|

ডায়রিয়া ও নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে তোফা

প্রকাশিতঃ ৫:৩৪ অপরাহ্ণ | জানুয়ারি ০৬, ২০১৯

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল, গাইবান্ধা:

দেশব্যাপী আলোচিত কোমরে জোড়া লাগানো যমজ কন্যা শিশু তোফা-তহুরার মধ্যে ডায়রিয়া ও নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়েছে তোফা। অসুস্থ অবস্থায় তোফা গাইবান্ধা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তবে ছোটবোন তহুরা সুস্থ আছে।

শনিবার (৫ জানুয়ারি) সকালে পরিবারের লোকজন তোফাকে সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। এরআগে, গত বুধবার থেকে তোফা সুন্দরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি ছিল।

তোফা-তহুরার বাবা-মা জানান, ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে গত বছরের ৪ ডিসেম্বর গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জের কাশদহের নানার বাড়িতে নিয়ে আসা হয় তোফা ও তহুরাকে। এরপর প্রায় একমাস দু’জনে ভালো ছিল।

ডায়রিয়া, শ্বাসকষ্ট ও কাশি শুরু হলে তোফাকে গত বুধবার রাতেই সুন্দরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। পরে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের শিশু সার্জারি বিভাগের অধ্যাপক ডা. শাহনূর ইসলামের পরামর্শে শনিবার সকালে গাইবান্ধা সদর হাসপাতালে আনা হয় তোফাকে। পরে চিকিৎসকের পরামর্শে তাকে ডায়রিয়া ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়।

জেলা হাসপাতালের জুনিয়র কনলালটেন্ট (শিশু) ডা. আবুল আজাদ মন্ডল বলেন, তোফার পাতলা পায়খানা, শ্বাসকষ্ট ও কাশি হচ্ছে । আমরা একদিন এখানে রাখবো। ডা. শাহনূর ইসলামের সঙ্গে কথা হয়েছে। প্রয়োজন হলে তোফাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হবে।

জেলা হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক (ভারপ্রাপ্ত) ডা. আ. খ. ম. আসাদুজ্জামান বলেন, দু’বোনের মধ্যে বড় বোন তোফা অসুস্থ। সে শিশু চিকিৎসক আবুল আজাদ মন্ডলের তত্ত্বাবধানে আছে। তাকে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সেবা দেওয়া হচ্ছে।

উল্লেখ্য, কোমরে জোড়া লাগানো অবস্থায় ২০১৬ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর সুন্দরগঞ্জের রামজীবন ইউনিয়নের কাশদহ গ্রামে নানার বাড়িতে জন্ম হয় তোফা ও তহুরার। ২০১৭ সালের ১ আগস্ট ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বিভিন্ন বিভাগের ২০ থেকে ২২ জন চিকিৎসক ৯ ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে দু’জনকে আলাদা করেন। দেশে প্রথম ‘পাইগোপেগাস’ শিশুকে আলাদা করার ঘটনায় ‘তোফা-তহুরা’-ই প্রথম। তাই সফলতার স্মৃতি হিসেবে তোফা ও তহুরাকে বাঁচিয়ে রাখা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলেই মনে করেন চিকিৎসকরা।

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com