|

পিরোজপুরে খুন্তির ছ্যাকায় শিশুর শরীর ঝলসে দিলেন মা!

প্রকাশিতঃ ৯:৩৪ অপরাহ্ন | সেপ্টেম্বর ০৪, ২০১৯

পিরোজপুরে খুন্তির ছ্যাকায় শিশুর শরীর ঝলসে দিলেন মা!

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ লিপি আক্তার নামে সাড়ে পাঁচ বছরের এক শিশুকে গরম খুন্তির ছ্যাকায় মুখ ও শরীরের বিভিন্ন অংশ ঝলসে দিয়েছেন তার মা নাজমা বেগম। শিশুটিকে বুধবার বিকেলে পিরোজপুর জেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহত লিপি ইন্দুরকানির কলারোনের ইসমাইল চৌকিদারের মেয়ে ও বালিপাড়া বোর্ড স্কুলের শিশু শ্রেণির ছাত্রী।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, গুরুতর আহত শিশুটি হাসপাতালের বারান্দার মেঝেতে কাতরাচ্ছে।

বালিপাড়া ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের মেম্বার মিজানুর রহমানসহ স্থানীয়রা জানান, গত মঙ্গলবার বিকালে শিশু লিপি ঘরের মধ্যে খেলা করছিল। এসময় তার মা মেয়েকে ডাকাডাকি করলেও শিশুটি তা শুনতে পায়নি। এতে মা প্রচণ্ড ক্ষুব্ধ হয়ে গরম খুন্তি এনে মেয়ের মুখ, হাত ও পিঠে ছ্যাকা দেন। এতে শিশুটির শরীরে বিভিন্ন অংশ ঝলসে যায়।

নাজমা বেগমের স্বামী ইসমাইল চৌকিদার ফেনী জেলায় শ্রমিকের কাজ করেন। তাই মেয়েকে নিয়ে নাজমা একাই বসবাস করেন।

শিশুটির অভিযুক্ত মা নাজমা বেগম জানান, আমার শ্বশুর-শ্বাশুড়ি প্রায়ই আমাকে অত্যাচার করতেন। এসবের কারণে আমি আলাদা ঘরে বসবাস করি। শ্বাশুড়ির অত্যাচারের কারনে আমার মাথা ঠিক রাখতে না পেরে মেয়ে লিপির ওপর অত্যাচার করেছি।

স্থানীয়রা জানান, অভিযুক্ত মা প্রায়ই পারিবারিক কলহের জের ধরে ওই কন্যা শিশুটিকে মারধর করেন।

এ ব্যাপারে থানার ওসি হাবিবুর রহমান জানান, এ ব্যাপারে কোনো লিখিত অভিযোগ পাইনি। তবে বিষয়টি মৌখিকভাবে শুনে খবর নিয়ে জেনেছি মেয়েটি তার দাদীর কাছে যাওয়ায় মা ক্ষিপ্ত হয়ে এমনভাবে মারধর করেছে।

দেখা হয়েছে: 38
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন
  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল মোবাইল ০১৬১১-৫১৫৩২০
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।