহ্ন | সেপ্টেম্বর ০১, ২০১৯

ঈশ্বরগঞ্জের বিস্ময়কর সাঁতারো সন্ধান

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলায় নয়ন মিয়া নামে বিস্ময়কর এক সাঁতারো সন্ধান পাওয়া গিয়েছে। সৃষ্টিকর্তার বিস্ময়কর সৃষ্টি। প্রতিভাবান ব্যক্তিকে অন্যদের থেকে ব্যতিক্রম বলে বিবেচনা করা হয়। প্রতিভা যেমন সাধারণ মানুষটিকে অসাধারণ করে তুলে তেমনি তাকে দেয় আলাদা বৈশিষ্ট, স্বতন্ত্র মর্যাদা। এমনই প্রতিভাধর এক যুবক ঈশ্বরগঞ্জের নয়ন মিয়া।

আল্লাহ প্রতিটি মানুষকে দুনিয়ায় পাঠিয়েছেন কোন না কোন এক প্রতিভা দিয়ে। যা দিয়ে মানুষ জয় করে অনেক কিছু।

নাম নয়ন মিয়া এলাকাতে তিনি মনপুরা নামেও পরিচিত। ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার পৌর এলাকার কাকনহাটি গ্রামের বাসিন্দা। ময়মনসিংহ শহরে পুরহিত পাড়া এলাকায় নানা বাড়িতে থেকে এইচএসসি পাশ করেন। ছোট বেলা থেকেই নানান রকম বিরল কাজের প্রতি উনার আগ্রহ ছিল। বিশেষ করে সাঁতার দিতেন একা একা হাত পা বেঁধে। তার অধম্য স্পৃহা আর চেষ্টার ফলশ্রুতিতে তিনি আজ সফল। এখন হাত, পা যেভাবেই বেঁধে উনাকে পানিতে ফেলা হোক উনি সাঁতার দিয়ে পাড়ি দিতে পারে।

সরজমিনে দেখা মিললো তার সাঁতারের দৃশ্য  তার হাত-পা শক্ত করে দড়ি দিয়ে বেঁধে পুকুরে নামানোর পর তিনি সাঁতার দিয়ে পাড়ি দেন বিশাল পুকুরের এপার থেকে ওপারে।

নয়ন মিয়া জানান, এই সাঁতার তিনি কোন প্রশিক্ষণ ও প্রশিক্ষক ছাড়াই শিখেছেন। এক্ষেত্রে কারো সাহায্য-সহযোগী নেননি।
তিনি আরো জানান, যদি তাকে সঠিক প্রশিক্ষন ও তাদারকি করা হয়। তাহলে তিনি এই সাঁতার দিয়ে বিশ্বজয় করতে পারবেন।
এবং বাংলাদেশকে বিশ্বের দরবার মাথা উচু করে তুলতে সক্ষম হবেন।

তাই তিনি সরকার এবং ক্রিড়া বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের দৃষ্টি আকর্ষন করে বলেন এই প্রতিভাকে বিকশিত ও মূল্যয়ান করতে পারেন, এবং চ্যালেঞ্জ দিয়ে বলেছেন এমনটা আর কেউ পারবেনা।

দেখা হয়েছে: 615
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ [email protected]
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।