|

নড়াইলে ডেঙ্গুর চিকিৎসা নিতে আসা সকল রোগীর দায়িত্ব নিলেন মাশরাফী

প্রকাশিতঃ ১১:০৩ অপরাহ্ন | অগাস্ট ০১, ২০১৯

নড়াইলে ডেঙ্গুর চিকিৎসা নিতে আসা সকল রোগীর দায়িত্ব নিলেন মাশরাফী

উজ্জ্বল রায়, নড়াইল জেলা প্রতিনিধি■ নড়াইলবাসীর স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে যান নড়াইল ২ আসনের সংসদ সদস্য মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা। এসময় তিনি নড়াইল সদর হাসপাতালের তিনটি শূন্য পদ যথাক্রমে চক্ষু কনসালটেন্ট, ই.এন.টি কনসালটেন্ট ও কনসালটেন্ট (গাইনী এন্ড অবস) চিকিৎসক পদায়নের সুপারিশ করেন।

উক্ত বিষয় জেনে, মাননীয় স্বাস্থ্য সচিব ও উপ-সচিব মহোদয়, জরুরীভিত্তিতে এই তিনটি শূন্যপদে চিকিৎসক দেওয়ার পাশাপাশি একজন এনেসথেসিয়া পদায়নের ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানান। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতিক বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য সৌমেন চন্দ্র বসু তার নিজস্ব ফেসবুক আইডিতে বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

সারাদেশে ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়েই চলছে। নড়াইলের অবস্থা তুলনামূলক ভালো থাকলেও ঈদের সময় বাড়িতে আসা অনেক লোক নিজের অজান্তেই ডেঙ্গুর জীবাণু বহন করে নিয়ে আসবেন। যার ফলে নড়াইলে তখন ডেঙ্গুর প্রকোপ বাড়ার আশঙ্কা রয়েছে।

এই বিষয়টি বিবেচনা করে, নড়াইল সদর ও লোহাগড়া উপজেলা হাসপাতালে ডেঙ্গু রোগ শনাক্তকরণের কিট ও ডেঙ্গু রোগীদের প্রয়োজনীয় চিকিৎসাসেবা প্রদানের ব্যবস্থা গ্রহণ করতে স্বাস্থ্য সচিবের দৃষ্টি আকর্ষণ করে মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা নিজ অর্থায়নে অতিসত্বর হাসপাতাল দুটিতে ডেঙ্গু রোগ শনাক্তকারী কিট স্থাপনের ঘোষণা দেন।

বাংলাদেশ সচিবালয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত সচিব মহোদয়ের সাথে সাক্ষাৎকালে মাশরাফী বলেন, ‘আমি আমার নির্বাচনী এলাকা অর্থাৎ নড়াইল সদর ও লোহাগড়ার অন্তর্ভুক্ত সকল হাসপাতালে ডেঙ্গুর চিকিৎসা নিতে আসা সকল রোগীর চিকিৎসার দায়িত্ব আমার!

দেখা হয়েছে: 149
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।