|

পলাশবাড়ীতে অস্বাস্থ্যকর বেকারী পণ্যে বাজার সয়লাব

প্রকাশিতঃ ৫:২২ অপরাহ্ন | অগাস্ট ০৫, ২০১৮

পলাশবাড়ীতে অস্বাস্থ্যকর বেকারী পণ্যে বাজার সয়লাব

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল, গাইবান্ধাঃ

ঈদকে সামনে রেখে, গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলার বিভিন্ন হাট বাজারের চায়ের দোকান ও ডিপার্টমেন্টাল ষ্টোরে বিক্রি হচ্ছে বিএসটিআই এর অনুমোদন বিহীন অস্বাস্থ্যকর নিম্নমানের বেকারীর খাদ্য সামগ্রী।

প্রশাসনের নজরদারির অভাবে এ সকল খাদ্য সামগ্রী অবাধে বিকিকিনি করা হচ্ছে। আর এসব খাদ্য খেয়ে ডায়রিয়া আমাশয়সহ পেটের বিভিন্ন অসুখে, শিশুসহ সব বয়সের মানুষ আক্রান্ত হচ্ছেন। অন্যদিকে কিছু নামী বেনামী বেকারী বনফুল ও বিভিন্ন দামী ব্যান্ড কোম্পানির নাম ভাঙ্গিয়ে নকল নিম্নমানের সেমাই তৈরি করছে।

উপজেলার সদরসহ বিভিন্ন বাজারগুলোতে ঘুরে দেখা যায়, ফুটপাত ছোট-বড় চায়ের দোকান, ষ্টোরে বিক্রি হচ্ছে নিম্নমানের রুটি, কেক, মিষ্টি সিংঙ্গারা, চিনি টোষ্ট, চানাচুরসহ হরেক রকম খাদ্য সামগ্রী। এগুলোর মধ্যে চিনি টোষ্ট মাখনের স্থলে ডালডা, চিনি ও মাএারিক্ত স্যাকারিন, রজন, সোহারা পাউডারসহ বিভিন্ন কেমিক্যাল মেশানো হচ্ছে। শিশুদের জন্য আর্কষনীয় কম দামের সাধারণ প্লাষ্টিক প্যাকেটের বিভিন্ন কালারের যেগুলো মুখে দিলেই বোঝা যায় ক্ষতিকর কালার, স্যাকারিনআর ফ্লেভার।

স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্বক ক্ষতিকর এই ভেজাল। কালার সমৃদ্ধ খাবার খেলে পাকস্থলী, কিডনি ও যকৃতের মারাত্বক রোগ হতে পারে বলে অভিমত বিশেষজ্ঞদের। এসব বেকারীর ভেজাল খাদ্য খেয়ে পেটের অসুখ (ডায়রিয়া) আক্রান্ত হয়ে পলাশবাড়ী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসা নিয়েছেন, অজ্ঞত অনেক রুগী।

উপজেলার বিভিন্ন স্থানে ১০ থেকে ১৫টি বেকারী কারখানা রয়েছে। এ গুলোতে তৈরি হচ্ছে এসব খাদ্য সামগ্রী। শহরের করিম মিয়াসহ কয়েকজন ক্ষুদ্র দোকানদার জানান, এসব খাদ্য খাবারের উপযোগী না, তার পর ও বিক্রি করতে হচ্ছে আমাদের। কারণ ভাল মানের বেকারীর মাল পাওয়া যায় না এবং কোম্পানীর লোক আমাদের কাছে মালামাল নিয়ে আসেন না। এখানকার তৈরি খাবার আমাদের নিকট প্রতিদিন সকালে নিয়ে আসে এবং কম দামে হাতের কাছে পাই। সে কারণে এগুলো বিক্রিয় করতে বাধ্য হচ্ছি। মহদীপুরের বিমল কুমার বলেন, কি করবো সব দোকানে প্রায় এসব নিম্নমানের বেকারীর পন্য।

বেকারির নাম প্রকাশ না করা শর্তে এক মালিক জানান, আমার বেকারীতে সকল খাদ্য সামগ্রী মান সম্মত। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: ওজেদ বলেন, ইতি পূর্বে মাঝে মধ্যেই মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হয়েছিল। এসব ভেজাল খাদ্য খেলে মারাত্মক রোগ হতে পারে। সকলকে সচেতন হতে হবে।

উপজেলা সেনেটারী কর্মকর্তা জানান, মাঝে মধ্যেই ভেজাল বেকারির খাদ্য বিষয়ে অভিযান চালানো হয়। খাদ্য নিরাপত্তা আইন ২০১৩ পুরোপুরি বাস্তবায়ন হলে এ সকল ভেজাল খাবার বিক্রিয় উৎপাদন বন্ধ হয়ে যাবে।

দেখা হয়েছে: 90
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ [email protected]
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।