|

গংগাচড়া বাজারে ফলের সমারোহ থাকলেও দাম চড়া

প্রকাশিতঃ ৬:৫১ অপরাহ্ন | জুন ২২, ২০১৯

গংগাচড়া বাজারে ফলের সমারোহ থাকলেও দাম চড়া

গংগাচড়া প্রতিনিধিঃ জ্যৈষ্ঠ’র শুরু থেকেই গংগাচড়া উপজেলার হাট-বাজারে ফল আসতে শুরু করলেও দাম খুবই চড়া। বিক্রেতারা বলছেন, মৌসুমের শুরু হওয়ায় দেশীয় ফলের দাম এখন বেশি, তবে কয়েকদিনের মধ্যে দাম হাতের নাগালে চলে আসবে বলে তাদের ধারণা।

ইতোমধ্যে গংগাচড়ার হাট বাজারে আম, কাঁঠাল, লিচু,জাম, আনারসসহ দেশীয় ফলের সমাহার ঘটেছে। দেশীয় ফলের পাশাপাশি বাজারে বিদেশী ফলেরও চাহিদা আছে। তবে, মৌসুম শুরু হওয়াতে দেশী ফলের দিকেই ভোক্তাদের বেশি ঝোঁক দেখা গেছে। দাম বেশি হলেও তারা অনায়াসে তা কিনে নিয়েও যাচ্ছেন।

গংগাচড়ার বিভিন্ন হাট বাজারে ফলের দোকানে গিয়ে দেখা গেছে, দেশের বিভিন্নস্থান এবং বাগান থেকে আসছে মৌসুমী ফল। বাজারে কাঁঠাল, আনারস, আম,জাম, লিচু ইত্যাদি ফল আসছে। খুচরা বিক্রেতারা চাহিদা অনুসারে বাগান ও শহর থেকে পাইকারি দরে ফল কিনে নিয়ে এসে গ্রামের বিভিন্ন এলাকায় অথবা রাস্তার পাশে ফুটপাথে বিক্রি করছেন।

উপজেলার বিভিন্ন বাজারের ফল দোকানগুলোতে দেখা গেছে, রাজশাহীর গুটি আম ১০০ থেকে ১৫০ টাকায়, লিচু শ’ প্রতি ২০০ থেকে ৩০০ টাকায়, কাঁঠাল আকারভেদে ১৫০ থেকে ৩০০ টাকায়, আনারস প্রতি জোড়া ৮০ টাকা থেকে ১৫০ টাকায় এবং তরমুজ আকারভেদে ১৮০ থেকে ৩৫০ টাকায়, জাম ৮০ থেকে ১০০ টাকা, নটকোন ৬০থেকে ৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

এছাড়া ফিজি আপেল প্রতিকেজি ২২০ থেকে ২৪০, গালা আপেল ২৫০থেকে ২৮০ টাকা , আংগুর প্রতি কেজি ২৫০ থেকে ৩০০ টাকা, ডালিম প্রতিকেজি ২২০ থেকে ২৮০, পেয়ারা প্রতিকেজি ৮০ থেকে ১২০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে বলে জানিয়েছেন দোকানিরা।

গংগাচড়া বাজারের ভ্রাম্যমাণ ফল বিক্রেতা সুরুজ মিয়া জানালেন, তিনি প্রতি কেজি আম ১০০ টাকা দরে আর লিচু শ’২০০ টাকায় বিক্রি করছেন। বাজারে বিভিন্ন ধরনের মৌসুমী ফল এখনও কম আসছে তাই দাম কিছুটা বেশি। তবে কয়েক দিনের মধ্যে দাম কমে যাবে বলে জানান তিনি।

বাজারে ফল কিনতে আসা একজন ব্যাংক কর্মকর্তা জানালেন, ‘তিনি আম কিনেছেন।তিনি ক্ষোভের সুরে বলেন গংগাচড়া উপজেলার বাজারে তুলনা মূলক অন্য উপজেলার বাজারের চেয়ে সব ধরনের ফলের দাম বেশী। তবে আম এখনও বাজারে পর্যাপ্ত নয় তাই হয়তো দামও বেশী । মৌসুমের প্রথম হওয়াতে তা কিনে নিয়ে যাচ্ছি ।’

ফল বিক্রেতা বাদশা মিয়ার কাছে দাম বেশীর কারন জানতে চাইলে তিনি বলেন, মৌসুমের প্রথম হওয়াতে ফলের দাম কিছুটা বেশি তাছাড়া শহরের আরোদগুলোতে দাম বেশী হওয়ার কারণে আমাদের বেশী দামে বিক্রি করতে হচ্ছে । তারপরও ক্রেতাদের চাহিদা থাকায় বিক্রিও বেশি হচ্ছে। যত দিন যাবে বাজারে দেশি ফল আসবে, তখন দামও কমে যাবে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

দেখা হয়েছে: 76
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।