|

দুর্গাপূজার ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপট: রিফাত কান্তি সেন

প্রকাশিতঃ ১০:৪৭ অপরাহ্ণ | অক্টোবর ১৩, ২০১৮

দুর্গাপূজার ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপট রিফাত কান্তি সেন

ক’দিন পরই হিন্দুদের সবচেয়ে বড় উৎসব দুর্গাপূজা। শারদ-শুভ্রতায় তাই ধরণী এখন অন্য রূপে সেজেছে। হিন্দু সম্প্রদায়ের মধ্যে বারো মাসে তের পার্বণ কথাটি বেশ প্রচলিত হলেও, এদের মধ্যে সবচেয়ে জাঁকজমকপূর্ণ ধর্মীয় অনুষ্ঠান এই দুর্গাপূজা। দেবী দুর্গাকে মাতৃরূপে পূজা করেন হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষ। কারণ দেবী দূর্গা হলো শক্তির রূপ।

হিন্দু ধর্মশাস্ত্র অনুসারে দেবী দুর্গাকে ডাকা হয় ‘দুর্গতিনাশিনী’, অর্থাৎ সনাতন ধর্মালম্বীরা বিশ্বাস করেন দেবী দূর্গার আরাধনার মাধ্যমে সকল দুঃখ-দুন্দশার অবসান ঘটবে। পুরাকাল থেকেই দুর্গাপূজার প্রচলন। লোক মুখে শোনা যায়, দ্রাবিড় সভ্যতায় তাদের মধ্যে মাতৃদেবীর পূজার প্রচলন ছিল। সিন্ধু সভ্যতায় (হরপ্পা ও মহেঞ্জোদারো সভ্যতা) দেবী মাতা, ত্রিমস্তক দেবতা, পশুপতি শিবের পূজার প্রচলন ছিল। অনেকেই ভাবেন যেহেতু শিবের অর্ধাঙ্গিনী ছিলেন দুর্গা, সেহেতু দেবী মাতা হিসাবে দুর্গার পূজা হতে পারে। ১৮ শতকে নানা বাদ্যযন্ত্র প্রয়োগে ব্যক্তিগত, বিশেষ করে জমিদার, বড় বড় ব্যবসায়ী, রাজদরবারের রাজ কর্মচারী পর্যায়ে আধুনিক দুর্গাপূজার প্রচলন ছিল। জানা যায়, উড়িষ্যার রামেশরপুরে একই স্থানে প্রায় চারশ’ বছর ধরে সম্রাট আকবরের আমল থেকে পূজা হয়ে আসছে।

বাঙালি হিন্দু সমাজে দুই ধরনের দুর্গাপূজা হয়ে থাকে। একটি শারদীয় দুর্গাপূজা, অনটি বাসন্তী পূজা। তবে সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় শারদীয় দুর্গাপূজা। শারদ উৎসব সমস্ত হিন্দুরা উৎযাপন করেন, কিন্তু বাসন্তী দুর্গাপূজা গুটি কয়েক পরিবার মিলে করেন। পুরাকালের কাহিনী অবলম্বনে জানা যায়, পুরাকালে দেবতারা মহিষাসুরের অত্যাচারে স্বর্গ থেকে বিতাড়িত হয়েছিল। কোনো উপায়েই মহিষাসুরদের সাথে দেবতারা পেরে উঠছিল না।

এমতাবস্থায় সকল দেবতারা ব্রহ্মা, বিষ্ণু ও মহেশরের শরণাপণœ হন। ব্রহ্মা, বিষ্ণু ও মহেশরের শরীর থেকে আগুনের মতো তেজরশ্মি একত্রিত হয়ে বিশাল এক আগুনের গোলার দেখা মেলে। ঐ আগুন থেকেই আবির্ভূত হতে থাকেন এক নারী মূর্তি। আগুন রশ্মি থেকে আবির্ভূত হওয়া সে নারীই দেবী দুর্গা। যে দেবী অগম্যা, দুষ্প্রাপ্য বা যাকে সহজে পাওয়া যায় না তিনিই দেবী দুর্গা। তবে এ নারীর ছিল বিশেষ ক্ষমতা। তার দশটি হাত। প্রতিটি হাতই ছিল দিব্য অস্ত্রে সজ্জিত। দশ হাতে দশ রকমের অস্ত্র, এক পা সিংহের পিঠে, এক পা অসুরের কাঁধে।

যে যে দেবতার তেজ থেকে দেবী দুর্গার শরীরের বিভিন্ন অংশ তৈরি হলো, ‘মহাদেবের তেজে মুখ, যমের তেজে চুল, বিষ্ণুর তেজে বাহু, চন্দ্রের তেজে স্তন, ইন্দ্রের তেজে কটিদেশ, বরুণের তেজে জঙ্ঘা ও উরু, পৃথিবীর তেজে নিতম্ব, ব্রহ্মার তেজে পদযুগল, সূর্যের তেজে পায়ের আঙুল, বসুগণের তেজে হাতের আঙুল, কুবেরের তেজে নাসিকা, প্রজাপতির তেজে দাঁত, অগ্নির তেজে ত্রিনয়ন, সন্ধ্যার তেজে, বায়ুর তেজে কান এবং অন্যান্য দেবতার তেজে শিবারূপী দুর্গার সৃষ্টি হলো। এরপর দেবতারা তাকে বস্ত্র, পোশাক ও অস্ত্র দান করলেন। এক্ষেত্রে যারা যা দান করলেন, তা হলো মহাদেব দিলেন শূল, বিষ্ণু দিলেন চক্র, বরুণ দিলেন শঙ্খ, অগ্নি দিলেন শক্তি, বায়ু দিলেন ধনু ও বাণপূর্ণ তূণীর, ইন্দ্র দিলেন বজ্র, ঐরাবত দিলেন ঘণ্টা, যম দিলেন কালদ-, বরুণ দিলেন পাশ, ব্রহ্মা দিলেন অক্ষমালা ও কম-লু, সূর্য দিলেন রশ্মি, কালখক্ষ ও নির্মল চর্ম, ক্ষিরোদ সাগর দিলেন অক্ষয়বস্ত্রসহ বিভিন্ন অলঙ্কার ও আভরণ, বিশ্বকর্মা দিলেন পরশুসহ নানাবিধ অস্ত্র, অভেদ্য কবচমালা, হিমালয় দিলেন সিংহ, কুবের দিলেন অমৃতের পান পাত্র, শেষ নাগ দিলেন নাগহার ও অন্যান্য দেবতা তাদের সাধ্যমতো বিষয় উপহার দিলেন। এভাবে তিনি হয়ে উঠলেন দেবতাদের সম্মিলিত শক্তির প্রতিরূপ।

দেবী দুর্গার ত্রি-নয়ন বলে তাকে বলা হয় ‘ত্রৈম্বক্যে’। তাঁর বাম চোখকে বলা হয় বাসনা (চন্দ্র), ডান চোখ কর্ম (সূর্য) ও কেন্দ্রীয় চোখ কে বলা হয় জ্ঞান (অগ্নি)।সাধারণত আশিন মাসের শুক্ল পক্ষের ষষ্ঠ থেকে দশম দিন পর্যন্ত দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হয়। এই পাঁচটি দিন যথাক্রমে মহাষষ্ঠী, মহাসপ্তমী, মহাঅষ্টমী, মহানবমী ও মহাদশমী নামে পরিচিত। আশিন মাসের এ সময়টাকে বলা হয় দেবী পক্ষ। দেবীপক্ষের সূচনার অমাবস্যাটির নাম মহালয়া। এইদিন সনাতন ধর্মাবলম্বীরা তাঁদের পূর্বপুরুষদের স্মরণ করেন।

তাঁদের আত্মার শান্তির জন্য বিশেষ আচার-অনুষ্ঠানের ব্যবস্থা করেন।এক সময় আমাদের দেশের ধর্ণাঢ্য সনাতন পরিবারগুলোই শুধু দুর্গাপূজা করতো। বর্তমানে গ্রাম থেকে শহর সবখানেই সনাতন ধর্মাবলম্বীরা দুর্গা পূজার আয়োজন করে থাকেন। ঢাক-ঢোল আর ধূপের গন্ধে মুখরিত চারপাশ। অনাবিল আনন্দকে সাথে নিয়েই সনাতন ধর্মাবলম্বীদের দেবীর আরাধনা।শারদীয় দুর্গা পূজাকে ‘অকালবোধন’ হিসাবেও আখ্যায়িত করা হয়।

কালিকা পুরাণ ও বৃহদ্ধর্ম পুরাণ অনুসারে, রাম ও রাবণের যুদ্ধের সময় শরৎকালে দুর্গাকে পূজা করা হয়েছিল। হিন্দু ধর্মের শাস্ত্রীয় মতে শরৎকালে দেবতারা ঘুমিয়ে থাকেন। তাই এ সময়টাতে তাঁদের পূজা করার যথাযথ সময় নয়। অকালের পূজা বলেই একে বলা হয় ‘অকালবোধন’। পুরাণ অনুসারে রামকে সাহায্য করার জন্য ব্রহ্মা দুর্গার বোধন ও পূজা করেছিলেন। কৃত্তিবাস ওঝা ও তাঁর রামায়ণে লিখেছিলেন, রাম স্বয়ং দুর্গার বোধন ও পূজা করেছিলেন।

সনাতন ধর্মাবলম্বীরা বিশ্বাস করেন দেবী দুর্গা শান্তির বার্তা নিয়ে স্বর্গ থেকে মর্ত্যে আসেন। ধরনীকে ধন-ধান্যে পুষ্পে ভরা করতে প্রতি বছর স্বামীর ঘর ছেড়ে ভক্তের টানে মর্ত্যলোকে আসেন। আর তাইতো দেবী দুর্গাকে প্রণাম করে শ্রী শ্রী চন্ডি মন্ত্র পাঠ করা হয়। মন্ত্রে উচ্চারিত হয়, “সর্ব মঙ্গল মঙ্গল্যে শিবে সর্বার্থ সাধিকে, শরণ্যে ত্রম্বকে গৌরি নারায়নী নমস্তুতে।” অর্থাৎ হে দেবী সর্বমঙ্গলা, শিবা, সকল কার্য সাধিকা, শরণযোগ্য, গৌরী ত্রিনয়ণী, নারায়নী তোমাকে নমস্কার।

রিফাত কান্তি সেন
কলামিষ্ট ও ফিচার লেখক

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com