|

তানোরে থানার পার্শে মাদকের হাট, নীরব প্রশাসন!

প্রকাশিতঃ ৫:২৫ অপরাহ্ন | জানুয়ারী ০৮, ২০১৯

সারোয়ার হোসেন,তানোরঃ

রাজশাহীর তানোর থানার পার্শে প্রশাসনের নাকে ডগা দিয়ে গড়ে উঠেছে মাদকের হাট। সেই হাটে চলে সকাল থেকে রাত পর্যন্ত মাদক কেনাবেচা। অথচ নেই পুলিশ প্রশাসনের কোনো নজর। যার ফলে দিন দিন বেপরোয়া হয়ে বিস্তার হতে শুরু করেছে মাদক ব্যবসা।

থানার পার্শবতী ঠাকুর পুকুর গ্রামে দেখা যায় এমন মাদকের হাট। গ্রামটি ঘুরে অনুসন্ধান করে দেখা গেছে, এখানে প্রায় ৪থেকে ৫জন নারীপুরুষ সংঘবদ্ধ একটি মাদক চক্র সিন্ডিকেট তৈরি করে একত্রিত হয়ে এ মাদক ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে।

এসব মাদক ব্যবসায়ী চক্রের অন্যতম মাদক সম্রাজ্ঞী ইয়বা সুন্দরি সাবিনা ও হেরোইন সম্রাজ্ঞী রওশনারা। এই দুই ইয়াবা ও হেরোইন সম্রাজ্ঞীর নামে একাধিক মাদক মামলা থাকলেও থেমে নেই তাদের প্রকার্শে মাদক ব্যবসা।

স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা গেছে, এখানে উপজেলার বিভিন্ন এলাকার ছোট বড় ও স্কুল কলেজ পড়ুয়া শিক্ষার্থীদের মাদক কিনতে জড়ো হয় আনাগোনা। এছাড়াও মাদক কিনতে ব্যবসায়ীদের কাছে বন্ধক রাখা হচ্ছে মোবাইল ফোন, ল্যাপটপ, টিভির মনেটর ও কাসার থালা গ্লাস, টিউবয়েলের মাথা পাইপ সহ বিভিন্ন আসবাবপত্র।

যার ফলে বেড়েছে দিনে দুপুরে চুরি ছিন্তায়ের মত ঘটনা অহরহ। এতে করে ঠাকুর পুকুর গ্রামের ও তার আসপাশের গ্রামের অভিভাবকরা উর্তি বয়সের ছেলে মেয়ে নিয়ে রয়েছে ব্যাপক সংশয়ে। তাই বিষয়টি নিয়ে মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে উদ্ধতন কৃর্তপক্ষের জরুলী হস্তক্ষেপ কমনা বনেছেন ভুক্তভোগী অভিভাবকরা।

বিষয়টি নিয়ে তানোর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রেজাউল ইসলাম জানান, ইতিমধ্যে উপজেলার বিভিন্ন এলাকার মাদক স্পট ধংশো করে মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। এছাড়াও অভিযান অব্যাহত রয়েছে। আশা করছি খুব শীঘ্রই এদেরও আটক করা হবে বলে তিনি জানান।

দেখা হয়েছে: 95
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ [email protected]
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।