|

ক্ষুধার্ত মানুষের সংখ্যা কমাতে করণীয়: মোমিন মেহেদী

প্রকাশিতঃ ৬:৫০ অপরাহ্ন | অক্টোবর ০৮, ২০১৮

ক্ষুধার্ত মানুষের সংখ্যা কমাতে করণীয়: মোমিন মেহেদী

অর্থনীতি রাখতে সচল চেষ্টা চলে রোজ
জীবনজুড়ে চেষ্টা চলে তাইতো রাখি খোঁজ
খোঁজ রেখেছি সকল ভালোর আলোর পাশে হেসে
এগিয়ে যাবো বাংলাদেশ আর মানুষ ভালোবেসে

ক্রমশ সমস্যাক্রান্ত হচ্ছে আমাদের প্রিয় বাংলাদেশ। স্বাধীনতার ৪৮ বছর পরও রাজনীতির নামে অপরাজনীতি, নীতির নামে দুর্নীতি, ন্যায়ের নামে অন্যায় আর আইনের নামে বেআইনী নিয়মে মমর্তান্তিক হয়ে উঠছে ছাত্র-যুব-জনতা-আবাল-বৃদ্ধ-বণিতার প্রিয় এই মানচিত্র। ছাপ্পান্ন হাজার বাঙালির বাংলাদেশে দারিদ্র্য কমলেও পুষ্টিহীন ও ক্ষুধার্ত মানুষের সংখ্যা বেড়েছে।

খাদ্য নিরাপত্তার অভাব, জ্বালানির নিশ্চয়তা না থাকা এবং অসমতার কারণে এ অবস্থার সৃষ্টি হচ্ছে। মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধি পুষ্টিহীনতা হ্রাসে তেমন প্রভাব ফেলছে না। পুষ্টিহীনতা ও ক্ষুধার্ত মানুষের সংখ্যা কমাতে হলে খাদ্যের সুষম বণ্টন ও মান নিশ্চিত করতে হবে। টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) অর্জনের পথেও এসব বিষয়কে গুরুত্ব দিতে হবে।
বিশ্বজয়ের মত অবিরত সারা বিশ্বে সকল লোভ- মোহহীনতার বাইরের মানুষ হিসেবে ব্যাপক পরিচিত মালয়েশীয় অর্থনীতিবিদ প্রফেসর জোমো কউমি সুন্দরাম-এর মত করে বললে- ২০১২-১৪ সময়ে সারা বিশ্বে ৮০ কোটি মানুষ ক্ষুধার্ত থাকত। ওই সময়ে ২০০ কোটি মানুষ অপুষ্টিতে ভুগত।

এছাড়া ৫ বছরের কম বয়সী ৪ কোটি ২০ লাখ শিশু অতিরিক্ত ওজনধারী। আর ২১০ কোটি প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের অতিরিক্ত ওজন। তার মতে, খাদ্যাভ্যাসের কারণে নানা ধরনের রোগবালাইয়ের শিকার হয় মানুষ।’ বলতেই পারি। কেননা, নতুন প্রজন্মের রাজনীতিক হিসেবে বরাবরই আমি ভিন্ন। অন্যভাবে বাংলাদেশকে নিয়ে ভাবি, যেভাবে ভাবেনি কেউ, ভাবেনি কখনো আগে। আর তাই আমিও জোমো কউমি সুন্দরামের মত করে বলতে চাই- মানুষের জীবন রক্ষায় অর্থনীতিতে তৃতীয় বৃহত্তম বোঝা হল অতিমাত্রায় স্থূলতা। এর আর্থিক মূল্য ২ ট্রিলিয়ন ডলার। অন্য দুটি হল সশস্ত্র সংঘাত ও ধূমপান। এ দুটি বোঝার আর্থিক মূল্য ২ দশমিক ১ ট্রিলিয়ন ডলার করে। তিনি মত দেন, খাদ্য নিরাপত্তার জন্য উৎপাদন ও সরবরাহ বৃদ্ধির পাশাপাশি কেমিক্যাল ব্যবহারে সতর্ক থাকতে হবে।

বাংলাদেদশের রাজনীতির পাশাপাশি সমসায়িক বিভিন্ন বিষয়ে গবেষণার আলোকে এই কথা বুঝতে পেরেছি যে, বিশ্বে পুষ্টিহীনতা কমাতে প্রয়োজন অনুযায়ী অর্থায়ন হচ্ছে না। আর প্রফেসর জোমো আমার সেই বিষয়টিতে একমত হয়েছেন ঠিক এভাবেই- খাদ্য নিরাপত্তা, জলবায়ু পরিবর্তন এবং পৃথিবী ব্যাপী অসমতা দূরীকরণে যেসব পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে, তা কতটা কার্যকর তা নিয়েও প্রশ্ন রয়েছে। এসব সমস্য দূরীকরণে পৃথিবীব্যাপী যে সম্পদ দরকার তা বিনিয়োগ না করে বরং অনেক ক্ষেত্রে উল্টোটাই করা হচ্ছে। পৃথিবীব্যাপী দারিদ্র্য বিমোচনের পরিবর্তে অভিবাসন সমস্যার দিকে বেশি নজর দেয়া হচ্ছে।

বর্তমানে অবশ্য সত্যিকথা বলতে গেলে অনেক বাঁধা আসে, তবু বিন¤্র শ্রদ্ধার সাথে সত্যটা আমাকে বলতেই হবে- বাংলাদেশে প্রবৃদ্ধি বাড়লেও বেকারত্ব কেন কমছে না- এমন প্রশ্নের জবাবে প্রফেসর জোমো বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে জিডিপি প্রবৃদ্ধি বাড়ার পাশাপাশি কর্মসংস্থান বাড়ে এবং বেকারত্ব কমে। কিন্তু বাংলাদেশে কেন এমন হচ্ছে সেটি বলতে পারব না।

তবে বাংলাদেশে দারিদ্র্য কমছে বলে বিভিন্ন রিপোর্টে উঠে আসছে। কিন্তু পুষ্টিহীনতা যে কমছে না সেটা উঠে আসছে না। অনেকে বলে এ দুটির মধ্যে সম্পর্ক কম। বাস্তবে এ দুটির মধ্যে সম্পর্ক রয়েছে। বাংলাদেশে হয়ত কোনো কারণে পুষ্টিহীনতার বিষয় হিসাবে আসছে না। বাস্তবতা হল পুষ্টিহীনতা খুব বেশি দূরীকরণ হয়নি। বাংলাদেশ দারিদ্র্যতায় উন্নতি করলেও পুষ্টি উন্নয়ন তেমন ঘটাতে পারেনি বরং অপুষ্টি বেড়েছে। তাই পুষ্টিহীনতা দূর করতে নজর দেয়া প্রয়োজন। একই সাথে সরকারের খাদ্য ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে আরো একটি দায়িত্ব তুলে নিতে হবে নিজের মত করে। কথা বলার সাথে সাথে থাকতে হবে দুর্নীতির বিরুদ্ধে।

তা না হলে বরাবরের মত অবিরত বলতেই হবে যে, পরিবেশ বিপর্যয় প্রতিরোধে মধ্যবর্তী পদ্ধতি গ্রহণের সুযোগ নেই। এমনকি এলডিসি থেকে বের হয়ে গেলেও এটা করা যাবে না। এ সুযোগ নেয়ার অবকাশ নেই যে, উন্নত দেশগুলো এটা করছে, ওটা করছে, তাই বাংলাদেশকেও করতে হবে। পরিবেশ বিপর্যয় রোধে কয়লাভিত্তিক বা তেলভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপন থেকে সরে আসতে হবে। বাংলাদেশকে নজর দিতে নবায়নযোগ্য জ্বালানির দিকে। একই সাথে গ্রামীণ অঞ্চলে বাংলাদেশ সোলার সিস্টেম চালু করেছে এটা ভালো। সৌরবিদ্যুতে কিছুটা উন্নতি হলেও বায়ুভিত্তিক বিদ্যুৎ উৎপাদনে বাংলাদেশ এখনও পিছিয়ে।

আমাদের দেশ সত্যিকারের সোনার বাংলাদেশ হতে পারে একটু ঘুরে দাড়ানোর চেষ্টা করলেই। কেননা, অসমতা যেকোনো দেশের প্রবৃদ্ধি কমায়। সব ধরনের পরিসংখ্যান বলছে, বিশ্বব্যাপী অসমতা বাড়ছে। মানুষের যত উন্নয়ন হচ্ছে, প্রযুক্তির ব্যবহার কিংবা শিল্পায়ন যতই হচ্ছে, অসমতা ততই বাড়ছে। তিনি বলেন, উন্নয়নশীল দেশ বা স্বল্পোন্নত দেশগুলো তাদের আয়ের জন্য যেসব পণ্যের ওপর নির্ভরশীল, সেসব পণ্যের দাম বিশ্বব্যাপী ক্রমেই কমে যাচ্ছে। কিন্তু স্বত্ব বা প্যাটার্ন সংক্রান্ত কারণে উন্নত দেশগুলোর পণ্যের দাম খুব বেশি কমছে না। কেননা, বাংলাদেশ গার্মেন্টস পণ্যের দাম বিশ্বব্যাপী কমার নজির থাকলেও উন্নত দেশের উৎপাদিত মোবাইলের দাম কিন্তু সে হারে কমছে না। এর কারণেও অসমতা বাড়ছে।

এছাড়া অসমতা তৈরিতে ভূমিকা রাখছে নদীভাঙন ও পরিবেশ বিপর্যয়ের প্রভাব। এ অবস্থা থেকে উত্তরণে উন্নত দেশগুলোর বিনিয়োগ উন্নয়নশীল দেশগুলোতে আনতে হবে; কিন্তু এক্ষেত্রে যোগ্য নেতৃত্বের প্রয়োজন। আরেকটি বিষয় আমাদেরকে কোন রকম দেরি বা আলসেমি না করে মনে রাখতে হবে- তিনি আরও বলেন, সারা বিশ্বে বৈষম্য বাড়ছে। গরিবের তুলনায় ধনীরা বেশি সম্পদশালী হচ্ছে। তিনি বাংলাদেশের মতো সবচেয়ে গরিব ২০টি দেশের সঙ্গে সবচেয়ে ধনী ২০টি দেশের তুলনা করেন। তিনি বলেন, ১৯৬০-৬২ সালের দিকে সবচেয়ে গরিব ২০টি দেশের মাথাপিছু জিডিপি ছিল ২১২ ডলার। তখন সবচেয়ে ধনী ২০টি দেশের মাথাপিছু জিডিপি ছিল ১১ হাজার ৪১৭ ডলার। চার দশক পর ২০টি গরিব দেশের মাথাপিছু আয় দাঁড়ায় ২৬৭ ডলার। মাথাপিছু জিডিপি বেড়েছে মাত্র ২৫ শতাংশ।

অন্যদিকে একই সময়ে ধনী ২০টি দেশের মাথাপিছু আয় বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩২ হাজার ৩৩৯ ডলার। ৪ দশকে ধনী দেশগুলোর মাথাপিছু জিডিপি তিনগুণ বেড়েছে। সেই অর্থে আমাদের উন্নয়নে নিবেদিত থাকার সময় এখনই। উন্নয়নের নামে দলীয় লোকদের আঙ্গুল ফুলে কলাগাছে পরিণত হওয়ার সুযোগ দেয়ার নাম মাানবসেবা বা দেশ সেবা নয় বলেই আমি মনে করি। আর তাই চাই আমাদের দেশে বিনোয়গ বাড়ুক। যেভাবে চীন বর্তমানে আমেরিকায় অনেক বড় বিনিয়োগ করছে। চীন চাইলে আমাদের মতো দেশগুলোতে বিভিন্ন খাতে আরও বেশি বিনিয়োগ করতে পারে। তবে চীনের বিনিয়োগ বাড়াতে এ অঞ্চলের দেশগুলোর নেতৃত্বকে আরও জোরাল পদক্ষেপ নিতে হবে।

এই পদক্ষেপের প্রত্যয়ে অগ্রসর হই প্রতিদিন। প্রতিদিন লিখি, প্রতিাদিন শিখি। প্রতিদিন বলি, প্রতিদিন চলি সম্ভাবনার রাজনীতি-অর্থনীতি-শিক্ষা-সাহিত্য-সংস্কৃতি আর সমাজনীতি নিয়ে। যারা থাকতে চান আলোর পথে, তারা চলুন ভালোর পথে। তৈরি করুন নীতিবান স্বচ্ছ জীবন…

মোমিন মেহেদী
চেয়ারম্যান
নতুনধারা বাংলাদেশ-এনডিবি

দেখা হয়েছে: 38
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • ভারপ্রাপ্ত সম্পাদকঃ ফয়সাল হাওলাদার মোবাইল ০১৭৩২-৩৭৯৯৮২
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।