|

প্রসূতির পেটের সন্তানের দেহ থেকে মাথা বিচ্ছিন্ন

প্রকাশিতঃ 8:27 pm | September 24, 2018

প্রসূতির পেটের সন্তানের দেহ থেকে মাথা বিচ্ছিন্ন

অনলাইন বার্তাঃ

কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এক প্রসূতির পেটের সন্তান টেনে-হিঁচড়ে হাত-পাসহ অর্ধেকাংশ এবং কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে অপারেশন করে মাথা বের করে আনার সংবাদ গণমাধ্যমে প্রকাশিত হওয়ার পর বিভিন্ন মহলে ব্যাপক তোলপাড় শুরু হয়েছে। সোমবার জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে উচ্চ পর্যায়ের একটিসহ পৃথক দুটি কমিটি গঠন করা হয়েছে।

এছাড়া ঘটনার সাথে সংশ্লিষ্ট দুই নার্স ও এক আয়াকে মঙ্গলবার তদন্ত কমিটির সামনে হাজির হয়ে ঘটনার ব্যাখ্যা প্রদানের জন্য নোটিশ দেয়া হয়েছে।

জানা গেছে, শনিবার রাতে দেবিদ্বার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সংশ্লিষ্ট দায়িত্বশীলদের কর্তব্যে অবহেলার কারণে দুইজন নার্স ও একজন আয়া মিলে সংকটাপন্ন ফাতেমা বেগম নামের ওই প্রসূতির পেটের সন্তান প্রসব করতে গিয়ে ঘটনাটি গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়। সোমবার দিনভর তা ছিল বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার লোকজনের মুখে মুখে।

কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ওই প্রসূতির স্বামী রিকশাচালক সেলিম মিয়া জানান, ডা. নীলা সরকারি ডাক্তার। তিনি দেবিদ্বারের একটি প্রাইভেট হাসপাতালে আমার স্ত্রীকে পরীক্ষা করেন। কিন্তু কাঙ্কিত টাকা দিতে পারবো না এমন আশঙ্কায় তিনি আমাদেরকে পাঠিয়ে দেন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। ডা. নীলার কথা মতো আমি সরকারি হাসপাতালে গিয়েছিলাম। কিন্তু টাকা দিতে না পারায় তিনি একবারও আমার স্ত্রীর খবর নেননি। ডাক্তার ও নার্সের অবহেলায়ই আমার স্ত্রী আজ মরতে বসেছে। আমি তাদের বিচার চাই।

দেবিদ্বার উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. আহাম্মদ কবির জানান, আমার করা তদন্ত কমিটি দুই নার্স ও আয়াকে নোটিশ প্রদান করা হয়েছে। মঙ্গলবার তাদেরকে তদন্ত কমিটির সামনে উপস্থিত থেকে ব্যাখ্যা প্রদানের জন্য বলা হয়েছে। এছাড়া চিকিৎসক আহসানুল হক মিলু ওই সময় হাসপাতালে কর্তব্যরত থাকায় তাকে কমিটি থেকে বাদ দিয়ে শিশু বিভাগের জুনিয়র কনসালটেন্ট ডা. আশরাফুল ইসলামকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

কুমিল্লার সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান জানান, ‘ঘটনা তদন্তে তিতাস উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা মো. নজরুল ইসলামকে আহ্বায়ক করে ৫ সদস্যের উচ্চ পর্যায়ের পৃথক একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। এছাড়া এ ঘটনায় দেবিদ্বার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের একজন মহিলা চিকিৎসকের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। চিকিৎসায় অবহেলার বিষয়টি প্রমাণিত হলে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।