|

গংগাচড়ায় মনিটরিং এর অভাবে লাগামহীন কাচাঁ বাজার

প্রকাশিতঃ ১০:০৯ অপরাহ্ন | নভেম্বর ০৬, ২০১৯

গংগাচড়ায় মনিটরিং এর অভাবে লাগামহীন কাচাঁ বাজার

নিজস্ব প্রতিবেদক (রংপুর): রংপুরের গঙ্গাচড়া উপজেলা জুড়ে ছোট বড় মিলে প্রায় শতাধিক হাট বাজার রয়েছে। কোথায় সারাদিন ধরেই বসে কাচাঁ বাজারের দোকান আবার কোথাও সন্ধ্যা হলেই বসে যায় জমজমাট কাচাঁ বাজারের হাট। গ্রামের দূর দূরন্ত জায়গা থেকে ঐতিহ্যবাহী ও সান্ধকালীন এই হাট গুলোতে সব্জী সহ বিভিন্ন ধরনের আবাদী কৃষি পন্য বিক্রি করতে নিয়ে আসেন কৃষকরা ।

গংগাচড়া নদী কেন্দ্রীক উপজেলা হওয়াতে উপজেলার এক তৃতীয়ংশ জমি দখল করে আছে চরাঞ্চল। চরাঞ্চলের কৃষকরা বছরের নির্দিষ্ট সময় ছাড়া সব্জি চাষ করতে পারে না ফলে বাহির থেকে কাচাঁ বাজার সহ সব্জি আমদানি করে আনেন ব্যবসায়ীরা আর এ সুযোগটি কাজে লাগিয়ে সব্জি বিক্রিতারা একধরনের সিন্ডিকেট তৈরী করে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে হাকিয়ে নিচ্ছে চরা মূল্য।

অন্য দিকে উপজেলা প্রশাসনের বাজার মনিটরিং এর কোন ব্যবস্থা নেই বললেই চলে। উপরন্তু সব্জি চাষের জন্য কৃষি দফতরের সরকারি উপাদান প্রদানে উদাসীনতা ও কৃষকরা সময় মতো পরামর্শ মূলক প্রশিক্ষণ না পাওয়ার জন্য অধিকাংশ কৃষক অধিক লাভের আশায় ঝুকে যাচ্ছে বিষ বৃক্ষ নামক তামাক সহ লাভজনক ভূট্টা, পাট সহ বিভিন্ন কৃষি পন্য উৎপাদনে।

উপজেলার গ্রামগুলোতে উল্লেখযোগ্য সব্জি উৎপাদন না হওয়ায় রংপুর শহরের পাইকারি সব্জির মোকাম সহ অন্যান্য উপজেলা থেকে কাচাঁ বাজার সহ বিভিন্ন ধরনের মৌসুমী সব্জি সারাবছর ধরেই অধিক মূল্যে কিনে আনেন অধিকাংশ বাজারের কাচাঁমাল ব্যবসায়ীরা। আর যার কারনে গোটা উপজেলায় বছর জুড়ে লাগামহীন থেকে যায় কাচাঁ বাজার সহ শাকঁ সব্জি’র দাম।

গত এক সপ্তাহের সবধরনের সব্জির দাম বেড়েছে বিদুৎ গতিতে গেল সপ্তাহে যেখানে বর্তমান দেশের আলোচিত পেঁয়াজের বাজার ছিল ৯০ টাকা কেজি সেখানে এখন ১৩০ টাকা, রসুন বিক্রি হচ্ছে কেজি ১৬০/১৮০ টাকা, আদা ১৮০ টাকা কেজি দরে, আলু ৩০/৪০ টাকা, ফুল কপি ৪০ থেকে হয়েছে ৬০ টাকা,পাতা কপি ৪০/৫০ টাকা, শিম বিক্রি হচ্ছে ৬০/৭০ টাকা,কাচাঁ মরিচের ঝাঁঝ বছর জুড়ে বরাবরই বাজারগুলোতে থাকে ৪০/৮০ কেজি,পটল ৬০/৭০ টাকা,বেগুন ৩০ টাকা থেকে বেড়ে হয়েছে ৪০ টাকা,মুলা ৪০ টাকা,ধনে পাতা ১২০/১৫০ টাকা কেজি,

নিম্ন আয়ের অনেক ক্রেতা কাচাঁ বাজার করতে এসে দাম বেশী দেখে হতাশায় আপেল সহ বিভিন্ন ফল কিনে বাড়ি ফিরছেন তারা আক্ষেপ এর সুরে বলছেন এখন থেকে কাচাঁ বাজার না খেয়ে ফল খেতে হবে। যদি কাচাঁ বাজারের দামে ফল পাওয়া যায় তাহলে শুধু ফল খেতে অসুবিধা কোথায়। বাজার করতে আসা নাদিরা আক্তার নামে একজন নারী ক্রেতার সঙ্গে কথা বললে তিনি একপ্রকার মজার সুরে জানান কাচাঁ বাজার করতে এসেছিলাম কিন্তু কাচাঁ বাজারের যে অবস্থা তাই আপেল কিনলাম। তিনি বলেন বাহিরের দেশের লোকেরা তো ফল খেয়ে বেঁচে থাকে আমরাও একটু চেষ্টা করি ।

এদিকে সবধরনের সব্জির চেয়ে দিন দিন বাড়ছে পেঁয়াজের দাম। ব্যবসায়ীরা বলছেন, পাইকারী বাজার ও মোকাম থেকে পেঁয়াজ বেশি দামে কেনায় তাদেরও বেশি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে। এখানে তাদের কিছুই করার নেই। আর ক্রেতাদের অভিযোগ ব্যবসায়ীদের কাছে তারা এক প্রকার জিম্মি হয়ে পড়েছেন।

সোমবার গঙ্গাচড়া বাজার ঘুরে দেখা যায়, অধিকাংশ দোকানে পেঁয়াজ কম। দোকানীরা কারণ হিসেবে বলছেন, দাম বেশি আর পাইকারী বাজারে সংকটের কারণে তারাও পেঁয়াজ পাচ্ছেন না। ফলে তাদের বেশি দামে পেঁয়াজ কিনতে হচ্ছে।

গঙ্গাচড়া বাজারের কাচাঁ মাল ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায় পাইকারী বাজারে পেঁয়াজ সরবরাহ কম থাকায় এই পেঁয়াজ বেশি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে। সাধারণ ক্রেতাদের চাওয়া কৃষি বিভাগ ও উপজেলা কৃষি দফতর কৃষকদের কৃষি পন্য উৎপাদনে উদ্বুক্ত করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা ও শাক সবজি উৎপাদন করতে কৃষকদের সময় উপযোগী প্রশিক্ষণ প্রদান সহ কৃষকদের আরো বেশী করে সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধি করবে। তারা আশা করছেন বাজার মনিটরিং এর মাধ্যমে দাম সহনীয় রাখতে গংগাচড়া উপজেলা প্রশাসন সব ধরনের সব্জি’র দাম দ্রুত ক্রেতাদের নাগালের মধ্যে নিয়ে আসবে।

দেখা হয়েছে: 102
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ [email protected]
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।