|

প্রাথমিকে আমূল পরিবর্তন, শিক্ষকদের যা জানা আবশ্যক

প্রকাশিতঃ ১২:০২ পূর্বাহ্ন | সেপ্টেম্বর ০৫, ২০১৯

প্রাথমিকে আমূল পরিবর্তন, শিক্ষকদের যা জানা আবশ্যক

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে আসছে একসঙ্গে অনেক পরিবর্তন। সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে আনন্দঘন পরিবেশে পাঠদানের লক্ষ্যে কর্মসূচি গ্রহণ করেছে সরকার।

জানা গেছে, প্রতিটি ক্লাসের পর শিক্ষার্থীরা ১৫ মিনিট করে বিশ্রাম পাবে। এ সময়ে তারা খেলার ছলে সৃজনশীল ও উদ্ভাবনীমূলক কাজে নিয়োজিত থাকবে। ইতোমধ্যে দেশের তিন জেলায় চারটি বিদ্যালয়ে এ পদ্ধতি চালু করা হয়েছে। যা পর্যায়ক্রমে সব প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চালু করা হবে।

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পাঠদান কার্যক্রম আনন্দপূর্ণ করার কার্যক্রম শুরু করেছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। এ লক্ষ্যে মডেল হিসেবে মাগুরা জেলার হাজীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কুড়িগ্রামে কুড়িগ্রাম ১নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও রৌমারী মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং নেত্রকোনায় ৩৬নং বালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নতুনভাবে শিক্ষার্থীদের ক্লাস রুটিন ও পাঠাদান কার্যক্রমে আমূল পরিবর্তন আনা হয়েছে।

সূত্র জানায়, প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ক্লাস শুরুর আগে সকাল ৯টা ১৫ মিনিটে শরীরচর্চা ও ৯টা ৩০ মিনিট থেকে ক্লাস শুরু হয়ে থাকে। কোথাও ৩৫ মিনিট আবার কোথাও ৪৫ মিনিট করে বিষয় ভিত্তিক ক্লাস করানো হয়ে থাকে। বিকাল ৪টা ১৫ মিনিটে ক্লাস শেষে শিক্ষার্থীদের স্কুল ছুটি দেয়া হয়।

দেখা গেছে, মডেল এ চার বিদ্যালয়ে সকাল ৯টা ৩০ মিনিটে শরীরচর্চা শেষে ১০টায় ক্লাস শুরু হবে। মাঝে ৩০ মিনিট খেলার জন্য বিশ্রাম দেয়া হবে। এরপর পাঠদানের জন্য প্রতিটি বিষয়ের জন্য ক্লাস সময় ৪৫ মিনিট করে নির্ধারণ করা হয়েছে। প্রতিটি ক্লাস শেষে শিক্ষার্থীরা ১৫ মিনিট করে বিশ্রাম পাবে। সে সময়ে শিক্ষার্থীদের সৃজনশীল ও উদ্ভাবনী কার্যক্রমে নিয়োজিত করা হবে। শিক্ষার্থীদের পচ্ছন্দ অনুযায়ী খেলার ছলে নতুন নতুন জ্ঞান সৃষ্টি করা হবে। বিকাল ৩টা ৪৫ মিনিটে ক্লাস শেষে বিদ্যালয় ছুটি দেয়া হবে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব আকরাম আল হোসেন বলেন, শিক্ষার্থীদের পাঠদানে একঘেয়েমি দূর করতে ক্লাসের সময় ও খেলার ছলে শিক্ষা কার্যক্রম শুরু করেছি। মডেল হিসেবে চার বিদ্যালয়ে নতুন রুটিন বাস্তবায়ন করা হয়েছে। পরবর্তী দুই মাস মনিটরিং করা হবে। এতে সফলতা আসলে যেখানে একটি শিফটে বিদ্যালয় পরিচালিত হচ্ছে সেখানে নতুন রুটিন অনুযায়ী পাঠদান কার্যক্রম শুরু করা হবে। এভাবে আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে দেশের ৬৫ হাজার ৫৯০ সরকারি বিদ্যালয়ে এ পদ্ধতি চালু করা হবে।

সচিব বলেন, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পাঠদানে আনন্দপূর্ণ করতে আমরা এমন পদক্ষেপ হাতে নিয়েছি। এর ফলে শিক্ষার্থীরা আনন্দঘন পরিবেশে পাঠদানের সুযোগ পাবে। ক্লাসের জন্য নির্ধারিত ৪৫ মিনিট সময় নির্ধারণ করা হবে। প্রতিটি ক্লাসের পর শিক্ষার্থীরা ১৫ মিনিট বিশ্রাম পাবে। এতে করে শিক্ষকরা পরবর্তী ক্লাসের জন্য প্রস্তুতি নিতে পারবে। শিক্ষার্থীরাও এ সময়টা খেলার ছলে নতুন জ্ঞানার্জন করতে পারবে। এ জন্য বিদ্যালয়গুলোকে নতুনভাবে ঢেলে সাজানো হবে বলেও জানা তিনি।

প্রাথমিকে শিক্ষক বদলিতে আসছে বড় পরিবর্তন

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক বদলি নীতিমালা সংশোধনের কাজ শুরু হয়েছে। বদলি কার্যক্রম অনলাইনভিত্তিক করতে একটি সফটওয়্যার তৈরি করা হচ্ছে। এর মাধ্যমে বছরে তিন মাস নয়, বছরজুড়ে শিক্ষক বদলি করা হবে। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা গেছে, চলতি বছর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক বদলি কার্যক্রম নিয়ে নানা জটিলতা সৃষ্ট হয়। নানা অনিয়ম, বদলি বাণিজ্যসহ বিভিন্ন অভিযোগ ওঠে। শুধু তাই নয়, বদলির জন্য সরকারি-বেসরকারি নানা মহলের মনোনীত প্রার্থীদের বদলি করতে তদবিরে বিপাকে পড়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতর। নির্ধারিত তিন মাস শিক্ষকদের বদলি কার্যক্রম চালু থাকায় এমন পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়। এসব কারণে বদলি কার্যক্রম বছরজুড়ে করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে মন্ত্রণালয়।

মন্ত্রণালয় থেকে জানা গেছে, বছরজুড়ে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক বদলি করতে নতুন বদলি নীতিমালা সংশোধন কাজ শুরু হয়েছে। এ জন্য প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের একজন অতিরিক্ত সচিবকে প্রধান করে চার সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। এ কার্যক্রম অনলাইনভিত্তিক করতে নতুন করে একটি সফটওয়্যার তৈরি করা হচ্ছে। এ বছরের মধ্যে নীতিমালা ও সফটওয়্যারের কাজ শেষ হলে আগামী বছর থেকে এটি বাস্তবায়ন করা হবে। এমন মাধ্যমে শিক্ষকরা যেকোনো সময়ে বদলির জন্য আবেদন করতে পারবেন। যোগ্যতা ভিত্তিতে ঢাকাসহ সব জেলার প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষকদের ডিপিই থেকে বদলি নির্দেশনা জারি করা হবে।

জানা গেছে, শিক্ষক বদলি নীতিমালায় শুধু নির্ধারিত তিন মাসভিত্তিক শিক্ষক বদলি বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। ফলে বিশেষ কোনো কারণ ছাড়া জানুয়ারি থেকে মার্চের পরে আর শিক্ষকদের বদলি করা হয় না। এ কারণে প্রতিকূল পরিস্থিতি সৃষ্টি হচ্ছে। এ পরিস্থিতি থেকে পরিত্রাণ পেতে বর্তমানে বদলি নীতিমালা পরিবর্তন করে সারা বছর শিক্ষক বদলি কার্যক্রম চালু হচ্ছে।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব বদরুল হাসান চৌধুরী বলেন, শিক্ষক বদলি নীতিমালা সংশোধনের কাজ শুরু হয়েছে। এ কার্যক্রম অনলাইনভিত্তিক করতে একটি সফটও্যায়ার তৈরি করা হচ্ছে। এ জন্য একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। আগামী দুই মাসের মধ্যে নীতিমালা সংশোধন ও সফটওয়্যার তৈরি কাজ শেষ করার কথা। এ সময়ের মধ্যে এসব কার্যক্রম শেষ করা সম্ভব হলে আগামী বছর থেকে সারা বছর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষক বদলি করা হবে।

তিনি বলেন, বদলি কার্যক্রম আরও সহজীকরণ ও ভোগান্তিমুক্ত করতে এটি অনলাইনভিত্তিক করা হচ্ছে। শুধু তিন মাস বদলি কার্যক্রম চললে বদলি প্রত্যাশীরা ভিড় করেন। এর মাধ্যমে অনেকে বাণিজ্য করেন। এসব বন্ধে শিক্ষক বদলি কার্যক্রমে পরিবর্তন করা হচ্ছে।

পঞ্চম শ্রেণির খাতা মূল্যায়ন পদ্ধতিতে পরিবর্তন

নানা অভিযোগের পর এবার পঞ্চম শ্রেণির সমাপনী ও ইবতেদায়ি পরীক্ষার খাতা মূল্যায়ন পদ্ধতি পরিবর্তন করা হয়েছে। এ বছর থেকে এক উপজেলার খাতা অন্য উপজেলায় মূল্যায়ন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।

সম্প্রতি প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ে প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেনের সভাপতিত্বে এক সভায় এ বিষয়টি চূড়ান্ত করা হয়েছে।

আগামী ১৭ নভেম্বর পঞ্চম শ্রেণির সমাপনী ও ইবতেদায়ি পরীক্ষা শুরু হতে যাচ্ছে। প্রথমে ইংরেজি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। পরীক্ষা সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণে গত ২৪ আগস্ট প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ে সভা করা হয়। সেখানে পরীক্ষার সময়সূচি তৈরি, প্রশ্নপত্র প্রণয়ন ও বিতরণ, নিরাপত্তা ও শৃঙ্খলা রক্ষা, উত্তরপত্র মূল্যায়ন, পরীক্ষার ফি নির্ধারণসহ বিভিন্ন বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

সভা সূত্রে জানা গেছে, নিজ উপজেলায় সমাপনী ও ইবতেদায়ি পরীক্ষার মূল্যায়ন করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এতে উত্তরপত্র মূল্যায়নে কিছু অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে বলে সভায় উপস্থিত কর্মকর্তারা অভিযোগ তোলেন। তাই ২০১৭ সালের নিয়মে এক উপজেলার খাতা অন্য উপজেলায় মূল্যায়নের প্রস্তাব দেন তারা।

সভায় উপস্থিত কর্মকর্তারা বলেন, যে উপজেলায় পরীক্ষার খাতা মূল্যায়ন করা হবে সে উপজেলায় নম্বরপত্র টেবুলেশন করে সীল স্বাক্ষরসহ সংশ্লিষ্ট উপজেলায় প্রেরণ করা জরুরি। এতে কোনো অনিয়ম বা উত্তরপত্র মূল্যায়নে বিলম্ব হলে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা সম্ভব হবে। যেসব বিদ্যালয় কেন্দ্রে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে সেসব বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কেন্দ্র সচিব হিসেবে দায়িত্বে থাকবেন। উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয় বা অন্য কাউকে কেন্দ্র সচিব হিসেবে নিয়োগ প্রদান না করার জন্য প্রস্তাব করেন তারা।

তাদের এ প্রস্তাবের ভিত্তিতে এক উপজেলা বা থানার উত্তরপত্র পার্শ্ববর্তী উপজেলা বা থানার পরীক্ষক দ্বারা মূল্যায়ন করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। মূল্যায়িত উত্তরপত্রের নম্বর মুদ্রণ করে টেবুলেশন শিট প্রস্তুত করে সীল স্বাক্ষরসহ নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে জেলায় পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

পাশাপাশি উত্তরপত্র মূল্যায়নের ক্ষেত্রে মনিটরিং ব্যবস্থা জোরদার করতে বলেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী জাকির হোসেন। এ বিষয়ে কোনো অবহেলা, বিলম্ব বা অনিয়ম পরিলক্ষিত হলে বিভাগীয় শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেন। অভিযুক্তদের নাম প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের (ডিপিই) ওয়েবসাইটে প্রকাশের নির্দেশও দেয়া হয়। এটি বাস্তবায়নে ডিপিই ও মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডকে দায়িত্ব দেয়া হয়।

সভায় উপস্থিত প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব বদরুল হাসান চৌধুরী বলেন, নিজ উপজেলায় পঞ্চম শ্রেণির খাতা মূল্যায়ণের বিষয়ে নানা অভিযোগ থাকায় এ পদ্ধতি পরিবর্তন করা হয়েছে। তাই এবার এক উপজেলার খাতা অন্য উপজেলায় মূল্যায়ন করা হবে।

তিনি বলেন, মন্ত্রণালয়ে পরীক্ষার প্রস্তুতি সংক্রান্ত এক সভায় খাতা মূল্যায়নের বিষয়ে গত বছরের অভিজ্ঞতা তুলে ধরেন মাঠ পর্যায়ে দায়িত্বরত কর্মকর্তারা। সেসব অভিযোগের ভিত্তিতে এমন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানান তিনি।

প্রাথমিকে বাড়ছে বৃত্তি ও অর্থের পরিমাণ

প্রাথমিকে পঞ্চম শ্রেণির সমাপনী ও ইবতেদায়ীতে বৃত্তির সংখ্যা ও অর্থের পরিমাণ দ্বিগুণ করা হচ্ছে। বর্তমানে সারাদেশে ১ লাখ ৫ হাজার শিক্ষার্থীকে বৃত্তি দেয়া হয়। এ সংখ্যাকে দ্বিগুণ করতে নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতর ও মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডকে এ বিষয়ে প্রস্তাব পাঠাতে বলা হয়েছে।

চলতি বছরের ১৭ নভেম্বর থেকে শুরু হচ্ছে পঞ্চম শ্রেণির সমাপনী ও ইবতেদায়ী পরীক্ষা। পরীক্ষা চলবে ২৪ নভেম্বর পর্যন্ত। অন্যান্য বছরের মত এবারও সমাপনী ও ইবতেদায়ী পরীক্ষার জন্য ৬০ টাকা ফি নির্ধারণ করা হয়েছে।

সমাপনী ও ইবতেদায়ী পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে আয়োজনে গত ২৪ আগস্ট প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ জাকির হোসেনের সভাপতিত্বে মন্ত্রণালয়ে পরীক্ষা সংক্রান্ত একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে।

ওই বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, বৈঠকে প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষায় পাস করা শিক্ষার্থীদের বৃত্তির সংখ্যা বাড়ানোর প্রস্তাব তোলা হয়। এতে সকলে সম্মতি জানিয়েছেন। বর্তমানে পরীক্ষার ফলাফলের ওপর ভিত্তি করে সারাদেশে ৩৩ হাজার ট্যালেন্টপুল ও ৪৯ হাজার ৫০০ জনকে সাধারণ কোটায় মোট ৮২ হাজার ৫০০ শিক্ষার্থীকে প্রাথমিকে বৃত্তি প্রদান করা হয়।

এছাড়া ইবতেদায়ী পরীক্ষার ফলাফলের ওপর ভিত্তি করে ৭ হাজার ৫০০ জনকে ট্যালেন্টপুল ও ১৫ হাজার সাধারণসহ মোট ২২ হাজার ৫০০ জনকে বৃত্তি প্রদান করা হয়। এসব শিক্ষার্থীদের বৃত্তি বাবদ ট্যালেন্টপুলে মাসিক ৩০০ টাকা আর সাধারণ বৃত্তি বাবদ মাসিক ২২৫ টাকা করে দেয়া হয়।

সভায় সারাদেশে ৮২ হাজার ৫০০ জন শিক্ষার্থীর বদলে এক লাখ ও ২২ হাজার ৫০০ জনের পরিবর্তে দুই লক্ষাধিক শিক্ষার্থীকে প্রতি বছর বৃত্তি প্রদান করার বিষয়ে সকলে সম্মতি জানান। পাশাপাশি বৃত্তির অর্থ দ্বিগুণ করার বিষয়ে আলোচনা হয়।

জানা গেছে, এ আলোচনার ভিত্তিতে বৃত্তির সংখ্যা বাড়ানোর প্রস্তাব দিতে ডিপিই ও মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডকে প্রস্তাব পাঠানোর নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। তাদের প্রস্তাবনা পাওয়ার পর প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় বৈঠকের মাধ্যমে যৌক্তিক সংখ্যা নির্ধারণ করবে।

এ বিষয়ে ডিপিই মহাপরিচালক এফ এম মনজুর কাদির বলেন, প্রাথমিক ও সমাপনী পরীক্ষার ফলাফলের ভিত্তিতে বৃত্তি প্রদানের সংখ্যা ও অর্থ বাড়ানোর বিষয়ে মন্ত্রণালয়ের সভায় প্রতিমন্ত্রী ও সচিবসহ সকলে সম্মতি জানিয়েছেন। ওই সভার পর অধিদফতর ও মাদরাসা বোর্ডকে এ বিষয়ে প্রস্তাব পাঠাতে বলা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, যেহেতু প্রতিবছর শিক্ষার্থীর সংখ্যা বাড়ছে। তাই সংখ্যা বাড়ানো প্রয়োজন হয়ে পড়েছে। এ বিষয়ে হিসাব-নিকাশ করে যৌক্তিক বৃদ্ধির প্রস্তাব দ্রুতই পাঠানো হবে।

দেখা হয়েছে: 1063
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ [email protected]
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।