|

তাহেরপুরে অবৈধ ক্লিনিকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে সিলগালা

প্রকাশিতঃ ১০:১৪ অপরাহ্ন | জানুয়ারী ০৮, ২০১৯

নাজিম হাসান,রাজশাহী প্রতিনিধি:
রাজশাহীর বাগমারার তাহেরপুর পৌরসভায় লাইন্সেসবিহীন ও অনিয়মের অভিযোগে ৩টি অবৈধ বেসরকারি ক্লিনিক ও হাসপাতালে ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযানে চালিয়ে সিলগালা করে দেয়া হয়েছে।

সোমবার দুপুর ও মঙ্গলবার বিকাল থেকে সন্ধ্যা পযর্ন্ত স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের সমন্বয়ে জেলা এরজুরেন্টের নিবার্হী ম্যাজিস্ট্রেট কাওছার হামিদের নেতৃত্বে¡ এই ভ্রাম্যমাণ আদালতে পৌরসভার সিনেমা হল এলাকায় রোজা ক্লিনিক,দুর্গাপুর রোডে জেনারেল হাসপাতাল ও হরিতলা বাজারের সাব্বির ক্লিনিকে অভিযানে চালিয়ে সিলগালা করে দেয়া হয়।

তবে রোজা ক্লিনিকে বেশকেছু রোগি থাকায় তাদেরকে তিন দিনের সময় বেধে দেওয়া হয়েছে।এবং নিন্ম আয়ের মানুষকে পুঁজি করে মানহীন ও লাইন্সেসবিহীন ক্লিনিক গড়ে উঠেছে। তারা অভিযান পরিচালনার মাধ্যমে হাসপাতালের প্রয়োজনীয় মানসম্মত জায়গায় নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছেন বলে তাহেরপুর তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ এস আই লুৎফর রহমান জানান।

এলাকাবাসি সুত্রে জানাগেছে,চিকিৎসক,নার্স ও টেকনোলজিস্ট ছাড়াই রোজা ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার, জেনারেল হাসপাতাল এবং সাব্বির ক্লিনিকে দেয়া হচ্ছেল চিকিৎসা। সেখানে চিকিৎসা নিতে এসে প্রতারিত হচ্ছেন অনেকেই।

রেজিস্টেশন,চিকিৎসক,নার্স ও টেকনোলজিস্ট ছাড়াই তাহেরপুরে গড়ে ওঠা এসব ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে চিকিৎসার নাম চলছে প্রতারণা। যেখানে প্রতিনিয়ত প্রতারিত হচ্ছেন গ্রামের সাধারণ মানুষ। অভিযোগ রয়েছে, ক্লিনিকগুলো লাইসেন্সের শর্ত ভঙ্গ করে প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি ও যথাযথ অপারেশন থিয়েটার ছাড়াই অহরহ সিজার করে যাচ্ছে। অপচিকিৎসায় মারা যাচ্ছে রোগী। রোগীরা আসলে চিকিৎসক ডেকে নিয়ে আসা হয়।

চিকিৎসার নামে এসব ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার মালিকরা সাধারণ মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করছেন বলে গুরুতর অভিযোগ রয়েছে। সরকারি নীতিমালা থাকা সত্ত্বেও লাইসেন্স ছাড়া ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে।

অভিযোগ উঠেছে, অনেকে শুধু সিটি করপোরেশন ও জেলা প্রশাসনের ট্রেড লাইসেন্স নিয়ে ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার খুলে বসছেন। মনিটরিং না থাকায় অভিজ্ঞতা ছাড়াই অনেকে এই ব্যবসায় নেমে পড়ছেন। সিভিল সার্জন অফিসের রেজিস্ট্রেশন তালিকার বাইরে এ ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার রয়েছে।

সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্র আরো জানাযায়, নিয়ম অনুযায়ী প্রতিটি ক্লিনিকে ১০ বেডের জন্য ৩ জন চিকিৎসক (সকাল, বিকেল ও রাতে প্রতি শিফট-এ ১ জন করে ৬ জন ডিপ্লোমাধারী নার্স, ৩ জন ওয়ার্ড বয় ও ৩ জন আয়া থাকার কথা।

সরজমিন খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, তাহেরপুরের অধিকাংশ ক্লিনিকেই নেই কোনো রেজিস্টার্ড চিকিৎসক। অথচ ক্লিনিকের সামনে বড় বড় ডিগ্রিধারী চিকিৎসকদের সাইনবোর্ড লাগানো থাকে। এসব সাইনবোর্ড দেখে রোগীরা ক্লিনিকে গিয়ে প্রতারিত হয়। বেশিরভাগ সময় আনাড়ি চিকিৎসক ও শামীম নামের এক ভুয়া ডাক্তার দিয়েই রোজা ক্লিনিকে চলছে চিকিৎসাসেবা।

এছাড়া রোজা ক্লিনিকের রয়েছে নিজস্ব ডায়গনস্টিক সেন্টার এবং এসব সেন্টারে এক্স-রে, রক্ত, আলট্রাসনোগ্রাম, ইসিজি, মলমূত্র ইত্যাদি পরীক্ষা করা হয়। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই কোনো প্রয়োজন ছাড়াই বিভিন্ন ধরনের ভুল পরীক্ষার মাধ্যমে প্রতিদিন শত শত রোগীর কাছ থেকে হাতিয়ে নেয়া হচ্ছে মোটা অঙ্কের টাকা। এ প্রতিষ্ঠানে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত কোনো টেকনোলজিস্ট না থাকায় বেশিরভাগ সময় রোগীদের হয়রানির শিকার হতে হয় বলে অভিযোগ রয়েছে।

দেখা হয়েছে: 21
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • ভারপ্রাপ্ত সম্পাদকঃ ফয়সাল হাওলাদার মোবাইল ০১৭৩২-৩৭৯৯৮২
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।