|

বাগমারায় বেড়েই চলেছে কাচাঁ বাজারে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম

প্রকাশিতঃ ৯:৩৭ অপরাহ্ন | জুলাই ২০, ২০১৯

বাগমারায় বেড়েই চলেছে কাচাঁ বাজারে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম

নাজিম হাসান, রাজশাহী প্রতিনিধিঃ রাজশাহীর বাগমারা উপজেলায় বেড়েই চলেছে নিত্যপ্রয়োজনীয় কাচাঁ বাজারে দ্রব্যের দাম। গত সপ্তাহের তুলনায় কিছুটা কাচাঁ বাজারের নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম বেড়েছে আরেক দফা।

৪০ টাকা কেজির নীচে কোন সবজি পাওয়া যাচ্ছে না। এতে করে সাধারণ ক্রেতাদের মাঝে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হচ্ছে। বর্ষা মৌসুমের প্রথম ভারি বৃষ্টি হওয়ার শুরু থেকে নিত্য প্রয়োজনীয় সবজির দাম হুট করে বাড়তে শুরু করে।

ক্রেতাদের অভিযোগ,কাঁচাবাজারের নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম অনেক বেশি। মধ্যবিত্তদের ধরা ছোঁয়ার বাইরে। মাছের দাম একটু কমলে সাধারণ ক্রেতাদের হিমসিম খেতে হয় না। কিন্তু এখন সাধারণ ক্রেতাদের নাভিশ্বাস উঠে গেছে কাচাঁ বাজারে।

শনিবার উপজেলায় বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে কাঁচা মরিচ বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকা পোয়া। তবে খুব কম ক্রেতাকেই এক সাথে এক পোয়া মরিচ কিনতে দেখা যাচ্ছে না। ক্রেতারা ১০০ গ্রাম মরিচ বেশি কিনছেন। বাজারে কাঁচা মরিচ প্রতি কেজি ২০০ টাকা, আলু ২০ টাকা,কাঁচা কলা প্রতি হালি ১৬ টাকা, পুইশাক ৩০ টাকা কেজি, ভেন্ডি ৩০ টাকা কেজি, বেগুন ৫০ থেকে ৬০ কেজি, করলা ৬০ টাকা কেজি, কচু ৫০ টাকা আদা ১৮০ টাকা কেজি, রসুন ১৪০ থেকে ১৬০ টাকা প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে।

শুধু আলু ছাড়া প্রত্যেকটি সবজির দাম বেড়েছে দ্বিগুণ করে। সবজি ব্যবসায়ীদের সাথে কথা হলে তারা অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, বর্ষা মৌসুমে সরবরাহ কম থাকায় দাম বাড়ে। পাইকারি বাজারেই বাড়তি দাম। তাই খুচরা বাজারেও এর প্রভাব পড়েছে। তবে প্রশাসনকে এদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জ ্য দাবি জানান যাতে কেউ সিন্ডিকেট করে প্রয়োজনী সবজির দাম না বাড়াতে পারে সে ব্যাপারে নজরদারির আহবান জানান ক্রেতারা।

দেখা হয়েছে: 88
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

  • উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল
  • সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
  • সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
  • প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
  • নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
  • অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
  • বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
  • ই-মেইলঃ [email protected]
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।