|

জিওব্যাগ ডাম্পিংয়েও থামছে না মেঘনার ভাঙন

প্রকাশিতঃ ২:৩২ অপরাহ্ন | অগাস্ট ১১, ২০১৯

জিওব্যাগ ডাম্পিংয়েও থামছে না মেঘনার ভাঙন

মো. রুবেল হোসেন, লক্ষ্মীপুরঃ লক্ষ্মীপুরে মেঘনা নদীর ভাঙন তীব্র হয়ে উঠেছে। প্রতি মুহুর্তেই ভাঙছে নদীর তীরের কোন না কোন অংশ। শীঘ্রই তীর রক্ষা বাঁধ নির্মাণ করা না গেলে বিস্তির্ণ জনপদ তলিয়ে যাবে।

ইতোমধ্যে ভাঙন ঠেকাতে জরুরী ভিত্তিতে কমলনগর উপজেলার লুধূয়া মাছঘাট এলাকায় নদীতে বালুভর্তি জিওব্যাগ ডাম্পিং করা হচ্ছে। তবে মেঘনার গভীরতা ও তীব্র স্রােতে সব বিলীন হয়ে যাচ্ছে।

সরোজমিনে গিয়ে দেখা যায়, কমলনগর উপজেলার চরফলকন ইউনিয়নের লুধূয়া মাছঘাটের দক্ষিণে ও উত্তরে ২০০ মিটার করে ৪০০ মিটার এলাকায় বালু ভর্তি জিওব্যাগ ডাম্পিং করা হচ্ছে। গত কয়েকদিন থেকে দক্ষিণ দিকের কাজ শুরু হয়েছে। কাজও ভালো দেখা যাচ্ছে। উন্নতমানে জিওব্যাগ ব্যবহার করছে বলে স্থানীয়রা জানায়।

তবে নদীর স্রােতের সঙ্গে টিকে থাকবে কিনা তা নিয়ে সংশয় রয়েছে। তীর রক্ষা বাঁধ নির্মাণ ছাড়া ভাঙন ঠেকানো সম্ভব হবে না। মাছ ঘাটের পাশেই একটি স্কুল, মসজিদ ও একটি কমিউনিটি ক্লিনিক রয়েছে। বাঁধ না হলে নদীর তীব্র ভাঙনে এই প্রতিষ্ঠানগুলো অচিরেই বিলীন হয়ে যাবে।

এদিকে নদীতে ভাঙন দেখা দিলেই তাৎক্ষণিক প্রতিরোধে কাজ করা হবে বলে সম্প্রতি লক্ষ্মীপুর-৪ (রামগতি ও কমলনগর) আসনের সংসদ সদস্য মেজর (অবঃ) আবদুল মান্নান স্থানীয়দের আশ্বাস দিয়েছে। সেই লক্ষ্যেই লুধূয়া মাছঘাট মেঘনা এলাকায় জিও ব্যাগ ডাম্পিং করা হচ্ছে। বর্ষা শেষে ১৬ কিলোমিটার তীর রক্ষা বাঁধ নির্মাণ করার আশ্বাসও দিয়েছেন এমপি।

জেলা পানি উন্নয়ন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ভাঙন ঠেকাতে কমলনগরের লুধূয়া মাছঘাটে নদীর ৪০০ মিটার এলাকায় বালু ভর্তি জিও ব্যাগ ডাম্পিংয়ের কাজ শুরু হয়েছে। এনিয়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। জরুরী ভিত্তিতে এ কাজ স্থানীয় ঠিকাদারদের দিয়ে করানো হচ্ছে। তবে পানি উন্নয়ন বোর্ড ও কমিটির লোকজন কাজটি তদারকি করছেন।

চর ফলকন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম হাওলাদার জানান, কাজের গুণগতমান ভালো হলেও মেঘনার করাল গ্রাসে বালু ভর্তি জিও ব্যাগ তলিয়ে যাচ্ছে। এখানে মেঘনার গভীরতা বেশি। এতে প্রবল স্রােতের কারণে সব বিলীন হয়ে যাচ্ছে। দ্রুত বাঁধ নির্মাণ করা না গেলে পুরো এলাকা নদী গর্ভে হারিয়ে যাবে। তিনি ওই কাজ নিয়ে গঠিত কমিটির সদস্য।

লক্ষ্মীপুর পানি উন্নয়ন বোডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ মুসা বলেন, বর্ষার প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্থ এলাকায় বালু ভর্তি জিওব্যাগ ডাম্পিং করে ভাঙন ঠেকানোর চেষ্টা করা হচ্ছে। বর্ষা শেষে নদী তীর রক্ষা বাঁধ নির্মাণ হবে। সে লক্ষ্যেই আমাদের কার্যক্রম চলছে।

প্রসঙ্গত, প্রায় ২৭ বছর ধরে লক্ষ্মীপুরের মেঘনা নদী ভাঙছে। এরমধ্যে রামগতি ও কমলনগরের বিস্তির্ণ এলাকা এখন নদীগর্ভে। এতে বিলীন হয়ে গেছে ৩১টি বড় হাট-বাজার, ৩৫ শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান, ৩০টি সাইক্লোন শেল্টার, ৫২টি মোবাইল নেটওয়ার্ক টাওয়ার, ৪০০ কিলোমিটার কাঁচা-পাকা সড়ক, ৩৭ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ বিলীন হয়ে গেছে। ভাঙনে তলিয়ে গেছে ৫০ হাজার একর ফসলি জমি ও ৪৫ হাজার ঘরবাড়ীসহ কয়েক হাজার কোটি টাকার সরকারি-বেসরকারি স্থাপনা।

দেখা হয়েছে: 117
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ [email protected]
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।