|

কালের সাক্ষী হয়ে আজোও দাঁড়িয়ে আছে বোদার বদেশ্বরী মন্দির

প্রকাশিতঃ ১২:১৫ অপরাহ্ন | সেপ্টেম্বর ১৬, ২০১৮

কালের সাক্ষী হয়ে আজোও দাঁড়িয়ে আছে বোদার বদেশ্বরী মন্দির

মোঃ তোফাজ্জল হোসেন, বোদা (পঞ্চগড়)
পূরান প্রবাদের গল্পগাঁথায় ও ঐতিহ্যময় ইতিহাসে সমৃদ্ধ পঞ্চগড় জেলার অন্যতম উপজেলা বোদা। এখানে রয়েছে পূরান প্রবাদের মন্দির বদেশ্বরী। ইতিহাসবিদদের প্রাপ্ত তথ্য মতে জানা যায়,বোদা অঞ্চল ছিল বৌদ্ধ ও হিন্দু ব্রাহ্মণ অধ্যুষিত জনপদ। খ্রিস্টীয় দ্বিতীয়-তৃতীয় শতকে পঞ্চগড়সহ সমগ্র উত্তর বঙ্গ মৌর্য সাম্রাজ্যের অর্ন্তভূক্ত ছিল।

বগুড়ার মহাস্থান গড়ে প্রাপ্ত ওই সময়কার শিলালিপি এবং ইতিহাসের পাতা থেকে জানা যায়, তিব্বত অভিযানে ব্যর্থ ইখতিয়ার উদ্দীন মোহাম্মদ বিন বখতিয়ার খিলজি দস্যুদের আক্রমণের ভয়ে তুর্কি ঘোড়সোয়ার বাহিনী নিয়ে বদেশ্বরীর কাছে প্রবাহিত খরস্রোতা নদী করতোয়া পাড়ি দিয়ে নেকমরদের দিকে রওয়ানা কালে সাঁতারে অনভ্যস্থ তুর্কি বাহিনীর অনেক ঘোড় সওয়ার ঘোড়াসহ ডুবে মারা যায়।

বেঁচে যাওয়া অবশিষ্ট সৈন্য নিয়ে অম দস্যুদের ভয়ে খিলজি করতোয়া নদীর তীরে জঙ্গলে একটি ভগ্ন মন্দিরে আশ্রয় নেন। পরে তিনি দেখতে পান একটি ভগ্ন দূর্গ। গবেষকদের মতে এটিই বদেশ্বরী গড়। পাল রাজারা মন্দিরের রক্ষনাবেক্ষণের জন্য নির্মাণ করেন দূর্গ। নদী পার হতে গিয়ে ঘোড়াসহ সৈন্য মারা পড়ায় বর্তমান বোদা উপজেলার মাড়েয়া এবং বড়শশী ইউনিয়নের মধ্যে দিয়ে করতোয়া নদীর ওই ঘাট এখনও ঘোড়া মারা ঘাট নামে প্রসিদ্ধ হয়ে আছে।

পৌরাণিক কাহিনীতে, প্রচলিত প্রবাদে হিন্দুধর্মগ্রন্থ মতে দাপর যুগের শেষের দিকে দশরত রাজার কন্যা মহাদেবের স্ত্রী সতীদেবী যজ্ঞে অত্মাহুতি দিলে,পাগলপ্রায় মহাদেব সতীর শবদেহ নিয়ে স্বর্গে মর্তে তান্ডব শুরু করে। বিষ্ণু এসময় চক্রের আঘাতে সতীর অঙ্গ ছেঁদন করে। চক্রের আঘাতে ছিন্ন ভ্ন্নি সতীর দেহাবশেষের ৫১টি অংশ উপমহাদেশের বিভিন্ন স্থানে পতিত হয়। সতীর পায়ের গোড়ালী যা বদেশ্বরী নামে পরিচিত তা পতিত হয় এই স্থানে।

পৌরণিক কাহিনীর সূত্রে গাঁথা সতীর অঙ্গের নামানুসারে প্রতিষ্ঠিত হয় বদেশ্বরী মন্দির। পাঁচশ বছরের পুরনো এই মন্দিরের নামে বোদার নাম করণ করা হয় বলে ইতিহাস বোদ্ধাদের ধারণা। কোন কোন ইতিহাসবিদদের মতে এক সময় এ অঞ্চল কাঁদায় পরিপূর্ণ ছিল। কাঁদার অন্য অর্থ বোদ। বোদ থেকে বোদা নামের উৎপত্তি। ইতিহাসের পাতায় বোদা অঞ্চলের ইতিহাস আরোও সমৃদ্ধ। ঐতিহ্যের ধারক ও বাহক বোদার বদেশ্বরী মন্দির কালের সাক্ষী হয়ে আজোও দাঁড়িয়ে আছে।

প্রতিদিন দেশী বিদেশী পর্যটকরা এই মন্দির পরিদর্শনে আসেন। সরকারী পৃষ্ঠপোষকতা পেলে ইতিহাসের এই অমূল্য সম্পদ বদেশ্বরী মন্দির প্রতœতাত্ত্বিক ইতিহাস হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। বাংলাদেশের সর্বত্তোরের জেলা তিন দিক দিয়ে ভারতীয় সীমান্ত বেষ্টিত হিমালয় কন্যা পঞ্চগড়ের পর্যটন শিল্পকেও বিশ্বের দরবারে পরিচিত করবে।

দেখা হয়েছে: 160
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ [email protected]
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।