|

প্রেমের টানে বরিশালে উড়ে এলো যুক্তরাষ্ট্রের সারা

প্রকাশিতঃ ১১:৪৪ অপরাহ্ণ | নভেম্বর ২৩, ২০১৮

খোকন হাওলাদার, বরিশালঃ

প্রেমের টানে সুদূর যুক্তরাষ্ট্র থেকে বরিশালে ছুটে এসেছেন একজন সমাজকর্মী। শুধু তাই নয় এসেই বিয়ের পিঁড়িতে বসে মধুময় করে দিলেন দীর্ঘ পথের প্রেমের যাত্রা। যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার ওই সমাজকর্মীর নাম সারা মেকিয়েন। আর বিয়ের সানাই বাজালো বরিশাল নগরীর ২নং ওয়ার্ডের কাউনিয়া প্রধান সড়কের খ্রিস্টান কলোনীর মাইকেল অপু মন্ডলের সাথে। অপু মন্ডল পেশায় সামান্য রং মিস্ত্রি।

গায়ে হলুদ, আংটি পরিধান, ফাদারের আর্শিবাদ গ্রহণসহ যাবতীয় ধর্মীয় আচার্য পালন করে দুইদিন ধরে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা শেষ করে তারা নগরীর বান্দ রোডের একটি হোটেলে উঠেন। এরপর তারা নিজ বাড়িতে ফিরেন।

ওদিকে, বরিশালের রং মিস্ত্রিকে যুক্তরাষ্ট্রের মেয়ের বিয়ের খবর চাউড় হওয়ায় উৎসুক জনতার ভিড় জমেছে অপু মন্ডলের বাসায়। বর অপু মন্ডল জানান, কাউনিয়া প্রধান সড়কের খ্রিস্টান কলোনীর রবীন মন্ডলের দুই মেয়ে এবং এক ছেলের মধ্যে সবার ছোট সে।

কলেজের গন্ডি পার হতে পারেননি। মাঝে মধ্যে রং মিস্ত্রির কাজ করেন। তিনি আরও জানান, ২০১৭ সালের ১৯ নভেম্বর ফেসবুকে একটি বিতর্ক (ডিবেট) গ্রুপের মাধ্যমে সারার সাথে তার (অপু) পরিচয় হয়। এরপর থেকে নিয়মিত যোগাযোগ হতো। কথা হতো ভিডিও কলে। এভাবে কথা বলতে বলতে দু’জন দু’জনকে ভালোবেসে ফেলেন। ব্যক্তি সম্পর্ক পারিবারিক সম্পর্কে রূপ নেয়। ভিডিও কলে উভয় পরিবারের সদস্যরা কথা বলেন এবং ঘনিষ্ঠ হন। গত সেপ্টেম্বর-অক্টোবরের দিকে সারা এবং অপু উভয় পরিবারের সম্মতিতে একে অপরকে বিয়ের সিদ্ধান্ত নেন।

বিয়ে করতে অপু যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়ার সুযোগ না পেলেও গত কয়েক মাস ধরে ভিসা প্রসেসিং শেষে বাংলাদেশে এসে প্রেমিককে বিয়ের সিদ্ধান্ত নেন সারা। গত ১৯ নভেম্বর সারা বাংলাদেশে আসেন। ওইদিন ঢাকার হযরত শাহজালাল (রা.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অপুর সাথে সারার প্রথম সরাসরি সাক্ষাৎ হয়। ওইদিনই তাকে নিয়ে বরিশালের উদ্দেশ্যে রওনা হন অপু।

পরদিন ২০ নভেম্বর বরিশালে এসে পৌঁছালে ক্যালিফোর্নিয়ার নাগরিক সারাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানায় অপুর পরিবার। অপুর মেঝ বোন স্কুল শিক্ষিকা সুমা রুৎ মন্ডল জানান, সারা মেকিয়েন খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বী।

তারাও খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বী। তাই বাঙালি রীতি মেনে বুধবার (২১ নভেম্বর) গাঁয়ে হলুদ এবং আংটি পরিধানসহ বিয়ের নানা আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করা হয়েছে। এরপর আর্শিবাদ করেন চার্চের ফাদার। বিয়ের আনুষ্ঠানিকতার সময় সারা শাড়ি পড়েন।
তিনি ভাঙ্গা ভাঙ্গা বাংলা বলতে পারেন। এ দেশের মানুষের ভালোবাসা এবং আন্তরিকতায় সারা মুগ্ধ বলেও জানান সুমা রুৎ।

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com